গুচ্ছ কবিতা

29 Dec , 2012  

সমুদ্র সিরিজ স্বর্গ শহর এত কাছে নীল দুপুরের সমুদ্রে রৌদ্রে ঝিলমিল কার্নিশে বাতাস দোলে ডাকে যেন সমুদ্রের চিল। হায় চিল তুমি আর কেঁদো নাকো তোমার কান্নার সুরে আরেক সাগরের কথা মনে হয়। কোথায় সেই মাতাল বাতাস, উত্তাল ঢেউ সমুদ্র কি এত নিস্প্রাণ হয়।

গুচ্ছ কবিতা

29 Dec , 2012  

লেবুপাতার মিল মন্ড কি মন্ড না আলাদা একা লেবুপাতার মিল যেই পাপ বুঝলানা সেই পাপ তোমার হইলো না – তুমি ইনোসেন্স ক্লেইম করতে পারো নৈঃশব্দের স্ফটিক টিপে টিপে বসাতে পারো আকাশে – চাঁদের দিকে, সূর্যের দিকে – সেগ্রিগেশান – একটা পানিভর্তি বেলুন, ওই যে যার কথা হচ্ছিলো টেপা চোখে কুয়ার ভিতর বিকট লাল শব্দ বিকট […]

দহের বাতাসে পাখি উড়ে গেলে…

29 Dec , 2012  

এই টার্মের শেষ প্রজেক্ট ‘প্রমোটস জেন্ডার ইকুয়ালিটি এ্যান্ড এমপাওয়ার উইম্যান।’ আমার পার্ট সাউথ এশিয়ান রিজিয়ন। পিটার লিখছে পর্তুগালের হিষ্ট্রি। ওর সাথে পরিচয় টার্মের মাঝখানে। কমন কোর্সে। আমি, সোফি বার্গম্যান, ডোরিয়া, আন্তনিও মেনদেজ আর পিটার এক ইউনিট। নিল্স খুঁতখুঁতে চঞ্চল পটবিহীন ন্যারেটিভ অধ্যাপক। অকারন নির্জন। দীর্ঘাকৃতি পুরুষ আরো পুরুষালি বিশেষত দাড়ি, কমা ঠিক না হলে আর্টিক্যালটা […]

বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ অবশ্য পাঠ্য

27 Dec , 2012  

কারাগারে বসে লেখা বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী অসমাপ্ত হলেও একজন দেশপ্রেমিক রাজনীতিকের আত্মজীবনী রচনার ক্ষেত্রে এ গ্রন্থ একটি উজ্জ্বল মাইলফলক। তাঁর আত্মজীবনী শুধু এক রাজনীতিকের স্মৃতিকথা নয়, উপমহাদেশের রাজনীতির ইতিহাসেরও এক অনন্য স্মৃতিভাণ্ডার। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে শত শত বই বের হয়েছে, কিন্তু ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র সঙ্গে অন্য কোনো বইয়ের তুলনা হয় না। বস্তুত একটি জাতির জীবনে এমন কিছু মুহূর্ত […]

সৈয়দ হকের সাক্ষাতকার:

‘ইতিহাস কখনও শূন্যতা পছন্দ করে না’

27 Dec , 2012  

সময়টা দু হাজার আট সাল এর মাঝামাঝি। বাংলাদেশের পথিকৃৎ ভাস্কর নভেরা আহমেদকে নিয়ে একটি ডকুফিল্ম বানানোর চেষ্টা চালাচ্ছি। সেই সূত্রেই নভেরার সমসাময়িক এই অগ্রজ কথাসাহিত্যিকের দ্বারস্থ হই আমি। উদ্দেশ্য নভেরা আর শহীদ মিনারের র্নিমাতা হিসেবে তার নাম যুক্ত না হওয়া প্রসঙ্গে কথাবার্তা ধারন করা। এখানে একটি বিষয় উল্লেখ করা দরকার যে সৈয়দ হক সে সময়ে […]

মোহরানা বৃত্তান্ত

24 Dec , 2012  

সভ্যতা এগুতে থাকে বিকাশের অনিবার্যতায়। এরপরেও নারীকে প্রাক্তন বৃত্তাবদ্ধ দশায় দেখতে থাকে পুরষতন্ত্র। আর এসব কন্ডুয়ন থেকে নারী জাগরণের আশ্বাস আর মুক্তির বার্তা নিয়ে আসে সমাজতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থা। সমাজ বিকাশের এ ধারায় আদি শৃঙ্খল, সনাতন শাস্ত্র আচারের অন্তর্জলী যাত্রায় সামিল হওয়ার স্বপ্ন দেখে মানব সমাজ। তারপরও নারী মুক্ত হয় না। তাকে নানান ঘেরাটোপে ফেলে নিংড়ে নেয় […]

পাঁচটি কবিতা

21 Dec , 2012  

কবিতা ১ অক্ষরগুলিকে মাঝেমাঝেই দাঁড় করিয়ে রাখতে ইচ্ছা করে এই কাজটি মনে হয় পারি বেশ লাগে লাইনের পর লাইন মাথায় বিশাল শান্তির এক অখণ্ড শ্বেতপতাকা চলেছে কোনো একদিকে স্নিগ্ধ কালো সৈনিকেরা

