১৯৭১

স্বাধীনতাযুদ্ধ সম্পর্কে অক্তাবিও পাস: ‘আমারও সহানুভূতি বাঙালিদের প্রতি’

রাজু আলাউদ্দিন | 16 Dec , 2018  


অনেকদিন থেকেই আমার মধ্যে একটা কৌতূহল ছিল এই ব্যাপারে যে দক্ষিণ আমেরিকার মতো এত বড় একটা মহাদেশের গণমাধ্যম ও সেখানকার বুদ্ধিজীবীরা আমাদের স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় কিভাবে সাড়া দিয়েছিলেন কিংবা আদৌ দিয়েছিলেন কিনা। ভাষার অপরিচয় ঠেলে আমরা ফরাসিভাষী কোনো কোনো দেশের প্রতিক্রিয়া জানতে পারলেও স্প্যানিশভাষী দেশগুলোর প্রতিক্রিয়া জানতে পেরেছি খুব কমই। একমাত্র আর্হেন্তিনার বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ লেখক-বুদ্ধিজীবীর ভূমিকার কথা জানি, যেমন লেখক ও নারীজাগরনের নেত্রী বিক্তোরিয়া ওকাম্পো, লেখক হোর্হে লুইস বোর্হেস, এর্নেস্তো সাবাতোসহ আরও বেশ কয়েকজনের নাম জানি। কিন্তু এই বিরাট মহাদেশের অন্য দেশের লেখক-বুদ্ধিজীবীরা একই রকমভাবে সরব ছিলেন কি? ওই অঞ্চলের ভাষা না-জানাটা আমাদের জন্য একটা বড় বাধা হয়ে আছে জানার ব্যাপারে। কিন্তু এই বাধা ডিঙানো সম্ভব ছিল যদি আমাদের সংশ্লিষ্ট সরকারী কোন প্রতিষ্ঠান এব্যাপারে ওই ভাষায় পারঙ্গম কাউকে দিয়ে একটি অনুসন্ধান চালাতেন। আমার বিশ্বাস এই অনুসন্ধানের ফলে অনেক অজানা তথ্য উন্মোচিত হতে পারতো। কারণ এটা বিশ্বাস করতে মন কোনোভাবেই সায় দেয় না যে এত কোটি মানুষের এত লেখক-বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে কোনই প্রতিক্রিয়া হয়নি–তা সে ইতিবাচক কি নেতিবাচক। এটাও তো একেবারেই অজানা ছিল যে মেক্সিকোর নোবেলজয়ী লেখক অক্তাবিও পাস, যিনি আমাদের কাছে খুবই সুপরিচিতি, আমাদের স্বাধীনতার পক্ষেই অবস্থান নিয়েছিলেন। যদিও তা আঁদ্রে মালরোর মতো সক্রিয় ঘোষণা ও কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে নয়। কিন্তু ‘সক্রিয় ঘোষণা ও কর্মকাণ্ডের’ মাধ্যমে যে নয়–এই কথাটিও এখনও পর্যন্ত অজ্ঞতা থেকে বলছি। অজ্ঞতা বলছি এই কারণে যে বহির্বিশ্বের ঘটনা ও পরিস্থিতি সম্পর্কে স্প্যানিশ ভাষায় তার সমন্ত বিবৃতি মন্তব্য বা রচনা এখনও আমাদের আয়ত্তের বাইরে। ওই ভাষায় যতক্ষণ না অনুসন্ধান চালিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছানো যায়, ততক্ষণ এও শুধুই অনুমান। তবে আমাদের স্বাধীনতার লড়াইয়ের পক্ষে আপাতত অক্তাবিও পাসের যেটুকু মন্তব্য পাওয়া যাচ্ছে তার গুরুত্বও অনেক।

ভারতীয় উপমহাদেশের শিল্প ও সংস্কৃতি নিয়ে তাঁর সুগভীর সৃষ্টিশীল আলোচনা ও রচনাকর্ম e The Monkey GramarianLadera Este আমরা আগেই দেখেছি। আরও পরে লিখলেন গোটা ভারতবর্ষের রাজনীতি, সংস্কৃতি এবং চিরায়ত ও লোকায়ত দর্শন নিয়ে অসামান্য আলোচনাগ্রন্থ Vislumbre de la Inda। এসব গ্রন্থের বাইরেও ভারতবর্ষ নিয়ে তাঁর টুকরো টুকরো আলোচনা ও মন্তব্য ছড়িয়ে আছে অসংখ্য সাক্ষাৎকার আর বিভিন্ন গদ্যের মধ্যে।

