কবিতা

চোখ তুই দেখে নে

matin_bairagi | 29 Apr , 2013  

চোখ তুই দেখে নে আজ, ভালো করে দেখ আলো ফেলে ফেলে
মানুষের ললাট লিপি পড়তে পারবি! পারবি না কেনো ? মাউসটা ঘুরা
ক্লিক কর দেখ জীবন আর মৃত্যু কতো কাছাকাছি দুই সহোদর
শুয়ে আছে তাল তাল কংক্রিট লেপে। দেখ ছবি – ছায়া- চোখ -পায়ের নুপুর
বাঁচিবার স্বাধ; কি অবাক কি অবাক -ভাঙা হাত,ছেড়া পাঁজর, দুমড়ানো পা
থেতলানো মাথা না আর না – উপড়ানো চোখ দেখছে নিজের ললাট
চোখ আজ তুই খোলামেলা হ’ প্রসারিত হ’ বিস্তৃত হ’ দৃশ্য সাজা ক্ষমতার-লোভের
দাপটের- রাজনীতির -স্বার্থের বিবৃতির-
শোন দেখে নে, মানুষের মৃত্যুর হোলি-উৎসব
সড়কে, রাস্তায়, গৃহে, ময়দানে নেমে আসছে অচেনা আঁধার ।

চোখ তুই দেখ, দেখে নে- বলিস যদি কিছু দলবাজ হয়ে যাবি –
তবু দেখ খোলামেলা দেখ দূরত্ব ঘুঁচিয়ে আজ কাছ থেকে দেখ এই মৃত্যুর
কোন জবাব পাবি না । দেখ, দেখে নে মৃত্যুর ঝাঁক কাঁধে চড়ে হাঁটছে কোথায় নয়
থামছে না কেউ, বলছে না খামোশ- আর নয় একটুও না
এই দাঁড়ালাম শক্ত মাটিতে পা -শোন-একচুলও নড়ছিনা
স্বার্থপর রাজনীতি আর তার যতো পরগাছা নিপাত যা নিপাত যা

চোখ তুই দেখে নে, ভালো করে দেখে নে, আলো ফেলে ফেলে দেখ
মানুষের বুকের স্ক্রিনে ব্রাউজ কর ঠিক মতো ক্লিক কর পড়তে পারবি
লেখা আছে ‘আজ তোমাদের ছিলো কাল হবে আমাদের-’

২৮.০৪.১৩

Flag Counter


11 Responses

  1. Ali Habib says:

    এভাবেই চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেওয়া যায় বাংলাদেশের শ্রেণীবৈষম্য। চারদশক পেরিয়ে গেল স্বাধীনতার, আজো সাম্য এলো না সমাজে। এ পুঁজিবাদী সমাজ ব্যবস্থা, শোষিতের পক্ষে তো কেউ থাকে না। তবু আমরা আমাদের বিশ্বাস থেকে চ্যুত হবো না। ধ্বংসস্তুপে লাশের মিছিল নয়, প্রাণময় পৃথিবীতে জীবনের জয়গান গাইবার স্বপ্ন দেখব আমরা।

  2. Manik Mohammad Razzak says:

    ‌’আজ তোমাদের ছিল কাল হবে আমাদের’ এই সান্ত্বনা বাণী বুকে নিয়ে আর কত? কমতো দেখা হলো না। কার্ল মার্ক্সওতো এখন বিস্মৃতির অতলে হারিয়ে গ্যাছে। এই সভ্যতা, এই বিভ্রান্তি নিয়ে আর কতদূর যেতে হবে? ব্যক্তিগত সম্পত্তির কনসেপ্ট কবে তিরোহিত হবে, কবে আবার নতুন সূর্য উঠবে? এ সমস্ত প্রশ্নের উত্তরের প্রত্যাশায় হয়তোবা এখনো কবিতা ভাল লাগে। আমরা ফিরে যাই কবিতার কাছে, মোমের আলোতে বসে পাঠ করি জীবনের অনেক আখ্যান আর এ কারণেই হয়তোবা মতিন ভাইয়ের কবিতাটি আমার কবিতা হয়ে উঠেছে, আমাদের কথা হয়ে উঠেছে। ধন্যবাদ মতিন ভাই। ভাল লিখেছেন। ভাল থাকবেন।

