কবীর চৌধুরীর সঙ্গে আলাপ

বেবী মওদুদ | ২৩ জানুয়ারি ২০১০ ১০:২৭ অপরাহ্ন

kc1.jpg
কবীর চৌধুরী (জন্ম. ৯/২/১৯২৩); ছবি: ফিরোজ আহমেদ, অক্টোবর ২০০৯

[কবীর চৌধুরীর এই সাক্ষাৎকারটি ভিডিওতে গ্রহণ করা হলেও কিছু সম্পাদনা করা হয়েছে। ২১ ও ২২শে অক্টোবর ২০০৯ দুই দফায় সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করা হয়। সাক্ষাৎকারের ভিডিও মোট তিনটি অংশে পরিবেশিত হলো। বি. স.]

ভিডিও ১

বেবী মওদুদ: প্রিয় পাঠক আমরা আজ এসেছি বাংলাদেশের একজন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, সাহিত্যিক, শিল্প বোদ্ধা ও অনুবাদক হিসাবে যিনি আমাদের কাছে সর্বজন শ্রদ্ধেয় অধ্যাপক কবীর চৌধুরীর কাছে। একজন বড় মাপের মানুষ হয়ে ওঠার পেছনে যে কতখানি পরিশ্রম দরকার, অভিজ্ঞতা ও চর্চা, সাধনা দরকার আমরা সেটা কবীর চৌধুরীর মধ্যে দেখেছি। বয়স হয়েছে তাঁর প্রায় ৮৮ বছর। ৯ ফেব্রুয়ারি ১৯২৩ সালে তার জন্ম হয়। এখনও এই বয়সে তিনি প্রতিদিন লেখার টেবিলে বসেন এবং বড় ধরনের কাজ করেন অনুবাদের এবং অন্যান্য লেখার। সামনের বই মেলায় তার বোধহয় ১২/১৩টি বই ছাপা হবে। সে বইগুলোর কাজও করছেন। আমরা আজ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম এর পক্ষ থেকে তার বাসায় এসেছি। তার মুখ থেকে শুনবো তার কথা। তার জীবনের কথা শুনবো, তার শিক্ষা জীবনের কথা, শুনবো তার শৈশব-কৈশোরের কথা।

কবীর ভাই, আপনি কেমন আছেন? আপনার সময় কাটে কীভাবে?

কবীর চৌধুরী: লেখা পড়াতে আমার সময় খুব দ্রুত কাটে এবং আমার মাঝে মাঝে মনে হয় যে ১৮ ঘণ্টা দিন হলে ভাল হতো। আমি সকালে সাড়ে পাঁচটার দিকে উঠে পড়ি। মুখহাত ধুয়ে তারপর ছয়টার মধ্যে লিখতে বসি এবং সারাদিনে অন্তুত ৭/৮ ঘণ্টা লেখার কাজ করি। কিছু পড়ার কাজ করি। কাজেই সময় কাটা নিয়ে অনেকেরই বৃদ্ধ বয়সে যে অভিযোগ থাকে, সময় কাটে না, আমার সেটা নাই।

বেবী মওদুদ: আপনি তো বিভিন্ন সভায় যাচ্ছেন।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, সভায় যাচ্ছি। গতকাল একটা খুব তাৎপর্যপূর্ণ সভায় গিয়েছিলাম। বাংলার বাইরে থেকে ‘প্রতীচি’ নামে একটি পত্রিকা প্রকাশিত হয়। প্রমথনাথ বিশীর মেয়ে এটা বের করেন। সেই পত্রিকার পাঁচ বছর পূর্তি উপলকে একটা সভা ছিল। সেই সভাতে ছিলাম, তার পরে সেখান থেকে উঠে বাংলা একাডেমিতে আর একটা সভা ছিল, সেখানে গিয়েছি।

বেবী মওদুদ: এখনও তো বই পড়েন। এর মধ্যে পছন্দসই কী কী বই পড়লেন?

কবীর চৌধুরী: আমি নিয়মিত এখনও পড়ি। একটা বই এখন পড়ছি, খুবই চমৎকার লাগছে। বইটির নাম ‘দি হোয়াইট টাইগার’। খুব কৌতূহলোদ্দীপক ব্যঙ্গাত্মক। তবে তার মধ্যে ভারতের দারিদ্র্যের চিত্রও খুব বাস্তবসম্মত ভাবে উঠে এসেছে। আরও পড়ছি তুরস্কের নোবেল বিজয়ী লেখক ওরহান পামুকের ‘স্নো’। অসামান্য একটি উপন্যাস। সেটা পড়া প্রায় শেষ করেছি এবং ঐ একই লেখকের একটি প্রবন্ধ গ্রন্থ আছে, নাম ‘আদার কালার্স’। আমি ‘আদার কালার্স’ এর বেশ কিছু লেখা বাংলায় অনুবাদ করেছি। সেটাও সামনের বই মেলায় আসবে। আর ‘স্নো’র বাংলা অনুবাদ ‘তুষার’ এখনও শেষ হয়নি, প্রায় ৪৫০ পৃষ্ঠার বই। এখনও ৪০ পৃষ্ঠার মত বাকি আছে। তাও হয়ে যাবে এবং সেটাও এই বই মেলায় আসবে। এই এখন আমার প্রধান কাজ এবং তার পাশাপাশি প্রবন্ধ লেখা তো হচ্ছেই। যেমন বঙ্গবন্ধুর হত্যার মাস সামনেই ১৫ই আগস্ট। তার উপরে লেখার জন্য অনুরোধ আসছে, লিখছি।

বেবী মওদুদ: আপনার শৈশব-কৈশোরের স্মৃতি নিশ্চয়ই মনে আছে কিছু কিছু। অনেকগুলো ভাইবোন ছিলেন আপনারা।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, অনেক কথাই মনে আছে। আমরা ঢাকায় বসবাস শুরু করি ১৯৩৬-এর দিকে। তার আগে ছোটবেলা কেটেছে কয়েকটি জায়গায়: পিরোজপুরে, মানিকগঞ্জ ইত্যাদি জায়গায়। পিরোজপুরে আমি প্রথম স্কুলে ভর্তি হই। তার আগে পর্যন্ত আমার পড়াশুনা বাসায় বাবার কাছে। স্কুলে ষষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তি হই। পিরোজপুরের কথা মনে আছে। আমরা বেশ বড় পরিবারের সদস্য ছিলাম। ভাই বোনদের নিয়ে অনেক গল্প করতাম। মুনীরের অনেক স্মৃতি খুব উজ্জ্বল হয়ে আমার মনে গাঁথা আছে।

বেবী মওদুদ: আপনাদের যে পারিবারিক বন্ধনটা ছিল, অনেক ভাইবোন ছিলেন। আপনার মা-বাবা সবাই মিলে একটা যে সম্পর্ক ছিল…।

কবীর চৌধুরী: আমাদের পারিবারিক সংহতি খুবই মধুর ছিল। আমরা এক সঙ্গে খাওয়াদাওয়া করতাম। বাবা বয়স হয়ে যাওয়ার পরে একটু আগে খেতেন। তখনও আমাদের খাওয়ার সময় তিনি টেবিলে এসে বসতেন এবং আমাদের সঙ্গে গল্প করতেন। আর মা তো ছিলেন এক অসম্ভব ধৈর্যশীলা স্নেহময়ী মানুষ। তুমি তো বোধহয় দেখেছো তাঁকে, আমার ঠিক খেয়াল নেই।

বেবী মওদুদ: হ্যাঁ, দেখেছি। আপনাদের বাসায় আমি গিয়েছি।

কবীর চৌধুরী: তিনি সকল ছেলেমেয়ের খাবার পরিবেশন করতেন খাওয়ার টেবিলে।

বেবী মওদুদ: আপনার সময় তো তারুণ্যের একটা ধর্ম ছিল। পড়াশুনাটাই মনে হয় আপনার প্রধান কাজ ছিল। পাঠ্যবইয়ের বাইরেও পড়াশুনার আগ্রহটি ওই সময় ছিল। তারপর তো লেখালেখিতে আসলেন। ঐ সময় আপনার বন্ধু বান্ধব কে কে ছিলেন?

কবীর চৌধুরী: আমার স্কুল এবং কলেজ জীবনে খুব ভাল বন্ধু দু’একজন ছিল। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজনই প্রয়াত। হিমাংশু দত্ত বলে একটা ছেলে ছিল। ঐ যে প্রথম দিকে ঢাকায় ফটোগ্রাফ স্টুডিও তৈরি করেছিল, মাই স্টুডিও নাম দিয়ে। পুরানা পল্টনের ওদিকে একটা গ্যারেজের মধ্যে কনভার্ট করে নিজেই ডেভলপ করতো, নিজেই ওয়াশ করতো। সেই ছেলেটি মারা গেছে। সে ছিল, আর ইউনিভার্সিটিতে উঠে যে সব বন্ধু-বান্ধব হয়, তাদের মধ্যেও অনেকেই বেঁচে নাই। স্যার এ. এফ রহমানের দুই ছেলে ছিল। একজন একটু উপরে পড়তো, কিন্তু আমার বন্ধু ছিল। আরো একজন ছিল আনোয়ার হোসেন খান নামে। এরা ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিল। তখন আবদুর রউফ নামে খুব প্রতিভাবান আর একটি ছেলে ছিল। ম্যাট্রিকুলেশনে বোধহয় ফার্স্ট হয়েছিল। সেও মারা গেছে। আমার খুব ঘনিষ্ঠ এবং ভাল বন্ধু ছিল। কলেজে ওঠার পরে আরো দু’ একজন বন্ধু-বান্ধব হয়। একটি বন্ধুত্বের স্মৃতি বেশ কৌতূহলোদ্দীপক। এই অর্থে যে ও ছিল নেটিভ ক্রিশ্চান এবং সেই সময়, তোমার তো মনে থাকবে, রেল বিভাগে অনেক অ্যাংলো ইন্ডিয়ান চাকুরি করতো। এই ছেলেটি ছিল অ্যাংলো ইন্ডিয়ান পরিবারের ছেলে। পুরো নাম মনে নাই। ডাকনাম উইলি বলে আমরা ডাকতাম। তো ওর বাড়িতে ও আমাকে আমন্ত্রণ করেছে কয়েকবার। বেচারাম দেউড়ির গলিতে বাসা ছিল।

বেবী মওদুদ: ওই সময় তো অনেক অ্যাংলো ইন্ডিয়ান পরিবার ছিল…।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ। তখন ওই আমার প্রথম অভিজ্ঞতা অ্যাংলো ইন্ডিয়ান পরিবারের সঙ্গে। আমি সেখানে গিয়ে দেখলাম তার বোন ১৫/১৬ বছরের মেয়ে, ফ্রক পরে খোলা চুলে ঘোরাঘুরি করছে। ওই অভিজ্ঞতা আমার প্রথম। এর আগে দেখিনি।

বেবী মওদুদ: সাংস্কৃতিক জগতে বা সাহিত্য জগতে কোনো ভাল বন্ধু ছিল কি?

কবীর চৌধুরী: লেখালেখির বন্ধুদের চাইতে ক্রীড়ামোদী বন্ধুদের সাথে খুব বেশি ঘনিষ্ঠতা হয়েছিল। আমি যখন ইউনিভার্সিটিতে পড়ি তখন আমার খেলার বেশ ইচ্ছাও ছিল। আমি সলিমুল্লাহ হলে থাকতাম। হলে ফুটবল টিমে খেলেছি, বিশ্ববিদ্যালয়ে টিমে হকি খেলেছি। কাজেই খেলোয়াড়দের সঙ্গেই বেশি সখ্য হয়। লেখকদের সঙ্গে বন্ধুত্ব হয় পরবর্তী সময়ে। যেমন কবি আবুল হোসেনের সঙ্গে বেশ হৃদ্যতা হয়। রশীদ করীমের সঙ্গে বন্ধুত্ব আছে। মোটামুটি শিল্পী-সাহিত্যিকদের মধ্যে তেমন ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্ব তখন কারো সঙ্গে গড়ে ওঠেনি।

দুই.


ভিডিও ২

বেবী মওদুদ: তো আপনি লেখালেখিতে কীভাবে এলেন?

কবীর চৌধুরী: লেখালেখিতে আসি আমার বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের একটু আগে থেকে। তখন আমার নাটকের প্রতি বরাবরই খুব উৎসাহ ছিল এবং প্রথম দিকে আমার লেখা ছোটখাটো প্রবন্ধ। এ ছাড়া নাটক রূপান্তরের কাজে আমি প্রথম আসি।

বেবী মওদুদ: ইংরেজি নাটক থেকে আপনি বাংলায়…।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, এবং আমাকে অনেকে প্রশ্ন করে আপনার তো কোনো সৃজনশীল সাহিত্যকর্ম তেমন নেই। কথাটা সত্যি। আমার প্রবন্ধ আছে। কিন্তু যথার্থ সৃজনশীল সাহিত্যকর্ম নেই। তবে কিছুটা তার কাছাকাছি আছে রূপান্তরিত নাটকগুলোর মধ্যে।

বেবী মওদুদ: আপনি সাধারণত বাংলায় লেখালেখির চর্চা খালি প্রবন্ধেই করেছেন। আর ইংরেজীতে লিখেছেন এবং অনুবাদ করেছেন। বাংলায় এবং ইংরেজীতে যে কাজ করেন এতে কোনো সমস্যা হয় না?

