অনুবাদ কবিতা

আমেরিকার সাম্প্রতিক কবিতাগুচ্ছ

reza_noor | 16 Sep , 2013  

চার্লস সিমিক

[ চার্লস সিমিক (ঈযধৎষবং ঝরসরপ ) এর জন্ম যুগোস্লাভিয়ার বেলগ্রেডে, ১৯৩৮ সালে। আমেরিকায় আসেন ষোল বছর বয়সে। নিউইয়র্ক ইউনিভার্সিটি থেকে গ্রাজুয়েশন করেন। প্রথম বই, কবিতার, প্রকাশিত হয়, ১৯৫৯-এ। বিশটি কাব্যগ্রন্থসহ মোট ৬০ টি বই প্রকাশিত হয়েছে। কবিতা সংকলনের মধ্যে, Walking the Black Cat, A Wedding in Hell, Hotel Insomnia উল্লেখযোগ্য। The World Doesn’t End কাব্যগ্রন্থের জন্য পুলিটজার পুরস্কার পান ১৯৯০ এ। বর্তমানে সিমিক ক্রিয়েটিভ রাইটিং ও সাহিত্য পড়ান নিউ হ্যাম্পশায়ার ইউনিভার্সিটিতে।]

তাসের ঘর

মনে পড়ে তোমাদের, নিবু আলোর
শীতের সন্ধ্যারা।
মায়ের নীরব ঠোঁট
খাবার টেবিলে বসার সময়
আমাদের রুদ্ধ শ্বাস।

তাঁর দীর্ঘ চিকন আঙুল
তাস জড়ো করছে,
অপেক্ষায়, কখন ঝরে পড়ে তারা।
রাস্তায় বুটের আওয়াজ
এক মুহূর্ত
নিথর করে আমাদের।

আর কিছু বলার নেই।
দরজায় তালা,
একটা লাল-ছোপ জানালা,

উঠোনে, পাতাহীন অযথা
গাছটা দাঁড়ানো।

আলিশা ওস্ট্রিকার

[ আলিশা ওস্ট্রিকার কবি ও প্রবন্ধকার। জন্ম, নিউইয়র্ক সিটির ব্রুকলীনে, ১৯৩৭ সালে । ব্যাচেলর ডিগ্রী অর্জন করেন ব্রানডিস ইউনিভার্সিটি থেকে, এবং সাহিত্যে এমএ ও পিএইচডি অর্জন করেন উইসকনসিন-ম্যাডিসন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। কবিতার বই, ১৪ টি। সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে, No Heaven, The Book of Seventy, The Book of Life: Selected Jewish Poems, 1979-2011 । কবিতা ও বাইবেল বিষয়ক প্রবন্ধ, For the Love of God: The Bible as an Open Book । আলিশা শিক্ষকতা করেন ড্রু ইউনিভার্সিটি ও নিউ ইংল্যাণ্ড কলেজে। বসবাস করেন নিউ জার্সির প্রিন্সটনে।]

সংগীত

কেউ বলে সংগীতের শুরু
রণ হুংকার থেকে
কৃষকের ফসল বোনা ও কাটার সময়
আওড়ানো ছড়া, বলে কেউ।
তারা কি জানে না, মায়ের ঘুম থেকে তুলে আনা
ঘুম পাড়ানী গানই প্রথম গান,
বললো বৃদ্ধা রমণী

এই বসন্তে বেঁচে থাকার আনন্দ
সজীব রাখার
সমুহ কারণ
পাখির গান,
যেন বিছানো জালের ঘের ঘিরেছে আমাকে
হীরের বৃষ্টির মতো, শুনতে পাই না
ভালমতো, বললো টিউলিপ

জীবনের পর জীবন
রক্তের তৃষ্ণায়
আমি আর আমার প্রিয় ভায়েরা
আলোড়ন তুলেছি পাহাড়ে
সুন্দর গান গেয়ে গেয়ে
বললো, কুকুর।

এডুয়ারডো সি. কোর‌্যাল

[এডুয়ারডো সি. কোর‌্যাল-এর জন্ম অ্যারিজোনা স্টেইটের কাসা গ্রানদে’য়, ১৯৭৩ সালে। প্রথম কবিতার বই, , Slow Lighting ২০১১’র ‘ইয়েল সিরিজ অব ইয়োংগার পোয়েটস’ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয়। এ ছাড়া কবিতার জন্য তিনি, ‘ডিসকভারী/ দি নেশান’, এবং ‘হোয়াইটিং রাইটার্স’ পুরস্কার অর্জন করেন। এডুয়ারডো বসবাস করেন, নিউইয়র্ক সিটিতে।]

সুন্দর-প্রাণীর প্রতি

উজ্জ্বল যা কিছু, সংগীত নয়।

একবার, দীর্ঘ ঘাসের ভেতরে লুকিয়ে,
একমুঠো ধুলো হাওয়ায় উড়িয়েছিলাম:
হরিণী, শুধু হরিণী ছুটে বেড়ায়।

বলেছিলে, আলোর খেলা ছাড়া
এ আর কিছুই নয়। স্বর্ণ
বাঁক নেয়। স্বর্ণ চমকায় রুমালের মতো।

আমি কি তোমার প্রাণী নই?

