কথাসাহিত্যিক হুয়ান রুলফোর আলোকচিত্র : আলোছায়ার অজানা স্রষ্টা

রেশমী নন্দী | ১৯ মে ২০১৭ ১২:৪৪ অপরাহ্ন

rulfo-1
চিত্র: লেখক হুয়ান রুলফো, জন্ম ১৯১৭ সালের ১৬ মে, মেহিকোর পশ্চিমাংশের হালিস্কোতে

গত ১৬ মে ছিল লাতিন আমেরিকান সাহিত্যের অন্যতম ব্যক্তিত্ব হুয়ান রুলফোর শততম জন্মবার্ষিকী। লোকসংষ্কৃতি বিষয়ে খুচরো কিছু প্রবন্ধ ছাড়া তাঁর জীবদ্দশায় প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা মাত্র দুটি। একটি উপন্যাস, আরেকটি ছোট গল্পের সংকলন। তবু সাহিত্যের ইতিহাসে তিনি বিবেচিত হন অন্যতম লেখক হিসেবে। তাঁর উপন্যাসের নাম Pedro Páramo, যেখানে মৃত মায়ের কথা রাখতে বাবাকে খুঁজতে গিয়ে নায়ক হুয়ান প্রেসিয়াদো পৌঁছান ভৌতিক এক নগরীতে। তারপর মৃত আর জীবিতের ফারাক; অতীত, বর্তমান আর ভবিষ্যতের সীমা সবকিছুই হয়ে ওঠে একই সাথে বাস্তব ও অলীক। হোর্হে লুইস বোর্হেসের মতে, এটা গোটা বিশ্বের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ভালো উপন্যাস। গাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেস বলেছিলেন, তিনি উপন্যাসটি এতবার পড়েছেন যে মুখস্ত বলতে পারবেন। তাঁর বিখ্যাত উপন্যাস One Hundred Years of Solitude লেখার প্রেরণা হিসেবেও তিনি একে উল্লেখ করেছেন। ১৯৫৫ সালের প্রকাশিত উত্তরাধুনিক উপন্যাসের উল্লেখযোগ্য এক উদাহরণ হিসেবে স্বীকৃত। এই উপন্যাস প্রকাশের দু’বছর আগে প্রকাশিত হয় তাঁর একমাত্র গল্পগ্রন্থ El Llano en Llamas, ১৯৫৩ সালে। আর ১৭ টি গল্পের এই সংকলনের জন্যই তিনি বিবেচিত হন অন্যতম সফল ছোটগল্প লেখক হিসেবেও।

Rulfo-2
লেখক হিসেবে পরিচিত হলেও আলোকচিত্রী হিসেবেও তিনি অনন্য, বিশেষ করে ইমিগ্রেশন এজেন্ট হিসেবে কর্মরত অবস্থায় মেহিকোর নানা অংশের ছবি তুলেছেন

জাদুবাস্তবতার পূর্বসুরী এই লেখক প্রখ্যাত মানুষদের অনুপ্রেরণার উৎস হলেও অনেকটাই যেন অনুপস্থিত সাধারণ মানুষের পাঠপরিক্রমায়। স্প্যানিশভাষী স্কুলগুলোতে রুলফো অবশ্য পাঠ্য হলেও ইংরেজী বা অন্য ভাষাভাষির মানুষের কাছে তাঁর লেখা ততটা পরিচিত নয়। শততম জন্মবার্ষিকী উদযাপনের প্রাক্কালে এ নিয়ে ক্ষোভও তাই কম নয়।

——————————————————————–

Rulfo-3
চলচ্চিত্র La Escondida -র ইতিহাস বিষয়ক উপদেষ্টা ও আলোকচিত্রী হিসেবে কাজ করেছেন রুলফো, সেই সময়কার শুটিং চলাকালীন ছবি

Rulfo-4
রুলফোর ছবিতে মেহিকোনো চলচ্চিত্রের স্বনামধন্য অভিনেত্রী মারিয়া ফেলিক্স

Rulfo-5
ছবিটি তাঁর ফিচার ফিল্ম El Despojo-র শুটিং চলাকালীন সময়ে তুলেছিলেন রুলফো

Rulfo-6
আদিবাসী মানুষরা রুলফোর জীবনে জড়িয়ে আছে অঙ্গাঅঙ্গিভাবে। ১৯৬২ থেকে ১৯৮৬ সালে তাঁর মৃত্যুর আগে পর্যন্ত তিনি কাজ করেছেন ন্যাশনাল ইনষ্টিটিউট ফর ইনডিজেনাস পিপল-এ ( National Institute for Indigenous People)

Rulfo-7
তিনি মেহিকোর ঐতিহাসিক স্থানেরও ছবি তুলেছেন প্রচুর। ১৯৫০ সালে তোলা এই ছবিটি মেহিকোর Castillo de Teayo-এর

——————————————————————–

লেখক হিসেবেই সম্মানিত ও স্বীকৃত হলেও রুলফো ছিলেন দক্ষ একজন ফটোগ্রাফারও। তাঁর তোলা প্রায় ছয় হাজার ছবি রয়েছে রুলফো ফাউন্ডেশনের তত্ত্বাবধানে। ছবির নীরবতা দিয়েই হুয়ান রুলফো বলে গেছেন অনেক। তাঁর এত কম লেখার কারণ হিসেবেও তিনি একবার উল্লেখ করেছিলেন, তাঁর জীবনজুড়ে অসংখ্য নীরবতা। (“In my life there are many silences”)। এদুয়ার্দো রিবেরো তার এক প্রবন্ধে লিখেছেন, ” রুলফো, তাঁর ছবি এবং তাঁর লেখা দিয়ে, আমাদের যেন বলতে চান, দেখো! আমাদের সামনে থাকা জগৎটাকে দেখো, দুর্ভাগ্যজনক বাস্তবতার যন্ত্রণা একে কি করে বিদ্ধ করছে। এসো, দেখো।”

নিবন্ধটি বিবিসি ও অন্যান্য প্রতিবেদন অবলম্বনে রচিত।
Flag Counter

সর্বাধিক পঠিত

প্রতিক্রিয়া (1) »

    • প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন Kaniz Marium Akter — মে ২০, ২০১৭ @ ১:১৩ পূর্বাহ্ন

      I’m not a good reader, yet tried this one and enjoyed a lot! I was not known to the subject of this write up, after finishing it I’m feeling great interest of such/relevant publications. Here, I got almost a summary of an era, of course!
      Eagerly waiting to get more and more such creations.

আর এস এস

আপনার প্রতিক্রিয়া জানান

 
প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন:
১. ছদ্মনামে করা প্রতিক্রিয়া এবং ব্যক্তিগত পরিচয়ের সূত্রে করা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না। বিষয়সংশ্লিষ্ট প্রতিক্রিয়া জানান।
২. বাংলা লেখায় ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
৩. পেস্ট করা বিজয়-এ লিখিত বাংলা প্রতিক্রিয়া ব্রাউজারের কারণে রোমান হরফে দেখা যেতে পারে। তাতে সমস্যা নেই।
 


Disclaimer & Privacy Policy  |  About us  |  Contact us

© bdnews24.com