সাহিত্য সংবাদ

জে কে রওলিং: ‘মুসলিমদের সবাই সন্ত্রাসী নয়’

chintaman_tusar | 13 Jan , 2015  

rowling.gifপৃথিবীর বেস্ট সেলার শীর্ষ লেখকদের তালিকায় অবস্থানকারী জে কে রওলিং ফরাসি রম্য পত্রিকা ‘শার্লি এবদো’-এর কার্যালয়ে হামলা প্রসঙ্গে মিডিয়া টাইকুনখ্যাত রুপার্ট মারডকের মন্তব্যের বিরোধিতা করেছেন। হ্যারি পটারখ্যাত লেখক রওলিং সম্প্রতি এই বিরোধিতার মাধ্যমে জানিয়ে দিলেন তার রাজনৈতিক অবস্থান। লেখকরা সাধারণত রাজনৈতিক প্রসঙ্গ এড়িয়ে চলেন। কেউ কেউ আবার রাজনৈতিকভাবে সরবও থাকেন, সংখ্যায় যদিও তারা খুবই কম। তবে জনপ্রিয় ধারার লেখকদেরকে এই সরব অবস্থানে খুব একটা দেখা যায় না। স্টিফেন কিং, ড্যান ব্রাউন, রোয়াল্ড ডাল, বিল ব্রাইসন, মার্ক হ্যাড্ডন প্রমুখ জনপ্রিয় লেখকদেরকে অন্তর্জাতিক রাজনৈতিক ঘটনায় নাক গলাতে দেখা যায়নি খুব একটা। রওলিং সে ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম অবশ্যই। আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক অঙ্গনে সম্প্রতি আলোচিত বিষয় ‘শার্লি এবদো’-এর কার্যালয়ে সন্ত্রাসী হামলার মতো স্পর্শকাতর বিষয়ে জে কে রওলিং বলেন, সন্ত্রাসের জন্য শান্তিপ্রিয় মুসলিমরা আমার চেয়ে বেশী দায়ী না কোনোভাবেই।

ফরাসি রম্য পত্রিকা ‘শার্লি এবদো’-এর কার্যালয়ে হামলার দায় ঢালাওভাবে মুসলনমানদের প্রতি আরোপ করেছেন অনেকেই। কিন্তু হ্যারি পটার সিরিজ খ্যাত লেখক জেকে রওলিং মনে করেন মুসলিমদের সবাই সন্ত্রাসী নয়।

ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ান জানায়, মিডিয়া টাইকুনখ্যাত রুপার্ট মারডকের টুইটের সূত্র ধরেই প্রকাশিত হয় জেকে রওলিংয়ের মনোভাব। সোমবার রুপার্ট মারডকের টুইট-এর সূত্রে ক্ষুদে ব্লগ টুইটারে রওলিং লেখেন, “আমি জন্মসূত্রে খ্রিস্টান। রুপার্ট মারডক যদি এর দায় আমার উপর চাপায়, আমি সরাসরি ধর্ম ত্যাগ করব।”

“সম্ভবত, সব মুসলমান” শান্তিপ্রিয় কিন্তু এর দায় তাদের কেউ এড়াতে পারেন না, “যতক্ষণ পর্যন্ত নিজেদের ভেতর থেকে তারা ক্রমবর্ধমান জিহাদী ক্যান্সার সনাক্ত ও ধ্বংস না করে।” শনিবার সকালে টুইটারে এ কথা লিখেছিলেন মারডক।

মারডক, হাজার টুইটটের প্রতিউত্তরে রাজনৈতিক সংস্কারের কথা বললে সমালোচনা আরও বাড়তে থাকে।

মারডক লিখেছিলেন: “Big jihadist danger looming everywhere from Philippines to Africa to Europe to US. Political correctness makes for denial and hypocrisy.”

