কবিতা

মাসুম মুনাওয়ারের একগুচ্ছ কবিতা

মাসুম মুনাওয়ার | 5 Jul , 2019  


এশিয়া

একটা ছায়া আরেকটা ছায়ার ভিতরে হাঁটছিলো। প্রথম ছায়াটা দ্বিতীয় ছায়াটা থেকে বেরুতেই দেখে একজন মানুষ। মানুষটা ঠিক আমার মত। আমি মানুষটার দিকে তাকালাম। মানুষটা মুচকি হাসছে। আমি চোখ লাল করে তাকিয়ে আছি। তখনই ছায়াটা মিলিয়ে গেলো। দেখলাম একাই হাঁটছি। ছায়াগুলো আমি এবং আমিই ছায়া।

ইউরোপ

আমার দেহ ও আমি ডুবে যাচ্ছি। ডুবে যাচ্ছি দেহের ভেতর। ভেতরটাও ডুবছে নীরবে। তলিয়ে যেতে যেতে আমাকে টেনে তুলছিলাম। একটা দৃশ্যমান ছায়া চিকন সুরো অন্ধকারের ভেতরে আমাকে নিক্ষেপ করছে প্রতিনিয়ত। অন্ধকার থেকে, সরু ছায়াবাজির ভেতর থেকে বেরুতে গিয়ে নিজেই ছায়া বনে গেলাম। হারিয়ে গেলাম। হারিয়ে গেছে দেহ ও ছায়া। দৃশ্যত জীবন আমাদের যন্ত্রণাগুলোর সাক্ষী হয়ে মৃত বৃক্ষের মত দাঁড়িয়ে আছে। রঙের দুনিয়ায় ছাতিমের নেশায় তলিয়ে গেছে হরিৎ পাখি ও তলিয়ে গেছি আমি। আমাকে খুঁজে লাভ নেই, ছায়ার ভেতর থাকা যন্ত্রণার নাম মানুষ।

উত্তর আমেরিকা

কোথায় গিয়েছিলাম ঠিক মনে পড়ছে না, যেখানে হারিয়ে এসেছি সব, কোথায় আছি তাও মনে পড়ছে না, জায়গাটা বিদ্যমান থাকলেও নেই আমি, কেমন যেন গুমোট একটা বাতাস এসে লেগেছে গায়ে, আমাকে ভাসিয়ে চলেছে, আমি ভাসিয়ে চলেছি কিনা তাও নিশ্চিত নই, কে কাকে ভাসাচ্ছে কেউ বলতে পারছি না, একটা ফুলের ঘ্রাণে ধাক্কা লেগে হারিয়ে গেছে চৈতন্য নাকি চৈতন্যই আমাকে হারিয়েছে ঠিক বুঝে উঠতে উঠতে তলিয়ে যাচ্ছি কোথায় যেন, যেখানে আমি যেতে চাইনি কখনো, স্থানই আমাকে টানছে হয়তো, কোথায় যে চলেছি জানি কি আদৌ, কেউ কি জানে!

দক্ষিণ আমেরিকা

‘কত দিন মন খুলে কথা বলি না, খুলে কথা বলা যায়?’– নিজেকে প্রশ্ন করি। যায় বা যায় না নিশ্চিত নই। দোদুল্যমান সারস জীবনের পথে খুলে কথা কয়জন বলে, বলতে পারে কেউ? জমেছে কথার পাহাড়। কথার বরফ জমে জমে শীত নেমেছে মনে। মন আসলে কী? মন বলতে কি কিছু আছে বা এই যে বলছি কথা, কথার কী রুপ? কেমন যেন যাচ্ছে না জীবন। আমি কথার মাঝে, কথা আমার মাঝে লীন হতে হতে হারিয়ে ফেলছি উভয়ই। যেন কেউ নই আমরা, আমরা নই কেউ যেন। কথা নেই কোনো আমাদের, আমাদের নেই কোনো কথা। দুলছি কেবল বৈশ্বিক হাওয়ায়, কথার ফুল ফুঠছে অন্য কোথাও, অন্য কোনো ঝুলবারান্দায়।

