বেঙ্গল গ্যালারি অব্‌ ফাইন আর্টস্‌

‘জীবনের ছায়া’ প্রদর্শনীর ওয়েব উপস্থাপন

admin | 23 Oct , 2007  

আর্টস পাতার এই ওয়েব গ্যালারি থেকে শুরু হলো বাংলা শিল্প জগতের নতুন অধ্যায়। শুরু হলো দেশের গ্যালারিগুলির ওয়েব উপস্থাপন। গ্যালারিতে শুরু হওয়া প্রদর্শনীর প্রামাণ্য উপস্থাপন আর্টস-এর পাতায় থাকবে প্রদর্শনী শেষ হওয়া তক। এর পরও আগ্রহীরা আর্টস-এর আর্কাইভ থেকে প্রদর্শনী উপভোগ করতে পারবেন।

গ্যালারিকে বিশ্বময় ছড়িয়ে দেওয়ার এ প্রক্রিয়ায় এ বারে এসেছে ধানমণ্ডির ২৭ নং পুরাতন রাস্তায় অবস্থিত ‌’বেঙ্গল গ্যালারি অব্ ফাইন আর্টস্‌’-এর ১৭-২৬ অক্টোবর ২০০৭ ব্যাপী ‘জীবনের ছায়া’ বা ‘Shades of Life’ প্রদর্শনীটি। নারী-শিল্পীদের সংগঠন সাঁকোর ৯ জন ও ৩ জন অতিথিসহ মোট ১২ জন নারী শিল্পী প্রদর্শনীতে অংশ নেন। শিল্পীরা হলেন : Fareha Zeba, Farida Zaman, Farzana Islam Milky, Kanak Chanpa Chakma, Kuhu, Naima Haque, Nasreen Begum, Rebeka Sultana Moly, Rokeya Sultana, Sarkar Nahid Niazi Nipu, Shulekha Chaudhury ও Denise Hudon। নিচে প্রদর্শনী বিষয়ে বেঙ্গল গ্যালারি অব্ ফাইন আর্টস্‌-এর ভাষ্য তুলে দেয়া হলো। আমাদের এ যাত্রায় যুক্ত হওয়ার জন্য বেঙ্গল গ্যালারি অব্ ফাইন আর্টস্‌-এর প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞতা। প্রদর্শিত আর্টওয়ার্কের ছবিগুলি তুলেছেন সিউতি সবুর।

বেঙ্গল গ্যালারি অব্ ফাইন আর্টস্‌-এর ভাষ্য
gallery1.jpg সাঁকো নারী-শিল্পীদের সংগঠন। জন্মলগ্ন থেকে এই সংগঠন নিজেদের কর্ম ও সৃজনশীলতাকে স্বাতন্ত্র্যে চিহ্নিত করতে প্রয়াসী হয়েছে। যদিও সৃজনশীলতার ক্ষেত্রে লিঙ্গ বিভাজনকে চিহ্নিত করা যায় না, তবুও পুরুষশাসিত সমাজে নারীর উন্মুখতা এবং অন্তরবেদনাকে প্রকাশের জন্যে ভিন্ন প্রয়াসকে শ্রদ্ধার সঙ্গে বিবেচনা করা জরুরি বলেই আমরা মনে করি।

সাঁকোর শিল্পীদের মধ্যে আমরা প্রত্যক্ষ করেছি নারীর জীবন-ভাবনা প্রকাশের আকুলতা। নারীর দুঃখ ও যন্ত্রণাকে নানা পরিপ্রেক্ষিত ও পটভূমিতে বিশ্লেষণে অনেকেই প্রয়াসী হয়েছেন। সেই সঙ্গে অনেকেরই সৃষ্টিকর্মে প্রতিফলিত হয়েছে নিসর্গের সৌন্দর্য, গ্রামীণ-জীবনের আলেখ্য। সাঁকো এই দিক থেকে হয়ে উঠেছে নারীভাবনা, সমাজ-অঙ্গীকার ও সৌন্দর্যধ্যানে নিমগ্ন চিত্রীদের সংগঠন।

সাকোর শিল্পীরা

সাঁকোর এই প্রদর্শনীর শিরোনাম জীবনের ছায়া। বিষয়, শৈলী ও চিত্রভাষা নির্মাণে এই প্রদর্শনীর শিল্পীরা ভিন্ন গুরুত্ব সৃষ্টি করেছেন। খ্যাতনামাদের সঙ্গে নবীনদের মেলবন্ধনের ফলে ভাবনা ও প্রকাশবৈচিত্র্যেও এসেছে আলাদা অনুভব। জীবনের নানাদিক উন্মোচিত হয়েছে বেশ কয়েকটি চিত্রে। নারীর জীবন এবং পথচলা যে কণ্টকাকীর্ণ এই অনুভবেরও বিচ্ছুরণ আছে দু-একটি চিত্রে। প্রদর্শনীতে ক্যানভাস ছাড়াও দুটি ভাস্কর্য-শিল্প স্থান পেয়েছে। মানবকল্যাণে আয়োজিত এই প্রদর্শনী বেঙ্গল গ্যালারি অব ফাইন আর্টস আয়োজন করতে পেরে আনন্দিত।


3 Responses

  1. atoshi sabur says:

    good job and thanx for letting us see the truly natural shades of life..hope to see ur versatile photography more..

  2. মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা says:

    চমৎকার সংযোজন। বাংলাদেশের শিল্প জগতের জন্য একটি ঐতিহাসিক পদেক্ষপ। খুব ভালো লাগলো। ঘরে বসে প্রদশর্নীর স্বাদ নিলাম। সংশ্লিষ্টদের শুভেচ্ছা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.