টুইটারে দ্রুতই এর উত্তর দেন রওলিং। ব্যাঙ্গ করে বলেছেন, এই নৃসংশতার দায় নিতে হবে স্প্যানিশ ক্যাথলিক গির্জার আদেশকে: “স্প্যানিশ ইঙ্কুইজিশন তৈরি করা আমার ভুল ছিল, এরই ফল খ্রিস্টান মৌলবাদীদের সহিংসতা।”

একই টুইটের প্রতিউত্তর করতে গিয়ে রওলিং একটি গবেষণামূলক তথ্য দিয়েছেন, মুসলিম সন্ত্রাসীদের দ্বারা মুসলিম নিহত হওয়ার হার অমুসলিমদের চেয়ে আট গুন বেশী।

একইসঙ্গে খৌসার সুপারমার্কেটে কর্মরত মুসলিম লেসানা ব্যাথিলের “সাহস ও দরদের” প্রসংশা করেছেন রওলিং।

‘শার্লি এবদো’ ঘটনার পর আক্রান্ত হয় খৌসার সুপারমারকের্ট। অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের অবরোধের মুখে পড়ে কিছু সাধারণ নাগরিক। কয়েকজন ইহুদী ধর্মাবলম্বী ক্রেতাকে মার্কেটের হিমঘরে লুকাতে সহায়তা করেন লেসানা।

Flag Counter


9 Responses

  1. Shakher says:

    Well Said…valo laglO

  2. মুন খান says:

    Who manufactures arms ? are they Muslim ? just think ! use your brain.
    Muslim only using arms rather their brain. Who gave them arms ? just ask yourself.

  3. M.A.R. Qudry says:

    Musolmander kewo sontrashi noy. jara sontrashi tara muloto musolmader sotruder dalal.

  4. Dilruba Shahana says:

    যে কোন ব্যক্তি তার কৃতকর্মের জন্য অভিযুক্ত হোক, ধর্মের জন্য অবশ্যই নয়। এই মূহূর্তে পৃথিবী জুড়ে শার্লি এবডোর নৃশংস হত্যাযজ্ঞের নিন্দা হচ্ছে, আরও হবে। নৃশংসতা যেখানেই হউক সে আবু গারিব বা গুয়ান্তানামোর বন্দীশালায়, বা প্যারিসে এধরনের সবকর্ম একইভাবে নিন্দনীয়। তবে সামান্য তথ্য জানা দরকার। সবাই শার্লি এবডোর ঘটনায় দুঃখিত হলেও অনেকেই শার্লি এবডো হতে অনিচ্ছুক। তাদের মত হল, শার্লি এবডো মত প্রকাশের অধিকার চর্চ্চা করছিল না; শার্লি এবডো অপমান করার অধিকার চর্চ্চা করছিল! মত প্রকাশের অধিকার সবার আছে, তবে অপমান করাটা কোন মানবধিকার সনদে আছে কি?

  5. ফজলুল হক says:

    Those who make Muslims Terrorist are not Muslims.

  6. arif says:

    জে কে রওলিং: ‘মুসলিমদের সবাই সন্ত্রাসী নয়’ তার মানে কি যারা সন্ত্রাসী তারা সবাই মুসলিম? হাউ ফানি :প

  7. Md.Raktib says:

    যে সমস্ত মৌলবাদী মুসলিম সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালাচ্ছে সারা পৃথীবিতে তাদেরকে নিশ্চিহ্ন করা উচিত। কারণ মুসলিম ধর্মটাই এখন খারাপ ধর্ম হিসেবে বিবেচিত হতে শুরু করেছে ঐসমস্ত সন্ত্রাসীদের কারণে।

    মো: রাকিক, চট্টগ্রাম।

  8. RAKESH says:

    HA HA HA…. 99.999% TERRORIST ARE FROM MUSLIM RELIGION !
    BUT MUSLIM R PEACEFULL (JOK F D DECADE !)
    ভালো লাগলো

  9. abul kalam azad says:

    মাত্র কয়েকজন মানুষ মরায় এই অবস্হা ।প্যারিস জুড়ে লক্ষ্য লক্ষ্য লোকের মিছিল অথচ ইরাকে যে অযুহাত নিয়ে আক্রমণ করা হলো পরে সেটি ভূয়া প্রমাণিত হলো কিন্তু ততদিনে দশলক্ষের বেশী মানুষ মারা গেছে ।এই মানুষগুলোর জীবনের দাম নেই ।নাকি এরা মুসলিম তাই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.