সরকার আমিনের কবিতা

সরকার আমিন | ২১ জুন ২০১২ ৮:৫০ অপরাহ্ন

বারুদ ভিজে গেলে

ভিজে গেলে বারুদ, যেকোনো জেনারেল মনে মনে কাঁদে।
আমি কাঁদি তুমি নিরুদ্দেশ হলে, পাখি;

যুদ্ধের মাঠে আমি সন্নাসী এক; বন্দুকে বেঁধে রাখি সন্ধির রাখি।

গর্ভবতী

মাঝে মাঝে পাথরকেও ঘামতে দেখি, অজানা জ্বরে!
নক্ষত্রকে দেখি একটু বেশি কাত হয়ে আছে

অস্ট্রেলিয়াগামী মেঘ, কি হবে গর্ভবতী থেকে, এখানেই তবে বর্ষিত হও।

বানান ভুল

জ্বরের ঘোরে বলেছি ‘ভালবাসি’ ;
জীবনের ঘোরে বলব না?

চলে যাচ্ছে দিন…লাফাতে লাফাতে.. যেন তরুণী হরিণ…সুন্দরবনে
এবং আমার মনে।

ক্ষতি নেই তুমি পষ্ট করে ভালবাসা না জানালেও
মূর্খপ্রেমিক।ভালবাসা জানাই ভুল বানানেও।

নাচের পুরস্কার

ছড়ানো কাচের টুকরা মায়াবী ঠোঁট মেলে পড়ে আছে ফ্লোরে;
তুমি যাচ্ছ নেচে নেচে নেচে

এত রক্ত?
সেতো যে কোন নাচের অলৌকিক পুরস্কার।

মনে মনে ঘুমাবার উপকারিতা

আমি কলম দিয়ে কিছু লেখার চেষ্টা করলে কখনো দেথা যায় বলপেন থেকে প্রয়োজনীয় কালি বের হতে রাজি হচ্ছে না। তখন লিখতে শুরু করি মনে মনে।মনে মনে লেখার মজা হচ্ছে আপনি দেখতে পাচ্ছেন না কিছুই কিন্ত অনেক অগ্নিকাণ্ড ঘটে যাচ্ছে। যেন পাটের গুদামে লেগেছে আগুন। ফায়ার বিগ্রেড পাগল-কুকুরের মতো ডাকাডাকি করছে। আর আপনি ঘুমিয়েই আছেন।

মনে মনে ঘুমাতে পারলে বোঝা যায় জেগে থাকার আসল অর্থ।


ভেজা দেশলাইয়ের আবেদন :

আমাকে জাগিয়ে তোল, কে আছ কোথায়
গ্যাসের চুলার আশ্চর্য যৌনতায়।

আগুনের জন্য সমবেদনা

মন খারাপ করে শুয়ে আছো দেশলাইয়ের কাঠি
তোমার সকল আগুন চুরি করে পালিয়ে গেছে প্রমিথিউস।

আগুন কোথায়!
আগুন তো এখন অবসরপ্রাপ্ত। অন্ধকার আগুন খেতে বড় পছন্দ করে।

ডিভোর্স সংক্রান্ত কথাবার্তা

এক সময় নিজের ছায়ার প্রতিও আমার অবিশ্বাস ছিল। মনে হতো আমি আয়নায় যে ছবি দেখছি তা অন্য কারোর। অন্য কারোর হৃদয় আমার বুকের ভেতর মাছের মতো লাফাচ্ছে।

তারপর একদিন। আমি বেশ রাগ করে নিজের সঙ্গে ডিভোর্স সংক্রান্ত কথাবার্তা বলতে শুরু করলাম। বললাম অবিশ্বাস নিয়ে ঘর করা ভাল না। তুমি আমাকে তালাক দাও। অবিশ্বাস বলল তুমি দাও। আমি বললাম তুমি দাও। শুরু হলো তুমুল হলাহল।

তারপর আমাকে ছেড়ে চলে গেল অবিশ্বাস। জানি না সে এখন কার সঙ্গে ঘর করছে।

লাল ব্লাউজ

সন্ধ্যার আগেই সকলকে ঘরে ফিরে যেতে হয়!

ঘর মানে এক টুকরো অন্ধকার তো নয়; ঘর মানে সহস্র বাল্বের হাসি
ঘর তো শেয়ালের সমবেত সঙ্গীত নয়, কুকুরের করুণ ডাক নয়
ঘর কাকের মুখে মিষ্টান্নের প্যাকেটও নয়

ঘর হচ্ছে স্বর্গের কার্নিশ থেকে হঠাৎ উড়ে যাওয়া লাল ব্লাউজ,
ট্রেন গার্ডের হাতের সবুজ কাপড়ের মতো যা মহাকালের বাতাসে দুলছে।

জলে ভাসা পিঁপড়ে

সব জল কি জানে উৎসের যাতনা? ভেসে যাবার মধ্যে আছে
হয়তো কিছু অস্পষ্ট মধু।

জলে ভাসা পিঁপড়ে জানে ভালবাসলে ভেসে থাকতেই হয়।

রাডার জানে

তোমাকে উড়িয়ে নিয়ে যায় বিমান। মেঘের যত্নে থাকো। বিদ্যুত চমকায়। সুন্দর দেখায় তোমাকে ক্ষণস্থায়ী আলোয়। ঝড় আসে। নৌকার মতো তোমার বিমান দুলতে থাকে।

