আভাটার: বর্ণ, সাম্রাজ্য ও টেকনলজির মাহাত্ম্য বর্ণনার রূপকথা

ফরহাদ মজহার | ৬ এপ্রিল ২০১০ ১০:১৫ অপরাহ্ন
[আভাটার জেমস ক্যামেরনের মহাকাব্যিক সায়েন্স ফিকশন ছবি। এর চিত্রনাট্যও তাঁরই লেখা। ছবিটি মুক্তি পায় ২০০৯ সালের ডিসেম্বর মাসে। ছবির কাহিনী ২১৫৪ সালের এক ভবিষ্যৎ ভিনগ্রহের চাঁদ প্যানডোরার। ক্যামেরন ছবির চিত্রনাট্যের ৮০ পৃষ্ঠা পর্যন্ত লিখে রেখে দিয়েছিলেন ১৯৯৪ সালেই। ১৯৯৬-এ ঠিক করেন তাঁর
james-cameron6.jpg……
জেমস ক্যামেরন (জন্ম. অনটারিও, কানাডা, ১৬/৮/১৯৫৪)
……….
নির্মীয়মান ছবি টাইটানিক (১৯৯৭)-এর পরেই তিনি এর কাজ ধরবেন। কিন্তু স্পেশাল ইফেক্টস বিশেষজ্ঞ ক্যামেরন ছবি বিষয়ে যেরকম ভাবনা ভেবেছিলেন তখনো তেমন তেমন প্রযুক্তি উদ্ভাবিত হয়নি। তাই অপেক্ষা করছিলেন তিনি। পরে সম্ভাবনা উন্মুক্ত হওয়ায় ২০০৬ সালে আবার তিনি চিত্রনাট্যে হাত দেন। ছবিটি প্রচলিত দ্বিমাত্রিক প্রজেক্টরের পাশাপাশি ত্রি-মাত্রিক প্রজেক্টরের জন্য তৈরি করা হয়েছে। আভাটারের জন্য ক্যামেরন উদ্ভাবন করেছেন নতুন এক ক্যামেরা। যার দ্বারা অভিনেতা-অভিনেত্রীর মুখভঙ্গির সঞ্চালন ডিজিটালি রেকর্ড করে অ্যানিমেটেড চরিত্রের উপর হুবহু আরোপ করা যায়। ছবিটি ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের ব্যবসা করেছে। এবং এর সিক্যুয়েল করার ঘোষণাও দিয়েছেন জেমস ক্যামেরন।

আভাটার নিয়ে ফরহাদ মজহারের এ লেখাটি কয়েক কিস্তিতে প্রকাশিত হবে।—বি. স.]

———————————————————————————
কিস্তি ১
———————————————————————————

জেমস ক্যামেরনের টাইটানিক ছবিটি বাজারে এসেছিল ১৯৯৭ সালে। তখন দেখা হয় নি। ছবিটি আমি দেখেছি অনেক পরে। যখন দেখেছি তখন জেমস ক্যামেরন আভাটার ছবিটি বানাচ্ছিলেন বলে শুনেছি। তখনেই ভেবে রাখি আভাটার দেখব। আভাটার সিনেমা দেখার ইচ্ছা টাইটানিক ছবিটি দেখার পর পরই জেগেছিল নিছক আমোদের জন্য নয়। আরো নানান উদ্দেশ্য চরিতার্থ

avatar_main.jpg
আভাটারের দৃশ্য

করার বাসনা ছিল ঐ ‘দেখা’-র আকাঙ্ক্ষার মধ্যে। টাইটানিকে বিনিয়োগ ছিল বিশাল, কিন্তু তারো চেয়ে বেশি বিনিয়োগ ছিল আভাটার-এর পেছনে। সিনেমার একটা অর্থশাস্ত্রীয় বিচার হতেই পারে তাহলে। কিন্তু তার জন্য যে তথ্য-উপাত্ত দরকার তার হদিস পাওয়া কঠিন। বাংলাদেশের গ্রামে গেলেই দেখি চৈত্রের হাহাকারে মাঠ পুড়ে যাচ্ছে, খাবার পানির অভাবে কারবালা হয়ে যাচ্ছে চতুর্দিক। তার মধ্যে মাটির তলার পানি তুলে উফশি ধানের আবাদ হচ্ছে; ওর ফলে আর্সেনিকের বিষে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। ওর মধ্যেই চারিদিকে ডিজিটাল বিপ্লবের সুসমাচার! ইনফরমেশান টেকনলজির কথিত তথ্য বিপ্লবের চিৎকার সত্ত্বেও যে তথ্যগুলো আমাদের প্রাণে বেঁচে থাকার জন্য দরকার তারই খোঁজ নাই—যেমন, সার, বিষ ও মাটির তলার পানি না তুলেও ফলন বাড়ানো যায়, আর ফলন বাড়ানোর আসলেই এটাই একমাত্র টেকসই পদ্ধতি। কিন্তু বহুজাতিক কম্পানিগুলো সেটা শুনবে না। সার, বিষ ও মাটির তলার পানি তুলে চাষাবাদে লাভ হয় সার, বিষ, ট্রাক্টর, তেল ও হাইব্রিড ও জিএমও বীজ কম্পানির। কৃষকের নয়। দখল হয়ে যাচ্ছে প্রাণ ও পরিবেশ রক্ষার শর্ত।


ইউটিউবে আভাটারের টিজার

নিজেদের হাজার বছর ধরে গড়ে ওঠা প্রাণবৈচিত্র ভিত্তিক চাষাবাদ পদ্ধতি ধ্বংস করে আমরা প্রাণে বেঁচে থাকার শর্ত তিলে তিলে ধ্বংস করছি। এর পরিণতি ভয়াবহ হতে বাধ্য। প্রাণ ও পরিবেশ সংক্রান্ত এই সাধারণ তথ্যগুলো ভার্চুয়াল জগতে নয়, পাচ্ছি বাস্তবের সঙ্গে সংযুক্ত থাকার কারণে। আমরা সহজে বুঝতে পারি না যে ‘ইনফরমেশন’ জ্ঞান নয়, ওটা বাইটস। বাইটসকে কমপিউটারের যান্ত্রিক বাক্সে প্রসেস করার পরেও সেটা বাইটসই থাকে, জ্ঞান নয়। তথ্যকে জ্ঞান হয়ে উঠতে হলে যেটা দরকার সেটা মানুষের চিন্তা ও বিচার ক্ষমতা। বিজ্ঞান, ইনফরমেশান কৃৎকৌশল হাতিয়ার তৈরির ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখে বলে ভাববার কোন কারণ নাই যে মানুষকে চিন্তায়, জ্ঞানে ও দূরদর্শিতায় আরো পরিণত করে তোলার ক্ষমতা তার আছে। বাংলায় ‘বিজ্ঞান’ কথাটার মানে কিন্তু বিকৃত জ্ঞান, যে জ্ঞান তার স্বভাব হারিয়ে ফেলেছে এবং জ্ঞান চর্চার উদ্দেশ্য খুইয়েছে। ঠিক। বাংলার বৌদ্ধ দর্শনের মধ্যে ‘বিজ্ঞান’ ধারণার এই ইঙ্গিত আছে। এই সজ্ঞান সচেতনতা বাংলার ভাবচর্চার মধ্যে আজও আমরা টের পাই। সেই প্রসঙ্গ এখন থাকুক।