কবীর চৌধুরী: না, আমি কোনো সমস্যা বোধ করি না। আমি ইংরেজী উপন্যাস, প্রবন্ধ, কবিতা ইত্যাদি বাংলায় অনুবাদ করি। বাংলা লেখাও ইংরেজীতে অনুবাদ করি। শওকত ওসমানের ‘ক্রীতদাসের হাসি’ শিল্পী সুলতানের উপরে একটা বই, সেলিনা হোসেনের উপন্যাস, শামসুর রাহমানের কবিতা, মুনীর চৌধুরীর নাটক এবং আরো অনেকের লেখা ইংরেজিতে অনুবাদ করেছি। আর ইংরেজী বই তো বাংলায় অনবরত অনুবাদ করে যাচ্ছি। আমার খুব বেশি অসুবিধা হয় না। অনেকে অসুবিধার সম্মুখীন হন বলে আমাকে বলেছেন। তার একটা কারণ হচ্ছে যে এক ভাষা থেকে অন্য ভাষায় অনুবাদ করতে গেলে শুধু দুই ভাষার জ্ঞান থাকলেই হবে না, দুই সংস্কৃতি সম্পর্কেও একটা জ্ঞান থাকতে হবে। কারণ সেই সংস্কৃতি তো ভাষাকে অনেকখানি চালিত করে। আমি অনুবাদ কাজ করার সময় মূল গ্রন্থটি যে সামাজিক পরিবেশ, সাহিত্যিক পরিবেশ, সাংস্কৃতিক পরিবেশে রচিত তা বুঝবার চেষ্টা করি এবং আমার পড়ালেখা মোটামুটি ব্যাপক থাকায় আমি সে কাজটা করতে পারি। তার ফলেই অনুবাদ ইংরেজী থেকে বাংলায় হোক বা বাংলা থেকে ইংরেজী হোক আমার কাছে তা তেমন সমস্যা হয়ে ওঠে না। বাংলা থেকে ইংরেজীর ব্যাপারে তো সামাজিক পরিবেশ তো জানাই, শুধু ভাষার প্রশ্ন। সেইখানে প্রতিটি ভাষার কিছু নিজস্ব ইডিয়াম আছে। আক্ষরিক অনুবাদ করলে কিছুতেই হবে না। যেহেতু মোটামুটি ইংরেজী এবং বাংলায় একটা কাজ চালাবার মতো জ্ঞান আমার আছে, সে হিসেবে আমি তেমন কোনো অসুবিধা বোধ করি না। তবে সময় দিতে হয়, ভাবতে হয়, পরিশ্রম করতে হয়।

বেবী মওদুদ: সাধারণত দেখা যায় যারা স্কুলে পড়ে বা ম্যাট্রিক পরীক্ষা দেয় প্রায় সবাই ইংরেজীতে খারাপ করে।

কবীর চৌধুরী: সত্যি কথা।

বেবী মওদুদ: আপনি তো ইংরেজীতে ছোটবেলা থেকে নিশ্চয়ই খুব ভাল ছাত্র ছিলেন।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, আমি ছোটবেলা থেকে ইংরেজীতে ভাল ছাত্র ছিলাম। তার একটা কারণ হচ্ছে বাবা ইংরেজীতে খুব ভাল ছিলেন। উনি আলীগড়ে পড়াশুনা করেছেন। সাহেব অধ্যাপকদের কাছ থেকে। তিনি ইংরেজী এক্সপ্রেশন, শব্দচয়ন, রচনা রীতি খুব ভাল বুঝতেন এবং তিনি আমাদের হাতে কলমে পড়িয়েছেন। তোমাকে একটা মজার কথা বলি, কী ভাবে আমরা শিক্ষালাভ করেছি। আমাদের তখন ইংরেজীতে চিঠি লিখতে হতো। তুমি জানো সে যুগে শিক্ষিত সমাজে সেটারই প্রচলন ছিল। পারিবারিক চিঠিও ইংরেজীতে লিখতে হতো। আমরা বাবাকে যখন চিঠি লিখতাম ইংরেজীতে, তিনি সেই চিঠিটা ফেরত পাঠিয়ে দিতেন লাল গোল দাগ দিয়ে। দেখাতেন কোথায় কোথায় ভুল হয়েছে। তো এইভাবে আমরা শিখেছি এবং মোটামুটি ভালই ইংরেজী জ্ঞানলাভ করেছি এবং এটা পারিবারিক সূত্রে পরের প্রজন্মেও এসেছে, এই অর্থে যে আমার মেয়ে শাহীন ইংরেজীর অধ্যাপিকা এবং সেও খুব ভাল ইংরেজী জানে এবং এখন ইংরেজি শিক্ষার ব্যাপারে বহুমুখী কাজ করছে।

বেবী মওদুদ: আমাদের যে ছোট বেলায় ইংরেজী শেখানো হয়, ক্লাস ওয়ান থেকে তো ইংরেজীটা ওই বয়স থেকে কী শেখানো দরকার? না, আরো বড় হয়ে ইংরেজী যার যখন দরকার তখন পড়ালে ভালো হয় ?

কবীর চৌধুরী: এটা নিয়ে দ’ুটি মত আছে। কেউ কেউ মনে করে যে ছোট বেলা থেকে শেখানো ভালো। তারা তাড়াতাড়ি এগিয়ে যেতে পারবে। কিন্তু আমি মনে করি যে এটা অত্যাবশ্যক নয়। কারণ শিক্ষার ব্যাপারটা বহুলাংশে নির্ভর করে শিক্ষাদান পদ্ধতির উপরে এবং শিক্ষার উপকরণের উপরে। যদি ভাল উপকরণ সরবরাহ করা যায় এবং শিক্ষাদান পদ্ধতি যদি ভাল হয় তাহলে তিন/চার বছরে একটা ভাষা খুব ভালোভাবে শেখা যায়। তা নাহলে কেমন করে আমাদের ছেলেরা মস্কোতে গিয়ে রুশ ভাষা শেখে এবং সেই ভাষায় থিসিস লিখতে পারে।

বেবী মওদুদ: তো ঐ যে ছোট বেলা থেকে ইংরেজী শেখানো হয় ফলে বাংলাটাও ভাল শেখে না, ইংরেজীটাও শেখে না। আবার ধর্ম শিক্ষাও দিতে হয়। ঐ সময় তো প্রাথমিক শিক্ষাটা অন্তত বাংলায় হওয়া উচিৎ।

কবীর চৌধুরী: আমরা এই ব্যাপারটার উপর খুব গুরুত্ব দিই। আমাদের যে নতুন শিক্ষা নীতি ২০০৯ হয়েছে তাতে খুব স্পষ্টভাবে আমরা বলেছি যে, প্রাথমিক পর্যায়ে শিক্ষার মাধ্যম হবে মাতৃ ভাষা বাংলা। ইংরেজী ক্লাস থ্রি থেকে শেখানো যেতে পারে। কিন্তু কিছুতেই মাধ্যম হিসাবে নয়। একটা ভাষা হিসাবে তা শেখানো যেতে পারে। আর আমরা গুরুত্ব দিয়েছি যে ধর্ম শিক্ষা, আনুষ্ঠানিক ধর্ম শিক্ষা, প্রাথমিক পর্যায়ে থাকবে না। আনুষ্ঠানিক ধর্ম শিক্ষার বদলে দেয়া হবে, প্রাথমিক পর্যায়ে নৈতিকতা শিক্ষা দেয়া হবে, যা সব ধর্মের মানুষের জন্য সমান প্রযোজ্য।

বেবী মওদুদ: মানে নৈতিক শিক্ষাটার উপরে জোর দেওয়া হয়েছে?

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ নৈতিক শিক্ষার উপরে জোর দেওয়া হয়েছে এবং এটাও আমরা পরামর্শ দিয়েছি যে যখন পাঠ্যপুস্তুক ইত্যাদি লেখা হবে, ক্লাস রুমে শিক্ষাদান করা হবে, তখনই ওই নৈতিক শিক্ষা গল্পের ছলে যেন দেয়া হয়, কাহিনির মাধ্যমে যেন বলা হয়। এইভাবেই আমরা বলেছি।

বেবী মওদুদ: কবীর ভাই এখানে একটা প্রশ্ন করি। আমার খুব জানতে ইচ্ছে করে আপনি তো অনেক দিন ধরে অনুবাদ করছেন। সেই ধরেন বিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি থেকে।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, উনিশ শ’ পঞ্চাশের দিক থেকে আমি অনুবাদ করছি।

বেবী মওদুদ: তবে ঐ সময়ের লেখকদের বই এবং এখনকার লেখদের বইয়ের মধ্যে পার্থক্যটা কী দেখছেন?

কবীর চৌধুরী: বাংলাদেশের কথা যদি বলতে হয়…।

বেবী মওদুদ: না, বাংলাদেশের কথা নয়, আপনি বিদেশের কথাই বলেন।

কবীর চৌধুরী: বিদেশের কথার মধ্যে আমি বলবো, এখনকার অনেক লেখকের লেখাতেই স্বৈরাচার বিরোধী বিষয়গুলো, মানবাধিকারের পক্ষের বিষয়গুলো, এবং স্বৈরশাসকদের অধীনে মুক্তিকামী মানুষ কীভাবে নির্যাতিত হয়েছে এগুলো খুব বেশি উঠে আসছে। যেমন, অতি সম্প্রতি যে নোবেল পুরস্কার পেলেন রুমানিয়ার লেখক, তার লেখাতেও চসেস্কুর আমলে মানুষ কী রকম নির্যাতিত হয়েছে তা উঠে এসেছে। স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে, জাতিগত বৈষম্যের বিরুদ্ধে যে সব অত্যাচার নির্যাতন চলেছে সেইসব বিষয়ে খুব ভালভাবে লেখকরা লিখছে।

বেবী মওদুদ: তো এই ধরনের বিষয়গুলো তো আগে ছিল না।

কবীর চৌধুরী: আমেরিকান কৃষ্ণাঙ্গদের উপর নির্যাতনের বিষয় নিয়ে কিছু উপন্যাস ছিল। বিশ্বের বিভিন্ন এলাকায় যে সব নির্যাতন চলছে স্বৈরশাসকদের হাতে, দক্ষিণ আফ্রিকায়, নাইজেরিয়ায়, আরো অনেক জায়গায় তার এত বস্তুনিষ্ঠ এবং শৈল্পিক ভাল লেখা, খুব বেশি আসতে পারেনি ।

বেবী মওদুদ: তো আমরা আশা করি যে, সামনের বইমেলায় আমরা খুব ভাল লেখা কিছু বই পাব। একুশের বইমেলা হয়, আপনি তো নিশ্চয়ই বই মেলায় যান। আপনি বই মেলাটাকে কীভাবে দেখেন।

কবীর চৌধুরী: আমি বই মেলাটাকে ভাল চোখেই দেখি, কেউ কেউ নিন্দা করে এর ব্যবসায়িক দিকটা দেখে। কিন্তু গ্রন্থ প্রকাশকদের দৃষ্টিভঙ্গির দিক থেকে, এটার তো একটা ব্যবসায়িক দিক আছেই এবং এই বই মেলার জন্য প্রকাশকরাও অপেক্ষা করে থাকে। পাঠকরা অপেক্ষা করে থাকে। লেখকরাও তাদের বই নিয়ে আসার জন্য ব্যস্ত থাকেন। সেই দিক থেকে আমি বই মেলাটাকে ভালই মনে করি। শুধু আমার মনে হয়, যেটা করার চেষ্টা হচ্ছে, বই মেলার পরিচালক কর্তৃপক্ষকে দেখতে হবে যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী বা বাঙালী জাতীয়তাবাদের বিরোধী কিংবা ধর্মান্ধতার সপক্ষে বই কতজন লিখছেন এবং স্টলে তা কী হারে দেখা যাচ্ছে। সেক্ষেত্রে একটা ব্যবস্থা নেয়ার কথা ভাবতে হবে।

তিন.