রাডার জানে তোমার কোন বিপদ হবে না। একটি অনঙ্গ পাখি তোমার বিমান পাহারা দিচ্ছে।

free counters

প্রতিক্রিয়া (16) »

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন zia haq — জুন ২২, ২০১২ @ ৫:২৩ অপরাহ্ন

      আমিন ভাই, বরাবরের মতই সুন্দর…….ধন্যবাদ।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন বনি আমিন — জুন ২৩, ২০১২ @ ৪:৫০ অপরাহ্ন

      কবিরা কী অপূর্ব বাণীগুচ্ছ বাধেঁন; আমরা তা পড়েও পড়ি না। হায় ! আমরা যদি কবিতা পড়তাম তাহলে ঈশ্বরের কিতাবগুলো বুঝি সার্থকতা পেত। আমি সরকার আমিনের কবিতাগুলো(সামান্য পত্রের পরিচয়সূত্রে না)একবার পড়ি, আবার স্ক্রল ঘুরিয়ে উপরে যাই । আবার স্ক্রল ঘুরাই .. আবার!
      – বনি আমিন

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Hameem Faruque — জুন ২৪, ২০১২ @ ২:৩৭ অপরাহ্ন

      ভালো লাগলো ।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন পরাগ আরমান — জুন ২৪, ২০১২ @ ২:৪৮ অপরাহ্ন

      দারুণ, অবশ্য আপনাকে এমনটা বলাই বোকামী। কারণ আপনার লেখা বরাবরই সুন্দর। আমার ভালোলাগার। এখানেও ভালো লাগা থেকে বের হতে পারলাম না। সুন্দর সব কবিতার জন্য আপনাকে আবারো ধন্যবাদ।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন MINAR — জুন ২৪, ২০১২ @ ৭:১৭ অপরাহ্ন

      কবিতাগুলো খুব ভালো লাগলো।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন sarker amin — জুন ২৭, ২০১২ @ ১২:১০ পূর্বাহ্ন

      কবিতাগুলো পছন্দ করে যারা মন্তব্য প্রকাশ করেছেন সবাইকে অনেক ধন্যবাদ জানাই। যাদের সাথে পরিচয় আছে তারা কিছু প্রশংসাবাচক কথা বললে অবশ্যই ভাল লাগে তবে আরো বেশি আনন্দিত হই তাদের মন্তব্যে যাদের সাথে আমার ব্যক্তিগত তেমন পরিচয় নেই। ভাল থাকবেন সবাই।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন fakhrul — জুন ২৭, ২০১২ @ ১:০৭ পূর্বাহ্ন

      খুব ভাল লাগল । গাস চুলার আশ্চর্য যৌনতা! অসম্ভব সুন্দর।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন শেখর দেব — জুন ২৭, ২০১২ @ ১১:২৪ পূর্বাহ্ন

      ভালো লাগলো খুব।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মুহাম্মাদ আমানুল্লাহ — জুন ২৭, ২০১২ @ ১১:০১ অপরাহ্ন

      বারুদ ভিজে গেলে,লাল ব্লাউজ ও রাডার জানে বেশ ভালো লেগেছে।
      ১.আমি কাঁদি তুমি নিরুদ্দেশ হলে, পাখি;
      ২.একটি অনঙ্গ পাখি তোমার বিমান পাহারা দিচ্ছে।
      ৩.ঘর হচ্ছে স্বর্গের কার্নিশ থেকে হঠাৎ উড়ে যাওয়া লাল ব্লাউজ,
      এই ক’টি পংক্তি অনেক বেশি টেনেছে।
      ধন্যবাদ।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মাসুদ খান — জুলাই ১, ২০১২ @ ৮:৩৪ অপরাহ্ন

      ভালো লাগল, আমিন; বিশেষ করে ‘বারুদ ভিজে গেলে’, ‘ভেজা দেশলাইয়ের আবেদন’, `লাল ব্লাউজ’, ‘রাডার জানে’…

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন রওশন আরা মুক্তা — জুলাই ২, ২০১২ @ ১১:০৩ অপরাহ্ন

      কবিতাগুলো ভাল লাগল। সুন্দর।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ফজলুল কবিরী — জুলাই ৯, ২০১২ @ ৭:৪১ অপরাহ্ন

      ঘর হচ্ছে স্বর্গের কার্নিশ থেকে হঠাৎ উড়ে যাওয়া লাল ব্লাউজ…আহ।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন maniryousuf — জুলাই ১১, ২০১২ @ ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন

      অনেক ভালো কবিতা, নতুন চিন্তা আছে । তবু কথা থেকে যায় ..

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Chandrima Dutta. — জুলাই ১২, ২০১২ @ ১০:৫৫ পূর্বাহ্ন

      Amin, kobitagulo khub valo laglo. onekdin por aapnar kobita porlam.

আর এস এস

আপনার প্রতিক্রিয়া জানান

 
প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন:
১. ছদ্মনামে করা প্রতিক্রিয়া এবং ব্যক্তিগত পরিচয়ের সূত্রে করা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না। বিষয়সংশ্লিষ্ট প্রতিক্রিয়া জানান।
২. বাংলা লেখায় ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
৩. পেস্ট করা বিজয়-এ লিখিত বাংলা প্রতিক্রিয়া ব্রাউজারের কারণে রোমান হরফে দেখা যেতে পারে। তাতে সমস্যা নেই।
 


Disclaimer & Privacy Policy  |  About us  |  Contact us

© bdnews24.com