ঘন্টার পর ঘন্টা বাগানে বসে থাকতে পারো
এই ভেবে
ছায়া থেকে হেঁটে আসবে হরিণ।

বলেছিলে, এ যেন কালো কেস থেকে
বেহালা তুলবার মতো কিছু।

পূরবী শাহ

[ পূরবী শাহ জন্মেছেন ভারতের আহমেদাবাদে। বর্তমানে বসবাস করছেন নিউইয়র্ক সিটিতে। তাঁর কবিতা প্রকাশিত হয়েছে Contours of the Heart : South Asians Map North America; Descent; Nugor Asian; Weber Studies এবং Brooklyn Review তে। পূরবী ‘এশিয়ান প্যাসিফিক অ্যামেরিকান জার্নাল’-এর সম্পাদক। ]

মানচিত্রকর প্রিয়তমকে দ্যাখে, ১০০০ মাইল দূরে

ওই দূরে রেখারা মিলিত হয়
বাঁকা ও সংকীর্ণ জিনিসগুলো কুঞ্চিত হয়ে থাকে
সমুদ্রের বাইরে। পৃথিবী
এখন উদ্বায়ী। আমরা ধ’রে আছি
একে অন্যের হাতের তালু,
ছাড়া ছাড়া ভঙ্গিমায়, আঁকড়ে আছি আঙুলগুলো।

যখন আমি দাঁড়াই দৃঢ়, রেলপথের
টিকিটের অপেক্ষায়, ফিরে দাঁড়াই
অচেনা কাউকে দেখে,—- ‘আপনি
কেমন ক’রে দূরত্ব মাপেন?’

আপনি কি নির্ভূল মাইল মাপতে পারেন আলোর মতো,
ট্রেনের প্রতিধ্বনি জড়িয়ে ধরতে পারেন
বাতাস একে গ্রাস করার আগেই? আপনি কি মাপতে পারেন
সময়ের চাপ যখন তা পুড়িয়ে দেয়
বালুচর উপকূল থেকে? আপনি কি বলতে পারেন, ‘ক্ষয়’
একটি বর্ণমালায়। পেতে পারেন এমন কাউকে যে
আপনার যন্ত্রণা আঁকড়ে ধরতে পারে,
তাদের জন্যে তালিকা করতে পারেন
হাত থেকে হৃদয়ের ওঠানামা? অথবা দূরত্ব কি
ভূ-খ-ের সাদৃশ্য হতে পারে, স্থান বিবরণের
গঠন বিন্যাস?’

তোমার সোহাগের প্রত্যাশী হই,
কেমন চঞ্চল হয়ে উঠেছিলে
দেখতে আমার সুডৌল শরীরের বাঁক,
প্রস্ফূটিত অঙ্গ, উঁচু-নিচু, মসৃণ,সমতল
পাথরের মতো।

পাশের কেউ সংকেত দিলো অনুসন্ধান
ডেস্কে। সে আমাকে আঁকতে দেখবে,
একটি স্কেল শ্রেণীবদ্ধ করতে। তবু

বুঝতে পারি না। এমনকি আমার অনুশীলনে
ভ্রমণবিদ্যায়, জীবনের ক্রমবিবর্তনে, আমি বুঝতে পারিনা
বিচ্ছেদের এই প্রাকৃতিকতা।

Flag Counter


6 Responses

  1. রেজওয়ান তানিম says:

    বেশ লাগল রেজা ভাই,

    আগের অভিজ্ঞতার মতই এখানেও ঝরঝরে অনুবাদের দেখা পেলাম

  2. কামরুল ইসলাম হুমায়ুন says:

    রেজা ভাই, চালিয়ে যান। আপনার এ প্রয়াসটি ব্যতিক্রমী। এর মাধ্যমে আপনাকে ভিন্ন একটি দ্যোতনায় পাচ্ছি আমরা। আর সাম্প্রতিক আমেরিকান কবিতাধারটাও জানা হচ্ছে। সেই দিনটির কথা মনে পড়ছে যখন বিদেশ থেকে এসে সাম্প্রতিক আমেরিকান কবিতার একটি সংকলন বের করেছিলেন। সেই থেকে চলছে আপনার রথ।
    আজকের অনুবাদগুলো খুব ভালো লাগলো। খুব সহজ করে হৃদয়গ্রাহী করে মার্কিন কবিতাগুলোকে চিত্রায়িত করার দক্ষতা রয়েছে আপনার। এটা মনে করি সবাইকে টানবে। পড়তে ভাল লাগে আপনার তরজমা..

  3. jhoneey says:

    খুব ভালো লেগেছে। মনেই হয়নি অনুবাদ পড়ছি। আগামীতে আরো চাই।

  4. harun jamil says:

    chacha valoi to laglo. probash a boshe kabbo sadhona ta o abar onubad kormo khub e kothin. valo chesta chalate thaken.

  5. Ehsan says:

    ভাল লাগল। এ রকম প্রয়াসের জন্য রেজা সাহেবকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

  6. রেজা নুর says:

    অশেষ ধন্যবাদ, সবাইকে :

    ৥ রেজওয়ান তানিম
    ৥ কামরুল ইসলাম হুমায়ুন
    ৥ Jhoneey
    ৥ Harun Jamil
    ৥ Ehsan

    শুভেচ্ছা । :)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.