বিজয়ের কবিতা

16 Dec , 2012  

সাহসী জননী বাংলা তোদের অসুর নৃত্য … ঠা ঠা হাসি… ফিরিয়ে দিয়েছি তোদের রক্তাক্ত হাত মুচড়ে দিয়েছি নয় মাসে চির কবিতার দেশ… ভেবেছিলি অস্ত্রে মাত হবে বাঙালি অনার্য জাতি, খর্বদেহ… ভাত খায়, ভীতু কিন্তু কী ঘটল শেষে, কে দেখাল মহা প্রতিরোধ অ আ ক খ বর্ণমালা পথে পথে তেপান্তরে ঘুরে উদ্বাস্ত আশ্রয়হীন … পোড়াগ্রাম … […]

বাঙালি

15 Dec , 2012  

জয় হোক জয় বাংলার জয় হোক বাঙালির জয় মাতৃভাষার জয়, ভাষাযুদ্ধে গাজী ও শহীদ সব সহযোদ্ধার জয়, জাতিত্বের মুক্তিযুদ্ধে অকুতোভয় জাতিযোদ্ধার জয় জলেস্থলে-অন্তরীক্ষে একাত্তরের বাঙালির জয় স্বাধীন সার্বভৌম জাতিরাষ্ট্র বাংলাদেশে সার্বভৌম বাঙালির জয় জয় হোক জয় হোক জয় হোক জয়

৭১’-এর সেই জনযুদ্ধ যেমনটা দেখেছি

15 Dec , 2012  

১৯৭১ এর মে মাসের প্রথম সপ্তাহের কোন একটা দিন, দুপুরের দিকে, আমার দাদীর বাড়ীতে অন্যদের নিয়ে খেলায় মত্ত আমি। তৃতীয় শ্রেনীর ছাত্র, তবে স্কুলে যাওয়ার বালাই নেই, কারন যুদ্ধ লেগেছে পশ্চিম পাকিস্তানীদের সাথে, স্কুলের স্যাররা সবাই যুদ্ধে যাবার প্রস্তুতি নিচ্ছে, দু একজন নাকি চলেও গেছে। সারাদিনই শুধু খেলা আর খেলা। হঠাৎ বড়দের মধ্যে ভিশন হৈ […]

কবিতায় সমাজ চিন্তার প্রাসঙ্গিকতা ও নির্মিতি

4 Dec , 2012  

ভাষার মাধ্যমে মানুষ তার ভাব প্রকাশ করে। ভাষা ভাব প্রকাশের সংকেত। স্বয়ংসম্পূর্ণ নয়। তাই একজন মানুষ তার ভাবের কথা যা কিছু ভাষায় প্রকাশ করেন তা হুবহু ভাবের প্রকাশ নয়। পন্ডিতজনরা অন্তত তাই ভাবছেন । তাদের মতে এর ফলে আমরা ভাব প্রকাশের খণ্ডিত রূপটি পাই। “ভাষা মানুষকে মানুষ হতে আলাদা করে ফেলে যেমন আমি, যে মানুষ […]

গোলাপের অভিঘাত

2 Dec , 2012  

একটি গীতিময় মৃত্যুর মোহে কাটাই গদ্যধূসর জীবন কারণ জানি শীতার্ত ঝংকার– কুয়াশাকণ্ঠের গানের পর আছে রংধনুর নদী। আর কৃষ্ণবসন্তের হাওয়া এলোমেলো করে দেয় সোনালি স্বপ্নসব। পথে পথে কত লালগালিচা ভৎর্সনা তবু সন্তপ্ত নক্ষত্রের রক্ত ঝরে টুপটাপ;

উন্মাদ সিরিজ

2 Dec , 2012  

উন্মাদ: ১ এই শয্যা পাথরের, প্লাবিত জ্যোৎস্নায় উন্মাদের কিন্তু তার কোনো সাক্ষ্য নেই, যেমন রাখে না চিহ্ন ধু-ধু বালুরাশি, কিংবা জল দিগন্তের পাহাড়ের সুউচ্চ-চূড়ার মতো কেবলি কান্না জেগে ওঠে । কে যায়, কোথায়, কোন উন্মত্ত নগরে দেখি, অরণ্য গভীরে পাতা ঝরে । মধ্যরাতে নক্ষত্রের দিকে তাকিয়ে ভাবি– কে বেশি দ্রুতগামী কচ্ছপের পিঠে সময় না কী […]

গুচ্ছ কবিতা

2 Dec , 2012  

মহুল কুড়ি-১ আজ যদি আকাশে আর একটি চাঁদ উঠত তাকে ফুল গাছের দেবতা দিতাম বাঁশ পাতার তীক্ষ্ণতা দিতাম নীরার ভালোবাসা দিতাম হ্যেলাঞ্চার নিছক স্বাদ দিতাম যদি সে সে-গুলোকে নিতে প্রস্তত থাকত তাহলে আমি আমার যত্নের চাদর পৃথিবীতে বিছিয়ে দিয়ে প্রকৃতিকে উলঙ্গ হতে বলতাম আমিও ভ্রমণ করতাম তার সঙ্গে নিভৃতে – নিশ্চিন্তে

গুচ্ছ কবিতা

2 Dec , 2012  

দেখা, না দেখা এক বন্ধু বলে ছিল সকাল বেলা বি-জোন গেলে পার্কটা একটু ঘুরে আসিস। গিয়ে ছিলাম একদিন – ও যা বলেছিল দেখিনি। দেখেছি শিশির ভেজা ঘাসের উপর সূর্যের আলো পড়তে, দেখেছি একটা মাছরাঙা পাখিকে ঝিলের ধারে ঝিমুতে, আর দেখেছি শিশু গাছের শুকনো পাতাগুলি ঝুরঝুর ঝরতে । হয়তো-বা ও যা দেখেনি ।