কবিতা

মহাকালের চাদরে মোড়া শেষ পৃথিবী

রনি আহম্মেদ | 1 Mar , 2019  

অসীম স্নিগ্ধতা

তুমিতো বালিশের মায়ায়
থেকে যাওয়া
জাতিগুলোকে দেখেছো !
যেন দীর্ঘ আকার ছিল…
শোক আর আনন্দের মাঝে
দেওয়া সংখ্যাগুলোকে যেতে বলো।
দেখবো এক অসীম স্নিগ্ধতা…
ফুলকে ডেকে বলো
এই ময়ূরাক্ষী রাত দিন হবে
সকালগুলো স্কুল পালানো পেন্সিল
জীবিত যা কিছু…আমার আয়না
সেখানেই..তোমাদের দেখা মেলে।
কেউ নদী থেকে আসা…
কেউ বা উচ্চারণ শুধু!
তিনটি দিক ছিল …
মখমলের মিনার গায়ে দেয়া রাতে
এক দরবেশ…
পঞ্চম দিন থেকে এলেন….
বয়স্ক বারান্দার গালিচায়
সপ্তভুজ নকশারা
তোমাকে কি বলেছিল?
চোখ খোলার আগেই
তালিকা দেয়া…
কি দেখবে তুমি
আল্লাহর এই জাহান ?
শুধু তোমার জন্যই…
ওরা যারা তুমি …
তুমি না এমন কে আছে আর ?
আমি ন’ই এমন?
দু’ ভাগে বিভক্ত মহাকাশ
আমি আর অন্যরা
যা কিছু বিম্বিত…
জানায় শুধু কাবা ঘর কেন্দ্র করে
ঘুরে চলা সপ্তাকাশ…
সবুজ টিয়া এলো ময়ূরের ঘরে …
কত জন্ম পার হলো
সকল দুনিয়ার!
মিলিত গোলাপ ফুটবে বলে
তোমরা এসেছিলে,
কিছুকাল ঘুমাতে আর
কেউ কেউ জেগে থাকে নিদ্রিত…
তোমাদের পাহারা দেয়।
আলোর জাহাজে কম্পাস;
একদিকে স্থির।
যাত্রা পথে সত্তুর হাজার মাইল মাছ
তাদের সঙ্গী হয়।
ভুল করো না
আমাকে ভুলে আবার…

একটি ফটোগ্রাফ তোমার প্রতীক্ষায়

গল্পগুলো লেখা আছে …
যেখানে যা কিছু তাতে।
যে গ্রামে ফেলে আসা
একটি ফটোগ্রাফ
তোমার প্রতীক্ষায়।
আর তিনি লিখে রাখেন
কতো না গল্প…কতো জায়গায়
মানুষ ঢুকে আর বের হয়…
বিবিধ চরিত্র নিয়ে
তার সাথে যোগ হয়…
প্রজাপতি আর চড়ুইয়ের দল।
আমার নকশা তোমার জন্য
মনে রেখো…
এতো সময় কোন ঘড়িতে দেখা যায় ?
আমি তো জানি নীরবতার চেয়ে
একা আর কেউ নাই !
বকুল ফুলে সাজানো মুখ
পরিত্যক্ত প্রাচীন বাড়িতে
আবারও মায়ের সাথে
দেখা হলো…
তাদের আঙুলে
মহাকাশ…
ভালো থেকো…
আর কোথাও নয়,
নিজ চোখে থাকি আমি
দেখে নিয়ো…
আমলকির মৌসুমে
তার সাথে মিলন হবে হয়তো…
অথবা কোনো কালেও আর নয়।

