যে আছে বিস্মরণে, লোহার সূতায় বাঁধা, থাক

সরকার মাসুদ | ২৪ জুন ২০১৭ ১২:২৩ পূর্বাহ্ন

Kizi-1টিউমার

মাংস দিয়ে তৈরি এক চমৎকার বাড়ি
ক্যান্সার খুব নিরাপদে থাকে এমন বাসস্থান!

ক্যন্সারের জীবাণু মরার কথা ভুলে থাকে
তাকে নিরাপত্তা দিয়ে চলে ঐ বাড়ি
ক্যান্সারের জীবাণু এক জীবনবাদী, ভোগী ফুরফুরে মানুষ!

ক্যান্সার প্রথমে আক্রান্তকে শেষ করে দেয় ধীরে ধীরে;
তারপর একদিন সে নিজেই শেষ হয়ে যায়
শেষ হতে বাধ্য হয়
কেননা মাংস দিয়ে তৈরি ঐ বাড়ি
বাসযোগ্য থাকে না তখন।

হিজল ডোবার ছবি, স্নিগ্ধ পানা ফুল

তোমরা যখন গণতন্ত্রের কথা বলো, শুনে আমার মাথা ঝিমঝিম করে
তোমরা যখন মানবাধিকারের কথা বলো
পিঁ-পিঁ পিঁ-পিঁ পিঁ-পিঁ করে শব্দ হয়
আমার দুই কানের ভেতর………..।
সমাজতন্ত্রের সুবিধার কথা বলো যখন
ব্যক্তিগত অসুবিধার কথা আলাপ করো
আমার চোখে ভাসে কুয়াশার নদী
আর যখন তোমরা বিপ্লবের কথা তোলো
আমার মাথার পেছনে এসে জমা হয় একরাশ মেঘ!
কিন্তু তোমরা যখন ভালোবাসার কথা বলো
আমি দেখতে পাই
একটা হিজলডোবার ছবি, স্নিগ্ধ পানা ফুল।

বিস্মরণ

এখন আমার মাথায় গাঢ় চাঁদের আলো
জ্যোৎস্না ফুটলে চোরের মতো ছাদে উঠে যাই
পূর্ণিমার স্মৃতিপ্রদ নদী নিমতলার কাছে;
সূর্যাস্তের পাখি, জলে-আঁকা-রঙধনু আমিও তো চাই।

এখন আমার মনে হালকা বেগুনি আলো
বিকেলে সাকোঁর নিচে ডিঙি নৌকা, জগভরা তাড়ি
মনে নাই কাকলি আমাকে মেঘের ভেতর রাজবাড়ি
দেখিয়ে কীভাবে অসীমের প্রেমিক বানালো!

যে আছে বিস্মরণে, লোহার সূতায় বাঁধা, থাক;
তাকে মনে রেখে আবার ঝামেলা কেন?
সংবেদনার বটমূলে, সন্ধা নদীর বাঁকে পথিক অবাক।

বুঝতে একটু সময় লাগবে
ডুবে আছো প্রেমের গভীর ঘুমে
তুমি এখন সর্বনাশা অচেতনায় আছো

এই দীর্ঘ আঠালো ঘুমের আগে
তোমার পৃথিবী ছিল বর্ণিল প্রজাপতির বাগান
এই দীর্ঘ স্টুপিড ঘুমের পর
তোমার পৃথিবী মরা নদীর এবড়োখেবড়ো পথ

তোমার স্বপ্ন থেকে আমি চলে গেছি
তোমার নাগালের একদম বাইরে;
কিন্তু তুমি ঠিক এক্ষুণি বুঝতে পারছো না
কী হারিয়েছ।
বিশাল বিস্ফোরনের পর মুহূর্তেই মানুষ
বুঝতে পারে না ঠিক কী ঘটে গেছে!