    মানিক রাজ্জাক

  3. omar shams says:

    আধুনিক বিজ্ঞান-প্রযুক্তির ইমেজারি দিয়ে মানুষের আদিম প্রবৃত্তির ছবি ফুটিয়েছেন মতিন বৈরাগী । ভালো কবিতা, বার-বার পড়ার জন্য। — ওমর শামস

  4. jhoneey says:

    এই বাংলাদেশ এখন শ্রমজীবী মানুষের নির্মম মৃত্যুর ঠিকানা। এখানে পুঁজিবাদও অচল, এখানে এখন একটি বাদই সচল আর তা লোভবাদ । এর কোন সীমা নেই সীমানা নেই কোন ধর্ম নেই। স্বাধীনতার চারদশকে প্রাপ্তি এই একটিই রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় জান্তবলোভে লাশের স্তুপ। রাজনীতি সমাজনীতি ধর্মনীতি সর্বত্রই এই লোভবাদের দানবীয় প্রতাপ। কবি মতিন বৈরাগী এই নির্মম লোভের ঠিকানাটা দেখেই বলছেন বার বার ক্লিক করতে। বিষ্ফারিত চোখে নিজের বুকের মধ্যে ক্লিক করতে না পারলে এই স্তুপিকৃত লাশের গন্ধ থেকে যে লোভের মস্ত ঠিকানাটা বেড়িয়ে আসছে তাকে দেখা যায়না।

  5. hasan shahriar says:

    লেখা আছে ‘আজ তোমাদের ছিল কাল হবে আমাদের’।- ধন্যবাদ কবিকে। জনগণের নেতা শ্রমিকশ্রেনী এবং তার আপোষহীন শ্রেনীসচেতন নেতৃত্ব-ই পারে সাম্যের আগামী গড়তে। অনুপ্রেরণা হতে পারে এইসব কবিতা সাহিত্য। কাজেই এগুলোকে শ্রমিকদের মাঝে নিয়ে যাওয়াও এখন আমাদের দায়িত্ব।

  6. fariduzzaman says:

    কবি মতিন বৈরাগীর কবিতায় মাফিয়া তথা দুর্বৃত্তের রাজনীতি এবং গণমানবের ট‌্রাজেডি শৈল্পিকভাবে ফুটে ওঠে। মাফিয়াচক্রের হাতে আমাদের শ্রমবাজার। শ্রমিক হত্যা যার বিধিলিপি যেন। সাভার ট‌্রাজেডি যার ধারাক্রম। এখানেই শেষ নয় বরং বলা যেতে পারে শুরু, যদি না এই দৈতকে আমরা রুখতে পারি। বলা যেতে পারে হন্তারক দৈতকে রুখতে কবি মতিন বৈরাগী আজীবন কবিতা লিখে চলছেন ।

  7. Taposh Gayen says:

    কবির ইচ্ছা, ‘আজ তোমাদের ছিলো কাল হবে আমাদের’ হয়তো কোনোদিনই বাংলাদেশের মাটিতে বাস্তবায়ন হবে না। সে-কারণেই কবি মতিন বৈরাগী এখানে ত্রিকালদর্শী ভূমিকায় না নেমে নিরহংকারভাবে স্বপ্নের ফেরিওয়ালা হয়েছেন । কবিতায় বাস্তবতার অনুভব এবং কবিতা সংগঠনের দক্ষতা আমাদেরকে অনুপ্রাণিত করে ।

  8. এমদাদুল আনোয়ার(Emda„dul` Anwar) says:

