কামরুল হাসানের পাঁচটি কবিতা

কামরুল হাসান | ১৭ এপ্রিল ২০১৬ ৫:১২ অপরাহ্ন


প্রতিচ্ছবিময় প্রান্তরের প্লেটে

প্রতিচ্ছবিময় এক ট্রেন ভীরু পালাই দুর্দিনে
ঘুর্ণমান প্রান্তরের প্লেটে রিক্ত, সরু বরবটি
চামচে সরিয়ে নাও মেহগনি দৈত্যমান ভয়
ঈশ্বরের দীপ্রচোখ খুলে লাগাই কোটরে।

আগুয়ান যৌথপথ, যাত্রারীতি একই উত্তরে
তোমার পলায়নপর পায়ের ফর্সা ছাপ অতনু
পাহাড়ের তলপেটে নীবিবদ্ধ নদীদের আয়ু
অহর্ণিশ ছুটে যাও বায়ুমত্ত প্রবল দক্ষিণে।

পতাকার মত ওড়ে ধোয়া শান্তি বিদ্রোহের
এসো পাশে বসো, নম্রমাঠ হলুদ সাবেকী
এইমাত্র সবুজেরে পাল্টালো একঘেয়ে নীলে
গীতল আচ্ছন্ন ঘুমে দ্বিধাময়, প্রশান্ত পাতাটি।

কেশরে দোলাও সখী নধরাক্ষী সপ্তর্ষির ফুল
অতন্দ্র চক্করে নামো অভাবিত, অনিত্য বকুল।

শাদা অ্যাপ্রন সুভদ্র করিডোরে

শাদা অ্যাপ্রন সুভদ্র করিডোরে আর্তধ্বনি তোলো
বিষম খেয়েছে বালক, বালকের লাজুক জিজ্ঞাসা
শুশ্রুষা তোমাতে বাহিত, প্রতিপ্রায় প্রবাহিত খোলো
পরাহত করে আজো যে বাক্যের তুমুল মনীষা।

ধুন্ধুমার লেগে যায় সেবা, মুগ্ধ সেবার স্নিগ্ধতা
পরাগ লেগেছে বুঝি দাগকাটা শিশির অতলে
এ অবোধ্য সিঁড়িঘরে শব্দ তোলে কে, কবিতা?
হাইহিল ছন্দঢেউ বাতাসের পূর্ণ চাতালে।

অনুরাগে বিদ্ধবাহু, আরো কিছু সূঁচের নমিতি
রেখে যেও তেতো স্বাদ, পুরো দাগ, ঠিক ঠিক খাবো
অরূপ রাতের দাঁত প্রায়ান্ধ জন্মের জ্যামিতি
তুমিই শেখালে সব, অনুস্বাদ দীর্ঘদিন পাবো।

কল্পপ্রায়, তুমুল ইচ্ছার সাথে কেঁদে ওঠে প্রাণও
শাদা অ্যাপ্রন, শাদা অ্যাপ্রন, কান্না তুলে আনো।

রতিপাথরের দেবচিত্রখানি

অকুণ্ঠ আর মুঠোযোগ্য হাতকে হাসিয়ে
ব্রহ্মনিতম্বখানি গৈরিকের উপর বসালে,
স্তব্ধ বাসরে দ্রুত জলোচ্ছ্বাস হয়
মৌনবাষ্পধ্বনি রেণুপাখা কখন উড়ালো?

দেবযানী রতিপাথরের গাত্র ভেঙ্গে আনা
রেণুচর্চিত পাখাখানি দেয়ালে চিত্রিত
এ ঘর নির্জন অরণ্য নয়, তবু সে তামাশা
হাস্যপ্রবণ কাঠামোকে মৃদুবৈচিত্র্যের দিকে নিয়ে যায়।

খুলে দেয়া জোড়া রাজহাঁসে মনঃস্তাপ আর বৈকুণ্ঠ ফেরায়
অনেক ঘাগরাস্তর শেষে তবু যেমন পর্দা রয়ে যায়,
অশ্বারোহনের পথে অশ্বখুরধ্বনি দিগন্তে সওয়ার
রতিপাথরের দেবচিত্রখানি মুহূর্তে ফিরে যায়
হাওয়ায় পাটাতন হতে ফিরে আসা ধ্বনিগন্ধ যেন।

বন্দরের গণিকারা

বায়ুকুণ্ডলীর ভেতর ঘূর্ণি খায় সাদা ও গৌরব
ভূতগ্রস্থ নীলিমা কপাটে, উড়ে আর উড়ায় সম্ভার
দৃষ্টির মনিবিন্দুসহ, নাবিকের শঙ্কাস্বভাবে
বহুতলে বর্ণায়িত, আদি-মধ্য ভূমির বিলাপে।

