Post by: sanjida_khatun

স্কুলের দিনগুলো: আমার কথাটি ফুরালো

সনজীদা খাতুন | 22-Jul-2014  

সেজদির শ্বশুরবাড়ির কাহিনি আর একটু বলা যাক। বিয়ের প্রস্তাব এসেছিল, বরপক্ষ স্কুলের ঘোড়ার গাড়িতে সেজদিকে দেখে পছন্দ করেছিলেন বলে তাড়াহুড়া করে বিয়ে হয়ে গেল। আব্বুর ধারণা ছিল মেয়েদের যেখানেই বিয়ে হোক, তারা মানিয়ে নেবে। পরিবারে পরিবারে সংস্কৃতিতে ভেদ থাকতে পারে, সেসব ভাবেননি। ফলে বিয়ের পর অজপাড়াগাঁয়ে গিয়ে সেজদি পড়লেন আতান্তরে। রান্নার চালায় শাশুড়িকে সাহায্য করবার […]

স্কুলের দিনগুলো: আমার সেজদির কথা

সনজীদা খাতুন | 6-Jul-2014  

ফজলুল হক হলের গেটহাউসে থাকতে আমার খুব গানের নেশা হয়েছিল। ওদিকে গলার কী সমস্যা হয়েছিল, একটু ভাঙাভাঙা কণ্ঠস্বর সারাবার জন্যে গলার মহা তোয়াজ করতাম। বারবার করে গড়গড়া করা চলত গরম পানি দিয়ে। গলায় একটা কমফর্টার জড়িয়ে রাখতাম সারাক্ষণ। রীণার জন্যে গানের শিক্ষক ছিলেন। ওর গান শেখার সময়ে পাশে বসে থেকে সব গান তুলে নিতাম আমি। […]

স্কুলের দিনগুলো:পারিবারিক শোক আর গৃহের আনন্দ

সনজীদা খাতুন | 23-Jun-2014  

বিশ্ববিদ্যালয় গেটহাউসের বাড়িগুলো নিতান্ত গেটহাউসই ছিল। এলাকায় ঢুকবার পথের দুপাশের বাড়ির দু অংশ খাড়া দাঁড়ানো। উত্তর দিকের একতলা কোনো ব্যবহারেই আসত না। দক্ষিণের গেটে থাকবার সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র সরদার ফজলুল করিমকে সুলতান-নবাব-নূরুর গৃহশিক্ষক হিসেবে রাস্তার ওপরের উত্তরের ঘরটিতে থাকতে দেন আব্বু। উনি আমাদের পরিবারের সঙ্গে ঘনিষ্ট হয়ে উঠলেন। সুলতানের মৃত্যুতে খুব কাতর হয়ে একটি […]

স্কুলের দিনগুলো: পারিবারিক আনন্দ-বিষাদ

সনজীদা খাতুন | 5-Jun-2014  

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গেট হাউসে থাকতে মাসে অন্তত একটি রোববারে বড়দি এক মহা আনন্দের আয়োজন করতেন। ঘোষণা দিতেন– ‘আজ কেক করব, চল।’ নাচতে নাচতে সঙ্গে ছুটতাম সবাই। বড়দি একটা মোড়া কিংবা জলচৌকির অপেক্ষাকৃত উচ্চাসনে বসে অর্ডার করতেন– ময়দা, ডিম, ডিম ফেঁটবার কল, ঘি, চিনি, এক চিমটি নূন, এক কাপ দুধ, এসেন্স অফ ভ্যানিলা, বেকিং পাউডার আর […]

স্কুলের দিনগুলো: সেই যে দিনগুলি

সনজীদা খাতুন | 23-May-2014  

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (এখনকার মেডিকেল কলেজ) উত্তর আর দক্ষিণ দিকের পুব ঘেষা দুটি গেট হাউসেই আমরা বাস করেছি। বেশ কিছুদিন এক বাসাতে থাকা হলেই আমার মা অস্থির হয়ে উঠে বাসা বদলের জন্যে আব্বুকে তাড়া দিতে শুরু করতেন। এ বাসাগুলোতে ওপর-নীচ মিলিয়ে ছোট-বড় আষ্টেক ঘর ছিল। সব ঘর ব্যবহারও হতো না। উঠোনও ছিল বেশ বড় সড়। সেখানে […]