ভিডিও ৩

বেবী মওদুদ: বই মেলা নিয়ে আমার আর একটা প্রশ্ন আপনার কাছে। আপনিতো এক সময় বাংলা একাডেমীর প্রধান ছিলেন এবং এখন সভাপতি। বাংলা একাডেমী মুলতঃ বই মেলাটা নিয়ে খুব বেশী উৎসাহী। বই মেলা নিয়েই যেন তারা সারা বছর কাজ করে, এটা কেন? তাদেরতো অন্যান্য কাজও করা উচিত।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ বই মেলাটাতে বাংলা একাডেমী অবশ্যই উৎসাহী। তবে বাংলা একাডেমীর যে কাজগুলো আবশ্যিকভাবে করা দরকার, অর্থাৎ গবেষণামূলক কাজ এবং অনুবাদের কাজ এবং উন্নতমানের পাঠ্য পুস্তুকের কাজ এটা বন্ধ হয় নি। কিন্তু এর মধ্যে আশানুরূপ গতি বেগ সঞ্চারিত হয়নি। তার একটা কারণ হচ্ছে অর্থের অপ্রতুলতা। একাডেমী ঠিক ঠিক অর্থ বরাদ্দ সরকারের কাছ থেকে পাচ্ছে না। তোমাকে একটা খবর দিই আমরা অতি সম্প্রতি ঠিক করেছি, সপ্তাহখানেকের মধ্যে অর্থ মন্ত্রীর সাথে বসবো এবং আমরা আমাদের সমস্যার কথাগুলো বলে তার কাছ থেকে বাংলা একাডেমীর জন্য একটা উপযুক্ত অর্থ বরাদ্দ পাওয়ার অনুরোধ জানাবো।

বেবী মওদুদ: প্রধান মন্ত্রী গত বই মেলায় বলেছিলেন যে গবেষণার জন্য অর্থ বরাদ্দ দিবেন।
কবীর চৌধুরী: প্রধান মন্ত্রী, আমার যতটুক মনে পড়ে, গবেষণা আর আমাদের সৃষ্টিশীল গ্রন্থের ইংরেজী অনুবাদের কথা বলেছিলেন। তো আমরা এ দু’টো কাজ বাংলা একাডেমী থেকে করবার চেষ্টা করছি।

বেবী মওদুদ: আপনিতো বাংলা একাডেমীর মহাপরিচালক ছিলেন, শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সচিবও ছিলেন। তো আপনি যখন বাংলা একাডেমীতে মহাপরিচালক ছিলেন তখন বাংলা একাডেমী কি আজকের মত এতখানি নিয়ন্ত্রিত ছিল মন্ত্রনালয়ের দ্বারা । এখন একটা গবেষণার বই প্রকাশের অনুমতির জন্যও নাকি মন্ত্রনালয়ে যেতে হয়।

কবীর চৌধুরী: তুমি একটা খুব সংগত প্রশ্ন তুলেছ। বাংলা একাডেমী তখন সরকারী নিয়ম নীতির আওতায় থাকলেও তার বেশ কিছু স্বাধীনতা ছিল, তারা নিজেদের ইচ্ছেমতো কিছু প্রকল্প তৈরি করতে পারতো এবং আর্থিক সাহায্যও যতটুক সরকার দিতে পারে মোটামুটি আমরা পেয়েছি একসময়। কিন্তু এখন সরকারি নিয়ন্ত্রন অনেক বেড়ে গেছে। এটা বাংলা একাডেমীর মতো একটা স্বায়ত্তস্বাশিত প্রতিষ্ঠানের জন্য আকাক্সিক্ষত নয়। এ বিষয়ে আমরা ঠিক এখনই কাজে লেগে আছি, বাংলা একাডেমী এ্যাক্টকে পরিমার্জিত করার জন্য, এবং আমাদের কাজ অনেকখানি শেষ হয়ে এসেছে। বাংলা একাডেমীর যারা প্রাক্তন পরিচালক ছিলেন, যাদের প্রশাসনিক অভিজ্ঞতাও আছে এই রকম দুই একজনকে আমরা আমাদের এই কাজে পেয়েছি এবং আমরা সপ্তাহখানেকের মধ্যেই পরিমার্জিত বাংলা একাডেমী এ্যাক্ট সরকারের কাছে দিব। আমাদের খুবই আশা যে সরকার তাতে খুব বেশী কাট ছাঁট করবেন না।

বেবী মওদুদ: হ্যা সেটাই আমাদের কাছে অবাক লাগে বাংলা একাডেমীতে থেকে যে বই বের হবে সেখানে তা গবেষণার কাজ হবে সেটার জন্যও নাকি মন্ত্রনালয় থেকে অনুমতি নিতে হবে তা কেন ? যেহেতু কার্যনির্বাহী পরিষদই তো অনুমোদন দিতে পারে।

কবীর চৌধুরী: বাংলা একাডেমী একটা স্বয়ত্ত শাসিত প্রতিষ্ঠান। আমরা পরিমার্জিত যে এ্যাক্ট অনুমোদনের জন্য সরকারের কাছে পাঠাচ্ছি তাতে আমরা এইসব জিনিসগুলোর উপর গরুত্ব দিচ্ছি।

বেবী মওদুদ: তো, রাজনীতির দিকেও তো আপনি আগ্রহী ছিলেন।

কবীর চৌধুর: রাজনীতির দিকে আমি বামপন্থী তথা সাম্যবাদী আদর্শের প্রতি আকৃষ্ট হই। তাও বহুলাংশে ঘটে সাহিত্যের মধ্য দিয়ে। ম্যাক্সিম গোর্কির ‘মাদার’ পড়ে ভীষণভাবে উজ্জীবিত হই এবং তার পরে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে নাৎসীদের বিরুদ্ধে ওই সমাজতান্ত্রিক শক্তি যেভাবে লড়াই করেছিল তার মধ্যে দিয়ে সমাজতান্ত্রিক শক্তি রাশিয়ার বিশেষ অনুরাগী হয়ে উঠি আমি। কিন্তু পরবর্তী সময় তাদের স্খলন দেখে খুবই মন খারাপ হয়।

বেবী মওদুদ: আপনিতো দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ দেখেছেন।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ।

বেবী মওদুদ: তারপরে ভারতভাগও দেখেছেন, বাংলাভাগও দেখেছেন, আপনি দাঙ্গা হতেও দেখেছেন। তখনকার কোন স্মৃতি আপনাকে আজও নাড়া দেয়!

কবীর চৌধুরী: দাঙ্গার স্মৃতি খুবই নাড়া দেয়। তখনও পাকিস্তুান হয়নি। সেই সময়ও দাঙ্গা হয়েছে। চল্লিশের দশকের শেষ দিকে আমরা ঢাকায় অনেক দাঙ্গা দেখেছি এবং একটা অদ্ভুত জিনিস তখন লক্ষ করেছি যে কেন দাঙ্গা বাঁধে এবং কেন হঠাৎ থেমে যায়, এ রহস্য যেন বোঝা যেতনা। যার ফলে পরবর্তী সময়ে আমার বিশ্লেষণের মাধ্যমে আমার একটা বদ্ধমূল ধারণা হয়েছে যে সাম্প্রদায়িক ইস্যু ছাড়াও দাঙ্গার পেছনে কিছু স্বার্থান্বেষী মহলের হাত ছিল। জমি দখল, লুটপাট, ব্যবসা অধিকার করে নেয়া—এই সব কারণেই দাঙ্গা ঘটতো। কারণ হঠাৎই আবার দাঙ্গাটা বন্ধ হয়ে যেত।

বেবী মওদুদ: গবেষকদের বইতে আমরা দেখি বা জানি যে দাঙ্গায় শাসক গোষ্ঠিরও একটা হাত ছিল।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, ছিল বিশেষ করে বৃটিশ শাসনের আমলে এখানে দাঙ্গা-হাঙ্গামা হলে তাদের অনুকুলেই যেতো।

বেবী মওদুদ: কবীর ভাই, আপনি ইংরেজি সাহিত্য নিয়ে লেখাপড়া করেছেন ইংরেজিতে অনুবাদ খুব ভাল করেন, আপনি কি খুব ভাল ছাত্র ছিলেন ইংরেজিতে ?

কবীর চৌধুরী: মোটামুটি ভাল ছাত্রই ছিলাম বলা যেতে পারে। আমার ইংরেজির প্রতি আকর্ষণ অবশ্য আমার বাবার কারণেই প্রথম হয়। তিনি আলীগড়ে পড়াশুনা করেছিলেন। ইংরেজির কয়েকজন খুব ভালো অধ্যাপকও ছিল তাঁর। চমৎকার ইংরেজি জানতেন আমার বাবা। তিনি আরবী, ফারসী এসবও জানতেন খুব ভাল। আচকান পায়জামা পরতেন সারা জীবন। তার উৎসাহ উদ্দীপনায় আমরা ইংরেজির প্রতি আকৃষ্ট হই এবং আমি ভাল ছাত্র ছিলাম। এটা আমি নিজেও বলবো, কারণ ইংরেজি অনার্সে আমি ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট হই। সে বছর মাত্র একজনই ফার্স্ট ক্লাস পায়। আর এম.এ তেও আমি ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট হই। যদিও তখন পাঁচ জন ফার্স্ট ক্লাস পেয়েছিল। তখন একশোর মধ্যে ষাট পেলেই ফার্স্ট ক্লাস দেয়া হত। আমি কয়েকটি পেপারে ৬৫, ৬৬, ৬৭ পর্যন্তু নাম্বার পেয়েছি। সাধারণত এভারেজে ৬০ পেলেই ফার্স্ট ক্লাস হত, কিন্তু আমার ক্ষেত্রে এভারেজ করতে হয়নি। আমার প্রতি পেপারেই ৬০ এর উপরে নম্বর ছিল। আমি শুনেছে যে এর আগে একমাত্র বুদ্ধদেব বসুই আমার চেয়ে বেশী নম্বর পেয়েছিলেন।

বেবী মওদুদ: তো আপনিতো জানেন যে আমাদের দেশের ছেলেমেয়েরা ইংরেজিতে সব সময়ই খারাপ করে, ফেল করে। বেশীরভাগ ফেল করে এস.এস.সি পরীক্ষায়। ইংরেজিটাকে খুব ভয় পায় বলা চলে, আসলে কারণটা কি ?

কবীর চৌধুরী: আমার মনে হয় প্রধান কারণ হচ্ছে ইংরেজি শিক্ষাদানের ব্যবস্থা খুব দুর্বল। ইংরেজি শিক্ষাদানের মধ্যে প্রধানত শিক্ষক এবং শিক্ষার উপকরণ এইতো, এবং এই দু’টো দিক থেকে ইংরেজি শিক্ষার ক্ষেত্রে আমরা খুব উদাসীন।

বেবী মওদুদ: আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থায় যে দুর্বলতা আছে আপনাদের সময়ে সেটা কেমন ছিল?

কবীর চৌধুরী: এত দুর্বল ছিল না আমাদের সময়ে। এখনতো প্রচুর পিএইচডি শিক্ষক আছে। গ্রাম অঞ্চলে নেই, শহরে আছে। কিন্তু শহরের ছেলেরাও যে খুব ভাল ইংরেজি জানে তা নয়। তারা কিছু কিছু বুলি জানে, কিছু কিছু কলোক্যাল এক্সপ্রেশন তারা জানে। কিন্তু খুব সুন্দর বা ভাল, আকর্ষণিয় ইংরেজি তারা বলতে পারে না। এজন্য ভালো শিক্ষকের পাশাপাশি ভালো উপকরণ তৈরি করতে হবে। তুমি জানো কিনা জানি না, আমার মেয়ে শাহীন, তুমি তাকে চেনো। ও একটেল এবং ডেইলি স্টার পত্রিকার সঙ্গে মিলে সমস্ত দেশে ইংরেজি শিক্ষাদানের জন্য “ইংলিশ ইন স্কুল” নামে একটা প্রকল্প চালাচ্ছে। সেখানে ঐ খবরের কাগজের মাধ্যমে এটা করার চেষ্টা চলছে।

বেবী মওদুদ: তো আমাদের যে শিক্ষা ব্যবস্থা আছে সেখানে বাচ্চাদের উপরে এতো চাপ ছিল না। ইংরেজি শেখানোর ক্ষেত্রে এখন কিন্তু প্রচন্ড চাপ দেখা যায়। তার পরও খুব ভাল ইংরেজি জানা ছাত্র পাওয়া খুব কঠিন।

কবীর চৌধুরী: আমাদের শিক্ষা ক্ষেত্রে যে নানা রকম বৈষম্য এবং দুর্বলতা আছে, এগুলো কি করে দূর করা যায় সে সম্পর্কে ২০০৯ সালের শিক্ষা নীতিতে কিছু সুপারিশ মালা আছে।

বেবী মওদুদ: তো আর একটা কথা। বাংলাতে যে তারা খুব ভাল তাও কিন্তু নয়। শুদ্ধ বাংলা বানান তারা লিখতে পারে না। অনেক বি.এ পাস করা ছেলে মেয়েও পারে না, কারণটা কী? এদেরকে কী ভাল শিক্ষা দেওয়া হয় না ? না কি এখন ভালো শিক্ষক নাই।
কবীর চৌধুরী: এসব দুর্বলতা কিছুটা তো আছেই। এখন পড়ার অভ্যাস কম। ইন্টারনেট ও টেলিভিশনের সামনে ছাত্ররা খুব বেশী সময় থাকে। যারা গ্রহণ করতে পারছে তারা ভাল করছে কিন্তু সাধারণভাবে এর ফল খুব ভাল হচ্ছে না। পড়ার প্রতি আগ্রহটা কমে যাচ্ছে।

কবীর চৌধুরী: তো, আমার আর একটি বিষয় জানতে ইচ্ছে করে যে, শিক্ষার সঙ্গে সাধনা, চর্চা বা সৃজনশীলতার সম্পর্কটা কেমন ।

কবীর চৌধুরী: আমার মনে হয় খুবই ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকা উচিৎ। কিন্তু বাস্তুবে সব সময়ে থাকে না। তো এটাকে করতে হবে। আমি বলবো প্রাথমিক পর্যায়ের কথা। সে-শিক্ষাকে আনন্দদায়কও করতে হবে। এটা খুব দরকার ছাত্র যদি প্রথম থেকেই শিক্ষাকে ভয় করতে শেখে তাহলে তার শিক্ষা বাধাগ্রস্থ হবেই। তো আমরা যে ২০০৯ শিক্ষা নীতির কথা বলেছি, তাতে আমরা কিছু কথা বলেছি সুশিক্ষার ব্যাপারে।

বেবী মওদুদ: আপনিতো বিংশ শতাব্দির মানুষ। একবিংশ শতাব্দিতে এসেও আপনার জীবন আচরণ, জীবনযাপন, লেখা পড়া সবকিছুই চলছে আগের মতই। পার্থক্যটা কোথায়, কিছু টের পান?