ভারত তাঁর কাছে নিছক অপ্রসূ আবেশমাত্র ছিল না। তাঁর জীবন ও ভাবনার উদ্দীপক হিসেবে কাজ করেছে এই আবেশ। মেহিকোর ঔপন্যাসিক এলেনা পনিয়াতৌউস্কার সঙ্গে এক দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে অক্তাবিও পাস নিজের জীবনকে একটি বাগানের সঙ্গে তুলনা করে বলেছিলেন:
“আমার ক্ষেত্রে দুটো বাগান: মিস্কোয়াকে (লেখকের জন্মস্থান) আমার শৈশবের আর দিল্লিতে আমার পরিপক্বতার।”( Octavio Paz: Las Palabras de Arbol, Elena Poniatowska, Plaza y Janes, Mexico, Marzo 1998, p-98

পাসের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়েছিল পৃথিবীর বহু সংস্কৃতি ও সভ্যতার নানান সব উচ্ছল স্রোতধারা। প্রাচ্য ও প্রতীচ্য থেকে দুই হাত ভরে নিয়েছেন তিনি, নিয়েছেন আত্মবিকাশ ও প্রসারের জন্য; দিয়েছেনও প্রচুর। কিন্তু এত সব দেশ ও সংস্কৃতি থাকতে কেবল ভারতবর্ষই তাঁর ‘পরিপক্বতার’ আরেক মাতৃভূমি হয়ে উঠেছিল–এই তথ্য আমাদের শিহরিত না করে পারে না। এলেনার কাছে পাসের এই স্বীকারোক্তি গোপনে আমার কৌতূহলকে উসকে দিয়েছিল অন্য এক প্রশ্নের দিকে: বাংলাদেশ এবং বাংলা ভাষা ও সাহিত্য নিয়ে তাঁর কোনো আগ্রহ বা ভাবনা ছিল কিনা।

১৯৯৫ সালে Vislumbre de la Inda বা In Light of India বইটি বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার প্রায় ২৪ বছর পর প্রকাশিত হলেও তিন-চার জায়গায় অবিভক্ত ভারতের রাজনীতি ও সাংস্কৃতিক সূত্রে বাংলাদেশের উল্লেখ থাকলেও বাংলাদেশ নিয়ে বিস্তৃত বা সংক্ষিপ্ত আলোচনা তাতে নেই। তবে বাংলাদেশের অস্তিত্ব সম্পর্কে তিনি অবহিত ছিলেন ঠিকই, বাংলাদেশ সম্পর্কে বিশেষ কিছু লেখার তাগিদ বোধ না করলেও বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে তাঁর সহানুভূতি ছিল স্পষ্ট।

বাংলাদেশ
মার্কিন লেখক শেলডেন রোডম্যান ১৯৭১ সালে পাসের একটি সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন (সাক্ষাৎকারের কোথাও সময়ের উল্লেখ নেই। তবে বোঝা যায়, ওটি আমাদের স্বাধীনতাযুদ্ধের সময়ে ঘটেছিলো।)। সেখানে শেলডেন তাঁর কাছে জানতে চান বাঙালিদের অর্থাৎ বাংলাদেশিদের স্বাধীনতাযুদ্ধ সম্পর্কে তাঁর ধারণার কথা:
“‘আর বাঙালিরা এখন যে যুদ্ধ করছে?’
‘এটা সাংঘাতিক বেদনাদায়ক ব্যাপার,’ তিনি উত্তর দিলেন। ‘আপনার মতো আমারও সহানুভূতি বাঙালিদের প্রতি ও ভারতীয়দের প্রতি। তবে বাঙালিরা যদি স্বাধীনতা অর্জন করে, তাহলে সেটা ভারতের শর্তের অধীনেই হবে এবং কয়েক বছরের মধ্যে আবার তাদের নতুন করে স্বাধীনতার জন্য লড়াই করতে হবে। ভারতের একটা বড় সমস্যা হচ্ছে এর ঐক্য ধরে রাখার সমস্যা, একই সঙ্গে তার বহুত্বের সমস্যাও রয়েছে। অতীতে ভারত কোনো জাতি ছিল না, ছিল একটি সভ্যতা। ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার বিতর্ককে একই সভ্যতার মধ্যে একটি অভ্যন্তরীণ সমস্যা হিসেবে দেখতে হবে।’”
(Tongues of Fallen Angels, Selden Rodman, New Directions, 1974, p-142)

পাসের এই মন্তব্যের পেছনে রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গির সঠিকতা বা দূরদর্শিতা নিয়ে নানা রকম প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে; কিন্তু আমাদের স্বাধীনতাযুদ্ধের প্রতি তাঁর সমর্থন ও সহানুভূতি ছিল তর্কাতীত। এ সাক্ষাৎকারে সাল-তারিখ উল্লেখ না থাকলেও বোঝা যায়, এটি আমাদের স্বাধীনতাযুদ্ধের শুরু ও বিজয় লাভের মাঝামাঝি কোনো সময়ের ঘটনা। আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের পক্ষে তাঁর মতো একজন অসাধারণ কবি ও প্রাবন্ধিক সহানুভূতিশীল ছিলেন–এটা আমাদের জন্য কম গৌরবের নয়।
Flag Counter

আর্টস-এ প্রকাশিত রাজু আলাউদ্দিনের অন্যান্য প্রবন্ধ:
বোর্হেস সাহেব

অনুবাদ, আদর্শ ও অবহেলা

“একজন তৃতীয় সারির কবি”: রবীন্দ্রকবিতার বোর্হেসকৃত মূল্যায়ন

রক্তমাংসের রবীন্দ্রনাথ

কার্লোস ফুয়েন্তেসের মৃত্যু:
সমাহিত দর্পন?