    “চোখ তুই দেখে নে আজ।” চোখ বুঁজে আসে। এখন আর চোখ কিছুই বিশ্বাস করেনা। কারণ, “থামছেনা কেউ, বলছেনা খামোশ, আর নয়–একটুও না/এই দাঁড়ালাম শক্ত মাটিতে পা -শোন-একচুলও নড়ছিনা/স্বার্থপর রাজনীতি আর তার যতো পরগাছা নিপাত যা নিপাত যা।”

    বহুকাল মানুষের বস্তুনিষ্ঠ দুঃখ ছিল। তাকেই মানুষ সংঘন করেছে। এখনকার দুঃখতো বস্তুনিষ্ঠ দুঃখ নয়। বরং এসব ভৌতিক দুঃখ। লোহাই যদি গলানো সম্ভব হোল, বরফ কেন নয়। আর সে কারণে চোখ যতই অবিশ্বাস করুক, চোখকে আস্থার সাথে জোর দিয়েই বলা যায়, “চোখ তুই দেখে নে, ভালো করে দেখে নে, আলো ফেলে ফেলে দেখ মানুষের বুকের স্ক্রিনে ব্রাউজ কর ঠিক মতো ক্লিক কর পড়তে পারবি
    লেখা আছে ‘আজ তোমাদের ছিলো কাল হবে আমাদের।”কবিতায় উদ্ধৃত এই কাল হয়তো ভিত্তিহীন কাঠামোয় আবার দাঁড়াবে এবং ধ্বসে যাবে। তবুও লোহাকে গলাতে শেখা মানুষেরা বরফের কাছে হেরে যাবে,তা বিশ্বাসযোগ্য নয়। ব্যার্থতার গ্লানি হয়তোবা আরো বহুবার আমাদের হতাশ করবে। কিন্তু তার অবসান যেদিন হবে, ভালোভাবেই হবে। তাই কবির দৃপ্ত উচ্চারণ “আজ তোমাদের ছিল কাল হবে আমাদের”—হাবল টেলিস্কোপের দূরদর্শনের চেয়েও সত্য এবং স্পষ্ট।

  9. সব দেখেশুনে চোখ অন্ধ হয়ে গেছে। দর্শন ইন্দ্রিয়ের কষ্ট সবচেয়ে বেশি। এতো অপদৃশ্য কালো দৃশ্য একে দেখতে হয় যে তা কল্পনাতীত। মতিন বৈরাগীর ‘চোখ তুই দেখে নে’ কবিতাটি পড়ে খুব ভালো গেগেছে। বিরূপ সময়ের তীব্র যন্ত্রনার প্রকাশ তার কবিতা। কবিকে অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের চেতনাকে নাড়া দেওয়ার জন্য।

  10. matin bairagi says:

    কবিতা প্রসংগে যাঁরা মতামত দিয়েছেন,ভালো লাগার কথা জানিয়েছেন কোন না কোন ভাবে,তাঁরা প্রত্যেকেই আমার প্রিয় আর শ্রদ্ধার মানুষ,লেখক কবি, সৃহৃদ _ আপনাদের সকলকে আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা । কবিতাটি তাৎক্ষণিক লেখা, কিছুটা সংশোধনের এখনও দাবী রাখে, তার পরেও আপনাদে ভালো লেগেছে জেনে আনন্দই লাগছে এবং উৎসাহ বোধ করছি । আপনাদের প্রত্যেককে জানাই আবারও শুষেচ্ছা, ভালো থাকবেন সবাই। মতিন বৈরাগী ।

  11. matin bairagi says:

    …..যাঁরা প্রতিক্রিয়া জানান নি, পড়েছেন তাঁরাও আমার শ্রদ্ধা ভালোবাসা জানবেন। পাঠকের সহযোগিতাই কবিকে লিখতে, প্রকাশ করতে মূল্যবান সাহস/অনুপ্রেরণা যোগায়। ভালে থাকবেন সবাই ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.