কবীর চৌধুরী: নেতিবাচক দিক থেকে পার্থক্য হচ্ছে যে শহরের অবস্থা যন্ত্রনাদায়ক। নয়েজ পলিউশন, এয়ার পলিউশন। সব কিছু খুব কষ্টদায়ক। এটা হচ্ছে নেতিবাচক। তবে ইতিবাচক যে কিছু নেই তা নয়। যেমন আগে তথ্যের জন্য আমাদের অপেক্ষা করতে হতো বা কষ্ট করে খুঁজতে হতো। যেমন, এই যে রুমানিয়ার লেখক হ্যাটা মুলার নোবেল প্রাইজ পেলেন, সঙ্গে সঙ্গে আমরা তার কতগুলো বই আছে, বইয়ের মূল বিষয়বস্তু কী, এসব তথ্য পাচ্ছি। এটা একটা ইতিবাচক দিক। আর যোগাযোগ হচ্ছে অন্যান্য লেখকদের সঙ্গেও । যাদের আমরা সমমনা মনে করি, তিনি বিলেতেই থাকুন কিংবা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেই থাকুন পত্র-পত্রিকা ও ফোনের মাধ্যমে, ই-মেইলের মাধ্যমে, আমরা তাদের সঙ্গে সহজেই যোগাযোগ রাখতে পারি। এটা একটা সাংস্কৃতিক ঐক্যও সৃষ্টি করছে। যারা প্রগতিশীল চিন্তার অধিকারী তারা সহজেই একে অন্যের খবর রাখতে পারছেন।

বেবী মওদুদ: কিন্তু জীবন আচারণে আপনি কোন সমস্যায় পড়ছেন কি ?

কবীর চৌধুরী: জীবন আচারণে আমি খুব বেশী পার্থক্য দেখি না। মেয়েদের ক্ষেত্রে কিছু লক্ষ করা যায় পোশাক আশাকের ক্ষেত্রে। সেটা নেতিবাচক নয়। আমি সেটা ইতিবাচকই মনে করি। আজকাল আমাদের তরুণীরা কেন, মাঝবয়সী মেয়েদেরও জিন্স পরে রাস্তায় চলা ফেরা করতে দেখি। শাড়ী পরাটা কিছু কমে যাচ্ছে।

বেবী মওদুদ: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এখনতো শাড়ি পরা মেয়ে খুবই কম দেখা যায়।

কবীর চৌধুরী: খুবই কম। প্রায় দেখাই যায় না একদিকে শাড়ী পরা মেয়ে কমে যাচ্ছে আর অন্যদিকে হিজাব পরা মেয়ের সংখ্যা বাড়ছে। এটা একটা বৈপরীত্ব।

বেবী মওদুদ: কেউ কেউ আবার সালোয়ার কামিজও পরে, কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে শাড়ি পরাটা দেখতে ভাল লাগতো।

কবীর চৌধুরী: খুবই ভাল লাগতো এবং শাড়ি তো বাংলার পোশাক। তবে এখন এটা সর্বভারতীয় পোশাক। ভারতের সব নামী দামী অভিনেত্রীকে দেখবে শাড়ী পরছে।

বেবী মওদুদ: পাকিস্তুানেও পরে তারপরে নেপালেও পরে।

কবীর চৌধুরী: শাড়ি একটা খুব রুচিসম্মত সুন্দর জিনিশ। সেটা আমাদের এখানে কমে যাওয়াটা খুব ভাল চোখে আমি দেখি না।

বেবী মওদুদ: কবীর ভাই আপনিতো একজন শিক্ষাবিদ হিসাবে বঙ্গবন্ধু সরকারের শিক্ষাসচিব পদ পেয়েছিলেন। আপনি কত দিন ছিলেন সেখানে?

কবীর চৌধুরী: আমি শিক্ষা সচিব হিসাবে বোধহয় বছর খানেকের মত ছিলাম।

বেবী মওদুদ: এবং আপনি সেখান থেকে ছেড়ে চলে আসেন।

কবীর চৌধুরী: হ্যা, আমি সেখান থেকে ওই পদ ছেড়ে চলে আসি। আমি যখন ছেড়ে চলে আসতে চাইলাম, বঙ্গবন্ধু খুশি হননি। উনি বললেন যে, আপনি থাকেন আরো কিছু দিন। দেখেন। যখন আমি আমার অসুবিধার কথাগুলো বললাম, তখন তিনি আর একটা প্রস্তাব দিলেন। তাতে বোঝা যায় যে তিনি আমাকে কতটা ভালবাসতেন এবং আমার উপর কতটা বিশ্বাস রাখতেন। তিনি আমাকে বললেন যে ঠিক আছে, শিক্ষা সচিব হিসাবে যদি আপনি থাকতে না চান, তো আপনার কোন রকমের পদবী থাকবে না, এ্যাটাচড টু দি প্রাইম মিনিস্টার—এই ভাবে একজন সচিবের পদমর্যাদায় থাকবেন। আপনাকে আমি যে সব কাজ দেব দায়িত্ব দেব, আপনি সেগুলো দেখবেন। আমি দেখলাম এতো আরো বিপদের কথা। তো আমি অনেক অনুরোধ করলাম যে আপনি আমাকে ছেড়ে দেন। আর একটা ব্যাপারও ছিল তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একজন পূর্ণকালীন ফুল প্রফেসরের পদ খালি ছিল। এখন তো ফুল প্রফেসারের পদকে তেমন কিছু গণ্য করা হয় না। তখন একজন ফুল প্রফেসারের খুব মর্যাদা ছিল। আমরা যখন ছাত্র ছিলাম অনেক নামী দামী অধ্যাপক তখন রিডার হিসাবেই অবসর নিতেন। রিডার মানে আজকের দিনের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর। বঙ্গবন্ধুকে আমি আমার অসুবিধার কথা বললে তিনি জানতে চান কি অসুবিধা। যাই হোক, তোমারও হয়তো সেই প্রশ্নই থাকবে যে অসুবিধা কোথায় ছিল।

বেবী মওদুদ: হ্যাঁ। আপনি কি সমস্যাগুলো দেখেছিলেন ? আমরা যে আমলাতান্ত্রিক সমস্যাগুলো দেখি বা শুনি তাই কি ?

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, আমি তার কথাই বলছি। যেমন কোন একটা বিশেষ কাজ আমি করতে চাইছি কিন্তু সেই নথি আরো অনেক জায়গায় যাবে এবং সব চাইতে বড় একটা অসুবিধা ছিল অর্থ পাওয়ার সমস্যা। যেমন, আমার একটা প্রধান ইচ্ছা ছিল, শিক্ষা সচিব হিসাবে, সরকারি-বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের যে বৈষম্য, গুনগতমানের তারতম্য কমিয়ে আনা। এই কাজটি করার জন্য আমার নেতৃত্বে একটি কমিটিও গঠিত হয়। সে কমিটির নাম ছিল ‘নাইন মেম্বারস’ কমিটি’ অর্থাৎ নয় সদস্যের কমিটি। তখন আমরা কিছু সুপারিশ প্রণয়ন করি যাতে করে সরকারি কলেজ-বেসরকারি কলেজের ফারাকটা কমে আসতে পারে। তো, তার জন্য অর্থ একটা প্রধান প্রয়োজনীয় বিষয় ছিল। তখন আমাদের অর্থমন্ত্রী ছিলেন তাজউদ্দিন সাহেব। আমাকে তিনি চিনতেন এবং খুব ভালো জানতেন। আমি তাজউদ্দিন সাহেবের সঙ্গে দেখা করে তাঁকে বললাম। তিনি আমাকে খোলাখুলি বললেন, কবীর সাহেব, আমি আপনার কথা বুঝি কিন্তু আমাদের অর্থের সংগতির কথাটা ভাবতে হবে। একটা নতুন দেশ, আমরা নানা সমস্যার মধ্যে আছি। আপনি যা চাইছেন সে পরিমাণ অর্থতো দেওয়া যাবে না। তো যখন আমি দেখলাম যে আমার স্বপ্ন ও পরিকল্পনা অনুযায়ী আমি কাজ করতে পারছি না, তখন আমি সরে আসি।

বেবী মওদুদ: কবীর ভাই, আপনাদের সময়তো ডা. কুদরাত-ই-খুদা শিক্ষা কমিশন হয়েছিল। নীতি মালাও প্রস্তত হয়েছিল এবং ঘোষিত হয়েছিল। ওটার বাস্তবায়ন তখন হলো না কেন? ওটা হলেতো আপনারা অনেক দুর এগুতে পারতেন ।

কবীর চৌধুরী: হ্যা, অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারতাম। কারণ কুদরাত-ই-খুদা শিক্ষা নীতির মধ্যে আমাদের সংবিধানের সঙ্গে সংগতিপূর্ণ অনেক কথা ছিল। কিন্তু সেটা কেন এগিয়ে যেতে পারল না?

বেবী মওদুদ: ওটাতো ’৭৩/ ’৭৪ সালে হবে বোধহয়।

কবীর চৌধুরী: তার পরেই তো ক্ষমতার রদ বদল হয়ে গেল। ওটা এক রকম কোল্ড স্টোরেজে চলে গেল, কুদরাত-ই-খুদা কমিশনের সুপারিশগুলি।

বেবী মওদুদ: ওটা থাকলে আমরা মনে হয় অনেকটা এগুতে পারতাম।

কবীর চৌধুরী: হ্যা, নি:সন্দেহে।

বেবী মওদুদ: তো এখন যে শিক্ষা নীতিমালা বেশ দ্রুত ঘোষণা করলেন আপনারা । আপনারা কি ওটার সঙ্গে কিছুটা সংগতি রেখেছেন বলে মনে করেন।

কবীর চৌধুরী: আমরা কুদরত-ই-খুদা কমিশনের যে শিক্ষা নীতি ছিল তার মৌলিক প্রগতিশীল সবগুলি দিক ঠিক রেখেছি। যেমন ধর্ম নিরপেক্ষতার বিষয়টি, যেমন বৈষম্য দূর করার জন্য শিক্ষাকে কাজে লাগানো। কারিগরি এবং বিজ্ঞান শিক্ষার উপরে গুরুত্ব দেওয়া। এগুলো কুদরত-ই-খুদা কমিশনে ছিল এবং আমাদের এই শিক্ষা নীতির মধ্যেও আছে। আমরা বিশেষভাবে জোর দিয়েছি বৈষম্য দূর করার উপর। এবং এটা প্রধান্য পেয়েছে প্রাথমিক পর্যায়ে। সে জন্যই আমরা বার বার একমুখী শিক্ষার কথা বলেছি। দু:খের বিষয় এই যে কোন কোন মহল থেকে ইচ্ছাকৃত ভাবে বিকৃত কথা ছড়ানো হচ্ছে এবং আমাদের রিপোর্টকে নিয়েও হয়তো একটা কিছু গোলমাল কোথাও হয়েছে। কারণ কোন কোন কাগজে আমি দেখেছি বলা হয়েছে সব ধরনের শিক্ষা ব্যবস্থাতেই কতকগুলি কোর সাবজেক্ট থাকবে। কিন্তু সব ধরণের শিক্ষা তো না। প্রাইমারী পর্যায়ে এক ধরনের শিক্ষা ব্যবস্থাই থাকবে। এই জিনিশটাকে একটু তালগোল পাকিয়ে ফেলা হয়েছে।

বেবী মওদুদ: সরকারি বেসরকারি সবখানে একই রকম থাকবে ?

