কবিতা

মুহম্মদ নূরুল হুদা: স্বাধীনতার জন্ম

nurul_huda | 17 Mar , 2018  

কোটি কোটি বছর ধরে বস্তু ও অবস্তুর গর্ভজাত
মহাকর্ষের মহাসাংঘর্ষিক মহামিলন থেকে সহজাত
জন্ম-সৌভাগ্য যে জাতিবাঙালির, তারই দিগন্তবিস্তৃত
পলিবাংলার প্রথম মুক্তপলিপুত্র তুমি,
হে আমার তামাটে পিতা।

তোমার শরীরে-মনে মিশে আছে
জগতের সব ধর্ম-কর্ম, সব গোত্রবর্ণ,
নন্দনবন্ধনের সব স্বর্ণাস্বর্ণ।

তুমি এই বঙ্গভূমি থেকে বিজয়সিংহের দিগন্তবিস্তারী সতৃষ্ণ সাঁতার,
রাখালরাজ গোপালের মাঠে মাঠে সর্বশস্যের ধুধু সোনালি খামার,
চর্যা-র পদকর্তা ভুসুকুর চিত্তে বংপ্রজাতির প্রথম প্রমুক্ত পঙক্তির ক্ষরণ,
মাতৃবাণী মাতৃউক্তি বাঙ্গালার সপক্ষে হাকিমের জাতিস্মর উচ্চারণ,
মধ্যযুগে স্বঘোষিত স্বাধীন সুলতান ইলিয়াস শাহের অনার্য ভাষা-তূর্য,
বিদ্যাপতি-আলাওল-চণ্ডীদাশের স্পর্শ-ও-বর্ণ-নিরপেক্ষ নন্দনসূর্য,
জাতিত্যাগী বিশ্বভিখারী মাইকেলের শ্রীমধূসূদন হয়ে নিশর্ত ঘরে ফেরা, –
তুমি জগতের তাবৎ জাতিতত্ত্বের সত্যাসত্য চুলচেরা;

তুমি গগন হরকরার তৃণাভিসারী লোকচিত্তে জল-ছলোচ্ছল মনোবাংলা,
গুরুকবি রবীন্দ্রনাথের বৈদিক বুকে বাউলের লালনোজ্জ্বল সোনার বাংলা,
ভৃগু-বিদ্রোহী নজরুলের বুকে-মুখে বেনিয়া-তাড়ানিয়া ব্রহ্মাস্ত্র জয়-বাংলা,
শহিদ-গাজী ক্ষুধিরাম-বরকত- সূর্যসেন-তিতুমীরসহ সব ভাষাযোদ্ধা আর
তাবৎ কালের তাবৎ মুক্তিযোদ্ধার বাঁশের কেল্লার সাহসের অধিকার –
তুমি সার্বভৌম বাঙালি তর্জনী, তার আকাশ-শাসানো ব্যাঘ্রের চূড়ান্ত হুংকার ।

তুমি মধুমতি, ধানসিড়ি, পদ্মা-মেঘনা-কর্ণফুলী-ব্রহ্মপুত্র আর হাজার নদীর
জলবাংলা, তার উত্তাল তরঙ্গভঙ্গ। তুমি অঙ্গবঙ্গকলিঙ্গের মুক্তিযুদ্ধ সর্বজয়ীর;
তার স্বাধীনতা, তার যুক্তিযুদ্ধ। তুমি বঙ্গবন্ধু, তুমি মুক্তবন্ধু, তুমি এই বাংলার
আগত-অনাগত তাবৎ বঙ্গসন্তানের চিরকালের স্বাধীনতার আরাধ্য টঙ্কার ।
না, তুমি মানোনি কারো অধীনতা,
না, আমি মানিনি কারো অধীনতা,
না, বাঙালি মানে না কারো অধীনতা।

আমার স্বাধীনতা মানে তোমার স্বাধীনতা,
তোমার স্বাধীনতা মানে আমার স্বাধীনতা;
না, আমার স্বাধীনতা মানে
তোমাকে আমার পরাধীন করা নয়;
জয় হোক, জয়
জাতিজ্ঞাতি নির্বিশেষে
দেশে দেশে কালে কালে
মুক্ত ব্যক্তিমানুষের জয়।

জন্ম হোক, সার্বভৌম স্বাধীনতার নৈয়ায়িক জন্ম,
স্বাধীনতা হোক নৈয়ায়িক ব্যক্তিসত্তার ব্রহ্ম-জন্ম।

১৩-১৭.০৩.২০১৮
Flag Counter


2 Responses

  1. তমাল says:

    শব্দের খেলায় অতুলনীয় নৈবেদ্য জাতীর পিতার প্রতি। কবি আপনাকে সালাম।

  2. Mostafa Tofayel says:

    এক রাশ উপমা ও গুচ্ছ উপমা, কখনও সম্প্রসারিত উৎপ্রেক্ষারাজি বীর রসাত্মক ব্যঞ্জনায় ব্যাপ্ত করছে বাঙালির অগ্রযাত্রা অভিমুখী উৎসারণ। দীপ্ত অতীতের ন্যারেটিভ সিক্ত করছে দৃপ্ত বর্তমান; উত্তাল জীবনীশক্তি জাগ্রত করছে উদ্যমী আগামী। উদ্দীপ্ত কবিবর প্রদীপ্ত উচ্চারণে প্রকম্পিত করছেন বাংলার আকাশ-বাতাস পথ প্রান্তর, নেতার নেতৃত্বে জনতাকে সজ্জিত করে, জনতার নেতৃত্বে নেতাকে সমাসীন দেখিয়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.