james-cameron4.jpg……
আভাটারের সম্পাদনা চলছে; জেমস ক্যামেরনের সঙ্গে ছবির কুশলীরা
…….
আমরা জ্ঞানকে যেমন বিকৃত করে আনন্দিত, ঠিক তেমনি আমাদের মনুষ্যজীবনের উদ্দেশ্যকেও উড়নচণ্ডী করে উল্লসিত। ডিজিটাল বিপ্লবের মর্মবাণী হচ্ছে উড়নচণ্ডী জগত থেকে বাস্তবে প্রত্যাবর্তন নয়, বরং উড়নচণ্ডী জগত থেকে ভার্চুয়াল জগতে প্রবেশ, ওর মধ্যে নীলাভ শিহরণ অনুভব করা—মানব সভ্যতা টেকনলজির গুণে টেকনলজির দাসানুদাস হয়ে সম্মুখে এগিয়ে যাচ্ছে। এই হর্ষে নিজের পায়ের তলার পাটাতনটুকুকেও বোমা মেরে উড়িয়ে দেবার দশা। এই কথাগুলো বলে রাখলাম এই কারণে যে আভাটার থ্রি ডিমেনশনাল প্রডাকশান প্রথমে দেখাতে চেয়েছে টেকনলজির শক্তি এবং আগামি দিনের সিনেমার সম্ভাবনা। একই সঙ্গে জানিয়ে দিয়েছে টেকনলজির জগতই শেষাবধি আগামি ভবিষ্যৎ। আমি জানি যে সিনেমাশিল্পের অর্থশাস্ত্রীয় বিচারের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য জোগাড় করা কঠিন, কিন্তু দর্শকের জায়গা থেকে আভাটার সিনেমাকে কীভাবে বদলিয়ে দিয়েছে ও দেবে তার কিছুটা আন্দাজ অবশ্যই করা সম্ভব। একই সঙ্গে টেকনলজির পূজা বা নামাজ আদায় করাই যে মানুষের অবশ্যম্ভাবী নিয়তি সেই সত্যের উদযাপনও আছে এই ছবিটিতে। ঠিক যে আভাটার সিনেমার ভাষাকে বদলে দেবে, কিন্তু একই সঙ্গে মানুষকে টেকনলজির—ওপরে নয়—অধীনস্থ রাখার বয়ানটিকেও আরো মজবুত করবে।
—————————————————————–
আমাদের রাজনৈতিক বা আর্থ-সামাজিক বিপ্লবের প্রয়োজন নাই; চিৎকার উঠেছে ‘ডিজিটাল’ বিপ্লবের। ইনফরমেশান টেকনলজি আমাদের জগতকে বদলিয়ে দিয়েছে ও দিচ্ছে সন্দেহ নাই। কিন্তু তার ফল মাত্রই শুভ এই নির্বিচার সিদ্ধান্তের মধ্যে মুশকিল রয়েছে। কৃৎকৌশল আমাদের এখন কাজে আসতেই পারে, সেই তর্ক এখানে তুলছি না। কৃৎকৌশল মাত্রেরই অর্থনৈতিক, সামাজিক, রাজনৈতিক বা সাংস্কৃতিক চরিত্র আছে। তার একটা বিচার তো দরকার।
—————————————————————-
জেমস ক্যামেরনের আভাটার সিনেমার অর্থশাস্ত্রীয় বিচারের জন্য তথ্য পাওয়ার তো প্রশ্নই আসে না। তবু টেকনলজির একটা বিচার সম্ভব। আমাদের রাজনৈতিক বা আর্থ-সামাজিক বিপ্লবের প্রয়োজন নাই; চিৎকার উঠেছে ‘ডিজিটাল’ বিপ্লবের। ইনফরমেশান টেকনলজি আমাদের জগতকে বদলিয়ে দিয়েছে ও দিচ্ছে সন্দেহ নাই। কিন্তু তার ফল মাত্রই শুভ এই নির্বিচার সিদ্ধান্তের মধ্যে মুশকিল রয়েছে। কৃৎকৌশল আমাদের এখন কাজে আসতেই পারে, সেই তর্ক এখানে তুলছি না। কৃৎকৌশল মাত্রেরই অর্থনৈতিক, সামাজিক, রাজনৈতিক বা সাংস্কৃতিক চরিত্র আছে। তার একটা বিচার তো দরকার। রাজনৈতিক বা আর্থ-সামাজিক রূপান্তর নয়, দরকার টেকনলজির—এই চিন্তার বিপদ ভয়ানক। একে রুখে দেওয়া দরকার।

মানবেতিহাস কি শেষাবধি শুধু টেকনলজির ইতিহাস ছাড়া আর কিছু হয়ে উঠতে পারবে না? ইনফরমেশান টেকনলজি নিয়ে যাঁরা বিস্তর লম্বা কথাবার্তা বলেন তাঁদের সম্পর্কেও আমাদের খানিক থমকে দাঁড়ানো দরকার। বাংলাদেশে হুজুগে চিৎকারের মধ্যে যে সত্যটা চাপা দেওয়া হয় সেটা হচ্ছে ‘ইনফরমেশান’ একটা পণ্য—দুনিয়ায় কোকাকোলা কেনটাকি ফ্রাইড চিকেনের মতো বোতলে পুরে বা জেনেটিকালি মডিফাইড সয়াবিন তেলে ভেজে বেচাবিক্রি হয়। দুনিয়ায় তথ্যের আদান প্রদান ঘটছে এটা বানোয়াট কাহিনী। সেই তথ্যেরই আদান-প্রদান চলে যাতে অল্প কয়েকজন মুনাফা কামাতে পারে এবং মুনাফা কামানোই মনুষ্য জীবনের পরমার্থ, কিম্বা মুনাফাই জগত সংসার সভ্যতার ভিত্তি; এই কাহিনীকেই জগতের প্রধান ও একমাত্র সত্য হিশাবে প্রতিষ্ঠা করবার বয়ান, গল্পগাঁথা, শিল্পসাহিত্য, নাটক থিয়েটার ডিজিটাইল বাইটস হয়ে পৌঁছে যাচ্ছে তাদের কাছে যারা বাস্তব জগতে নয়, ভার্চুয়াল জগতে বাস করতে অভ্যস্ত হয়ে পড়ছে। ওর মধ্যেও প্রতিরোধ আছে অবশ্যই। কিন্তু সেই দিকে আমি এখন যাচ্ছি না।

