কবিতা

সৈয়দ আফসারের ছয়টি কবিতা

সৈয়দ আফসার | 3 Feb , 2018  


হন-ছোঁয়া
বিলুপ্ত অ্যাশ গাছের ডালে বসে চুম্বনরত দুটি পাখিকে দেখে ভাঙনের ঘূর্ণিপাকে দাঁড়িয়েছি স্থির। তোমাকেই দেখি পন্থহাওয়ায় ছোটাছুটি করছ পাখি-দেহে…মলিন মুখটির গহন ছুঁইয়ে নামছে মিটমিটে হাসির রোশনি, গলে গলে পড়ছে শীতে—হাড়কাঁপাশীতে ঢুকে পড়া কিংবা শীতগল্প টুকে রাখার মুহূর্ত লুকায়ে রাখছ হে, শীতের তীব্রতা টানছে; কেবল আমাকে!

দুঃখগোলাপ
দেহের ভিতর দোলো, নাড়াও অনুভব ছুঁতে
ব্যথাহাতে কাঁপাও বুক!—বর্ষা-শ্রাবণ-শীতে

নিজেকে জানার ইচ্ছা নিয়া থমকে দাঁড়াই
জীবন—আশলে চাওয়া-চাওয়ি কিচ্ছু নেই

দুঃখ যত গোলাপের মত আঁকা দুখিগাছে
দিনে দিনে ঘায়েল আমি, অপেক্ষার নিচে

আশাফুল
স্বপ্নের ভিতর গুড়ো হয়ে যাচ্ছে সমস্তকিছু, গুড়া স্বপ্নবিভোর কী আমরা? পাশে থেকে এই কথাটি বোঝো না তুমি—বুঝতে পারিনা কোন দ্বিধাধন্দে হতচ্ছাড়া আশাফুলের পাশে দাঁড়িয়ে জড়ায়ে রাখছ সকল সৌন্দর্য জলে ও বরফফুলে

ছুটির দিনগুলো বর্ণিল রেখেছি জানালার শিকে হাসিঠাট্টার ছলে কথকতাই যে বলি তোমাকে— শেষপর্যন্ত কিছুই সহ্য করতে পারনা রহস্যপ্রবণ হে নারী। স্পর্শ-ইশারা বোঝো না, ভাষাও বুঝো না দুইখানি চোখ কী চায় গোপনে! আমাকে ঘিরিয়া রাখছ রহস্যচ্ছলে…হে-হে নিয়েছ নিঃসঙ্গতা খুলে

শূন্যতা
মনোযোগহীন আমার ভিতর অন্য আমি—আমাদের পাশাপাশি থাকার দিনগুলি নিয়া
যৌবনা নদীর মত দুঃখে জলে জলে ভাসি
কতদূর যাব শূন্যতা নিয়া চোখের সামন দিয়া

ঐ শূন্যদিন—এখানে এমনি, কথাটির শেষ
মাথায় হিমকাতর রাতটাও শুয়েছে ঘুমে—

সেই অব্দি আমার আকাঙ্ক্ষারা কলহমুগ্ধ
ছোট্ট একটা হাসিখুশির ভিতর দিয়া গেছে
নীরবতা ও সকল সৌন্দর্য পাশাপাশি রেখে আয়নার সামনে দাঁড়াও তুমি!

টের কী পাও, আয়নার পেছনে যে আমি?

আকাঙক্ষা
কখন কাকে ধরে, কখন কি যে ঘটায় আলো -আধাঁরে-জ্যোৎস্মায়। জমানো যত সবই সঞ্চয়। ছেড়ে যাবার সহস্র কারণ দাঁড় করানো ব্যাপারই না। থেকে যাবার জন্য মনের টান-ই যথেষ্ট

তোমার হাসিখুশির গল্প কি ভাষা কোনোটি রপ্ত করিনি প্রিয়, সম্পর্ক কখনও বুড়ো হয়না—জীবনের ভুল কিছু সিদ্ধান্ত পোড়ায় জীবনভর। আনমনা কিছু মনগপ্প হরহামেশা জ্বলে পোড়ে উনুনে

ঐ ষোল বছর পূর্বের সোনালি দিনগুলি—আমি, হারানো পথের বাঁকে-বাঁকে আমাকে খুঁজে ফিরি স্রেফ মুখোমুখি বসে দু’দণ্ড সুখদুঃখের কথা শেয়ার করতে

পুরনো গল্পে আমি
পুরনো একটা গল্পের ভেতর মজা লুটতে জুড়ছো কথা মুচকি হাসি মুখে। আমার অপেক্ষা দ্বিধা-বাঁধাহীন হাসির উল্টো পাশে ধাক্কা খেয়ে ওঠে ওকগাছে—ভাবে, জীবনের দু-একটা উদ্দেশ্য থাকে; সব উদ্দেশ্য কী পূরণীয় একজীবনে

মুমূর্ষু এই আমি বুঝিসুজি কমই, তবু ঘূর্ণিহাওয়ায় শীতের সাজুগুজু দেখে লুকিয়েছি হাত দুটি প্যান্টের পকেটে।

বুকখোলা শীতকাল তোমার কেমন কেমন লাগে? জিজ্ঞাসার ভেতর হো হো করে হাসো,অনুভূতির ভিতর হাত বাড়িয়ে রাখো ঠিকই কিন্তু অনুভব অস্পষ্ট ও রসিকতাপূর্ণ
Flag Counter


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.