গুড মর্নিং শ্রীমতি অং সান সুচি

আনিসুর রহমান | ২৫ নভেম্বর ২০১৬ ১১:২৬ পূর্বাহ্ন

Rohingaকার দুয়ারে কে বাঁচার আকুতি করে, একদল পশ্চিমে আছড়ে পড়ে,
বেহেস্তের টিকেট পাবার নসিব করে, আরেক দল জীবহত্যা মহাপাপ
মুখে জপ করে, দুই হাতে তারাই ট্রিগারে চাপ মারে, এক এক করে
মংডু গ্রামের মানুষগুলো মারা পড়ে| কেউ কেউ মরার দরিয়ার পরে
নাফ নদী পাড়ি দেবার চেষ্টা করে| কারো নূহের নৌকার কথা মনে পড়ে?
মানুষ কি পুরোপুরি ডিজিটাল হয় গেছে? টাল কিংবা মাতাল শব্দেরা
অভিধানে রয়ে গেছে? দুনিয়ার চোখ খুলে দেয়া, জয়নুলের আঁকা ছবিতে
কাক ও কুকুর নগরের পথে অনাহারে মরা মানুষেরে নিয়ে টানাটানি করে;
ছবিটি এখন কোথায়, কোন জাদুঘরে? ভয় করে মায়া ও মমতার মতো
ছবিটিও নিরুদ্দেশে পাচার হতে পারে? ইতিহাস পড়লে মনে পড়ে যায়রে,
একদিন মানুষ ছিলামরে; রোদবৃষ্টি মাথায় করে শত্রুর দাবড়ানো খাবার পরে
অপেক্ষা করে, ভিড় ঠেলে, একটা কম্বল পেয়েছিলাম, শরণার্থী শিবিরে!

ধর্ম কী বলে? কোন স্বর্গে কে কবে যাবে? গুলি আর জলে কে মারা গেলে,
কোন যাদুবলে, বাবার নাম ভুলে সাহেবী পদবী নিলে? মানুষ খারিজ হলে,
দরিয়ার এপার ওপার তফাত কি পেলে? কবুতরের পালক খোপায় গুজলে,
শান্তির মেডেল পেলে, নিজের পালকের কি করলে? আর জাহাজ ডুবি হলে,
আকাশের বিমান সিটকে পড়লে, দেখি কতজনে কতভাবে আহা উহু করে,
পারের নৌকা দরিয়ায় ঠেলে দিলে, মানুষ মারা গেলে, মুখে কূলুপ এঁটে দিলে?
সুদের কয়েন গুনে শান্তির মেডেল পড়লে? মাথায় কিছু ঢুকে না, ধর্ম, রাজনীতি,
ভূগোল কূটনীতি, বাজার অর্থনীতি সবকিছুতে ছাইপাশ,সত্যি বিচিত্র সেলুকাস!

মাথামুণ্ডু কিছু পেলে? অদ্ভূত এক ভূত মাথা চেপে ধরে, পার হয় রাত্রি পার
হয় দিন, একটি শব্দ ঘাটাঘাটি করে! অর্থনীতির শ্রীমান পণ্ডিত পেটি ইরশাদ করে –
সম্পদের বাবা জমিরে; সম্পদের মা শ্রমিকরে| কি বুঝলি তাড়াখাওয়া আম আদমিরে?
যার দেশ নাই, কাগজ নাই, জমি নাই দলিল নাই, তার জন্ম হয় নাই, সে আবার মরে
কার পাসপোর্টে খবর করে? নাফ নদীর ওপারে কারা তবে বুকফাটা চিৎকার করে?
মংডু গ্রাম? সব মিথ্যে,সব আজগুবি, শুনছো ভুল, দেখছো ভুল; সবই দুঃস্বপ্নজাত
গভীর ঘুমের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া, মাথার গন্ডগোল! যার যার ধর্মের কোটি কোটি শ্রীমান
শ্রীমতি দেবদূতের দোহাই, সব ভুলে যাও, আজ ওসবের কোনো নিউজ ভেলু নাই;
এই দুনিয়ায় নূহ নবীর নৌকার পরে রোহিঙ্গা বলে কেউ কোথাও কোনোদিন ছিল না;
আমি যুধিষ্ঠির, বিশ্বাস করুন, হলফ করে বলতাছি, গুড মর্নিং শ্রীমতি অংসান সুচি|

Flag Counter

প্রতিক্রিয়া (9) »

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Nihar — নভেম্বর ২৫, ২০১৬ @ ২:২৮ অপরাহ্ন

      “জীবহত্যা মহাপাপ
      মুখে জপ করে, দুই হাতে তারাই ট্রিগারে চাপ মারে”