আভাটার-কে সামনে রেখে কিছু পর্যবেক্ষণ পেশ করাই আমার এখানে মতলব। ছবি দেখার ক্ষেত্রে আমার ‘মিত্র’ হচ্ছে কিশোর বা তরুণরা। ওরা কী ধরণের ছবি দেখে, কী তারা পছন্দ করে, কেন করে ইত্যাদি দিকগুলো বোঝার চেষ্টা করি আমি। বাংলাদেশে সিনেমা হলে ছবি দেখার সুযোগ বা সময় আমি পাই না। কিন্তু পাইরেটেড ডিভিডিগুলোর সুবিধাটুকু নিতে পারি। ভাবি যে সিনেমা হলে ছবি না দেখে নিজের কমপিউটারে একা একা ছবি দেখার পার্থক্যের যে সমাজতত্ত্ব সেটাও তো আলোচনার একটা বিষয় হতে পারে। টেকনলজি আমাদের পারস্পরিক সম্পক ও পারিপার্শ্বিক জগতে যে পরিবর্তন ঘটায় সে সম্পর্কে আমরা কতোটা সজাগ?

কিশোর ও তরুণ যাদের আমি চিনি তাদের মধ্যে জেমস ক্যামেরনের প্রতি আগ্রহ আমাকে আভাটার ছবিটি দেখতে তৎপর করে তুলেছে সন্দেহ নাই। তারাই আমাকে প্রথমে খবরটুকু দেয় যে জেমস ক্যামেরন একটি পরিবেশবাদী ফিল্ম বানিয়েছে, আমি যেহেতু প্রাণ ও পরিবেশ নিয়ে কাজ করি অতএব এই ছবিটি আমার ভাল লাগবে। আমার ছবি সংগ্রহ ও ছবি দেখার বন্ধু হচ্ছে আমার বোনের ছেলে কাশিব আহসান ফারশাদ। ও আমাকে একটা কপি এনে দিল। খুব ভাল ছিল না। কিন্তু দেখলাম। ও ছবির মধ্যে প্রাণ ও পরিবেশের বয়ান আছে এটা ফারশাদ ধরতে পেরেছে দেখে আমি খুশি হই। একই সঙ্গে ওর মধ্যে ছবিটি সম্পর্কে একটি অস্বস্তিও লক্ষ করি। একই অস্বস্তি আমার মধ্যেও সঞ্চারিত হয়। আমি বুঝতে পারলাম ওর কাছে ছবিটি ভাল লেগেছে ঠিক। কিন্তু কোথাও যেন অবিশ্বাস আছে। ভাল কপি সংগ্রহ করে আরো ভালভাবে দেখার সাধ জাগল। এই অবিশ্বাস ও অস্বস্তির কারণটা খোঁজার আগ্রহ বাড়ল আমার। বলা বাহুল্য থ্রি-ডিমেনশনাল ছবি দেখার অভিজ্ঞতা হোল না। তবে কী দেখছি খানিক আন্দাজ করতে পারলাম। তরুণ ও কিশোর—যারা কিছুটা ভাবুক এবং রাজনীতি সচেতন তাদের কাছে ছবিটি যে কারণে ভাল লেগেছে—প্রাণ, পরিবেশ ও ‘আদিবাসী’ জনগোষ্ঠির লড়াকু স্বভাব ও জয়ী হবার কাহিনী–সেই কারণকে উপেক্ষা করা যাবে না। প্রথম দেখাতে ছবিটি ভাল লাগবার কথা। আমি খানিক হকচকিয়ে গেলাম। কারণ ছবিটি দেখার পর পরই আমার মনে বহু প্রশ্ন জেগেছিলো। যার মধ্যে ভার্চুয়াল জগত আর বাস্তবতার যে ফারাকটা আমরা এই ছবিতে দেখছি তাকে নিছকই কল্পনা আর বাস্তবতার ফারাক বলা যাচ্ছে না। ‘ভার্চুয়াল’ কথাটার আরেকটি মানে পেয়ে যাচ্ছিলাম ছবিটাতে। সেটা ব্যাখ্যা করার দরকার বোধ করতে শুরু করলাম। সেই ব্যাখ্যাটা যে প্রশ্ন দিয়ে শুরু হতে পারে সেটা হোল ‘ভার্চুয়াল’ জগত কি কল্পনার জগত? নাকি অন্য কিছু। প্রতীকী? কী আসলে? এই প্রশ্নে আমি ফিরে আসব।

avatar22.jpg
পলিফেমাস গ্রহের চাঁদ প্যানডোরা, পৃথিবীর সঙ্গে কিছু মিল আছে এর; আভাটারের দৃশ্য

আমরা একটা পাঠচক্রে একত্রিত হই প্রতি বৃহস্পতিবার। ভাবলাম চিন্তা পাঠচক্রে দলেবলে ছবিটি দেখা দরকার এবং দর্শকদের প্রতিক্রিয়া শোনা দরকার আমার। ছবির কৃৎকৌশলগত বিচারের চেয়েও যে কাহিনী তুলে ধরা হয়েছে সেই কাহিনী কে কীভাবে বিচার করে সেটা শোনা দরকার। ছবিটির রাজনৈতিক মর্ম সম্পর্কে পরিচালক ক্যামেরন বলছেন:

‘খুব তীব্র ভাবে রাজনীতিকরণ অনেকে যেমন করেন, তেমন করে নয় তবে প্রকৃতির সঙ্গে আমরা কীভাবে আচরণ করি তারই একটা প্রতীক এটা (অর্থাৎ ছবিটি—ফ. ম.)।’

‘ওর মধ্যে একধরণের দখলী ভাব আছে।—‘আমরা এই তো হাজির, হাতে বন্দুক, টেকনলজি আছে আমাদের, আমাদের মগজও পাক্কা, অতএব এই গ্রহের সবকিছুর ওপর দখলদারি কায়েমের দাবি আছে আমাদের।’