স্কুলের দিনগুলো: সেগুনবাগানের বাড়ি

সনজীদা খাতুন | 14-May-2014  

সেগুনবাগানের বাড়ির দক্ষিণদিকের খোলা জমিতে ছোট কাকা কোদাল দিয়ে মাটি কুপিয়ে শীতের ফুলকপি আর বাঁধাকপির চারা লাগাতেন। কপি গাছের পাতায় ফোঁটা ফোঁটা শিশিরের ছবি এখনও যেন দেখতে পাই। কোপানো মাটি আর শিশিরের মিশ্র একটা গন্ধ ভাসত বাতাসে। বাগানে কত যে ফলের গাছ ছিল–কী বলব! গোটা তিনেক পেয়ারার গাছ। তার একটিতে বড় বড় কাশীর পেয়ারা ধরত। […]

স্কুলের দিনগুলো:সেগুনবাগানে ছেলেবেলা

সনজীদা খাতুন | 1-May-2014  

স্কুলের দিনগুলোতে আমার স্বভাবটা বড্ড ভাবুক ছিল। এক একদিন ভরদুপুরে চুপচাপ ঘর থেকে বেরিয়ে মাঠে চলে যেতাম। সেগুনবাগিচার বাড়িতে থাকতাম তখন। আমাদের বাড়ির পশ্চিম দিকে তখন একটা বাড়ির পরে ওদিকে ঘরবাড়ি ছিল না বিশেষ। শিল্পকলা একাডেমীর বা দুর্নীতিদমন অফিসের কোনো চিহ্ন না থাকাতে ওদিকটায় কেবল মাঠ আর মাঠ! সেখানে গেলে উত্তর দিকে কাকরাইলের গির্জার মাথাটা […]

স্কুলের দিনগুলো: প্রথম প্রেমের চিঠি

সনজীদা খাতুন | 29-Mar-2014  

আমরা ক্লাশ টেনে পড়বার কালে, ১৯৪৮ সালে জিন্নাহ্ সাহেব ঢাকায় এসে তখনকার রেসকোর্সের ময়দান (এখনকার সোহরাওয়ার্দি উদ্যান)-এর জনসভায় বক্তৃতা করেছিলেন। স্কুল থেকে আমাদের লাইন করিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল সেখানে। মিছিল করে যাবার পথে স্কুলের শিক্ষক আক্তার আপা বলছেন– এই মেয়েরা, স্লোগান দাও’। কারোই গলা ওঠে না। অভ্যাস নেই তো! হঠাৎ আমিই জোরে স্লোগান দিয়ে উঠলাম। […]

স্কুলের দিনগুলো: কামরুননেসা স্কুলের শিক্ষকদের কথা

সনজীদা খাতুন | 15-Mar-2014  

ক্লাশ টেন-এ পড়বার সময়ে আমাদের এক স্যার এসেছিলেন। বেজায় পান খেতেন তিনি। ফলে পানের রসে মুখ ভরে উঠত। সেই রস মুখে নিয়ে পড়াতে গিয়ে উচ্চারণ হতো অদ্ভুত। বিদ্যাসাগর বলতে গিয়ে ‘বিদ্যা’ টুকু ঠিকই বললেন তারপরে ‘সা’ বলতে গিয়ে মুখে রস ধরে রাখা হচ্ছে না বলে শেষটুকু বললেন ‘হাগর’। হাসতে হাসতে পেট ফেটে যাবার দশা। সেই […]

স্কুলের দিনগুলো: কামরুনসেসা স্কুলে

সনজীদা খাতুন | 3-Mar-2014  

দেশবিভাগের ঝক্কি-ঝামেলা শেষ হলে কামরুননেসা স্কুলে পড়াশোনা শুরু হলো। নতুন স্কুলে ক্লাস নাইনে পড়া আরম্ভ করলাম। এই ক্লাসে `Cloister and the Hearth’ নামের ইংরেজি র‌্যাপিড রীডার পেয়েছিলাম। ইংরেজি পড়ে ভালো বুঝতে পারতাম না। হঠাৎ একদিন এক সহপাঠীর বইয়ের দিকে চোখ পড়তে, অনুবাদে গল্পটা গড়গড় করে পড়ে ফেলা গেল। দারুণ লাগল গল্পটা।