মহাকালের চাদরে মোড়া শেষ পৃথিবী

শেষ পৃথিবীতে কি ছিল কি ছিল?
আলো জানে না
কিভাবে নিভতে হয়!
তোমরা তো আলো।
মৃত্যু নেই কোথাও…
ভেবে বলো কতো
সুন্দর মুহূর্তগুলো …
মহাকালের চাদরে মোড়া!
একটু মানুষ আমি
আসি আর যাই,
একটি বিন্দুতে দাঁড়িয়ে…
সেখানে থাকো না কেন?
তুমি তো কেন্দ্রবিন্দু
সমগ্র সৃষ্টির…
আর কিছুতো নেই!
আল্লাহর বাগানে ফোটা
একটি গোলাপ
গ্রামোফোনের কণ্ঠে
তোমায় ডাকে…
ইব্রাহিম নবীর ছায়ায়
তুমি ঘুমিয়ে পড় চিন্তাহীন!
এবার সকালগুলো
মুখোশ বিহীন…
অনন্তের ময়ূর নাচে
একটা সেকেন্ডের ভিতর।
চোখে চোখ রাখো
আর ভুলে যাও
এই জীবন বাস্তব ছিল…

সবই আল্লাহর রূপ

প্রশ্ন বলে কিছু নেই,
সবই আল্লাহর রূপ…

জ্ঞান বলে কিছু নেই,
সবই আল্লাহ।

যা কিছু বিদ্যমান
তা’ ই আল্লাহ …

যা কিছু নয়…
তা’ও আল্লাহ!

যা শুরু, তাই শেষ
তাই আল্লাহ।

যা ভাবা হয়েছিল, ভাবা হচ্ছে,
ভাবা হবে, সবই আল্লাহ!
যা স্থির … অস্থির ;
যা অসীম…যা সসীম,

যা বিপরীত,
যা অবিপরীত;
যা মৃত্যু,
যা জন্ম …
সবই আল্লাহ।

ঘাসের সবুজ দেশ

দেখো নিঃশেষ হলো
তোমার আমার গহীনে
কারো কোনো শব্দও ছিলো না!
আত্তার-এর পাখিগুলো
একক আয়নায়
দুনিয়ার সকল কিছু
জড়ো করলো…
একটি অজগর মহাকাশ নিয়ে শুয়ে ছিল!
তোমাদের বাগানে বটের ছায়ায়।

গ্রামোফোনে অর্ধনির্মিলিত দিনের গান
জয়পুরী সোনালী ছাতায়,
রোদের শান্ত পুকুর।
রূপার কাপে জেসমিনের নিঃস্বাশ
আর দূর দেশ থেকে আসা
গোপনতম বিদ্যার নোটবই …
বাদামি চামড়ায় সিলগালা দেয়া।

পাশে দাঁড়ানো সাদা ময়ুর।
গোলাপের জলে ভেজানো
রানি আন্ড্রোমিডার হীরার নেকলেস…

শিশুদের হাসির ছোট ছোট ডানা।
স্বর্ণখচিত হাতল ওয়ালা আতশ কাঁচ
পেতলের ঝর্ণা কলম

বসে থাকা সাত রঙা অচেনা পালক,
বাতাসে প্রাচীন মিশরের আতরের ঘ্রান।

ঘাসের সবুজ দেশে
আমার দিব্যবাণীগুলো
তোমাদের পথ দেখালো!
জ্বলন্ত সেই সব মন,
আমাদের আর রইলো না!

মনে রেখো তিনটি দিক দেখেই
ফেরেস্তারা আসবে…
বাঁকানো বিউগল আর ট্রাম্পেট
এমন সমাহার তোমরা দেখোনি!

মখমলের পাগড়িতে পারস্যের স্মৃতি
সাম্রাজ্যগুলো অদৃশ্য হলো…
তবু থেকেই গেলো
কিছু রং বেদানার দানায়।

বালিশের গলিতে ঘুমের দোকান
ও’গুলো বন্ধ হলো
নবীজির ডাকে।

Flag Counter


1 Response

  1. Abid Iqbal says:

    Dosto How are you. Good to hear from you. Nice . My cell no-01733998099. Expecting your call.

    Best regards

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.