কবিতা

আকেল হায়দারের একগুচ্ছ কবিতা

আকেল হায়দার | 10 Jun , 2018  


স্ন্যাপচ্যাট

স্ন্যাপচ্যাটে আড্ডা দিতে গিয়ে সেদিন হঠাৎ বল্লে: আচ্ছা-আলাদীনের দুই দৈত্য যদি কখনো মুখোমুখি দাঁড়ায় কি হবে বল তো? শুনে খানিকটা ধন্ধে পড়ে গেলাম! খানিকটা বিরতি নিয়ে বললাম: কি আর হবে-? রোদেলা ফাগুন ফুঁড়ে একগুচ্ছ বর্ষণ মেঘ জন্ম নেবে- গুচ্ছ গুচ্ছ দমকা হাওয়া বইবে- স্রোতের তাড়া খেয়ে নদী মোহনায় ছুটবে-ঘাসবাহী নৌকাগুলো সবুজে লুটোপুটি খাবে-মেঘবাড়ী জানালায় বিজলী মেয়ে চোখটিপ দেবে-তরুণী ফুলগুলো কোমর দুলিয়ে গুলশানে হেঁটে বেড়াবে! ক্রমশঃ আরো ঘনীভূত হবে তাদের প্রেম! স্পর্শ দমকায় কেঁপে কেঁপে উঠবে মাটির পাটাতন। বৃষ্টিকলায় হিমবাহ জমবে পৃথিবী শরীরে। বৃক্ষরাজি কুর্নিশে করতালি দেবে। অতঃপর অথৈ জলস্রোতে নিমজ্জিত হবে তৃষ্ণার্ত বালিয়াড়ি। ঝড় থেমে গেলে পরস্পরকে খুঁজে বেড়াবে আপন বৃত্তে। আলাদীনের দৈত্যযুগল হয়তো ঘুমিয়ে যাবে ততক্ষনে!

জলদেবী

তুমি কি ঘাসফড়িং নাকি জলডিঙা? নাকি সমুদ্র কুঠুরীতে জেগে ওঠা খরস্রোতা দেবী। যাকে দেখে দাপাদাপি করে মেঘের শাড়ি। ঝিরঝির প্রোপাতে বাজে বাতাসী নুপুর। পাতার গ্রীবায় সম্মোহনে চুমু খেয়ে যায় লাল নীল প্রজাপতি। অনুভবে কেঁপে কেঁপে ওঠে যুবতী মাঠের বুক। বৈতরণী নাও চাতক দুপুর সওয়ারী করে ছোটে দিগন্তের দিকে। ঝিকিমিকি বিকেল পাঠ করে নদীর শরীর। সন্ধ্যাচোখে পালকীতে ফেরে একাকী জোনাকি। হৃদয়তারে বাজে করুণ সেতার। কে তুমি ক্ষণে ক্ষণে কড়া নাড়ো ঘুম দরোজায়? সুনামি হয়ে তোলপাড় করে যাও বুকের নির্জন সমভূমি।

অক

তুমি আসবে বলে ধুম লেগেছে সমুদ্রতটে-
ঢেউয়ের বাড়ি বাড়ি মহল্লায়
জেগেছে জলোৎসব।
নূপুর পায়ে প্রজাপতি, ঝড় তোলে
ইউক্যালিপটাসে,পাতায় শিরায়।
নক্ষত্রমণ্ডল ছেয়ে যায়
অমিয় সুর মূর্ছনায়।
পাথরের বুকে অনুরণিত হয় গূঢ় স্পর্শ
জাগে অদেখা জলের নিঃশ্বাস,
জমানো কথার কুপিতে ফোটে শব্দ
ঝর্ণার কুটিরে নেমে আসে মুগ্ধ প্রপাত।
স্ফুলিঙ্গের মতো দোল খায় হাসি
মহাকাশের দীর্ঘ ক্যানভাসে সুরভি
ধীরে ধীরে নিকটবর্তী হয় পদধ্বনি।
আত্মার অলিগলি অলিন্দে
বৃষ্টির বিন্দু হয়ে ঝরে তার মুখ
চোখের নৈর্ব্যক্তিক জানালায়।

ঋতুচক্র

শরত পূর্ণিমা,বাসন্তী বিকেল,বর্ষারাত
ফিরতি বছর ঘড়িবৃত্তে সূর্য হেঁটে যায়
ভুলেও তবু হয়না-ভুল দেখা আমাদের।

সাইট্রাস মুখশ্রীর ঘূর্ণায়মান পৃথিবীতে
আমরা কি আর মিলিত হবো না কভূ?
এ স্বেচ্ছানির্বাসন কি আদৌ যৌক্তিক?

আমি বলি কি এবার তুমি নম্র হও
বৃষ্টিস্নাত দিগন্তের মতো কিছুটা স্থির
জীয়নের আদ্যোপান্ত হোক পুনর্পাঠ!

মনের উপবনে সুমতি হাতছানি দিলে
ঘুরে এসো অরণ্য-দ্বীপ-জলের সংসার
মমতার ইজেলে কল্পনায় আঁকো-
অনাগত সন্তানদের হাসি হাসি মুখ!

Flag Counter


8 Responses

  1. আশরাফুল কবীর says:

    দারুন লেগেছে কবিতাগুলো, শুভেচ্ছা।

  2. Tareq says:

    I feel that the poet is accumulating my scattered thinking in a such way which is beyond conventional.

    Wish U all the best.

  3. আকেল হায়দার says:

    Many thanks.

  4. আকেল হায়দার says:

    অনেক ধন্যবাদ। আপনার জন্য শুভ কামনা।

  5. zunnu says:

    পড়ে ভাল লাগল। কবির জন্য শুভ কামনা।

  6. Akel Haider says:

    অজস্র ধন্যবাদ।

  7. সুমাইয়া তাসলিমা says:

    চিত্রকল্পের শৈল্পিক গাথুঁনীতে আঁকা এক গুচ্ছ অনবদ্য কবিতা। কবির জন্য শুভ কামনা।

  8. মিথুন says:

    কবিতাগুলি অসাধারন লেগেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.