স্কুলের দিনগুলো: ইডেন বিল্ডিংসের ইডেন স্কুলে

সনজীদা খাতুন | 10-Feb-2014  

দেশভাগের আগেই সদরঘাট থেকে ইডেন স্কুল আর কলেজ ইডেন বিল্ডিংস (বর্তমান সচিবালয়)-এ চলে এসেছিল। সে ভবন পুরো শেষ হয়নি তখনো। কয়েকটি উইং শেষ হলেই আমাদের ওবাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে গিয়ে দেখি ভিতর দিকের মাঠ অসংখ্য আলকাতরার টিন দিয়ে বোঝাই। ফুল বাগন আর বড় বড় গাছে সুশোভিত খোলামেলা বড় কাঠের ভবন ছেড়ে এসে মন-খারাপ হয়ে […]

স্কুলের দিনগুলি: ইডেন স্কুলে

সনজীদা খাতুন | 27-Jan-2014  

আমার চার বছরের বড়ো সেজদি আর আমি পড়তাম ইডেন স্কুলে। সেজদির সঙ্গেই পড়তেন লায়লাদি– লায়লা আরজুমান্দ বানু। কত রবীন্দ্রসঙ্গীত যে উনি জানতেন কী বলব। ‘কাঁদার সময় অল্প ওরে, ভোলার সময় বড়ো, খাবার দিনে শুকনো বকুল মিথ্যে করিস জড়ো’ গাইতেন বিদায় সংবর্ধনার অনুষ্ঠানে। আরো এক গান ছিল ‘কেন রে এতই যাবার ত্বরা কেন?’

স্কুলের দিনগুলো: ইডেন স্কুলে

সনজীদা খাতুন | 19-Jan-2014  

এবারে তৃতীয় স্কুল, ইডেন বালিকা বিদ্যালয়ের পালা। ভর্তি হওয়া ছিল কঠিন। ইংরেজি, অঙ্ক, বাংলা তিন বিষয়েই পাস করতে হবে। আবার ইংরেজি আর অঙ্কের ফল অতি করুণ। মায়ের বিশ্বাস ছিল ‘একবার না পারিলে দেখ শতবার’। ভর্তির জন্যে পরীক্ষা দিতেই হতো। হয় না হয় না হয় না– শেষে ক্ষীরোদমনি দিদির বাংলা পরীক্ষায় রচনা লিখে তাঁর সন্তোষ অর্জন […]

স্কুলের দিনগুলো: আনন্দময়ী স্কুলে

সনজীদা খাতুন | 10-Jan-2014  

নারীশিক্ষামন্দিরের পরে মা আমাদের দু বোনকে ভর্তি করালেন আনন্দময়ী গার্লস স্কুলে। যতদূর মনে হয় এ স্কুলে এসেছিলাম ক্লাস ফাইভে। নারীশিক্ষার মতো এখানেও স্কুলের ব্যবস্থা-করা ঘোড়ার গাড়িতে আসা-যাওয়া। আরমানিটোলা ময়দানের সামনে পৌঁছাবার আগে আগে ডানদিকে আনন্দ রায়ের বিশাল ভবন রায় হাউজ, আর বামদিকে লাল ইটের বাড়িটা ছিল উৎপলা ঘোষ সেনের বাপের বাড়ি। আনন্দ রায়ই নাকি আনন্দময়ী […]

আমার প্রথম স্কুল

সনজীদা খাতুন | 20-Dec-2013  

লীলা নাগ (রায়)দের ‘নারীশিক্ষামন্দির’ আমার প্রথম স্কুল। আমার মা মনে করতেন ছেলেমেয়েদের যত উঁচু ক্লাসে ভর্তি করা যাবে ততই ভালো। তাই আমাকে একবারেই দেওয়া হলো ক্লাস টু-তে। অন্যদের চেয়ে ছোট যেমন, তেমনি বড়ই হাবাগোবা ছিলাম। একদিন দিদিমনি সবাইকে ডেকে বললেন ‘এবারে ঘুমের ক্লাস হবে। সবাই পাঁচমিনিটের মধ্যে ঘুমিয়ে পড়বে। চটপট শুয়ে পড়ো।’ অন্যেরা হাসাহাসি করতে […]