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, একই রকম হতে হবে। তার একটা অর্থ হচ্ছে যে, এখন যেমন ইংরেজী মাধ্যম স্কুল আছে সেটা থাকবে না। কারণ আমরাতো বলছি যে শিক্ষার মাধ্যম বাংলা হতেই হবে প্রাইমারী পর্যায়ে। মাদ্রাসায় যে আরবীর গুরুত্ব আছে সেটা তারা দিতে পারে, কিন্তু আমাদের এই কোর সাবজেক্টগুলো পড়িয়ে তার পরে।

বেবী মওদুদ: প্রাইমারীতে এটা আপনারা বাধ্যতামূলক করবেন?

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ। এটার উপরে আমরা জোর দিয়েছি। কিন্তু মিডিয়াতে এটা অন্যভাবে চলে আসছে। তবে এই প্রসঙ্গে আমি বলবো যে, এখনও তো নীতিটা গ্রীহিত হয়নি, চুড়ান্ত হয়নি। মতামত এখনও আসছে। ভিন্ন মত যেগুলো আসছে আমরা সেগুলোও বিবেচনা করবো।

বেবী মওদুদ: পত্রিকায় দেখলাম যে নারী নেত্রীরা বলেছেন, নারী শিক্ষা বলে আলাদা একটা চ্যাপ্টার আছে। তারা বলছেন যে নারী শিক্ষা আলাদা হবে কেন।

কবীর চৌধুরী: নারী শিক্ষা আলাদা একটা চ্যাপ্টার করা হয়েছে কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে নারীরা আলাদা ভাবে শিক্ষিত হবেন। স্কুল কলেজে নারীরা একই রকম শিক্ষা পাবে। কিন্তু নারী শিক্ষার আলাদা একটা চ্যাপ্টার করার অর্থ হচ্ছে তাকে একটু বেশী গুরুত্ব দেয়া। আমরা জানি যে, সংবিধানে যাই বলা হোক না কেন কিংবা আমরা মানবাধিকার সংস্থা থেকে যাই বলি না কেন সত্যিকার অর্থেই নারীরা ডিসক্রিমিনেশনের শিকার হয়। তো সেটা রোধ করার জন্য একটা আলাদা চ্যাপ্টার করে নারীশিক্ষাকে গুরুত্ব দিয়েছি।

বেবী মওদুদ: তাহলে আপনারা বলছেন যে, কিন্ডারগার্ডেন স্কুলগুলি ও মাদ্রাসা শিক্ষানীতি আওতায় আসবে।

কবীর চৌধুরী: তারা শিক্ষা নীতির আওতায় আসবে এবং তাদেরকে সেটা মানতে হবে। মানতে হওয়ার ব্যাপারে আমরা একটা ভাল সুপারিশ করেছি। সেটা যদি গ্রীহিত হয় তবে আমরা অনেক এগিয়ে যাব। আমরা একটা এডুকেশন ‘ল’ বা আইন করার কথা বলেছি। এটা বিভিন্ন দেশে আছে। থাইল্যান্ডে আছে, আরো কয়েকটি দেশে আছে। এডুকেশন ‘ল’ বলে যদি একটি আইন থাকে এবং সেই আইনের ধারা যদি স্পষ্ট হয়, যা লংঘন করলে শাস্তি দেয়া যাবে। তাহলে অনেক কিছু কার্যকর করতে পারবো।

বেবী মওদুদ: তো আপনি কতখানি আশাবাদী যে এই নীতিমালা বাস্তবায়ন হবে?

কবীর চৌধুরী: আমি আশাবাদী এই বছরের শেষ নাগাদ আমরা কিছু কিছু বাস্তবায়নে যাব। আমি আশাবাদী দ’ুটি কারণে। এক হচ্ছে আমাদের শিক্ষা মন্ত্রী এ ব্যাপারে খুবই উৎসাহী। নুরুল ইসলাম নাহিদ, তিনি প্রগতিশীল রাজনীতি করেছেন সারাজীবন। তিনি আছেন আর তা ছাড়া আমাদের বর্তমান সরকার, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যে সরকার, সে সরকারও চাইবে, আমার বিশ্বাস আমাদের এই নীতিমালা বাস্তবায়িত হোক।

বেবী মওদুদ: তো কবীর ভাই, আমার আর একটা বিষয় জানতে ইচ্ছে করছে যে, আপনি তো পৃথিবীর অনেক দেশে গিয়েছেন। কোন দেশের শিল্প সাহিত্য সমৃদ্ধ বলে মনে হয়েছে এবং কেন মনে হয়েছে?

কবীর চৌধুরী: একসময় সেই দেশ ছিল সোবিয়েত ইউনিয়ন এবং মস্কো। কারণ যখন আমি ’৭০এর প্রথম দিকে মস্কোতে যাই ’৭২-’৭৩ সালে বেশ কয়েকবার অর্থাৎ সোভিয়েত ইউনিয়নের পালাবদল না হওয়া পর্যন্তু। পরে তাদের আগেকার যে সব নীতিমালা ছিল তা পরিবর্তিত হয় একটু স্বৈরাচারের ধাঁচে, পাশ্চাত্য মিশ্রণের নানান কথা বলে। একটা আদর্শবাদ আমাকে অনুপ্রাণিত করেছিল একসময় এবং তার প্রতিফলন আমি মস্কোতে দেখেছি। কতবার সেখানে গিয়েছি। সেইজন্য ঐ দেশটাকে খুব আদর্শ একটা দেশ বলে মনে হতো। কয়েকটা কথা বলি, বইপত্র এত সস্তায়, এত সুন্দর বই পাওয়া যেত কল্পনা করা যায় না এবং অজস্র অনুবাদ। শুধু যে তাদের কমিউনিস্ট সাহিত্য বইয়ের দোকানে আসতো তা নয়। পাশ্চাত্যের অনেক ইংরেজী সাহিত্য আমি সেখানে পেয়েছি এবং অনেক অল্প দামে, অবিশ্বাস্য অল্প দামে। রাষ্ট্রীয় সাবসিডি ছিল, সেই কারণে। তুমিতো জান, প্রগতি প্রকাশনার কথা এবং সেসব বাংলায় অনুবাদ করার জন্য কত গুণি লোক সেখানে ছিল। দ্বিজেন শর্মা ছিলেন, ভারতের অনেকে ছিলেন। আর যে কারণে তখন দেশটাকে ভালবাসতাম, সেখানে নিরাপত্তা ছিল। আমার মেয়ে মস্কো রেডিওতে কাজ করেছে একসময়। রাত্র ১২/১টার সময় সে একা বাড়ী ফিরে এসেছে। যেটা পরম বেদনার কথা তা এই যে, এখন সেই নিরাপত্তা সেখানে নেই। মস্কো, আমি শুনেছি, এখন একটা সন্ত্রাসের নগরীতে পরিণত হয়েছে। ছিনতাই, মারামারি অহরহ ঘটছে। তারা আগের অবস্থা ধরে রাখতে পারেনি। নিজেদের দুর্বলতাও ছিল, প্রশাসনের দুর্বলতাও ছিল। আর বাইরের বাকী সব দুনিয়াতো চেয়েছিল ওটাকে ধ্বংস করতে। এই দু’টো মিলিয়ে এই অবস্থা ঘটেছে।

বেবী মওদুদ: বর্তমান শতাব্দীকে বলা হয় যান্ত্রিক সভ্যতা বা বিজ্ঞান প্রযুক্তির শ্রেষ্ঠ সময়, বলা হয় এখন কম্পিউটার সর্বত্র, এসে গেছে। তাই এ সভ্যতাকে শ্রেষ্ঠ বলা যায়। নাকি মানবিক দিক দিয়ে আমরা এই সময়টাকে শ্রেষ্ঠ সময় বলবো ? কোন দিকটা আপনি মনে করেন।

কবীর চৌধুরী: বিজ্ঞানের অগ্রগতির দিক থেকে এই যুগটা অনেক আকর্ষনীয় এবং উপকারী। মানবিকদিক থেকে বরং তার উল্টো। কারণ এই শতাব্দিতে এসে গুয়েতমালা বন্দিশালার মতো কান্ড দেখতে হচ্ছে। একি আমরা কখনো ভেবেছিলাম ? তারপর কেউ কেউ তালেবানদের পক্ষে কথা বলেন, আমার সঙ্গেও যুক্তি-তর্ক করেন যে কেন তারা তো ইসলামকে অনেক উপরে তুলে আনছে। কিন্তু সন্ত্রাস এবং নৃশংসতার মাধ্যমে কোন ভাল কাজ হতে পারে না। তালেবান শব্দটাতো এখন সমার্থক হয়ে গেছে মৌলবাদী জঙ্গিদের সঙ্গে।

বেবী মওদুদ: তো কবীর ভাই, আমার আর একটা প্রশ্ন। আমি নিজেও অনেক অনেক সময় চিন্তুাভাবনা করেছি এবং অনেককে জিজ্ঞেসও করেছি, আমরা যাদের বুদ্ধিজীবি বলি, সমাজে কারা হলেন বুদ্ধিজীবী? আপনার মতে বুদ্ধিজীবির সংজ্ঞাটা কী হবে?

কবীর চৌধুরী: এটা একটা বিতর্কমূলক ব্যাপার। সংজ্ঞা দিতে গেলে তবে সাধারণভাবে আমরা যেমন বুঝি।

বেবী মওদুদ: আমরা যখন বার্ট্রান্ড রাসেলের নাম শুনি, রুশোর নাম শুনি—এদের কথা যখন শুনি তো সেই দিক দিয়ে বিবেচনা করলে আপনার কাছে কি মনে হয়।

কবীর চৌধুরী: সাধারণভাবে বুদ্ধিজীবী বলতে আমরা মনে করি, যারা লেখা পড়ার সঙ্গে যুক্ত। যারা জ্ঞান চর্চার সঙ্গে যুক্ত। অধ্যাপক, বড় মানের লেখক—এদেরকে আমরা বুদ্ধিজীবি বলি। আবার শব্দটার অন্যরকম ব্যাখ্যাও করা যায়, যারা জীবনধারণ করেন বুদ্ধি বিক্রী করে। তবে সেটা সে অর্থেও কিছুটা সত্য। লেখক তো লেখা বিক্রি করেন, অধ্যাপক তার জ্ঞান বিতরণ করে জীবনধারন করেন। তবে ক্ল্যাসিকাল অর্থে বুদ্ধিজীবি যাদের বলি সেই রকম বুদ্ধিজীবি আমাদের দেশে খুব বেশী নেই। তুমি একটু আগে যাদের কথা বললে রুশো, রাসেল, ভলতেয়ার।

বেবী মওদুদ: মানে যিনি বুদ্ধিতে অনেক বড় মাপের হবেন এবং সমাজ, মানুষ ও দেশকে একটা দিক-নির্দেশনা দেবেন ভাল-মন্দ কথাও বলবেন। এটা তিনি উপদেশ আকারে বলতে পারেন, বা তিনি একটা অভিভাবকত্বের দাবি নিয়ে বলতে পারেন।

কবীর চৌধুরী: নিশ্চয়ই। আমাদের এখানে ঠিক সেই রকম কিছু গড়ে ওঠেনি। আমরা কয়েকজনের মধ্যে তার অঙ্কুর দেখেছি। তাদের কথা বলতে পারি। আহমেদ শরীফ ছিলেন, এখন অধ্যাপক সালাহ্ উদ্দিন আছেন, ইতিহাসবিদ, সরদার ফজলুল করিম আছেন, অজয় রায় আছেন ফিজিক্স-এর ।

বেবী মওদুদ: এরপরে আমার আর একটা বিষয় জানার আছে যে, আপনি তো ১৯৭১ সালে বাংলা একাডেমিতে মহাপরিচালক ছিলেন। ঐ সময় ৭১এর মুক্তি যুদ্ধের সময় ঢাকা শহরের অবস্থা কি ছিল তাতো আমরা সবাই জানি। ঐ সময় বাংলা একাডেমির প্রধান হিসাবে আপনার উপর কি কোন চাপ ছিল? ঐ সময় তো পাকিস্তানি সরকার কুবুদ্ধি নিয়ে চেষ্টা করেছিল এখানকার কবি সাহিত্যিক, বুদ্ধিজীবিদের একত্রিত করতে ।

কবীর চৌধুরী: আমি তেমন কোন রকম চাপের মুখে ছিলাম না। আমার পক্ষে কাজ করা অত্যন্তু উদ্দীপনাময় হয় কয়েকটা বিশেষ কারণে। ঠিক স্বাধীনতা অর্জনের পরপর একটা প্রচণ্ড প্রাণ আবেগ ছিল। আমরা অনেকগুলো কাজ সেই সময় করি নিজেদের উদ্যোগে। সরকারের কোন নির্দেশ ছিল না। আমার নেতৃত্বেই আমরা কতগুলো কাজে হাত দেই, যেমন পররাষ্ট্রমন্ত্রনালয় যে চুক্তিগুলো করবে তার বাংলায় একটা ফরম্যাট হতে পারে। দ্বিভাষিক ইংরেজি এবং বাংলায় পরিভাষা তৈরির একটা বড় প্রকল্প আমরা হাতে নিই।

বেবী মওদুদ: কিছু কাজ কি হয়েছে ?