‘কিন্তু ব্যাপারটা তো এই ভাবে কাজ করে না, আমরা যদি সজ্ঞান না হই এবং সেই জীবন যদি না খুঁজি যেখানে জীবন পৃথিবীর প্রাকৃতিক চক্রের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে টিকে থাকে তাহলে অনেক মূল্য দেবার পর আমরা তা বুঝব।’

‘(ছবিটি) ইতিহাসের ছিঁড়ে যাওয়া জায়গাটিকে সুতা দিয়ে বাঁধার চেষ্টা। আমি সেই সুতাটা আরো অনেক পেছনে ১৬ ও ১৭ শতাব্দিতে নিয়ে গিয়েছি যখন ইউরোপীয়রা দক্ষিণ ও মধ্য আমেরিকায় নিজেদের দখলদারি কায়েম করে এবং সেখানকার আদিবাসীদের উৎখাত করে প্রান্তিক জনগোষ্ঠিতে রূপান্তরিত করে। রক্ত দিয়ে লেখা মনুষ্য জাতির এই এক দীর্ঘ ও অনবদ্য ইতিহাস আমাদের স্মৃতি যতোদূর যায় ততোটাই পেছনে খোদিত- আমাদের তো সেই প্রবণতা রয়েছে যে আমরা যা চাই তা জিজ্ঞাসা না করেই দখল করে নিয়ে থাকি।’

(দেখুন: http://www.telegraph.co.uk/culture/film/film-news/6782339/James-Cameron-says-Avatar-a-message-to-stop-damaging-environment.html)

”I see it as a broader metaphor, not so intensely politicised as some would make it, but rather that’s how we treat the natural world as well.
”There’s a sense of entitlement – ‘We’re here, we’re big, we’ve got the guns, we’ve got the technology, we’ve got the brains, we therefore are entitled to every damn thing on this planet.’

”That’s not how it works and we’re going to find out the hard way if we don’t wise up and start seeking a life that’s in balance with the natural cycles of life on earth.”

”It’s a way of connecting a thread through history. I take that thread further back to the 16th and 17th centuries and to how the Europeans pretty much took over South and Central America and displaced and marginalised the indigenous peoples there.

”There’s just this long, wonderful history of the human race written in blood going back as far as we can remember, where we have this tendency to just take what we want without asking.”

আমি ইচ্ছা করেই বড় উদ্ধৃতি দিলাম। যাঁরা রাজনীতি সচেতন তাঁরা ছবিটিকে বিচার করবার সময় পরিচালকের উদ্দেশ্য মনে রেখে যেন বিচার করেন তার জন্যই এতো লম্বা টুকলাম।
—————————————————————–
সদিচ্ছাকে সন্দেহ করা আমাদের কর্তব্য নয়। আমরা বরং বিচার করে দেখব জেমস ক্যামেরন এবং দর্শক হিশাবে আমাদের সদিচ্ছাগুলো দাবিয়ে দিয়ে কীভাবে বর্ণবাদ ও সাম্রাজ্যবাদ জনপ্রিয় বয়ানগুলোকে আমাদেরই অজান্তে অধিকার করে নেয়। অথচ আমাদের নজর এড়িয়ে চলে যায়। ধরতে পারি না। তীব্র রাজনীতিকরণের পথ পরিহার করে প্রাণ, পরিবেশ ও আদিবাসীদের পক্ষে তিনি যে মসৃণ গল্পটি পেশ করেন আমরা দেখি তার মধ্যে কীভাবে সাম্রাজ্যবাদী বয়ান ও বর্ণবাদ হাত ধরাধরি করে চলে।
—————————————————————-
দুনিয়ার আবহাওয়ার দুর্দশা, প্যালেস্টাইন, ইরাক, আফগানিস্তান ইত্যাদি দেশে জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য দখল করে নেওয়া, খনিজ সম্পদে সমৃদ্ধ দেশ ও এলাকাগুলোতে বহুজাতিক কম্পানিগুলোর সঙ্গে রাষ্ট্রের চুক্তি এবং তার বিরুদ্ধে মাওবাদীদের নেতৃত্বে গণযুদ্ধ—ইত্যাদি বাস্তবতার পরিপ্রেক্ষিতে জেমস ক্যামেরনের এই কথাগুলো ভাল লাগবার কথা। সত্যি যে দর্শকদের সেটা ভাল লাগে। এক ধরণের আরামের উপলব্ধি হয়। তাঁরা উজ্জীবিত বোধ করেন। সদিচ্ছাকে সন্দেহ করা আমাদের কর্তব্য নয়। আমরা বরং বিচার করে দেখব জেমস ক্যামেরন এবং দর্শক হিশাবে আমাদের সদিচ্ছাগুলো দাবিয়ে দিয়ে কীভাবে বর্ণবাদ ও সাম্রাজ্যবাদ জনপ্রিয় বয়ানগুলোকে আমাদেরই অজান্তে অধিকার করে নেয়। অথচ আমাদের নজর এড়িয়ে চলে যায়। ধরতে পারি না। তীব্র রাজনীতিকরণের পথ পরিহার করে প্রাণ, পরিবেশ ও আদিবাসীদের পক্ষে তিনি যে মসৃণ গল্পটি পেশ করেন আমরা দেখি তার মধ্যে কীভাবে সাম্রাজ্যবাদী বয়ান ও বর্ণবাদ হাত ধরাধরি করে চলে। সেই দিকটা নিয়েই আমরা আগামি কিস্তিগুলোতে আলোচনা করব।

(চলবে)

farhadmazhar@hotmail.com

free counters

প্রতিক্রিয়া (34) »

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন কামরুজ্জামান কামু — এপ্রিল ৭, ২০১০ @ ১:৪৩ অপরাহ্ন

      পরের কিস্তি পড়ার অধীর আগ্রহ নিয়া বসে থাকলাম।

      – কামরুজ্জামান কামু

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন কাজী মামুন — এপ্রিল ৭, ২০১০ @ ২:৫৪ অপরাহ্ন

      “সার, বিষ ও মাটির তলার পানি তুলে চাষাবাদে লাভ হয় সার, বিষ, ট্রাক্টর, তেল ও হাইব্রিড ও জিএমও বীজ কম্পানির।” আপনি কি বলেন আদিম পদ্ধতিতে লাঙ্গল আর হেক্টর প্রতি এক মন ধানের চাষ করে বাংলাদেশীদেরকে না খেয়ে মরতে? সন্দেহ নেই যে আমাদের দেশের বর্তমান বেহাল দশার জন্য রাজনীতিবিদদের চেয়ে আপনারা বুদ্ধিজীবিরাই বেশি দায়ী।

      শিরোনামের মূল কথাটাই বললেন না কী করে কী হলো!

