কবিতা

তুষার গায়েনের কবিতা: তরঙ্গ

tusar_gayen | 4 Oct , 2016  

Anis
১.
সমুদ্রদূরত্বে কথা বলি আমরা
আকাশদূরত্বে কথা বলি আমরা
নক্ষত্রদূরত্বে কথা বলি আমরা
যতক্ষণ কথা বলি ততক্ষণ
পরস্পর নিবিড় আশ্রয়…
অতীত বিস্মৃত হয়ে যাই
সম্ভাবনা তরঙ্গিত হয়ে ওঠে
আলো আর বিদ্যুত খেলা করে
তারপর কথা কেটে গেলে
ঝিম মেরে বসে থাকা, নিশ্চেতনা
বহমান সন্ধ্যানদীর জল…


২.

নৈঃশব্দ্যে নির্মিত হচ্ছে আমাদের মুখরতা
যেসব কথার ঢেউ অন্তঃসলিলা
একদিন অজস্র ধারায়, ইশারায়
বিদ্যুচ্চমকে মাটির বুকে পড়েছিল ঝরে
উপাদেয় অনুভব লাভার আভায়−
হঠাৎই থামা, মাঝখানে কেটে যাওয়া
কথার তড়পানি টেনে আনে আরো শব্দমূল
বিধ্বস্ত উন্মূল গাছপালা ভেতরে ভেতরে
কাটে একাকী করাত!

৩.
কথা বলো পাখি অফুরন্ত উৎসাহে তোমার
যত কথা খই ফোটা তপ্ত ঠোঁটে−
হাসিতে সঞ্চার দাহ প্রণয় শৃঙ্গার
ধ্যানস্থ আমাকে যদি ভাঙে অপরূপ
ছুঁড়ে ফের দাও কেন গোটানো আঁধার?

তোমার ওড়ার সাধ রঙিন পাখায়
দেখে যারা মুগ্ধ হয়,আয়ত্ত্বে আনতে গিয়ে
বন্দী করে তোমাকেই তারা সীমিত খাঁচায়!

৪.
অনেক দূরত্বে থাকি; আমি জানি,আমি জানি
তোমার বাড়ানো পাখা আমাকে আধার ক’রে
নীলিমায় উড়ে যেতে চায়। খাঁচায় বন্দিনী প্রাণ
বহুকাল থেকে থেকে অধিকৃত খাঁচার মায়ায়!
কীভাবে উড়াল দেবে, বলো, যদি না বিস্মৃত
হতে পারো আয়ত্ত্বাতীত সে তোমার অতীত?

৫.
তরঙ্গ, চুপ হয়ে আছি
কলমে বিদীর্ণ কালি পুনরাবৃত্তি মনে হয়
রক্তধারা থামাতে পারিনি…
কালো কালি যে আলো করে বিকিরণ
তার আকর্ষণ পরাহত উন্মাদের কাছে
পুন্যলোভের ফাঁদে কীটানু পতঙ্গ− ধারাল কৃপাণ
প্রতিদিন ধড়হীন দেহ ফেলে যায় রাস্তায়!
ক্ষমতার সাথে তার চুপিসারী কথা, সান্ধ্যভাষায়
মানুষ বোঝেনা তা,পাখি জানে
তাই সাবধান করে দিতে তোমার জানালায় পাখা নাড়ে
বন্দিনী তুমি রূপে ও প্রজ্ঞায়, জ্বলে ওঠো থেমে থেমে
বাক্য ও রঙের স্ফূর্তি নিয়ে সময়ের বিপরীতে
বাঁশি জানে, দূরাগত আলোক ভাষায়
উদ্ধারের উপায় খোঁজে আর নিরন্তর সঙ্গ দিয়ে যায়…

৬.
চারিদিক অন্ধকার, ব্যক্তিগত কোনো কিছু
নয় গোপনীয় আর। আমাদের দু’ধারেই কাটে
শাঁখের করাত − সিলিকন ভ্যালি থেকে সর্বজ্ঞ ইঁদুর হাতে
ন্যাড়ামাথা রোবট কোজাক আর মরু অন্ধকার বেয়ে
আজানুলম্বিত দাঁড়ি আজদহা সাপ!

অবরোধ সময়ের হাতে যখন সমস্ত কিছু
ভার্চুয়ালি আমাদের আছে এবং কিছু নেই
অদৃশ্য সুতার টানে চংক্রমনে ঘুরিতেছে সব।

৭.
অপ্রকাশের ভার প্রকাশিত হয় নিজস্ব নিয়মে
হলাহল উগরে দিয়েছ অবশেষে যা কিছু তোমার
ধমনীতে সঞ্চারিত রাহুগ্রস্থ পৃথিবীর থেকে −
আমারও তাই, অনিচ্ছায় অধিকৃত বিষ
অমৃতের বিপরীতে কাটে আমাদের !
অন্তর গভীরে তবু বয়ে যায় প্রেমনদী
স্তরীভূত শিলার অতলে বিশুদ্ধ পানীয় জল
নিজেকে নিঃশব্দে বহমান রেখে দিতে জানে …

ইতিপূর্বে আর্টস বিভাগে প্রকাশিত তুষার গায়েনের অন্যান্য লেখা:

জঙ্গীদেশে সরস্বতী
যে কান্না কংক্রিট ভেদ করে যায়
যে শালিখ মরে যায় কুয়াশায়: কবি খোন্দকার আশরাফ হোসেন স্মরণ
তুষার গায়েনের দুটি কবিতা
কবিতাগুচ্ছ

Flag Counter


3 Responses

  1. জুনান নাশিত says:

    ভালো লাগলো।ধন্যবাদ কবি তুষার গায়েন

  2. সাহানা মৌসুমী says:

    অনেক ভাল লাগল! কবিকে ধন্যবাদ।

  3. Tushar Gayen says:

    অনেক ধন্যবাদ কবি জুনান নাশিত এবং সাহানা মৌসুমী,
    আপনাদের আন্তরিক পাঠ এবং মন্তব্যের জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.