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, কিছু কাজ হয়েছে। তোমার মনে আছে বাংলা উন্নয়ন বোর্ডের সঙ্গে সহযোগিতায় গোলাপি রংয়ের কতগুলো ছোট ছোট চটি বই তখন বের হয়েছিল। সেই প্রকল্পকে এখন আমরা আবার নতুন করে চালু করার চেষ্টা করছি, বৃহদাকারে।

বেবী মওদুদ: কবীর ভাই আমার জানান ইচ্ছা ছিল ঐ সময় ৭১সালে পাকিস্তুান সরকার, বুদ্ধিজীবি, কবি সাহিত্যিকদের দিয়ে তাদের সমর্থনে একটা পেপারে তাদের সবার স্বাক্ষর নিয়ে বিবৃতি দেওয়ার একটা চেষ্টা করেছিল, তো আমরা যতদুর জানি সুফিয়া কামাল এবং আপনি তাতে স্বাক্ষর করেন নাই। অনেকেই করেছিল তো ঐ ধরনের কোন চাপ আপনাকে বা সুফিয়া কামালকে দিয়েছিল বলে আপনার মনে আছে ?

কবীর চৌধুরী: আমরা তো একটা বড় বিবৃতি তৈরি করে ছিলাম যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাই, নৃশংসতা যারা করেছে রাজাকার-আলবদরদের বিচার চাই এবং একটা খসড়া বিবৃতির মতো করে আমরা বাংলা একাডেমির সামনে টেবিল পেতে একটা বিরাট ভলিউমের বড় খাতা রাখি। আমার দু:খ হয় যে, সেগুলির আর কোন হদিস পরে আর পাইনি। সেখানে মনে হয় দুই তিন দিনের মধ্যে লক্ষাধিক লোকের সই নেয়া হয়েছে যে, আমরা বিচার চাই, বিচার চাই। তো সেই সময়ের প্রাণাবেগ তা ধরে রাখা যায়নি। সেটা স্বাভাবিকও। পরবর্তী সময়ে তা স্তিমিত হয়ে আসে। সরকারি সমর্থনও তখন পাওয়া যায়নি। তবে সরকারের সঙ্গে বাংলা একাডেমির সম্পর্কটা কী? আমরাতো একটা স্বায়ত্ত শাসিত প্রতিষ্ঠান। সরকার আমাদের সাহায্য সহযোগিতা দেবেন। এইখানে একটা টানাপোড়নের ব্যাপার আছে। তো এখন আমরা বাংলা একাডেমির এ্যাক্ট সংস্কারের কাজে ব্যস্ত রয়েছি। সপ্তাহখানেকের মধ্যেই আমাদের নুতন প্রস্তাবিত এ্যাক্ট মন্ত্রনালয়ে যাবে। এটাতে আমরা স্বেচ্ছাচারিতা নয়, স্বায়ত্তশাসনের উপর জোর দিয়েছি। আমাদের প্রয়োজনীয় স্বাধীনতা না দিলে বাংলা একাডেমির কাছ থেকে আক্সক্ষাখিত ফল পাওয়া যাবে না।

বেবী মওদুদ: তো কবীর ভাই আপনিতো যথেষ্ট অনুবাদ করেছেন। কত হবে মনে আছে ?

কবীর চৌধুরী: আমার অনুদিত বই ষাট, সত্তুরটা তো হবেই।

বেবী মওদুদ: সব মিলিয়ে কত বই হবে আপনার ?

কবীর চৌধুরী: আমার সব মিলিয়ে এখন প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা প্রায় দু’শ কিছু কম বা বেশী হতে পারে। এবারকার এই বইমেলায় ১২/১৩ টি বই প্রকাশ পাবে। তার মধ্যে অনুবাদ থাকবে, মৌলিক প্রবন্ধ গ্রন্থও থাকবে। ইংরেজি বা বাংলা দু’ভাষাতেই।

বেবী মওদুদ: অনুবাদ সাহিত্যকেও তো আমরা সাহিত্য হিসাবে গণ্য করতে পারি। এই অনুবাদ সাহিত্য করে আপনার কি অভিজ্ঞতা? আপনি কি মনে করেন এটা পাঠকদের কাছে খুব গুরুত্ব পূর্ণ সাহিত্য?

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ আমি মনে করি পাঠকদের জন্য এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ সাহিত্য কর্ম। কারণটা তুমি সহজেই বুঝতে পারবে। আমাদের অনেকের পক্ষেইতো খুব বেশী ভাষা শেখা সম্ভব হয় না। বিশ্বের অনেক সেরা সাহিত্য যদি বাংলায় অনূদিত না হয় তাহলে তো আমরা তা থেকে বঞ্চিত হবো। এইখানে আমার একটা ক্ষোভ আছে অবশ্য। ক্ষোভটা হলো যে আমরা তো বেশির ভাগ সময় মূল ভাষা থেকে অনুবাদ করি না। ইংরেজীর ক্ষেত্রে যা করি। কিন্তু রুশ ফরাশি জার্মান দক্ষিণ আফ্রিকার ভাষা, এই সব ক্ষেত্রে কিংবা ল্যাটিন আমেরিকার সাহিত্য, এইসব ক্ষেত্রে তো আমরা ইংরেজী অনুবাদ থেকে অনুবাদ করি। মূল থেকে করি না। তার মানে হচ্ছে অনুবাদের অনুবাদ। এটা খুব সন্তোষজনক নয়। অপারগ হয়ে করতে হয়। এটা নিরসনের একটা ব্যবস্থা করা দরকার। আমাদের বিদেশি ভাষা ইনস্টিটিউট আছে বটে কিন্তু তার কাজ বা আউটপুট নানা কারণেই অত্যন্ত সীমাবদ্ধ। খুব বড় করে যদি আমরা বিদেশী ভাষার একটা ইনস্টিটিউট গড়ে তুলতে পারি এবং সেখানে যদি বিভিন্ন ভাষা যারা পড়তে পারেন, বুঝতে পারেন, এই রকম লোক তৈরি করতে পারি, তখন আমাদের এই অনুবাদের অনুবাদ সেটার হাত থেকে আমরা মুক্ত হতে পারবো।

বেবী মওদুদ: তো কবীর ভাই, আর একটা বিষয় জিজ্ঞেস করি আমাদের দেশের সাহিত্যে এবং পত্র-পত্রিকায় বর্তমানে যে বাংলা চর্চা করি অর্থাৎ যে বাংলাটা এখন চলছে বা পত্র-পত্রিকাতে আপনি দেখেন সেটা কেমন ? এটা কতখানি শুদ্ধ মনে হয় আপনার? পড়ে কি মনে হয় ? ইংরেজী পত্রিকাগুলো বা বাংলা পত্রিকাগুলো কি আন্তর্জাতিক মানের ?

কবীর চৌধুরী: এর রূপটা হচ্ছে মিশ্র। কিছু ভাল বাংলা হচ্ছে না এটাও বলা যাবে না এবং খুব বেশী অশুদ্ধ হচ্ছে তাও বলা যাবে না। এখানে ব্যাকরণ জ্ঞান ভাষার জ্ঞান বানান জ্ঞান এগুলোর একটা বড় ভূমিকা আছে। তো বাংলা একাডেমিতে আমরা একটি প্রকল্প নিয়েছি ভারতের সঙ্গে। তাদের অভিজ্ঞতা নিয়ে হবে। শ্রী পবিত্র সরকারের সঙ্গে আলাপ হয়েছে। তুমি কাগজে দেখেছো, আমরা একটি ব্যাকরণের প্রকল্প নিয়েছি। বাংলা একাডেমির উদ্যোগে হবে।

বেবী মওদুদ: এটা কি কলকাতার বাংলা একাডেমি আর এখানকার বাংলা একাডেমি ?

কবীর চৌধুরী: না। ওদের কাছ থেকে দু’একজন বিশিষ্ট ব্যক্তিকে নিয়ে এই প্রকল্প। কিন্তু প্রতিষ্ঠান হিসাবে যুক্ত হবে না।

বেবী মওদুদ: মানে, কাজটা আমাদের বাংলা একাডেমী করবে ?

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ।

বেবী মওদুদ: তো এটা বাস্তবায়িত কত দিন লাগবে?

কবীর চৌধুরী: এটা মোটে শুরু হয়েছে। আমি আশা করছি এটা হলে পরে আমাদের লেখালেখির মধ্যে যে একটা অবাঞ্ছিত মিশ্রণ ঘটে যায় একটা স্ট্যান্ডার্ডরাইজড কিছু হয় না, সেটা অনেকটা দুর হবে। কারণ ভাষার মেরুদন্ড হচ্ছে ব্যাকরণ।

বেবী মওদুদ: অবশ্যই। তো কবীর ভাই আর একটা বিষয় আপনাকে জিজ্ঞেস করি, আপনার সম্পর্কে আলোচনা হয় তো মানুষের মধ্যে। সমাজের মধ্যে একটা ভ্রান্তি আছে। এখানে কেউ কেউ আছে যে অন্যের পুরোনো বই নিজের নামে ছেপে দায় । এটাও আমি দেখি। কেউ কেউ অন্যের অনুবাদ নিজের নামে ছাপিয়ে দেয়, হয়তো মনে করে যে কেউতো পড়ে নাই। সেই রকম বইয়ের ফ্ল্যাপও আপনি লিখে দিয়েছেন। হয়তো আপনার অজান্তেই সেটা হতে পারে। এর ভিতর জুলফিকার নিউটন নামে একটি ছেলে কাজটি করেছিল এবং সে নিজেও এখন অনুতপ্ত হয়ে নিজেই বলে বেড়ায়। কিন্তু সব বইতো সবার পক্ষে পড়া সম্ভব না। তো আপনার কাছে কেউ পান্ডুলিপি নিয়ে এসেছিল কি?।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ আমার কাছে মাঝে মাঝে অনেকে পা-ুলিপি নিয়ে আসে। তো সেগুলো খুব পরিচিত বা বন্ধুজন না হলে আমি দেখিনা, কারণ সময় হয় না। কিন্তু জুলফিকার নিউটনের কথা আমি শুনেছি। আমি যতটুক দেখেছি ওর বেশ কয়েকটি অনুবাদের বই আমার হাতে এসেছে এবং সেই অনুবাদগুলো দেখে আমার নকল বলে সন্দেহ করবার কোন কারণ ঘটেনি। আর আমি আর একটা কারণেও খুব ইমপ্রেস্ড হয়েছি। তার প্রত্যেকটি অনুবাদ গ্রন্থে খুব বড় ভূমিকা আছে এবং সেই ভূমিকাতে মূল লেখকের জীবন এবং সাহিত্য কর্মের কথা আর অনূদিত উপন্যাসের একটি বিশ্লেষণাত্মক আলোচনা থাকে। এই কাজটি কিন্তু আমাদের অনুবাদ যারা করেন তারা অনেকে করেন না। প্রথম পৃষ্ঠা খুলে শুধু মূল বইয়ের নাম দেখা যায়, কোনো ভূমিকা নেই, মূল বইয়ের পরিচয় নেই। সেদিক থেকে আমি জুলফিকার নিউটনের কাজকে ভালই দেখি।

বেবী মওদুদ: দেবী প্রসাদের রুপ-রস-সুন্দর বইটি কলকাতায় আছে। মানবেন্দ্রের অনুবাদে মার্কেজের কিছু গল্প আছে। হুবহু মিলে যায়।

কবীর চৌধুরী: আমি জানিনা, যদি করে থাকে তবে খুবই অন্যায় করেছে এবং আমি সরাসরি তাকে জিজ্ঞেস করবো এরকম করেছে কি না। আর আমাকে যদি তুমি বা আর কেউ নিউটনের ওই রকম নকল করা বই, আর যে বই থেকে নকল করেছে সে-বই আমাকে দিয়ে যাও তাহলে আমি মিলিয়ে দেখবো এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।

বেবী মওদুদ: এটা নিয়ে তরুণ সমাজে কিন্তু একটা বিতর্ক উঠেছে। তো, কবীর ভাই, এর পরে আমি আপনাকে জিজ্ঞেস করবো আপনার পরিবারের কথা। আমাদের মেহের কবীর ভাবী, আপনার স্ত্রী। তিনি তো সেই অবরোধ যুগের সময় লেখা পড়া করেছেন বলা চলে এবং বলা যায় সেই দিনাজপুর থেকে তিনি তার প্রথম দিকের পড়াশুনা করেছেন। পরে কলকাতা গিয়ে পড়াশুনা করেছেন এবং বিজ্ঞান নিয়ে পড়াশুনা করেছেন এবং গবেষণার কাজও করেছেন তিনি।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ। এটা আমার জীবনের অন্যতম সৌভাগ্য আমি বলবো। তার সঙ্গে পরিচিত হওয়া এবং তারপরে জীবনসঙ্গিনী হিসাবে তাকে পাওয়া। তিনি পড়াশুনা করেছেন কলকাতায়, ফলিত রসায়নে পড়াশুনা করেছেন এবং তার সৌভাগ্য হয়েছে আচার্য প্রফুল্লচন্দ্রের সঙ্গে থাকার। তিনি তখন ক্লাস নিতেন না কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি অংশে তাঁর থাকার ঘর ছিল। তিনি প্রতিদিন আসতেন এবং আমার স্ত্রীকে খুব স্নেহ করতেন। একটি মুসলমান মেয়ে সেই ১৯৪২/৪৩ সালে ফলিত রসায়ন নিয়ে এম. এস. সি. পড়ছে, এটা তাঁকে খুব আনন্দ দিতো।