      আপনার এই দু’লাইন পড়ে মানুষ মনে করবে আপনি বৌদ্ধ ধর্মকে খারাপ বলছেন। অথচ এ ক্ষেত্রে সবাই জানে সেদেশের কট্টর ধর্মীয় বুদ্ধিস্ট রাজনৈতিক দল দায়ী। বৌদ্ধ ধর্ম নয়।
      দুঃখের সংগে বলতে হচ্ছে আপনি মনে হয় শুধু ধর্মীয় দিক এ ক্ষেত্রে মনে করছেন। যদি ধর্মীয় দিক বিবেচনা করেন, তবে আমরাওত কম যাই না। ধর্ম বিবেচনা করলে আমরাতো রামুতে বুদ্ধিস্টদের মন্দির জ্বালিয়ে, বিনা কারণে গ্রামের পর গ্রাম জ্বালিয়ে নিঃস্ব করে দিয়েছি। নাসিরনগরের ঘটনাতো ইদানিংই ঘটলো। তাহলে আমাদের ধর্মও খারাপ? অবশ্যই না। যেসব উগ্র, কট্টরপন্থী , রাজনৈতিক সুবিধাবাধী মানুষ জ্বালিয়েছে তারা খারাপ।
      আসলে এ ক্ষেত্রে ধর্ম নয়, মানুষকে প্রথমত মানুষ হিসেবেই বিবেচনা করতে হবে।
      মায়ানমারের হত্যাযজ্ঞ বন্ধ হোক। মানবতার জয় হোক।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মো: কামাল হোসেন — নভেম্বর ২৫, ২০১৬ @ ৪:৩০ অপরাহ্ন

      দেখার কেউ নেই ?

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন atiq — নভেম্বর ২৫, ২০১৬ @ ৬:২৪ অপরাহ্ন

      Mr Judhistir where is you Krishna? Judhistir made a lot of complicy in his time line and Krishna finally saved him his brothers and his society people. So where is your Krishna? Without Krishna Judhistir meaningless. Helpless.

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন শামছুল আলম — নভেম্বর ২৫, ২০১৬ @ ৮:৪৮ অপরাহ্ন

      বিশ্ব শান্তির পতাকা বাহকেরা কোথায়? মানবাধিকার সংস্থা, এমন্যাষ্টিরা কি ঘুমুচ্ছে?

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Shibu Sarker — নভেম্বর ২৫, ২০১৬ @ ৯:৪৬ অপরাহ্ন

      pran ningrano shuvechcha, avinandan o kritaggota. amon sahoshi o niret satto kathan smran kaler moddhe karo mukhe sunini. buker pata kato majbut hole amon uchcharan kara jai “কবুতরের পালক খোপায় গুজলে,
      শান্তির মেডেল পেলে, নিজের পালকের কি করলে” kingba “সুদের কয়েন গুনে শান্তির মেডেল” . Afuranta dhonnobad SIR ANISUR Rahman

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন bd — নভেম্বর ২৬, ২০১৬ @ ১২:৪২ অপরাহ্ন

      Its a terror happening in Myanmar…while some minority people have been tortured in Bangladesh but govt rehabilitate them and all level people showed protest. But Berma govt is openly behind such brutal killing of Rohinga….mayanmar people are showing joy by killing them…..There is no protest in their news. whole country is avoid of humanity.

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন md zakir deoan — নভেম্বর ২৭, ২০১৬ @ ১০:২৪ পূর্বাহ্ন

      এখন জাতিসংঘ কোথায়, কোথায় মানব অধিকার কর্মীরা, কোথায় ভারতের দালালেরা? বাংলা দেশে তো কোন হিন্দুকে মেরে ফেলা হয়নি। এরপরেও বাংলাদেশকে অনেক জবাবদিহি করতে হয়েছে। এখন কি দেখছেন মায়ানমার মুসলিমদের যেভাবে হত্যা করছে তার জবাব নেওয়ার কেউ নেই। আসলে জাতিসংঘ নয়, জাতি ধংসের জন্য গড়ে উঠেছে জাতিসংঘ, মুসলিমদের শেষ করার জন্য।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন md.fakhrul — নভেম্বর ২৮, ২০১৬ @ ১:৫৯ অপরাহ্ন

      মুসলিম এক হও!!!
      মুসলিম এক হও!!!
      মুসলিম এক হও!!!মুসলিম এক হও!!!
      মুসলিম এক হও!!!মুসলিম এক হও!!!

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন M.A.Maleque — নভেম্বর ২৯, ২০১৬ @ ১১:৪৯ পূর্বাহ্ন

      It was thought that A.S.Suchi will bring Burma out of barbarism! But she failed or ignored? Shouldn’t she refund the N. Peaceprize?

আর এস এস

আপনার প্রতিক্রিয়া জানান

 
প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন:
১. ছদ্মনামে করা প্রতিক্রিয়া এবং ব্যক্তিগত পরিচয়ের সূত্রে করা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না। বিষয়সংশ্লিষ্ট প্রতিক্রিয়া জানান।
২. বাংলা লেখায় ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
৩. পেস্ট করা বিজয়-এ লিখিত বাংলা প্রতিক্রিয়া ব্রাউজারের কারণে রোমান হরফে দেখা যেতে পারে। তাতে সমস্যা নেই।
 


Disclaimer & Privacy Policy  |  About us  |  Contact us

© bdnews24.com