মান্নান সৈয়দ: আমি যার কাননের পাখি

বাংলাদেশ ও শেখ মুজিব প্রসঙ্গে আঁদ্রে মালরো

স্পানঞল জগতে রবীন্দ্র প্রসারে হোসে বাসকোনসেলোস

অক্তাবিও পাসের চোখে বু্দ্ধ ও বুদ্ধবাদ:
‘তিনি হলেন সেই লোক যিনি নিজেকে দেবতা বলে দাবি করেননি ’

কবি শামসুর রাহমানকে নিয়ে আমার কয়েক টুকরো স্মৃতি

বনলতা সেনের ‘চোখ’-এ নজরুলের ‘আঁখি’

ন্যানো সাহিত্যতত্ত্ব: একটি ইশতেহার

যোগ্য সম্পাদনা ও প্রকাশনা সৌষ্ঠবে পূর্ণ বুদ্ধাবতার

দিয়েগো রিবেরার রবীন্দ্রনাথ: প্রতিপক্ষের প্রতিকৃতি

গাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেস: তাহলে গানের কথাই বলি

অজ্ঞতার একাকীত্ব ও আমাদের মার্কেস-পাঠ

আবেল আলার্কন: স্পানঞল ভাষায় গীতাঞ্জলির প্রথম অনুবাদক

জামান ভাই, আমাদের ব্যস্ততা, উপেক্ষা ও কদরহীনতাকে ক্ষমা করবেন

এদুয়ার্দো গালেয়ানোর ‘দর্পন’-এ বাংলাদেশ ও অন্যান্য

প্রথমার প্রতারণা ও অনুবাদকের জালিয়াতি

আবুল ফজলের অগ্রন্থিত আত্মজৈবনিক রচনা

আবু ইসহাকের অগ্রন্থিত আত্মজৈবনিক রচনা

কুদরত-উল ইসলামের ‘গন্ধলেবুর বাগানে’

মহীউদ্দীনের অগ্রন্থিত আত্মজৈবনিক রচনা

বোর্হেস নিয়ে মান্নান সৈয়দের একটি অপ্রকাশিত লেখা

অকথিত বোর্হেস: একটি তারার তিমির

ধর্মাশ্রয়ী কোপ

রবীন্দ্রনাথের চিত্রকলা সম্পর্কে অক্তাবিও পাস

লাতিন আমেরিকার সাথে বাংলার বন্ধন

উপেক্ষিত কাভাফির অর্জুন ও আমরা

পাবলো নেরুদার প্রাচ্যবাসের অভিজ্ঞতা ও দুটি কবিতা

রবি ঠাকুরের নিখিল জগৎ

শিল্পী মুর্তজা বশীরকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা

ফুকোর হাসি, একটি গ্রন্থের জন্ম এবং বোর্হেস

নিরবতার দোভাষী সুব্রত অগাস্টিন গোমেজ

গার্সিয়া মার্কেসের প্রবন্ধ: এন্থনি কুইনের বোকামি

‘কুইজদাতা’ শওকত ওসমানের দুটি উপহার

নগ্নপদ ইলিয়াড ও আসুয়েলার বিপ্লব

ভাষার বিকৃতি: হীনম্মন্যতায় ভোগা এক মানসিক ব্যাধি?

সাহিত্য মানুষকে পোকা হওয়া থেকে রক্ষা করতে চায়

রবীন্দ্রনাথ যে-কথা দিয়েও রাখেন নি

ভাষার প্রতিভা ও সৃষ্টির ডালপালা

চর্যাপদের সর্বজনীনতা, ড. শহীদুল্লাহ ও অক্তাবিও পাস

মারিয়ার নজরুল-অনুবাদ ও মূল্যায়ন

ব্রডওয়েতে যেভাবে অপেরার ভূত দেখতে পেলাম

শামসুর রাহমানের অনুবাদে হোর্হে লুইস বোর্হেসের দুটি কবিতা ও একটি বই হাতিয়ে নেয়ার ঘটনা

চিঠি ও স্মৃতিচারণায় বোর্হেস-অনুবাদক নরম্যান টমাস ডি জিওভান্নি


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.