বেবী মওদুদ: তারপর তিনি আপনাদের বাড়ীর বউ হয়ে আসলেন। আপনারা তো অনেক ভাই-বোন, সেটা একটা বিরাট ব্যাপার ছিল।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, সেটা বিরাট ব্যাপার ছিল। আর আমার তিন কন্যা প্রতিভাবান এবং তার পেছনে তাদের মায়ের ভূমিকাই বেশী। তিনি খুব ভালো ভাবে ওদের গড়ে তুেলছেন। আমার স্ত্রী কলকাতা থেকে ঢাকায় চলে আসেন ১৯৪৩ সালে, তারপরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কেমিস্ট্রি ডিপার্টমেন্টে রিসার্চ স্কলার হিসাবে তিনি কাজ শুরু করেন। বিষয়টি খুব ভাল ছিলো। সালফেট কি করে সারের কাজে ব্যবহার করা যেতে পারে তিনি সেই গবেষণার কাজটা করছিলেন এবং অনেকখানি এগিয়ে গিয়েছিলেন এবং তার আর সামান্য কাজ করলেই তার পিএইচডি হয়ে যেত। কিন্তু তার পরে দুই বাংলার বিভেদ ও পাকিস্তান হওয়ার পরে তার থিসিস যতটুকু হয়েছিল তার কাগজপত্র হারিয়ে যায়। পরে কাজটা আর শেষ করা হয় নি। তবে যাই হোক, তিনি পরে লেখালেখির জগতে আসেন এবং বেশ কয়েকটি বই অনুবাদ করেছেন। অনেক জায়গায় শিক্ষকতাও করেছেন বিশেষ সাফল্যের সঙ্গে।
বেবী মওদুদ: নিজের স্মৃতি কথাও লিখেছেন।

কবীর চৌধুরী: তুমি পড়েছো সেটা। আর আমার মেয়েদের ক্ষেত্রে পরিবারের কথা জিজ্ঞেস করলে, তারই উৎসাহে, আমি কিছু হয়তো সাহায্য করেছি, আমার তিন কন্যা উল্লেখযোগ্য যোগ্যতা নিয়ে বড়ো হয়েছে। বড় মেয়ে শাহীন কবীর ডাক নাম রীনু। তুমি তো জান ও ইংরেজির অধ্যাপক, আমারই মতো এবং প্রচুর কাজ করে। সারা দেশে ইংরেজী শিক্ষাদানের জন্য ও ‘ইংলিশ ফর স্কুলস’ নামে ডেইলী স্টার নামের ইংরেজি সংবাদ পত্রে প্রতি সপ্তাহে একটি পাতা বের করে। সেটা খুব জনপ্রিয় হয়েছে। ছাত্রছাত্রীদের উপকারেও আসছে। আমার মেজ মেয়ে নিউইয়র্ক প্রবাসী। তাকে ও আমার জামাতা দুজনকেই তুমি চেনো। জামাতা সেলিম জাহান অর্থনীতির অঙ্গণে সুপরিচিত। সে নিউইয়র্কে ইউএনডিপিতে উচ্চপদে কর্মরত। আমার মেয়েও ওই খানে থাকে আর এই মেয়েও ফ্রিল্যান্স গবেষক হিসেবে ইউএনডিপির সঙ্গে কাজ করে। আর ছোট মেয়ে মস্কো থেকে গাইনোকলজিতে পিএইচডি করেছে। বাংলাদেশে ফিরে বিসিএস দিয়ে সরকারি চাকুরি নেয়। সাত আট মাস পরে সে ঐ চাকুরী ছেড়ে দেয়। ছেড়ে দিয়ে সে নিজের উদ্যোগে এখন দক্ষিণ বাংলার গ্রামাঞ্চলে ক্লিনিক স্থাপন করেছে। একটা নার্সেস ট্রেনিং স্কুল স্থাপন করেছে। ঐখানে কাজ করে। এই হলো তিন মেয়ের পরিচয়।

বেবী মওদুদ: তো আপনার কি মূল্যায়ণ আপনার মেয়েদের সম্পর্কে ?

কবীর চৌধুরী: মেয়েদের জন্য আমি গর্ববোধ করিতো বটেই এবং আমি অত্যন্তু সুখী এইদিক থেকে যে ওরা সবসময় আমার সঙ্গে নানা বিষয় আলোচনা করে। বড় মেয়ে তো স্বাভাবিক কারণেই। ইংরেজীর অধ্যাপক আমি। কিন্তু আর দুই মেয়ের ইংরেজীর সঙ্গে যোগ না থাকলেও আমার দৃষ্টিভঙ্গীর কারণে এবং আমি যে তাদের মতে একজন ভাল মানুষ এই অনুভূতি থেকে আমরা খুব কাছাকাছি আছি।

বেবী মওদুদ: আপনার কাছে আমরা অধ্যাপক মুনীর চৌধুরীর কথা শুনতে চাই। মুনীর চৌধুরীকে আজকের প্রজন্মের অনেকেই দেখে নি। কিন্তু তার কথা অনেকেই জানে, শোনে এবং তার লেখা বইও পড়ে। কিন্তু তিনি তো একাত্তর সালে অন্য কোথা চলেও গেলেন না, এখানেই থেকে গেলেন।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ। এটাতো একটা ট্রাজিক ঘটনা, মুনীরকে হারানো। মুনীরকে নিয়ে যাওয়ার জন্য লোক এসেছে পশ্চিম বাংলা থেকে। বাংলাদেশের কিছু অনুরাগীজন যারা তার সম্পর্কে চিন্তিত ছিল। ওরা তাকে নিয়ে যেতে চেয়েছেন বার বার। ওর ছেলে ভাষণ চলে গিয়েছিল, মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়েছিল। কিন্তু ও গেল না। ঠিক কেন বলতে পারবো না। কয়েকটি কারণ অবশ্য বোঝা যায়। সে মাকে ছেড়ে যেতে চায়নি নিজের নিরাপত্তার জন্য। আর তখন পর্যন্তু তো বুদ্ধিজীবী নিধন শুরুও হয়নি কাজেই ঐ রকম যে একটা বাস্তব আশঙ্কা সেটাও সে বুঝতে পারে নি। এসব কারণে ও যায়নি। আর তার ক্ষতি অপুরনীয়। তুমি ওর কথা জিজ্ঞেস করলে, আমার স্মৃতি সম্পর্কে। ছোট বেলার অনেক স্মৃতি আছে আমার। আমরা পিঠাপিঠি ভাই ছিলাম। কতো গল্প হতো। ওর তো নাটকের দিকে ঝোঁক ছিল। নতুন নাটক লেখার পরে আমাদের বাড়ীতে চলে আসত। সকলে গোল হয়ে বসতাম। তারপরে নাটক পড়ে শোনাত। আর ও যখন বিদেশে ছিল তার কিছু খুব সুন্দর স্মৃতি আছে। যখন ভাষাতত্ত্ব নিয়ে হার্ভার্ডে পড়াশুনা করছে, সেই সময় আমি এবং আমার স্ত্রী ফুলব্রাইট বৃত্তি নিয়ে অন্য একটা প্রোগ্রামে আমেরিকায় গিয়েছিলাম। তখন বোস্টনে ওর বাড়িতে আমরা গিয়েছি। অনেক কথা হয়েছে, গল্প হয়েছে। বোস্টনের চার্লস নদীর পাশ দিয়ে আমরা হেঁটে যেতে যেতে নানা কথা বলেছি। সেই সময় মুনীর ইউজিন ওনীলের ‘লঙ্গ নাইটস জার্নি ইন্টু নাইট’ নাটকটি আমাকে উপহার দিয়েছিল। দিয়ে বলেছিল, একটা অসাধারণ নাটক। কোন একসময় আপনি যদি অনুবাদ করেন তাহলে খুব ভাল হবে। আমি সেটা অনুবাদ করেছি। প্রায় দশ বছর পরে।

বেবী মওদুদ: তো মনীর চৌধুরী একজন অসাধারণ ব্যক্তিত্ব ছিলেন। আমি দেখেছি, তখন ঢাকা ইউনিভারসিটির ছাত্রী ছিলাম। স্যারের ক্লাসের লেকচার শোনার জন্য নির্দিষ্ট ছাত্র ছাড়াও অন্যান্য বিভাগের ছাত্ররাও এসে বসে থাকতো।

কবীর চৌধুরী: ওর বাচন ভঙ্গি অসাধারণ ছিল। পরবর্তী সময় ওর ছাত্রদের কেউ কেউ ওর ধারাকে গ্রহণ করার চেষ্টা করেছে। যেমন মনিরুজ্জামান, আবু হেনা মোস্তাফা কামাল। মুনীরের গলা খুব অসাধাণর সুরেলা বা সুমিষ্ট ছিল না। বরং একটু ভাঙ্গা ভাঙ্গা ছিল। কিন্তু বলার ভঙ্গি এবং বিষয়ের উপর অধিকার অসামান্য ছিল। আর একটি জিনিশ, বাংলার অধ্যাপক, কিন্তু প্রথমে সে ইংরেজীতে এম. এ. করেছিল। চমৎকার ইংরেজী লিখতো ও বলতো। বাংলায় ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট পেল জেল থেকে পরীক্ষা দিয়ে। তখন তো ভাষা আন্দোলন চলছিলো।

বেবী মওদুদ: তিনি তো ‘কবর’ নাকটটাও জেলে বসে লিখেছিলেন।

কবীর চৌধুরী: তারও ইতিহাস খুব চমৎকার। রনেশদা, অর্থাৎ রণেশ দাশগুপ্ত। তিনিও তখন কারাবন্দি। তিনি মুনীরকে অনুরোধ করেন: ‘ভাষা আন্দোলনের ওপর তুমি একটা নাটক লেখ এবং এমনভাবে লেখ যাতে আমরা কারাগারে থেকে তা অভিনয় করতে পারি।’ সে তো তোমাদের মনে আছে। আধো অন্ধকার। টিম টিমে আলো, একটা ভুতুড়ে পরিবেশ। চটের কাপড় দিয়ে মঞ্চ সাজানো হয়। কারাগারেই ‘কবর’ অভিনীত হয়েছিল। তার পর থেকে আজ পর্যন্তু বাংলাদেশের সর্বাধিক সংখ্যক অভিনীত নাটকের নাম যদি করা যায় তাহলে সেটা ‘কবর’ই হবে। সারাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে, ঢাকা শহরে, নিয়মিতভাবে কবর অভিনীত হয়। আর মুনীরের রুপান্তর বা অনুবাদের কাজও অসামান্য। ‘মুখরা রমণী বশীকরণ’ শেক্সপিয়ারের অসাধারণ অনুবাদ। গলসওয়ার্থের ‘রুপার কৌটা’ও মুনীর রুপান্তর করেছে। তার প্রতিভা ছিল বহুমুখী। গবেষণামুলক কাজে মীর মোশারফ হোসেনের ওপর তার লেখা এবং ‘তুলনামুলক সাহিত্য’ প্রভৃতি খুব বড়ো মাপের কাজ। আমাদের দেশে তো তখন পর্যন্তু কমপারেটিভ লিটারেচার নিয়ে খুব বেশী লেখা হয় নাই। মুনীরই তার পথিকৃত। তার প্রতিভা ছিল বিভিন্ন মুখী। তার উদ্ভাবিত টাইপ রাইটার, ‘মুনীর অপটিমা’ নামে, তাও ছিল একটি অসামান্য কাজ। মুনীরকে হারাবার ক্ষতি পুরণ হয় নি। হবারও নয়।

বেবী মওদুদ: আপনাদের পরিবারেই শুধু নয় এটা আমাদের সমাজে, আমাদের শিল্পে, আমাদের সাহিত্যে, আমাদের দেশের জন্য খুব বড় ক্ষতি হলো।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, খুব বড় ক্ষতি হলো। আর খুব বড় করে আমাদের বুকে বাজে, সে ওই কাজগুলো করেছে শত প্রতিকূলতার মুখে। আজকে তো খুব অনুকূল অবস্থা ঐ ধরনের কাজ করার জন্য। এই সময় ও আমাদের মধ্যে থাকলে আরো কত কাজ করতে পারতো।

বেবী মওদুদ: তো কবীর ভাই এইযে বর্তমান সরকার, এ সরকারতো আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সরকার, গণতান্ত্রিক সরকার। এই সরকারের কাছে আপনার ব্যক্তিগত কোনো প্রত্যাশা আছে?

