কবিতা

কোথাও ক্রন্দন নেই

তাপস গায়েন | 16 Aug , 2015  

niladri.jpg(নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় স্মরণে)

আমার স্বপ্ন রাতের অরণ্যে নিরুদ্দিষ্ট এবং বিভ্রান্ত; আমার স্বপ্ন আমার শব্দের মতোই উদ্‌ভ্রান্ত । মাতৃস্তন্য থেকে জাগ্রত শিশু এখন ক্রন্দনরত, কারণ তার স্বপ্নে নিরন্তর রক্তপাত, অন্ধকারাচ্ছন্ন শক্তি, আর মুণ্ডহীন মানুষের আনাগোনা ! লৌকিক আর অলৌকিকতার মাঝে স্বপ্ন তার কান্নার মতোই বিক্ষিপ্ত এবং দোদুল্যমান। আমরা হয়েছি যারা শিশুদের পিতা, তারা সন্ত্রস্ত, আর কান্না থামাতে ব্যর্থ শিশুদের জননীরা স্তদ্ধ, বিহ্বল । এখন ওভিদের রূপান্তর নেই, নেই ঠাকুমার রূপকথার কোনো প্রবাহ!

এখন সময় পৈশাচিকেরঃ কল্পনাহীন ধর্মীয় উন্মাদদের, আর ধূর্ত বেনিয়াদের। আমাদের ধর্মগ্রন্থের শ্লোকগুলোর অধিকাংশই নিষেধাজ্ঞামাত্র; চিন্তাহীন, কল্পনাপ্রতিভাহীন মানুষের ইহকাব্য! ফেইসবুক, ইনষ্টাগ্রামহীন মানুষের জীবন যেমন ছিল সত্য, তারও অধিক সত্য- ঐশীগ্রন্থপূর্ব এই পৃথিবীতে ছিল মানুষের জীবনযাপন, তার উৎসব, আর তার হৃদয়ের অধিষ্ঠান। এই পৃথিবীপৃষ্ঠে পা রেখে, আকাশের নীচে দাঁড়িয়ে জেনেছিঃ ঈশ্বর এই দেহের মতোই নশ্বর !

তবু নির্বোধ মানুষ মেতেছে ধর্মযুদ্ধে, করেছে মানুষ সংহার। আজ আমাদের নেই কোনো অভয়ারণ্য। লক্ষ্মীপেঁচার দৃষ্টি এখন অস্বচ্ছ, পেন্থারের পদক্ষেপ সীমিত। ক্রূর মানুষের হাতে নিহত হয়ে পড়ে আছে শিঙহীন রাইনো, দন্তহীন হস্তী, আর মুণ্ডহীন সিংহ ! যেখানে স্বাধীনতা, হোক তা উজ্জ্বল চিন্তার কিংবা অসীম অনুভবের কিংবা দীর্ঘ পদক্ষেপের, সেখানেই ধ্বংসের আয়োজন, চাপাতির আঘাতে ছিন্নভিন্ন পড়ে আছে বুদ্ধিদীপ্ত তরুণের দেহ; তার রক্তে ভেসে যায় বাক, ভেসে যায় শব্দ, আমাদের অস্তিত্বের আদি সত্য !

আমরা ভুলেছি প্রতিবাদের ভাষা; অনুভবহীন, হৃদয়হীন ধর্মসত্যে আমরা হয়ে আছি স্থবির পাথর। আমাদের প্রেম আজ ভ্রান্তিতে পূর্ণ, কারণ আমাদের শব্দ আমাদের স্বপ্নের মতোই নিরুদ্দিষ্ট এবং বিভ্রান্ত । পরিযায়ী পাখিরা ফিরে আসে, কিন্তু আমার শব্দরা নিরুদ্দিষ্ট । কোথাও ক্রন্দন নেই, রক্তগঙ্গার মতো আমাদের দৈনিন্দন জীবন তবু বয়ে চলে!

আগষ্ট ১৪, ২০১৫, নিউইয়র্ক
Flag Counter


3 Responses

  1. Sefat Ullah says:

    Excellent:
    তবু নির্বোধ মানুষ মেতেছে ধর্মযুদ্ধে, করেছে মানুষ সংহার।
    আমরা ভুলেছি প্রতিবাদের ভাষা; অনুভবহীন, হৃদয়হীন ধর্মসত্যে আমরা হয়ে আছি স্থবির পাথর। আমাদের প্রেম আজ ভ্রান্তিতে পূর্ণ, কারণ আমাদের শব্দ আমাদের স্বপ্নের মতোই নিরুদ্দিষ্ট এবং বিভ্রান্ত । পরিযায়ী পাখিরা ফিরে আসে, কিন্তু আমার শব্দরা নিরুদ্দিষ্ট । কোথাও ক্রন্দন নেই, রক্তগঙ্গার মতো আমাদের দৈনিন্দন জীবন তবু বয়ে চলে!

  2. শোহেইল মতাহির চৌধুরী says:

    আমাদের ধর্মগ্রন্থের শ্লোকগুলোর অধিকাংশই নিষেধাজ্ঞামাত্র; চিন্তাহীন, কল্পনাপ্রতিভাহীন মানুষের ইহকাব্য! ফেইসবুক, ইনষ্টাগ্রামহীন মানুষের জীবন যেমন ছিল সত্য, তারও অধিক সত্য- ঐশীগ্রন্থপূর্ব এই পৃথিবীতে ছিল মানুষের জীবনযাপন, তার উৎসব, আর তার হৃদয়ের অধিষ্ঠান। এই পৃথিবীপৃষ্ঠে পা রেখে, আকাশের নীচে দাঁড়িয়ে জেনেছিঃ ঈশ্বর এই দেহের মতোই নশ্বর !

  3. চমৎকার। এর আস্বাদ গ্রহণের মত সূচীতা, বাসনা এবং জ্ঞানও যে একালে অভাব!

    আমাদের ধর্মগ্রন্থের শ্লোকগুলোর অধিকাংশই নিষেধাজ্ঞামাত্র; চিন্তাহীন, কল্পনাপ্রতিভাহীন মানুষের ইহকাব্য! ফেইসবুক, ইনষ্টাগ্রামহীন মানুষের জীবন যেমন ছিল সত্য, তারও অধিক সত্য- ঐশীগ্রন্থপূর্ব এই পৃথিবীতে ছিল মানুষের জীবনযাপন, তার উৎসব, আর তার হৃদয়ের অধিষ্ঠান। এই পৃথিবীপৃষ্ঠে পা রেখে, আকাশের নীচে দাঁড়িয়ে জেনেছিঃ ঈশ্বর এই দেহের মতোই নশ্বর !

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.