কবিতা

স্বাধীনতার খেয়াঘাট

শাহাবুদ্দীন নাগরী | 5 Apr , 2019  


রক্ত গড়াতে গড়াতে যায়, গড়িয়ে গড়িয়ে যায়।
কয়েকটি পাখি বন্দুকের গুলিতে বিদ্ধ হয়ে ছড়িয়ে পড়েছিলো এক দ্বিপ্রহরে,
তাদের শরীর থেকে ফিন্কি দিয়ে বেরিয়ে আসা রক্তে ভিজে যাচ্ছিলাম আমরা,
সেই উষ্ণ রক্তের তীব্রতা জমাট বাঁধার আগেই তৈরি করে নিয়েছিলো তার
গতিপথ। কেউ ভাবতেই পারি নি এমন হবে !

তারপর রক্ত গড়িয়ে গড়িয়ে যায়, বছরে বছরে আরো মিহিস্রোত এসে মিশে
যায় গতিপথে গোপনে গোপনে। ক্যালেন্ডারের পাতা থেকে পাতাঝরার মতো
খসে খসে যায় দিন-মাস-বছর। দফাগুলোর রফা হয় না, তাই আবারও পাখির মতো গুলিতে ঝাঁঝরা হয় বুক, আবারও রক্ত ঝরে। সেই রক্ত ইতিহাসের কাঁধে চেপে নায়াগ্রার মতো আছড়ে পড়ে গতিপথে। ভয়াবহ প্লাবন ওঠে চারদিকে,
নূহের নৌকার মতো ভেসে ওঠে লক্ষ লক্ষ নৌকা, দেশভাগের বিষবৃক্ষ
উপড়ে পড়ে ব্যালটের ছাপে ।

আমরা ভাবতেও পারি নি বাহান্নোর বেপরোয়া পুলিশের বন্দুকের গুলির সেই
ফিন্কি দেয়া রক্ত এসে ঝাঁপিয়ে পড়বে একাত্তরের বিশ্বাসঘাতক লম্পট
সেনাবাহিনির ভারী মেশিনগানের ওপর। নির্দিষ্ট হয়ে যাবে স্রোতের গতিপথ।

বাংলা ভাষা থেকে আমরা পৌঁছে গেলাম বাংলাদেশে,
স্বাধীকারের অনন্ত শক্তি আমাদের ভাসিয়ে নিয়ে এলো স্বাধীনতার খেয়াঘাটে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.