      “রাজনৈতিক বা আর্থ-সামাজিক রূপান্তর নয়, দরকার টেকনলজির—এই চিন্তার বিপদ ভয়ানক। একে রুখে দেওয়া দরকার।”

      কাকে রুখবার কথা বলছেন আপনি? টেকনলজির রুপান্তরকে? দেশের সমস্ত টেলি-যোগাযোগ, সমস্ত ইন্টারনেট যোগাযোগ ব্যব্স্থা, সমস্ত বৈজ্ঞানিক গবেষণা বন্ধ করে দিয়ে, আসেন আমরা পেছন দিকে হাঁটতে শুরু করি। আগে রাজনৈতিক এবং আর্থ-সামাজিক রূপান্তর হবে এরপর আমরা অন্য চিন্তা করবো। টেকনলজির সহায়তা ছাড়া একবিংশ শতাব্দীতে আর্থ-সামাজিক রূপান্তর-এর চিন্তা বিকৃত মস্তিষ্ক প্রসূত চিন্তা বলেই ধরে নিতে হবে। সারা ইউরোপ-আমেরিকা, এশিয়াতে জাপান-কোরিয়া হাইব্রিড ফসল, জি এম ও ফসল খাচ্ছে, বৈরী আবহাওয়ায় টেকনলজির সহায়তায় প্রতি একর জমিতে বাংলাদেশের চেয়ে চার গুণ ফসল ফলাচ্ছে—আপনি বলছেন পেছন দিকে হাঁটতে, আপনি বলছেন—আল্লাহ কবে বৃষ্টি দিবে, সেই অপেক্ষায় বসে থেকে লাঙ্গল দিয়ে জমি চাষ করে সার ব্যবহার না করে হেক্টর প্রতি এক মন করে ধান উৎপাদন করতে!

      – কাজী মামুন

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন আরিফ জেবতিক — এপ্রিল ৮, ২০১০ @ ১২:০৫ পূর্বাহ্ন

      লেখার শুরুটা আগ্রহ জাগিয়েছে। সবগুলো কিস্তি পড়ার পরে বিশদ মন্তব্য করা যাবে, আপাতত শুধু আগ্রহটুকুই জানিয়ে রাখলাম।

      – আরিফ জেবতিক

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন anup aich — এপ্রিল ৮, ২০১০ @ ৭:৪০ পূর্বাহ্ন

      আভাটার চলচ্চিত্রটির উপর করা অসাধারণ বিশ্লেষণী ক্ষমতার প্রশংসা না করে পারছি না। এখানে কয়েকটি স্থান খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হলো:

      ১. আমরা জ্ঞানকে যেমন বিকৃত করে আনন্দিত, ঠিক তেমনি আমাদের মনুষ্যজীবনের উদ্দেশ্যকেও উড়নচণ্ডী করে উল্লসিত। ডিজিটাল বিপ্লবের মর্মবাণী হচ্ছে উড়নচণ্ডী জগত থেকে বাস্তবে প্রত্যাবর্তন নয়, বরং উড়নচণ্ডী জগত থেকে ভার্চুয়াল জগতে প্রবেশ, ওর মধ্যে নীলাভ শিহরণ অনুভব করা—মানব সভ্যতা টেকনলজির গুণে টেকনলজির দাসানুদাস হয়ে সম্মুখে এগিয়ে যাচ্ছে। এই হর্ষে নিজের পায়ের তলার পাটাতনটুকুকেও বোমা মেরে উড়িয়ে দেবার দশা।

      ২. আমাদের রাজনৈতিক বা আর্থ-সামাজিক বিপ্লবের প্রয়োজন নাই; চিৎকার উঠেছে ‘ডিজিটাল’ বিপ্লবের। ইনফরমেশান টেকনলজি আমাদের জগতকে বদলিয়ে দিয়েছে ও দিচ্ছে সন্দেহ নাই। কিন্তু তার ফল মাত্রই শুভ এই নির্বিচার সিদ্ধান্তের মধ্যে মুশকিল রয়েছে। (সম্পূর্ণ একমত পোষণ করি।)

      ৩. আমারও প্রশ্ন ‌‍”মানবেতিহাস কি শেষাবধি শুধু টেকনলজির ইতিহাস ছাড়া আর কিছু হয়ে উঠতে পারবে না?”

      লেখাটি পরে মনে হলো চলচ্চিত্রটি আরেকবার দেখা যায়। কেননা নীলাভ দৃশ্যাবলী আর ঘটনার ঘনঘটায় অনেক কিছুই বুঝি দেখা হয়ে ওঠে নাই। ধন্যবাদ ফরহাদ মজহারকে, চিন্তনে নতুন চিন্তা যুক্ত করবার জন্য।

      – anup aich

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন আশিক — এপ্রিল ৮, ২০১০ @ ৯:৫৩ পূর্বাহ্ন

      মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টা শহরের প্রেক্ষাগৃহে বসে অবতার ছবি দেখেছি।

      জনাব ফরহাদ মজহারের বিশ্লেষণের মধ্যে অন্তর্দৃষ্টির ছাপ আছে। তবে প্রচুর অসংলগ্নতা, সূতোছেড়া ভাবনা আর সূত্রহীন চিন্তার ফলে লেখাটি উপভোগ্য হয়ে ওঠেনি। লেখক বলছেন অবতার ছবি সাম্রাজ্যবাদের বার্তা নিয়ে এসেছে। পরিবেশবাদের মধ্যে এই বার্তা লুকিয়ে আছে। লেখক পরিষ্কার করেননি যে, সাম্রাজ্যবাদের বার্তাটি কী? টাইটানিক বা অন্যান্য ছবির থেকে এই বার্তা কি ভিন্নতর? অবতারের এই জনপ্রিয়তার কারণ কী? পরিবেশবাদের সাথে সাম্রাজ্যবাদের বার্তার কী তফাৎ?

