ই-লাইব্রেরি

আর্টস ই-বুক: চণ্ডীচরণ মুনশী’র ‘তোতা ইতিহাস (১৮০৫)’

admin | 22 Apr , 2011  

তোতা ইতিহাস

তোতা ইতিহাস

প্রথম প্রকাশ: ১৮০৫

চণ্ডীচরণ মুনশী

(জন্ম: অজানা–মৃত্যু: ২৬ নভেম্বর ১৮০৮)

 

চণ্ডীচরণ মুনশী সম্পর্কে সজনীকান্ত দাস কিছু তথ্য সংগ্রহ করেছেন; তার বাইরে বিশেষ জানা যায় না। কিন্তু সেখানেও চণ্ডীচরণ মুনশী’র জন্মসাল এবং তাঁর বাসস্থান বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য নেই। তাঁর পিতা-মাতা’র পরিচয়ও অজানা। তাঁর মৃত্যুর বিষয়ে জানা যায় ইন্ডিয়া সরকারের দপ্তরে রক্ষিত Home Miscellanneous (Vol. 560, P. 554) থেকে। এখানে দেখা যায় তাঁর মৃত্যু হয়েছিলো ১৮০৮ সালের ২৬ নভেম্বর।

১৮০১ খ্রিস্টাব্দে ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের বাংলা বিভাগ গঠিত হলে চণ্ডীচরণ ওই বৎসরেই এই কলেজে শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। ১৮০৫ সালের ৪ সেপ্টেম্বরে কলেজের কাউন্সিল অধিবেশনে উপস্থাপিত বাংলা-সংস্কৃত-মারাঠা ভাষার শিক্ষক তালিকায় চণ্ডীচরণ মুনশীকে মাসিক ৩০ টাকা বেতনভুক ‘certified Teacher’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে ।

এই কলেজে চাকরি করার সময় উইলিয়াম কেরির উৎসাহে তিনি কাদির বখশ-এর ফার্সি আখ্যানগ্রন্থ ‘তুতিনামা’ বাংলায় অনুবাদ করেন এবং নাম দেন তোতা ইতিহাস (১৮০৪)। গ্রন্থটি ১৮০৫ খ্রিস্টাব্দে শ্রীরামপুর মিশন প্রেস থেকে মুদ্রিত হয়। পরে লন্ডন থেকে ‘তোতা ইতিহাস’-এর দু’টি সংস্করণ বের হয় ১৮১১ (পৃষ্ঠা সংখ্যা ১৩৮) ও ১৮২৫ (পৃষ্ঠা সংখ্যা ১৪০) সালে।

এ ছাড়াও ১৯২২ সালে Sir Graves Chamney Haugton তাঁর Bengali Selection গ্রন্থে ‘তোতা ইতিহাস’-এর ১০ টি কাহিনীর ইংরেজি অনুবাদসহ একটি সংক্ষিপ্ত সংস্করণ প্রকাশ করেন। এটি প্রকাশিত হয় East-India College, Hayleybury থেকে, এটির মোট পৃষ্ঠা ১৯৮। পরবর্তিতে, ১৮৪৭ সালে W. Yates তাঁর Introduction to the Bengali Language (২য় খণ্ড)-এ ‘তোতা ইতিহাস’ এর ১৮ টি কাহিনী অন্তর্ভুক্ত করেন।

‘তোতা ইতিহাস’ ছাড়াও চণ্ডীচরণ মুনশী ভগবদ্গীতা সংস্কৃত ভাষা থেকে বাংলায় কাব্যানুবাদ করেন। এটিও কেরির অনুরোধে তিনি রচনা করেন, কিন্তু এটি প্রকাশিত হয়নি।

ভারতে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির চাকরি নিয়ে যে সকল ইংরেজ আসতেন–তাঁরা বা মিশনারির সদস্য হিসেবে আসা ইংরেজগণ ফোর্ট উইলিয়াম কলেজে বাংলা শিখতেন। চণ্ডীচরণ মুনশী’র ‘তোতা ইতিহাস’ এবং ‘ভাগবদ্গীতা’ এই কলেজের বাংলা শিক্ষায় পাঠ্য ছিল।

‘তোতা ইতিহাস’ এবং ‘ভগবদ্গীতা’ রচনার জন্য ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ কর্তৃপক্ষ চণ্ডীচরণ মুনশীকে নগদ আশি (মতান্তরে একশ) টাকা পুরস্কার প্রদান করেন।

‘তোতা ইতিহাস’-এ মোট ৩৫টি আলাদা কাহিনী আছে। এগুলি আলাদাভাবে ছোটগল্পের মতো করে পাঠ করা যায়। বর্তমান আর্টস সংস্করণটিতে ১৮২৫ সালে লন্ডন থেকে প্রকাশিত দ্বিতীয় সংস্করণকে অনুসরণ করা হয়েছে।