আফ্রিকা

পিছন ফিরতেই দেখি আমার মত একটা লোক দৌড়ে আসছে। দেখতে দেখতে লোকটা আমার ভেতরে ঢুকে গেলো নাকি আমি লোকটার ভেতর ঢুকে গেলাম ঠিক বোঝা গেলো না। কানকে জিজ্ঞেস করলাম- লোকটাকে তুমি চেনো? কানটা আমার চক্ষুদ্বয়কে, চক্ষুদ্বয় নাকটাকে, নাকটা দীর্ঘ চুলগুলোকে, চুলগুলো থুতনিকে, থুতনি হাতকে, হাত পাকে, পা মুখকে, মুখ আমাকে জিজ্ঞেস করলো– মানুষটাকে আপনি চিনেন? অন্য দিকে মনোযোগী ছিলাম। বললাম– কার কথা বলছো? কোন মানুষটা? না তো, চিনি না। যে নিজেকেই চিনে না, সে অন্যকে কিভাবে চিনবে বলতে পারো? মানুষটাকে কেউ চিনতে পারলো না। না আমি, না মানুষটা নিজে, না অন্য কেউ। এইভাবেই একটা মানুষ গত হলো। কথাটা ভাবতে ভাবতে পিছনে ফিরে দেখি মানুষটা আমাকে নিতে এসেছে। আমি অনুকরণ করছি নাকি সেই আমাকে অনুকরণ করছে ঠিক বোঝা গেলো না। আমি চলছি মানুষটার দিকে, নাকি অবিরত মানুষটাই আমার দিকে আসছে ঠাহর করা গেলো না। আমরা উভয়ই মিলিয়ে গেলাম।

অস্ট্রেলিয়া

জানতাম আমি মারা যাবো। অনেকেই জানে না। মরেও গেলাম। দেখতে পাচ্ছি পরিচিত মানুষগুলো আমাকে টেনে হিঁছড়ে ঘর থেকে নিয়ে যাচ্ছে। পাড়া-পড়শিরা গোসল দিচ্ছে, ইমাম সাহেব যত্নের সাথে কাপড়টা পড়াচ্ছেন আর বিড়বিড় করছেন। দেখতে পাচ্ছি আমাকে দাফন করা হচ্ছে, পুড়িয়ে ফেলা হচ্ছে, আমাকে কফিনে করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। কিছুই করতে পারছি না। অনবরত চিল্লাচ্ছি, কান ফেটে যাচ্ছে, মুখ দিয়ে রক্ত গড়গড়িয়ে পড়ছে। দেখতে পাচ্ছি আমি মরি নাই। অথচ ওরা আমাকে মৃত ঘোষণা করে পুড়িয়ে ফেলতে যাচ্ছে। আমি বাঁচতে চাইছি, কিন্তু পারছি না। আমাকে ওরা নিয়ে যাচ্ছে। কোথায় যাচ্ছি জানি না। বেঁচে আছি কিনা নিশ্চিত নই। আমরা বেঁচে আছি কি? বেঁচে নেই কেউ, বাঁচার অভিনয় করছি কেবল।

এন্টার্কটিকা

নেজের। তো। কিছু। নাই। একটা। অবস্থায়। পইড়া। আছি। বছরের। পর। বছর। নির্জীব। মানুষ। কিচ্ছু। করতে। পাত্তেছি। না। নেজেরে। ভাঙতে। পাত্তেছি। না। বাইরোইতেও। পাত্তেছি। না। কি। করবো। কও? বুঝতেছি। না। আমার। কি। হবে! তোমারে। পাইলে। মুক্তি। যদি। পাই! দেখা। দেও। মওলা। আর। দূরে। থাইক্কো। না।

পরম প্রভু। দয়াময়। না দেখেই তোমার প্রেমে পড়েছি। শুনে শুনেই ভালোবেসেছি। কোথায় তুমি দয়াময়, শুনতে পাচ্ছো আমায়? আমাকে কবুল কর সময়ের অধিশ্বর। তোমার রূপে লীন কর আমায়। আমার রূপে দেখা দেও মওলা। এই অধমের শানে নেজেরে কর হাজির ও নাজির। তোমারে পেয়ে নেজেরে করবো কোরবান। দয়াল মওলা দূর বিশ্বের ছায়াতটে প্রকট হও। গোলামের আশ্রমে নেজে বস আর তোমার আসনে গোলামরে বসাও। প্রিয় স্বামী গোলামের দোয়া কর কবুল। আমিন।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.