      আমার কাছে মনে হয়েছে ছবিতে ধ্রুব ‘দাও ফিরে সে অরণ্য লহ এ নগর’ বাণীর উদযাপন করা হয়েছে পুঁজিবাদী চলচ্চিত্রের মাধ্যমে। একটি শুভ বার্তাকে চলচ্চিত্রকার চলচ্চিত্রের মাধ্যমে পরিস্ফূট করতে চেয়েছেন। পুঁজিবাদ ভাল না খারাপ তা বহু আলোচনার ব্যাপার। লেখক যদি মার্ক্সবাদী দৃষ্টিভঙ্গী থেকে লিখে থাকেন তবে তা সততার জন্য প্রথমেই প্রকাশ করে দিলে পাঠকের সুবিধা হবে।

      – আশিক

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন আজমাল হোসেন মামুন — এপ্রিল ৮, ২০১০ @ ১২:২২ অপরাহ্ন

      লেখাটি ভালো লাগলো। ফরহাজ মজহারকে আন্তরিকভাবে অভিনন্দন। উনি তো দেশের দশের কথা বলেন। বাস্তব চিত্র তুলে ধরেন। আমি তাঁর দীর্ঘ জীবন কামনা করি।

      – আজমাল হোসেন মামুন

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন athelas — এপ্রিল ৮, ২০১০ @ ১২:৩২ অপরাহ্ন

      লেখাটা পড়ে টেকনলজি, বিশেষ করে ইন্টারনেট এবং মানুষের জীবনে এর প্রভাব সম্বন্ধে একটি খুবই interesting ডকুমেন্টারির কথা মনে পড়ল। ইন্টারনেট-এর ভার্চুয়াল জীবন মানুষের পারস্পরিক সম্পর্ককে কীভাবে প্রভাবিত করছে, ব্যক্তিগত জীবনের দেয়াল আছে কি নেই / মানুষের সেই দেয়াল রাখতে চাওয়া না চাওয়া (যেমন ফেসবুকে সর্বক্ষণ স্ট্যাটাস আপডেট, কী খেলাম, কী পরলাম ইত্যাদি) কিংবা অন্যের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে মানুষের কৌতূহল (যেমন রিয়ালিটি টিভি শো, শুধু সেলেব্রিটি না, সাধারণ মানুষের জীবন দেখতেও সবাই আগ্রহী) – এইসব বিষয় নিয়ে ডকুমেন্টরিটি ভাবায়। ঢাকায় dvd পাবেন কিনা জানি না। কিন্তু ডাউনলোড করার চেষ্টা করে দেখতে পারেন। ট্রেইলারের লিংক:

      http://www.youtube.com/watch?v=_XSTwfdFwIY

      – athelas

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মেহেদী হক — এপ্রিল ৮, ২০১০ @ ৭:০৭ অপরাহ্ন

      এই ‘ডিজিটাল’ দুনিয়ায় বিভ্রান্তির সুযোগ অনেক বেশি, কে যে সত্যি বলছে আর কেন যে বলছে তা বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই বোঝার সাধ্য হয়ে ওঠে না।

      তবে ফরহাদ মজহার যেটা বললেন,
      “দুনিয়ায় তথ্যের আদান-প্রদান ঘটছে এটা বানোয়াট কাহিনী। সেই তথ্যেরই আদান-প্রদান চলে যাতে অল্প কয়েকজন মুনাফা কামাতে পারে এবং মুনাফা কামানোই মনুষ্য জীবনের পরমার্থ, কিম্বা মুনাফাই জগত সংসার সভ্যতার ভিত্তি; এই কাহিনীকেই জগতের প্রধান ও একমাত্র সত্য হিশাবে প্রতিষ্ঠা করবার বয়ান, গল্পগাঁথা, শিল্পসাহিত্য, নাটক থিয়েটার ডিজিটাইল বাইটস হয়ে পৌঁছে যাচ্ছে তাদের কাছে যারা বাস্তব জগতে নয়, ভার্চুয়াল জগতে বাস করতে অভ্যস্ত হয়ে পড়ছে। ওর মধ্যেও প্রতিরোধ আছে অবশ্যই। কিন্তু সেই দিকে আমি এখন যাচ্ছি না।”

      তথ্যের বানোয়াটি হয়েছে, হচ্ছে, হবে—এটা সত্যি, কিন্তু তাই বলে সব কিছুই কি বানোয়াট? শুধু সেই তথ্যেরই আদান-প্রদান হচ্ছে যাতে কিছু লোকের মুনাফা জড়িত? হতে পারে আমি মজহার সাহেবের তথ্যের সংজ্ঞা বুঝি নাই, কিন্তু তাঁর এই লেখাটাও কি তার মধ্যে পড়ে না? আজ ২০০৭ সালে ইরাকের নিরীহ কিছু লোকদের মার্কিন কপ্টার থেকে গুলি করে মেরে ফেলার একটা দৃশ্য ‘উইকিলিক্স’-এ দেখলাম। এই ভিডিও (http://www.youtube.com/watch?v=-byU_92NcN8) মার্কিন সাম্রাজ্যে তোলপাড় ফেলে দিয়েছে—এইটাও কি বানোয়াট?

      – মেহেদী হক

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন এম এ কবির — এপ্রিল ৮, ২০১০ @ ১০:৩৬ অপরাহ্ন

      শুধু বলতে চাই…….. অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় আছি পরের কিস্তির জন্য

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন পরান — এপ্রিল ৮, ২০১০ @ ১১:৪৪ অপরাহ্ন

      বিশ্লেষণধর্মী লেখা ভালো লাগলো।

      – পরান

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন নাজিরুল হক — এপ্রিল ৯, ২০১০ @ ৩:১৪ অপরাহ্ন

      লেখা ভাল লেগেছে তবে অপ্রাসঙ্গিক অনেক কথাই লেখক লিখেছেন। পুরোপুরি মন্তব্য করা যাবে সবগুলো পর্ব পড়ার পরে।

      – নাজিরুল হক

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন কামরুজ্জামান জাহাঙ্গীর — এপ্রিল ১০, ২০১০ @ ১:০৪ পূর্বাহ্ন

      বেশ দরকারি আলোচনা। বিশেষ করে সাম্রাজ্যবাদী প্রবণতা, ফিল্মে জৌলশের ভিতর দখলের রাজনীতির দিকটি উন্মোচন করাতে ভালোই লাগল। ফরহাদ মজহারের বিশ্লেষণী ক্ষমতাও চমৎকার।

      – কামরুজ্জামান জাহাঙ্গীর

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মুকুল — এপ্রিল ১০, ২০১০ @ ৯:৩৩ অপরাহ্ন

      “অবতার” আমার কাছে ভাল্লাগছে। তাই আপনার বিশ্লেষণটা পড়ার আগ্রহ তৈরি হয়েছে।

      – মুকুল

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন সাদী — এপ্রিল ১১, ২০১০ @ ৫:৪৭ অপরাহ্ন

      চমৎকার একটি বিশ্লেষন। পুজিবাদের রাস্তাটা পরিষ্কার করার জন্য এই মুভি। খুবই আনন্দদায়ক কিন্তু সুক্ষ ইনড্রক্টিনেশন রয়েছে। ফরহাদ মজহারকে ধন্যবাদ জানাই এত সুন্দরভাবে তুলে ধরার জন্য…
      —সাদী

