কবিতা

স্বদেশ রায়ের ভয়

স্বদেশ রায় | 4 Jul , 2018  

মানুষ মাঝে মাঝে ভয় পায়, যদিও ভীত নয় কেউ-
তারপরেও ভয়ের গন্ধ নামে মানুষের শরীরে।
সে গন্ধ পরিচিত কি অপরিচিত তা জানেনা যদিও,
জানানোর প্রয়োজনও পড়ে না, কারো কাছে।
কেবলি এক ফালি ভয়ের ঢেউ এসে মিলিয়ে
যায়, কিশোরীর মুখ থেকে ঠিকরে পড়া সূর্যের আলো যেন।
এইসব ভয় নিয়ে গল্প লেখা হয় অনেক, যেমন
গল্প লেখে সকলে, গর্ভীনি নারীদের সৌন্দর্য একে,
যে সৌন্দর্য কেবল নারীর শরীরেই নামে।
অথচ মানুষেরা বলে, মানুষ ভয় পায় হরিনীর মতো।
এ কেমন কথা তা জানতে চায় না কেউ গভীর চাঁদনী রাতে।

মানুষ কেন ভয় পাবে হরিনীর মতো, মানুষের ভয়ের
গন্ধ আলাদা, যা পার হয়ে গেছে অনেক সাগরের
অসীম সীমানা, অনেক সহজে ও সহজে।
মানুষের ভয়ের সাথে কারো দেখা হলে সেখানে
গল্প নয়, নীরবতা ধীরে ধীরে নামে, যেমন বিকেলের সূর্য ডোবা।
বিকেলের সূর্য নিয়ে আসে আবীর রাঙা লাল, ভয়েরা
কালো নয়,শাদা নয়,নয় তারা রঙহীন কোন কিছু,
তাদের রঙগুলো ছড়ানো ছবিতে কেবল নীরবতা।
রঙেরা মিলে মিলে পাহাড়ের চূড়া হয়, ধ্যানে
বসে তারা, গভীর ধ্যানমগ্ন সমুদ্র-বক্ষ, দুপুরের রোদে।
ভয় তবু মানুষের পিছে পিছে ঘোরে, যেন পোষা সে অতি।
ডাক দিয়ে তবুও কেন যেন কে চলে যায়, কারো কোন ক্ষতি
হলে সে দোষ মানুষের, ভয়ের বিছানা ছেড়ে উঠেছে যে আপন পায়ে।

Flag Counter


1 Response

  1. আশরাফুল কবীর says:

    “তারপরেও ভয়ের গন্ধ নামে মানুষের শরীরে।
    সে গন্ধ পরিচিত কি অপরিচিত তা জানেনা যদিও,
    জানানোর প্রয়োজনও পড়ে না,”

    কবিতাটি চমৎকার হয়েছে; পুরো কবিতাটির ডিসেকশন করলে বলবো প্রথম স্ট্যানজাটির এগিয়ে থাকার কথা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.