কবিতা

প্রেম ও বর্ষার কবিতা

shourav_sikder | 6 Jun , 2018  


অরুণা যেওনা তুমি, এই বর্ষায় যেওনা তুমি
তোমার শাড়ির সবুজ ঘাসে আজ
বসেছে রঙিন প্রজাপতি, ওর বড় উড়াউড়ি শখ
তোমার দীর্ঘ রেভলোন নখ
ছুঁয়ে যায় মহানগর থেকে মফস্বল
কৈশোরের প্রেমে আহত পুরুষ আজো ভয়ে নত
মনের গভীরে যে গভীর ক্ষত–
অরুণা, তাকে তুমি নতুন করে করো না আহত।
অরুণা যেওনা তুমি, যেওনা আমার সাথে
তোমার ডাইকরা চুল আজ উড়বে না মেঘের রাজ্যে,
বৃষ্টি আসবেই এবেলা নিশ্চিত জেনো
তোমার চিবুকে মেঘে মেঘে জমেছে অনেক ধূলো।

অরুণা, তুমি কি শুধু একাই বেসেছো ভালো
হতে পারে আমার অপুষ্ট মনের ভুলও –
তবু তোমার কাজলে ঢাকা টলটলে চোখ
আমি সেখানেও পড়ি অনাগত শ্লোক।
অরুণা আমি জানি, তোমার বর আছে
বাইশ বছরে হয়নি নিজের ঘর।

অরুণা, মনে কি আছে? কুয়াশা মোড়া জানুয়ারি এলেই
নীরবে কবি হতে পারে খুন-
অরুণা, পাথরের কি আছে কোনো গুণ?
আকিক পাথর তামার তাবিজ
যতই পরো না পারে না ভাগ্য ফেরাতে
তাহলে তো তুমি অনেক আগেই রাজরানি হতে।

অরুণা প্লিজ, যেওনা তুমি এই বর্ষায়
যেওনা আমার সাথে,
অরুণা যেওনা তুমি, যেওনা পাহাড়ে
ওখানে তোমার গোলাপি ত্বক রোদে পুড়ে
কেমন কালচে সবুজ-সবুজ হবে, আহারে-
আইফোন-মন আয়নায় দেখে ছটফট করে।
অরুণা তুমি চেওনা প্লিজ, যেতে চেওনা-
তুমিতো জানোই পাহাড়ে
মোবাইলের নেটওয়ার্ক বড় দুর্বল, তাছাড়া
তুমিতো কখনোই যাওনি নেটওয়ার্কের বাইরে
নাগরিক যাতনা ভুলে কজনই বা পারে
বর্ষাকে ভালোবেসে নেটওয়ার্ক ছেড়ে যেতে?

অরুণা, তুমি তো জানো, আমি কোমল ঘাসের কাছে যাবো
দুহাতে মাখবো দারুণ সবুজ
আকাশে নীলে ঠেসে ধরে চুমু খাবো
বৃষ্টি ভেজা পাহাড়ের ঠোঁটে আর
ঝরনার জলে স্নান করবো জন্মদিনের পোশাকে।
অরুণা তুমি খুব লজ্জা পাবে
প্লিজ যেওনা তুমি, আমার সাথে এই বর্ষায়।
অরুণা, চুপি চুপি আমি সাজেক যাচ্ছি মেঘের অভিসারে
প্রিয় সবুজ, সজীব পাহাড়ে-
অরুণা, তুমিতো জানো সেন্টমার্টিন পরিবহনে
আর কোনো সিট খালি নেই আজ রাতে
তাছাড়া বাসে তুমি চড়োনি কখনো ।
এবার তুমি যেওনা প্লিজ-

অরুণা, এ বয়সে ভালোবাসাবাসি ছেলেমানুষি
সেকি পারবে তুমি দিতে?
আমার নষ্ট নাকে এখনো এক কিশোরীর
চুলের রঙ্গিন ফিতে।
আর করুণা? ও আমি চাইনি কখনো
অরুণা, ঢের হয়েছে। দূরে ছিলে সেই বেশ ভালো
প্রেমের প্রদীপ এই বেলা আর না-ই জ্বালো।
অরুণা এই বর্ষায় ভরা মন নিয়ে
আমি আর চাইনা পুড়তে। অরুণা—
আবার ঝুম বৃষ্টি। এই যাহ !
ভেবেছো তোমার মেক-আপের কি হবে?
অরুণা মন খারাপ করো না- প্লিজ।

অরুণা, একদিন নিশ্চয় সাজেক যেতে হেলিকপ্টার সার্ভিস হবে
একদিন নিশ্চয় পাহাড়ে নেটওয়ার্কের সমস্যা থাকবে না
একদিন নিশ্চয় বৃষ্টিরা মেক-আপের সাথে করবে না দুষ্টুমি
একদিন নিশ্চয় আকিক পাথর ভাগ্য ফেরাবে
একদিন নিশ্চয় আমি আর জন্মদিনের পোশাকে স্নান করবো না
পাগলের মতো পাহাড়ে-টাহাড়ে চুমু খাব না
ঈদের ছুটিতে মেঘের সাথে কোলাকুলির জন্য
চিম্বুক যেতে অস্থির হব না।
অরুণা, সেই দিন তোমাকে নেবো
বর্ষা ১৪২৫ কে স্বাক্ষী রেখে বলছি—
ভালোবাসতে যদি নাও পারি- দেখো
হুমায়ুন ফরিদীর মতো দারুণ অভিনয় করে যাব।

অরুণা, সেই দিন তোমাকে নেবো।
সেই দিন তোমাকে নেবো।

Flag Counter


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.