কবিতা

শামীম আজাদের চূর্ণ-কবিতা

শামীম আজাদ | 31 Jan , 2018  

 কুলুঙ্গীতে তোলা ছিলো অবশিষ্ট চুম্বন
সুদসহ নিয়ে নিচ্ছ তুলে
এমন সিঁদকাটা কর্ণিয়া কোথা থেকে পেলে

 রাত, হে আমার নৃত্বাত্তিক নদী
বালির এ বালখিল্য খেলায়
বুক ভরে শ্বাস আট্‌কে অভিজ্ঞানহীন হলে
আমি এখন ভাসবো কোথায়

 বাজুবন্দে বেঁধেছি অপুষ্ট বাঞ্ছা
দেখো একদিন ঠিক বাহুবল হবো
জানি এমন প্লাবন শুধু কবি ও কাঙালেই পাবো
তাই আমি কবি ছাড়া হবো না কাহারো

 যে সম্পর্ক সবচেয়ে প্রগাঢ় প্রবীণ
সে সম্পর্কই হতে পারে অতি তুচ্ছ ক্ষীণ
সে শুধু থাকা না থাকার গল্পে
সে শুধু তোমার আমার ঋণে

 ছোঁও
এসো
হাঁটো
এই অঙ্গে
তারপর
মরো
এবং
মরি

 বুঝদার নিজেকে বোঝানোইতো যায় না
বেয়াদব নিজেকে নিয়ে বসাইতো হয় না
এক বিন্দু নিজে, নিজেকেই স্থান দেয় না

 না হয় একটু ঝগড়াই করি চলো
তবুতো কথা হবে

 আমাকে লম্বা করতে করতে
তোমার দৈর্ঘ্যই ঢেকে ফেলেছি।

 এক অনন্যসাধারণ প্রেম করবো বলে
প্রেমের উপাত্ত সাজিয়ে দেখি
পাহাড়ের উপরে নিতান্তই এক সাধারণ
মাংসের দোকান খুলে ফেলেছি

 দেহের ভেতরে তাকিয়ে দেখো
আঁশগুলো আলো হয়েছে কিনা
কানের ভেতরে মন পেতে শোনো
টংকারগুলো ট্রাংক থেকে বেরিয়েছে কিনা
ঘ্রাণের সুবাস নিয়ে দেখো
দীঘর্শ্বাস খন্ডিত হয়েছে কিনা
তারপর তুমি হেমন্ত হয়ে যাও
গা থেকে পাতার মত
পোশাক ঝরিয়ে দাও

 স্বপ্নে দেখি সত্য’র মত
উতলা উদলা বাহু
আর আমি উবু সেইখানে
ঠোঁটজোড়া দাঁতের সন্ধানে

Flag Counter


3 Responses

  1. Dr. Muhammad Samad says:

    Lovely!

  2. mustafa mohiuddin says:

    Excellent!

  3. কবি শামীম আজাদের লেখা চূর্ণ কবিতাগুলোর বিষয়বস্তু মুহূর্তের ভাবনা বৈচিত্রে ভরপুর। কাব্যভাষা নির্মানে কবি বরাবরের মতই কুশলী। বক্তব্যের প্রকাশভঙ্গিটিও ঋজু, কবির নিজস্ব স্টাইলে উচ্চকিত। কবিতাগুচ্ছটি হৃদয়গ্রাহী ও সুখপাঠ্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.