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন হোসাইন কবির — এপ্রিল ১২, ২০১০ @ ৬:১৪ অপরাহ্ন

      ৯ এপ্রিল ঢাকা-দোহা-জে.এফ.কে-এর কাতার এয়ার লাইন্স-এর যাত্রী হয়ে উড়ছিলাম আমার মেয়ে ফায়িকা কবির (গল্প)-সহ আমি। মেয়ের পরামর্শে অফুরন্ত অলস সময় পোড়াবার জন্য ২০১২ এবং অ্যভাটার ছবি দু’টো দেখেছিলাম – তন্দ্রা-ঘুম-জাগরণে। ফরহাদ মজহারের অ্যাভাটার ছবির উপর আলোচনার শুরুর কিস্তিটি ভালো লাগলো, আগ্রহ জন্মেছে পরের কিস্তিগুলো পড়বার। ফ. মজহারের মত ও দৃষ্টিভঙ্গির সাথে অনেক সময় আমিও একমত নই, তবে তাঁর পাণ্ডিত্য ও অসাধারণ বলার ভঙ্গির কারণে তাঁর লেখার একজন পাঠক হয়ে অ্যাভাটার-এর উপর এ আলোচনার উপর কাজী মামুনের অতি সরলীকৃত মন্তব্যে আহত হয়েছি।

      – হোসাইন কবির

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মোহাম্মদ সাইফ — এপ্রিল ১২, ২০১০ @ ১০:৫৮ অপরাহ্ন

      ভাল লাগল। কিন্তু শেষ না হওয়া পর্যন্ত পূর্ণ তৃপ্তি হচ্ছে না।

      এদিকে কাজী মামুনের ঝাঁজালো মন্তব্য পড়ে হাসলাম।
      @কাজী মামুন, আপনার দাবীটা কতটা সত্য জানিনা। কিন্তু ফরহাদ স্যারের মন্তব্যের স্বপক্ষে আমার একটা এক্সাম্পল হল “Food.inc” নামের ডকুমেন্টারী।
      সো প্লীজ বি পেশেন্ট। সী দ্যট ডকু।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন লুৎফর রহমান নির্ঝর — এপ্রিল ১৩, ২০১০ @ ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন

      পুরোটা পড়তে চাই আগে। কিছু কিছু বিষয়ে দ্বিমত আছে। পুরোটার অপেক্ষায় রইলাম।

      -লুৎফর রহমান নির্ঝর

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন আবরাউল হাছান — এপ্রিল ১৪, ২০১০ @ ২:১৪ পূর্বাহ্ন

      ফরহাদ মজহারের ১ম কিস্তি ভাল লেগেছে। পরবর্তী কিস্তির জন্য অপেক্ষা করছি। তবে চিন্তার বিশালতা ও বৈচিত্রের জন্য জেমস ক্যামেরনকে ধন্যবাদ না দিয়ে উপায় নেই। এও তো পুঁজিবাদের আরেক বাহক! এটাকে কি শুধু বাইটস বলে চালিয়ে দেওয়া যাবে?

      – আবরাউল হাছান

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন আহমেদুর রশীদ — এপ্রিল ১৫, ২০১০ @ ৫:৫০ অপরাহ্ন

      ১ম কিস্তি পড়ে বাকিটুকু পড়ার আগ্রহ তৈরি হয়েছে।

      – আহমেদুর রশীদ

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন m t rahman — এপ্রিল ১৫, ২০১০ @ ১১:২২ অপরাহ্ন

      ভাল লাগল। পুরোটার অপেক্ষায় রইলাম।

      – m t rahman

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মাসুম রহমান — এপ্রিল ১৬, ২০১০ @ ৬:৩০ অপরাহ্ন

      অবশ্যই পরের কিস্তির অপেক্ষায়…।

      – মাসুম রহমান

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন সৈয়দ আলি — এপ্রিল ১৯, ২০১০ @ ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন

      ফরহাদ মজহারের সব কথায় মাথা নেড়ে সায় দিতে হবে, বা তা কাজী মামুনও আশা করেন বলে আমি বিশ্বাস করি না। কিন্তু বাংলাদেশের জীববৈচিত্র ধ্বংস করে মুনাফা করার কর্মকাণ্ড যে চোখের সামনে চলছে, তা তো স্বতঃসিদ্ধ আর সহজে স্বীকারযোগ্য। কাজী সাহেব অর্থনীতির উচ্চমাধ্যমিক স্তরের কেতাব থেকে কৃষির “আধুনিকতার” প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে যা শিখেছেন তাই তুলে দিয়ে নয়াকৃষির যে নতুন আন্দোলন বিশ্বব্যাপী গতি পাচ্ছে সে সম্পর্কে তার “জ্ঞানের” প্রমাণ দিয়েছেন। কিন্তু যে ভঙ্গিতে তিনি তার “জ্ঞান” ব্যবহার করেছেন, তা পলেমিকের ভাষা নয়। তার অবগতির জন্য বলছি, কৃত্রিম সার-কীটনাশক-বীজ ব্যবহার না করলেই সেই কৃষিকাজ আদিম হয়ে যায় না, বা একরে এক মণ ফসল ফলে না। অলমিতি বিস্তরেন।

      – সৈয়দ আলি

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Hamom Promud — এপ্রিল ১৯, ২০১০ @ ১০:২৯ পূর্বাহ্ন

      ছবিটি দেখার সৌভাগ্য আমারও হয়েছে। লেখক এখানে যতই ছবিটির নেগেটিভ দিক নিয়ে বলুন না কেন, ছবিটির প্রতি পাঠকদের আগ্রহ আরও বাড়বে। তাতে ছবির পরিচালক প্রযোজক এবং পৃষ্ঠপোষকদের লাভ বাড়বে বৈ কমবে না। তাতেই এই ছবি বানানোর সাফল্য।

      আর “থ্রী ডাইমেনশন” প্রযুক্তির ভবিষ্যৎ এই ছবির মাধ্যমে অনেকটা পাকাপোক্ত হয়ে গেছে বলে অনেকেই বিশ্বাস করেন। আমিও বিশ্বাস করি, এই ছবিটি একটি ব্যবসাসফল ছবি, আর দর্শন-প্রকৃতি-পরিবেশ-আদিবাসী সবগুলোই ভাওতাবাজি। মুনাফাই সব।
      আর টেকনোলজি–ভার্চুয়াল দুনিয়া নিয়ে এই তো সবে শুরু, দেখবেন আগামী দশ বছরে পাশের বাসার কিংবা বাড়ির সাথে কোনো সম্পর্ক না থাকলেও ফেসবুকের সম্পর্ক ঠিকই টিকে থাকবে।