শোভন নমিত ক্ষীণ, আকাশের উচ্ছ্বল মিনারে
কান্না তার হীরক পারদ, ঘূর্ণায়িত রোমে শ্লথ রাত
পালকের স্বচ্ছল খাটে, আদিগন্ত জ্যোৎস্না সাঁতারে…

তুলে আনে সৌরভ চূঁড়ায়, নাক্ষত্রিক প্রতিবেশে
উজ্জ্বলিত দেহকূপে ঘনদাঁত তারার পাড়ায়;
পৃথিবীর বহুঋণ এইভাবে অসতী ডানায়
গেঁথে নিয়ে অবিশ্রান্ত মানবিক স্বরে
ভূমধ্য জলের সিঁড়ি, অতলান্ত, প্রশান্ত নাভীতে।

অবহেলার একজন

বৃক্ষাবলী আমাকে নিলো না,
হাওয়া চলে গেল ভ্রূক্ষেপহীন তেজে
স্পর্শাতীত দূরে পাহাড়ের ঠাঁই
সমুদ্র দেখায় তার অকূলের ভয়।

২.
যূথবদ্ধ মানুষের গাঁয়ে ঘুরে ফিরি অনার্য ফেরারী
অনুপল জল খুঁড়ে খুঁড়ে তৃষ্ণাপিষ্ট অধীর চাতক।
যাই বৃষ্টি, মেঘপর্দা, যাই দীর্ঘ শ্রাবণের বাহু
অস্নাত ও দিকভ্রান্ত, যাই, আমাকে নিলে না কেউ
নীলবৃক্ষ, লালগ্রাম, মুক্তপ্রাণ হলুদ সবক।

৩.
আমাকে কি উদ্ধার দেবে তোমার বাহুতে?
উপবৃত্তে ওরা গড়ে সঙ্গময় তামাশা মন্দির,
কেবল তাড়ায় ঘুম, অনুপুঙ্খ ওড়ায় মদির
লীলালাস্য, কলকণ্ঠ, ইচ্ছাময় যেভাবে ফুটেছে…

৪.
উদাসীন পৃথিবীতে বড় বিপণ্ন আছি!

Flag Counter

সর্বাধিক পঠিত

প্রতিক্রিয়া (23) »

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Akib Shahriar — এপ্রিল ১৭, ২০১৬ @ ১০:৪১ অপরাহ্ন

      এক কথায় অসাধারণ এবং অনবদ্য

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন খলিল মজিদ — এপ্রিল ১৯, ২০১৬ @ ১২:৩৬ অপরাহ্ন

      কবিতাগুলো পাঠেই বোঝা যায় কবি কামরুল হাসান কতটা কাব্যসিদ্ধ। ভাষা বুননে নিপুন এবং কাব্যকৃতিতে সহজে উত্তরিত। কবিতাকে ‘সহজ’ পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া বিরাট কঠিন।

      অভিনন্দন কবি কামরুল হাসান।
      আপনার কবিতার ফল্গুধারা বহমান থাকুক।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Shahriar Reza — এপ্রিল ১৯, ২০১৬ @ ৭:১৬ অপরাহ্ন

      স্যার আপনি। বহু গুণে গুণান্বিত। ক্লাসে পড়ানো থেকে শুরু করে কবিতার বইয়ে। the real example of multi talented persona in Bangladesh. live long sir.

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Rifat Parvez — এপ্রিল ১৯, ২০১৬ @ ৭:১৮ অপরাহ্ন

      sir er kobita gulu asolei onnorokom…
      aro sundor sundor kobita amader upohar diben sir.

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন অভিজিত — এপ্রিল ১৯, ২০১৬ @ ৭:৪০ অপরাহ্ন

      চমৎকার হয়েছে লেখাগুলো স্যার।
      ভাল লেগেছে আমার।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Tareq Mahmud Redoy — এপ্রিল ১৯, ২০১৬ @ ৭:৫১ অপরাহ্ন

      হাইহিল ছন্দঢেউ বাতাসের পূর্ণ
      চাতালে।
      – লাইনটা জোস লাগসে।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Tareq Mahmud Redoy — এপ্রিল ১৯, ২০১৬ @ ৭:৫৪ অপরাহ্ন

      অসাধারণ, সত্যি ই অসাধারণ লিখেছেন।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন S M Shafiqul Islam — এপ্রিল ১৯, ২০১৬ @ ৮:১৯ অপরাহ্ন

      Nice collection of poems. Want more like this. Thanks.