কবীর চৌধুরী: আমার প্রত্যাশা তো অনেক এবং আমি মনে করি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিকতায় কোনরকম খাঁদ নেই। তিনি সত্যিই চান যে বাংলাদেশ সামনের দিকে এগিয়ে যাক। কিন্তু নানা রকম বাধা আছে, নানা রকম প্রতিকুলতা আছে। সেগুলো জয় করতে হবে। একটা পদক্ষেপ নিবেন বলে তিনি কড়া ভাষায় বলেছেন। আমাকে যেটা পীড়া দেয় সেটা হচ্ছে যে ছাত্রলীগ বা ছাত্রদল তাদের অনুগামী যে সব অঙ্গ সংগঠন আছে তাদের ছেলেরা টেন্ডারবাজী চাঁদাবাজী ইত্যাদি করছে।

বেবী মওদুদ: শেখ হাসিনা এসব বন্ধ করতে বলেছেন।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ। তিনি এ বিষয় সচেতন এবং তিনি বলেছেন যে, এটা কঠোর হস্তে দমন করা হবে। কোন ছাড় দেওয়া হবেনা। আমার আশা তার এই কথা বাস্তবায়িত হবে।

বেবী মওদুদ: এখন অনেক জায়গায় হচ্ছেও।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, কিছু বাস্তবায়িত হচ্ছে। শেখ হাসিনার উদ্যোগের আর একটা দিক আছে যা প্রশংসনীয়। তা হচ্ছে তরুণ নেতাদের সামনে নিয়ে আসা। এই কাজগুলো হচ্ছে। আরেকটা কথা বলি। আগেও অবশ্য এটা ছিল। বৃদ্ধ, বয়স্ক, নিঃস্ব, বিধবা এদের সামাজিক অবস্থার উন্নতি সাধন করা। এর উপর জোর দিবেন তিনি। এগুলোতে আমরা খুবই আশান্বিত বোধ করছি। আর দুঃখ হয় যে, বিএনপি বা অন্য বিরোধী দলগুলো মনে হয় শুধু বিরোধিতার জন্য বিরোধিতা করছে। তাদের কার্যকর সত্যিকার কোন ইতিবাচক প্রোগ্রাম নেই। এটা খুবই দুঃখজনক।

বেবী মওদুদ: কবীর ভাই আর একটি বিষয় জানতে ইচ্ছে করে আপনি কখনো বাজারে গিয়েছেন। বাজার করতে মানে শাক-সব্জি, চাল, ডাল, তেল, নুন ইত্যাদি কিনতে Ñ

কবীর চৌধুরী: না। এদিক দিয়ে আমি ছিলাম খুবই অকেজো।

বেবী মওদুদ: সবচেয়ে কমদামে চাল কখন খেয়েছেন মনে আছে ? বাজারে কি আপনি কোন দিন
যান নি ? মুনীর স্যারতো সাইকেল চালিয়ে নিউমার্কেটে বাজার করতে যেতেন।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ। মুনীর বেশ বাজারে যেত। কিন্তু আমার ঐ অভ্যাস কখনই হয়নি।

বেবী মওদুদ: কিন্তু কবি সাহিত্যিকদের এই অভ্যাসটা থাকা ভাল। আপনি কি মনে করেন?

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, ভালো। ভালো তো বটেই। আমার মনে হয় বাজারে যাওয়া দরকার। কিন্তু কোন কারণে, যাই হোক, আমার সেটা হয়নি। মুনীর উপভোগ করতো বাজারে যাওয়াটা। নুতন কোন জিনিস উঠলে কিনে নিয়ে আসতো। তখন আমরা ধানমন্ডি হাতিরপুলের বাড়ীতে থাকতাম। তার ছেলে ভাষনকে সাইকেলের সামনে বসিয়ে চলে আসতো।

বেবী মওদুদ: আপনি তো জীবনে অনেক বই পড়েছেন, সংখ্যা হয়তো মনে নেই যে, কত বই পড়েছেন। তো কোন বইটা আপনার বার বার পড়তে ইচ্ছে করে।

কবীর চৌধুরী: বাংলা বইয়ের মধ্যে আমি বলবো ‘গোরা’ আমাকে বার বার পড়তে টানে। বার বার আকর্ষণ করে লেখার ভঙ্গির জন্য এবং সেখানে পরিবেশিত জীবন দর্শনের জন্য। বিশেষ করে আনন্দময়ী চরিত্রের জন্য। এক অসাধারণ চরিত্র। ‘গোরা’ পড়তে বার বার ইচ্ছে করে। আর বিদেশি বইয়ের মধ্যে বেশ কয়েকটি বই একাধিকবার পড়তে ইচ্ছে করে। পাস্তারনাকের ‘ড: জিভাগো’, ম্যাক্সিম গোর্কির ‘মা’ রোমা রঁল্যার ‘জাঁ ক্রিস্তফ’, টলস্টয়ের ‘ওয়ার অ্যান্ড পীস’, ফ্লবেয়ারের ‘মাদাম বোভারি’Ñএতো বার পড়া সত্বেও আবারও পড়তে ইচ্ছে করে। তুলনামূলকভাবে সাম্প্রতিক কালের দিকে যদি তাকাই দক্ষিণ আফ্রিকার কোয়েৎজির একটি বই আছে, ‘লাইফ এ্যান্ড টাইম্্স অব মাইকেল কে’। আমি বাংলায় নাম দিয়েছি ‘অবিস্ম^রণীয় মাইকেল কে’। একটু নাম বদলে দিয়েছি আমি। বইটা একাধিকবার পড়তে ইচ্ছে করে। ওই বইয়ের মূল জিনিস হচ্ছে সকল প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে মানুষ সহিষ্ণুতা, মনোবল এবং ভালবাসা দ্বারা সব জয় করতে পারে। এইটাই প্রধান। আমি ওটা বাংলায় অনুবাদও করেছি।

বেবী মওদুদ: তাহলেতো এই বইটা নিশ্চয়ই আপনার খুব প্রিয় বই।

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ।

বেবী মওদুদ: তো আপনি আজকের যে প্রজন্ম, নতুন তরুণ যারা আসছে আমাদের ভবিষ্যতে, তাদের উদ্দেশে কিছু বলুন।

কবীর চৌধুরী: আমি উপদেশ দেওয়ায় বিশ্বাস করি না। তবে তাদের সাথে কথা বলতে ভাল লাগে এবং তাদের সঙ্গে কথা বললে আমি যে কথার উপর জোর দেব তার একটা হচ্ছে যে সততাটা খুব দরকার। পরিশ্রম দরকার। ফাঁকি দিয়ে বড় কিছু পাওয়া যায় না। আমাদের এখানে অনেকেই খুব দ্রুত সাফল্য চায়। কিন্তু পরিশ্রম করতে হবে। ধৈর্য রাখতে হবে এবং সৎ থাকতে হবে।

বেবী মওদুদ: এটা এক নাম্বার ?

কবীর চৌধুরী: হ্যাঁ, এটা খুবই দরকারি। আর পড়াশুনা করতে হবে। একসময় তো তরুণরা বেশ পড়তো। আমাদের সময় যখন আমরা ছিলাম ইউনিভার্সিটিতে পড়েছি, মনে আছে আমরা কত বিষয় নিয়ে আলোচনা করতাম। কিন্তু এখন ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে তাদের নিজেদের পড়ার বিষয় ছাড়া আর কোন বিষয়ে তেমন আলোচনা হয় না। হয়তো ফিল্ম-এর কথা কিছু হতে পারে, ইন্টারনেটে দেখে। কিন্তু সিরিয়াস কথাবার্তা বলার জন্য তো পড়াশুনা করতে হবে, গভীরভাবে ভাবতে হবে। আমাদের নিজেদের শ্রেষ্ঠ লেখকদের লেখাও পড়তে হবে। তুমি গিয়ে জিজ্ঞেস করে দেখ আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের লেখা বই ক’জন যুবক ক’টা পড়েছে। হাসান আজিজুল হকের বই ক’জন ক’টা পড়েছে ? এগুলোতো পড়া দরকার।

বেবী মওদুদ: তো কবীর ভাই, আপনাকে কষ্ট দিলাম, আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। সবার পক্ষ থেকে আপনাকে ধন্যবাদ জানাই কৃতজ্ঞতা জানাই যে আপনি আমাদেরকে দীর্ঘ সময় দিয়েছেন। আমাদের সাথে কথা বলেছেন। আমাদেরকে অনুপ্রাণিত করবে আপনার কথাগুলো। কারণ আপনার জীবনের যে অভিজ্ঞতা সেটা একটা বিরাট অভিজ্ঞতা এবং সেটা আমাদের কাছেও অত্যন্ত মূল্যবান। আমাদের জীবনে এটা অনুসরণ করা, একটা আদর্শ একটা নীতি নিয়ে এগিয়ে যাওয়া খুব দরকার।

কবীর চৌধুরী: তোমাকে অনেক ধন্যবাদ। তোমার সঙ্গে তো আমার দীর্ঘ দিনের পরিচয়। তোমার বাবাকে চিনতাম আমি।

বেবী মওদুদ: আপনার কাছে আমরা কৃতজ্ঞতা জানিয়ে এখানেই শেষ করছি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম-এর আর্টস ও মতামত-বিশ্লেষণ বিভাগে কবীর চৌধুরীর লেখা

তুলনাহীন রবীন্দ্রনাথ । ৭ মে ২০১১ । আর্টস

নতুন শিক্ষানীতি বাস্তবায়ন প্রসঙ্গে । জুন ১৩, ২০১০ । মতামত-বিশ্লেষণ

শিক্ষা ও প্রযুক্তির সমন্বয় । জানুয়ারী ২, ২০১১ । মতামত-বিশ্লেষণ


বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম-এ কবীর চৌধুরী


কবীর চৌধুরীর সঙ্গে আলাপ / বেবী মওদুদ | ২৩ জানুয়ারি ২০১০

কবীর চৌধুরী: ১৯২৩-২০১১

‘শেষ ইচ্ছেগুলো’

নিভে গেলো আলোকবর্তিকা

কবীর চৌধুরীকে শ্রদ্ধা প্রধানমন্ত্রীর

চিরনিদ্রায় শায়িত কবীর চৌধুরী

‘জাতিকে তিনি দিয়ে গেছেন দিক নির্দেশনা’

free counters

প্রতিক্রিয়া (৩) »

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Kabir Bitu — মার্চ ১২, ২০১০ @ ১০:২১ পূর্বাহ্ন

      কবীর চৌধুরীর অনুবাদে প্রচুর বই আমরা পেয়েছি। এখন অনুবাদ হচ্ছে প্রচুর। একটা সময় ছিল অনুবাদের জন্য অপেক্ষা করতে হতো। তখন তিনিই ছিলেন আমাদের ভরসা। তার সহজ সরল অনুবাদের কারণে অনেক দুর্লভ বই পড়ার সুযোগ হয়েছে। মার্কেজের প্রেম ও কলেরা আমার পড়া তার শ্রেষ্ঠ অনুবাদ বলে মনে হয়। জে এম কোয়েৎজির বর্বরদের অপেক্ষায় আর রিচার্ড রাইটের নেটিভ সান এর মতো বিখ্যাত বই পড়তে পেরেছি একমাত্র তার কারণেই। কবীর চৌধুরীকে ধন্যবাদ।

      - Kabir Bitu

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন mahmuda — december ১৩, ২০১১ @ ২:৪৩ অপরাহ্ন

      অনেক ভাল লাগল। জানতে পারলাম অনেক কিছু একজন বড় মানুষ সম্পর্কে। অনেক বড় সাক্ষাৎকার কিন্তু একটু ও বোরিং লাগেনি। ধন্যবাদ।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন russel — december ১৩, ২০১১ @ ৩:২৮ অপরাহ্ন

      আমরা শোকাহত ।

আর এস এস

আপনার প্রতিক্রিয়া জানান

 
প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন:
১. ছদ্মনামে করা প্রতিক্রিয়া এবং ব্যক্তিগত পরিচয়ের সূত্রে করা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না। বিষয়সংশ্লিষ্ট প্রতিক্রিয়া জানান।
২. বাংলা লেখায় ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
৩. পেস্ট করা বিজয়-এ লিখিত বাংলা প্রতিক্রিয়া ব্রাউজারের কারণে রোমান হরফে দেখা যেতে পারে। তাতে সমস্যা নেই।
 

মাউস ক্লিকে বাংলা লেখার জন্য ত্রিভুজ প্যাড-এর 'ভার্চুয়াল কীবোর্ড' ব্যবহার করুন


Disclaimer & Privacy Policy  |  About us  |  Contact us  |  Bangla Font Help

© bdnews24.com