      – Hamom Promud

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন এনায়েতুল্লাহ — এপ্রিল ২৬, ২০১০ @ ১২:২৬ পূর্বাহ্ন

      এটা অবশ্য ঠিক যে এই সিনেমা সাম্রাজ্যবাদের একটা নতুন কৌশল। নতুন দুনিয়া, নতুন স্বপ্ন এসবের আগাম ম্যাসেজ। কিন্তু আমাদের আফসোস আমরা এটা বুঝেও না বোঝার ভান করি। আর এই সিনেমা না দেখলেই বা কী হলো?
      যেখানে আমরা জানতেই আছি এটা সাম্রাজ্যবাদের একটা অপকৌশল। সুতরাং তাদের বর্জন করাই আমাদের দরকার।

      – এনায়েতুল্লাহ

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন md. masum rahman — মে ১, ২০১০ @ ৪:১৯ অপরাহ্ন

      শ্রদ্ধেয় লেখক ফরহাদ মজহার তাঁর ১ম কিস্তিতে কী বলতে চেয়েছেন তা বোধগম্য নয়! বর্তমান গড়ে ওঠে অতীতের উপর ভিত্তি করেই। তবে অতীতকে আকড়ে ধরে পড়ে থাকলে জাতি পিছিয়ে পড়বে আমার তাই মনে হয়। ছবিতে যাই বোঝানো হোক আমাদের যে লেটেস্ট টেকনোলজি ব্যবহার করতে হবে অথবা ভার্চুয়াল জগতে প্রবেশ করতে হবে তাতে দ্বিমত থাকার কথা নয়। যেখানে আমেরিকা প্রযুক্তির সর্বোচ্চ সেবা পৌঁছে দিতে ১০০ এমবিপিএস গতির ইন্টারনেট ব্যবহার ১০০ মিলিয়ন ব্যবহারকারীর কাছে কম মূল্যে পৌঁছে দিতে চাচ্ছেন, টেকনোলজিকে যেখানে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে সেখানে আমরা যদি টেকনোলজি/ভার্চুয়াল জগতে দৃঢ় পদক্ষেপ না রাখতে পারি, তাহলে আরো ১০০ বছর উন্নত বিশ্বের থেকে পিছিয়ে পড়ব। যা হোক, ১ম কিস্তি বুঝিনি, পরবর্তী কিস্তিগুলো পড়ে হয়তো বা বোঝা যাবে।

      – md. masum rahman

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন নাসির — মে ৩, ২০১০ @ ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন

      দ্বিতীয় কিস্তি কি আদৌ আসবে?

      – নাসির

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন পৃথিবী — আগস্ট ২৯, ২০১০ @ ১:০২ অপরাহ্ন

      “বিজ্ঞান, ইনফরমেশান কৃৎকৌশল হাতিয়ার তৈরির ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখে বলে ভাববার কোন কারণ নাই যে মানুষকে চিন্তায়, জ্ঞানে ও দূরদর্শিতায় আরো পরিণত করে তোলার ক্ষমতা তার আছে। বাংলায় ‘বিজ্ঞান’ কথাটার মানে কিন্তু বিকৃত জ্ঞান, যে জ্ঞান তার স্বভাব হারিয়ে ফেলেছে এবং জ্ঞান চর্চার উদ্দেশ্য খুইয়েছে। ঠিক। বাংলার বৌদ্ধ দর্শনের মধ্যে ‘বিজ্ঞান’ ধারণার এই ইঙ্গিত আছে।”

      ১) মাধ্যমিক শ্রেণীর ছাত্ররাও জানে বিজ্ঞান আর প্রকৌশলের মধ্যে কিছুটা পার্থক্য আছে। বিজ্ঞানের থিওরিটিক্যাল অংশ হল প্রকৃতি সম্পর্কে মানুষের যাচাইকৃত পর্যবেক্ষণ আর প্র্যাকটিকাল অংশ হল প্রকৃতি সম্পর্কে জ্ঞানটাকে মানব সমাজ অথবা ব্যক্তি স্বার্থ উদ্ধারের জন্য কাজে লাগানো। বিজ্ঞানের চালিকাশক্তি “বৈজ্ঞানিক সংশয়বাদ” হল জ্ঞানার্জনের চালিকাশক্তি। বিপ্লবীদের মত যদি আমরা সব সময় মুখস্থ বুলি আউড়ে আমাদের সব দায়িত্ব শেষ মনে করতাম, গুহার বাইরে কখনও পদার্পণ করতে পারতাম কিনা সন্দেহ আছে।

      ২) বিজ্ঞান মানে “বিশেষ জ্ঞান”। কোন ধর্মে কী বলল সেটা নিয়ে কিছু যায় আসে না, কোন ভাষায় এটার অর্থ কী সেটা দিয়েও বিজ্ঞানের কিছু যায় আসে না। সেমানটিক্স আর অনটোজেনিকে গুলিয়ে ফেলবেন না।

      – পৃথিবী

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মূলত পাঠক — জুন ১৫, ২০১১ @ ৫:০৯ অপরাহ্ন

      পরের পর্ব কই?!

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন srabon — জুন ২৪, ২০১১ @ ৫:২৪ অপরাহ্ন

      যেহেতু আরও অনেক কিস্তি আসবে তাই এখনই মন্তব্য নয়।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন এ বি এস লিটন — আগস্ট ২৬, ২০১১ @ ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন

      ভালো লেগেছে। মুভি সম্পর্কে আর কিছু ইনফর্মেশন চাই। ধন্যবাদ। ভালো থাকবেন।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন sayeed ferdous — আগস্ট ১০, ২০১২ @ ৭:৩১ অপরাহ্ন

      ভালো লাগলো… পরের কিস্তির অপক্ষোয় থাকলাম!

আর এস এস

আপনার প্রতিক্রিয়া জানান

 
প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন:
১. ছদ্মনামে করা প্রতিক্রিয়া এবং ব্যক্তিগত পরিচয়ের সূত্রে করা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না। বিষয়সংশ্লিষ্ট প্রতিক্রিয়া জানান।
২. বাংলা লেখায় ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
৩. পেস্ট করা বিজয়-এ লিখিত বাংলা প্রতিক্রিয়া ব্রাউজারের কারণে রোমান হরফে দেখা যেতে পারে। তাতে সমস্যা নেই।
 


Disclaimer & Privacy Policy  |  About us  |  Contact us

© bdnews24.com