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Sujana Shafi — এপ্রিল ১৯, ২০১৬ @ ৮:৩৬ অপরাহ্ন

      অসাধারণ sir .

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Mushfika Ahammad — এপ্রিল ১৯, ২০১৬ @ ১০:৩০ অপরাহ্ন

      ৫টা কবিতাই অসাধারণ। সাদা অ্যাপ্রন সুভদ্র আর অবহেলার একজন বেশি ভাল লেগেছে।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন imran hossain — এপ্রিল ১৯, ২০১৬ @ ১১:১৯ অপরাহ্ন

      onnek valo laglo kobita gulo .donnobad sir

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন rezaul islam — এপ্রিল ২০, ২০১৬ @ ৮:৩২ পূর্বাহ্ন

      Probably these five poems are the most supreme creation of yours in 2016. But the most attractive is the 3rd poem( bondorer gonikara) because the content & theme of this poem is excellent. Thank you sir for creating such meaningful and magical poems for us

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Abduallah irfan — এপ্রিল ২০, ২০১৬ @ ৯:৩৪ পূর্বাহ্ন

      স্যার, অবহেলের একজন–এ্টা সবচেয়ে ভালো লেগেছে।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Farhana Rahman — এপ্রিল ২০, ২০১৬ @ ৩:০২ অপরাহ্ন

      ৫টা কবিতাই ভাল লেগেছে। “সাদা অ্যাপ্রন সুভদ্র আর “অবহেলার একজন” বেশি ভাল লেগেছে।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন পাপন — এপ্রিল ২১, ২০১৬ @ ১০:১৩ পূর্বাহ্ন

      স্পষ্টভাবে বললে, “ভালো হয়নি, প্রকৃতপক্ষে আমার কাছে কোন কবিতাই মনে হয় নি। মনে হয়ছে প্রবন্ধ লিখে দুই পার্শ্ব থেকে কিছু কথা ছেঁটে দেয়া হয়েছে। আরেকটা বিষয় মনে হয়েছে যে বাংলা ভাষায় মনে হয় দাঁড়ি, কমা এবং প্রশ্নবোধক চিহ্ন ব্যাতীত অন্য কোন যতি চিহ্ন নেই। যতি চিহ্নের ব্যবহার এবং শব্দচয়ন আরো উন্নত হওয়া উচিত ছিল। প্রাঞ্জলতা খুঁজে পেলাম না।”

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Taher Rahman — এপ্রিল ২১, ২০১৬ @ ৯:০০ অপরাহ্ন

      খুব গভীর ভাবসমৃদ্ধ কবিতাগুলো… পড়ে খুব ভালো লাগল স্যার…

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Zerin Tasnim — এপ্রিল ২২, ২০১৬ @ ৮:৩০ অপরাহ্ন

      Very nice sir.. really amazing writing :)

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন সাব্বির উদ্দিন — এপ্রিল ২৬, ২০১৬ @ ১:০৭ পূর্বাহ্ন

      এক কথায়, অসাধারন ছিল প্রতিটি শব্দ। এমন কবিতা আরো চাই।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Pias — এপ্রিল ২৬, ২০১৬ @ ১:২৫ অপরাহ্ন

      এক কথায় অসাধারণ ✌

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন MD.nafeezul kabir nafeez — মে ৩, ২০১৬ @ ১১:৪৫ পূর্বাহ্ন

      Wow…sir hats off……mind blowing poem those are……very proud of you sir……may you write this types of poem more in your life in future which will influence us in a better way…
      And your inspirational dialogue: every day in every way I am getting better and better……..

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Ashfaqul Azam — মে ৮, ২০১৬ @ ১:৩৫ অপরাহ্ন

      We are privileged to have an awesome writer like him, who inspires this generation with his poems. ☺

আর এস এস

আপনার প্রতিক্রিয়া জানান

 
প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন:
১. ছদ্মনামে করা প্রতিক্রিয়া এবং ব্যক্তিগত পরিচয়ের সূত্রে করা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না। বিষয়সংশ্লিষ্ট প্রতিক্রিয়া জানান।
২. বাংলা লেখায় ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
৩. পেস্ট করা বিজয়-এ লিখিত বাংলা প্রতিক্রিয়া ব্রাউজারের কারণে রোমান হরফে দেখা যেতে পারে। তাতে সমস্যা নেই।
 


Disclaimer & Privacy Policy  |  About us  |  Contact us

© bdnews24.com