অনলাইনে পড়ুন এবং/অথবা ডাউনলোড করতে নিচের ছবিতে মাউজ দিয়ে ক্লিক করুন। অনলাইন পাঠের জন্য মাউজ ক্লিকে বইয়ের পৃষ্ঠা উল্টানোর মতো করে ফ্লিপ করা যাবে। ই-বুক উইন্ডো প্যানেলের নিচের দিকে ‘save pages’ বাটনে ক্লিক করে ই-বুকটির পিডিএফ ভার্সন ডাউনলোড করা যাবে। এছাড়া জুম করার জন্য ক্লিক করতে হবে, আর ফুলস্ক্রিন করার জন্য ই-বুক প্যানেলে নির্দিষ্ট বাটন আছে।

তোতা ইতিহাস
অনলাইনে পড়ুন এবং/অথবা ডাউনলোড করতে উপরের ছবিতে ক্লিক করুন

সরাসরি পিডিএফ ডাউনলোড: তোতা ইতিহাস
আর্টস ই-বুক


ফেসবুক লিংক । আর্টস :: Arts

free counters


15 Responses

  1. সুমন কুমার নাথ says:

    সত্যিই ভালো লাগলো। এতদিন শুধু নাম শুনেই ক্ষান্ত ছিলাম। এবারে চক্ষুকর্ণের বিবাদ ভঞ্জন হলো।

  2. এতদিন শুধু বইটার নামই শুনেছি, দেখিও নি কখনো; আর্টসের সৌজন্যে দেখার, পড়ার ও সংগ্রহে রাখার সৌভাগ্য হল। ঐতিহাসিকভাবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ-বইটা বিনামূল্যে ও বিনাশর্তে পড়ার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

  3. mozamel says:

    খুব ভাল লাগল
    কর্তৃপক্ষ আরো আন্তরিক হবেন

  4. Lincoln says:

    অসাধারণ। ধন‍্যবাদ, ঐতিহাসিক সাহিত্যগুলো আধুনিক পাঠকদের সামনে নিয়ে আসার জন্য॥

  5. মো. আবুল হোসেন মিঞা says:

    বইটি পড়তে পারায় খুবই আনন্দিত।
    এরকম পুরনো বই আরও চাই।
    কর্তৃপক্ষকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

  6. Hasan Khan says:

    আগের মন্তব্যকারীদের মতো আমিও তোতা কাহিনি নামে পুরনো এই বইটির কথা শুনেছিলাম। পড়ার আগেই বলছি, এটি নিঃসন্দেহে আর্টস বিডিনিউজ২৪-এর মহৎ কাজগুলোর উজ্জ্বল একটি দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে ।

    জাতীয় ভাবে একটা বিষয় আমাদের ভালো করে বুঝতে হবে, সফলভাবে সামনে এগোতে চাইলে অমাদের নিজস্ব অতীতকে স্পষ্ট জানতে হবে-দেখতে হবে। সবার আগে সেখান থেকে আত্মবিশ্বাসের উপাত্ত যা পাওয়া যাবে, তার সাথে অন্যান্য সভ্যতা থেকে প্রাপ্ত জ্ঞান যোগ করে তারপরে বর্তমানের জ্ঞান-বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রাকে ভবিষ্যতের দিকে নিয়ে যেতে হবে।

  7. এরকম পুরনো বই আমরা
    চাই।
    বইটি পড়ে আমি ভীষণ আনন্দিত হয়েছি।
    কর্তৃপক্ষকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

  8. মেহেদী, বরুড়া, কুমিল্লা। says:

    অসাধারণ কাজ। এসব বই কখনও পড়তে পারব বলে ভাবিনি। স্বপ্নের মতো লাগছে। অনেক ধন্যবাদ।

  9. মো: সাজ্জাদ হোসেন says:

    অনেক অনেক ধন্যবাদ। এরকম দুর্লভ একটি বই পেযে নিজেকে খুব ভাগ্যবান মনে হচ্ছে।
    মো: সাজ্জাদ হোসেন, বা.কৃ.বি. ময়মনসিংহ।

  10. তুহিন says:

    এই ই-বুক গুলো বাধাঁইকৃত বই আকারে সংগ্রহ করার কোনো উপায় আছে কি?

  11. Masudur Rahman says:

    অনেক অনেক ধন্যবাদ। আরও বই চাই।

  12. Masudur Rahman says:

    অনেক অনেক ধন্যবাদ।

  13. suol khan says:

    অনেক অনেক ধন্যবাদ .

  14. suol khan says:

    কবি নজরুলের বই চাই আমরা .

  15. suol khan says:

    আমার ভাল লেগেছে .

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.