১. হাওয়া-বাতাস

ওই কাশফুল মেঘ রওনা দেওয়ার জন্য তৈরি হয়ে আছে
শুধু আমার সম্মতির অপেক্ষা!
এই ঝিরিঝিরি লম্বা ঘাস, পানির ওপরের,
দোল খাওয়ার জন্য রেডি হয়ে আছে…..
খালি আমার সংকেতের জন্য যা একটু দেরি!

হাওয়া কী দেয় আমাদের
হাওয়া উস্কে দেয় বিশ্বাস আর সংশয়
ছিন্নবৈচিত্র্যের দিন হাওয়া আবার
যোগসূত্র তৈরি করে হৃদয় ও জলছবির মাঝে!

বাতাস বয়ে নিয়ে যাবে এই পলিথিন মেঘ
কিন্তু কোথায়?
পানিবর্তী লম্বা ঘাস, ছিটপোকা,
ছোটগল্পের জীবনছবি ফুটবে আঁধারে!

শরতে রঙপাগলের মন পাল তুলে দিয়েছে মেঘের নদীতে
হাওয়া তৈরি করেছে সাঁকো
হাওয়া ভেঙে দিয়েছে সাঁকো
ভাদ্রের লুকোচুরি রোদে
হাওয়া আনে ভালোবাসার ভুয়া আশ্বাস
ডালপালার ফাঁকে ছেঁড়া আশা ঝুলে থাকে সুতাকাটা ঘুড়ি।

২. কবির জন্মদিন

জন্মদিনের কথা মনে হলে
কেক ঘিরে বসে থাকা শিশুদের হাসি চোখে ভাসে
আমি মোমবাতির কান্নার কথা ভাবি!
কবিও শিশুর মতো
শিশুর মতো সেও জন্মদিন ভালোবাসে
মাথায় বিদ্ধ পেরেক নিয়ে ঘুরে বেড়ায় মাঠে-জঙ্গলে
এক মৃত্যুজিৎ যিশু তার সাথে সাথে পথ চলে।

প্রতিটি জীবিত লোকের ভেতরে এক একটা মৃতদেহ আছে
তাই জন্মদিনের আড়ালে গজিয়ে ওঠে মৃত্যুদিনের কথা
তারপরও কবি জন্মদিন ভালোবাসে
সেদিন আকাশে এলোমেলো পলিথিন মেঘ ভাসে
বৃষ্টিগন্ধহীন!
বাতাসের হাত ধরে মেঘ উঠে যায় উঁচু সাজেক পাহাড়ে
ভালোবেসে কবি টের পায় জন্মদিনের জ্বালা হাড়ে হাড়ে।

Flag Counter

সর্বাধিক পঠিত

প্রতিক্রিয়া (2) »

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন আশরাফুল কবীর — জুন ২৫, ২০১৭ @ ১০:৪০ পূর্বাহ্ন

      হিজল ডোবার ছবি, স্নিগ্ধ পানা ফুল ও ১. হাওয়া-বাতাস, বেশ ভাল লেগেছে। কবিকে শুভেচ্ছা।

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন সাইফুল্লাহ মাহমুদ দুলাল — জুন ২৬, ২০১৭ @ ১:৩৯ পূর্বাহ্ন

      আশরাফুল কবীর,
      কাকে শুভেচ্ছা?
      কবিকে নাকি অনুবাদককে?

আর এস এস

আপনার প্রতিক্রিয়া জানান

 
প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন:
১. ছদ্মনামে করা প্রতিক্রিয়া এবং ব্যক্তিগত পরিচয়ের সূত্রে করা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না। বিষয়সংশ্লিষ্ট প্রতিক্রিয়া জানান।
২. বাংলা লেখায় ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
৩. পেস্ট করা বিজয়-এ লিখিত বাংলা প্রতিক্রিয়া ব্রাউজারের কারণে রোমান হরফে দেখা যেতে পারে। তাতে সমস্যা নেই।
 


Disclaimer & Privacy Policy  |  About us  |  Contact us

© bdnews24.com