কবিতা

মাজুল হাসানের অলৌকিক ও লিডার…

মাজুল হাসান | 16 Aug , 2019  


লিডার

তোমার রেপ্লিকাই মূখ্য এখন। হাত নাড়ছে। হাসছে ক্লান্তিহীন। মঞ্চে তোমার জৌলুসও ঐ তেজদীপ্তির কাছে ফিকে। রক্তমাংস ভুলে তুমিও চেষ্টা করছ ওমন সৌম্যমূর্তি হওয়ার। ভাবছ-‘ওটাই প্রকৃত তুমি।

সামনে আপামর ফ্ল্যাশমব। প্রীতি ঝুলছে ঠোঁটে। চোখে কালো সমীহ। মঞ্চের পোস্টার-ব্যানেরের পেছনে জড়ো হচ্ছে বিরুদ্ধ বাতাস। তুমি বুঝছ না। তোমার এনসাইক্লোপিডিয়ায় তোমার রেপ্লিকা ছাড়া আর কিছু নেই…

অলৌকিক

ডাকতে ডাকতে জিরাফের মতো অলৌকিক হয়েছে গলা। এখন নিরাক্রোশ জলের মতো মৌন থাকি আগুন লাগার কালে।

কে হাসছে? মৃত্যু-পান্না-পানপাতা মুখ?
মাইলের পর মাইল জ্যুলোজি ছিড়ে পালাচ্ছে সন্ত্রস্ত

আহা, সবুজ ধাবমান ট্রেন! আমি কি সিন্দুরী আকাশ ছুঁতে পা’ব কোনোদিন?

শব্দ

মানুষ কাঠের পা’কে ঈর্ষা করে। নাহলে, ডকিয়ার্ডের পাশ দিয়ে একলা, নিঃশব্দে হেঁটে যাওয়া’য় এত অনীহা ক্যানো?

শব্দ উভলিঙ্গ। ভয় ও ভয়ের ফসল

ভাবুন তো-কখনো কখনো খালি পায়ে, পায়ে পরাগরেণুর হুল কিংবা সন্ধ্যা-অঙ্গার। কোথাও কোনো টু শব্দটি নেই। ওতে দহন পাকাপোক্ত হয়। মৌন লাভ করে ৪র্থ মাত্রা…

গোল্ডফিশ

হাসলে ৭ মাস বয়সী মেয়েটাকে দারকিনি মাছ মনে হয়,আহ্লাদে গোল্ডফিশ। অ্যাকুরিয়ামের মতো ওর জন্য এঁকেছি শুকনো দীঘি।

প্রিয় কণ্যা, আমি নিজেই উপড়ে ফেলেছি চোখ,যাতে দীঘির কাঠামোটা থাকে অশ্রুশূন্য, অকর্ষিত, রঙহীন।

বড় হয়ে তুমি ওতে পছন্দমতো ক্রেওন চালিও…

বেলুন

মেঝে থেকে ৬ ইঞ্চি উপরে ভাসি। অহঙ্কার নয়,একটা নিরীহ সবুজ বেলুন। ক্ষীন হাইড্রোজেন পোরা বাষ্পাধার। আমার প্রতিভার মতোই দ্বিধান্বিত। সেই তুলনায় আমার স্বপ্নরা খানিক উড়ক্কু। ওটাও আদতে আরেকটা বেলুন। নীল। উদ্বায়ী আকাঙ্খায় পরিপূর্ণ। ওটা আটকে থাকে পলেস্তরা খসা সিলিং ফ্যান বরাবর। আকাশ লিখতে পারে না।

আপাতদৃশ্যে রং,উড়াল সক্ষমতা ও উদ্বায়ী হাইড্রোজেনের তারতম্য সত্বেও দুই বেলুনের মধ্যে আদতে কোনো ফারাক নেই


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.