গ্যালারি

আসেম আনসারীর একক প্রদর্শনী : চিত্রের কাব্য ভ্রমণ

অলাত এহ্সান | ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ ৬:৩৪ অপরাহ্ন

asem-ansari-1.jpgচৈনিক কবি লি পো চাঁদের মোহনীতায় এতটাই আকৃষ্ট ছিলেন যে, এক চাঁদনী রাতে ঝিলের জলে নৌকা ভাসালেন চাঁদ দেখার জন্য। একসময় তাঁর খেয়াল হলো ঝিলের স্বচ্ছ জলেও আরেক চাঁদ দেখা যাচ্ছে যা আকাশের চাঁদের মতোই আকর্ষণীয় এবং তিনি ইচ্ছে করলেই এই চাঁদটা ধরতে পারেন। লি পো সেই চাঁদ ধরতে গিয়েই জলে ডুবে মারা যান। ‘চাঁদে পাওয়া’ বিষয়টা মুটোমুটি এই। সাহিত্যিকদের ক্ষেত্রে, বিশেষ করে কবিদের ভেতর এমন কথা বেশি প্রচলিত। যখন কিনা কাব্যের ঘোর তৈরি হয় তখন একে বলেন ‘চান্দে পাওয়া মানুষ’। অর্থাৎ ভাবই কবিকে তাড়িত করে কবিতা লেখার জন্য।

চাঁদের প্রতি যার আকর্ষণ আত্মিক, মাঘের এই শিশির ঝরা রাতে পূর্ণিমার চাঁদ দেখা থেকে তাকে কোনোভাবেই নিবৃত করা যাবে না। তখন আমাদের মনে পড়ে জীবনানন্দ দাশের কবিতা ‘আট বছর আগের একদিন’র লাইলগুলো—‘শোনা গেল লাশকাটা ঘরে/ নিয়ে গেছে তারে;/ কাল রাতে- ফাল্গুনের রাতের আঁধারে/ যখন গিয়েছে ডুবে পঞ্চমীর চাঁদ/ মরিবার হলো তার সাধ’। চিত্রকর্মেও এই বিষয়টা পাওয়া যায় আসেম আনসারীর কাজে। গত ১৫—৩১ জানুয়ারি, রাজধানীর ধানমণ্ডির ৬ নাম্বার রোডের ৪ নাম্বার বাড়ির ‘গ্যালারী চিত্রক’-এ হয়ে গেল তার চতুর্থ একক চিত্র প্রদর্শনী। ‘Less is more’ শিরোনামের ১৬ দিনব্যাপী এই চিত্র প্রদর্শনী। মাঘের সন্ধ্যার লগ্নে বরেণ্য চিত্রশিল্পী অধ্যাপক সমরজিৎ রায় চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন প্রখ্যাত চিত্র শিল্পী মনিরুল ইসলাম।
৩টি জল রং এবং ৩১টি মিশ্র মাধ্যমে আঁকা চিত্রকর্ম স্থান পায় প্রদর্শনীতে। এগুলো সেই ২০১৩ থেকে শুরু করে ’১৫-এর শেষ অবধি, বিভিন্ন সময়ে এঁকেছেন শিল্পী। এক-একটি চিত্রে শিল্পীর আঁকার প্রতি যত্ন ও অনুভূতির অতল বোঝা যায়। দীর্ঘ বিরতির পর প্রদর্শনীর মতোই জনাব আনসারী যেন মাটির গভীরে ফিরতে চেয়েছেন ছবিতে। তার ছবির বিষয়বস্তুর দিকে দৃষ্টি দিলেই তা বোঝা যায়। (সম্পূর্ণ…)

আট তরুণের সময়-দর্শনের সংযোগ প্রদর্শনী

অলাত এহ্সান | ২৮ নভেম্বর ২০১৫ ১২:৫৮ অপরাহ্ন

বেঙ্গল ফাউন্ডেশনকে সঙ্গে নিয়ে ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টার ‘অনলি কানেক্ট’ শিরোনামে এক প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে। প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণকারী আটজনই স্বকীয়তার মধ্যদিয়ে স্বচ্ছভাবে তুলে ধরেছেন তাদের ভাবনাকে। তারা যেমন ভেবেছেন, তেমনি দর্শকদেরও ভাবাচ্ছেন। চিত্রকলার বিভিন্ন মাধ্যমেই তারা এই কাজ করেছেন। প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে আলোকচিত্র, পেইন্টিং, ভিডিওগ্রাফি, ইন্সটলেশন, পার্ফমেন্স আর্ট, টেক্সটাইল ইন্সটলেশন।
শিল্প এগিয়ে যাওয়ার প্রধান যে উপায়, পরীক্ষা-নিরীক্ষা, প্রত্যেকে তাদের কর্মে দুর্বীনিতভাবেই তা করছেন। শিল্প যাচ্ছে মানুষের কাছে আর মানুষের জীবন উঠে আসছে শিল্পকর্মে। এখানেই এই প্রদর্শনীর গুরুত্ব। প্রতিটি শিল্পকর্মে বর্তমান সময়ের যে প্রধান প্রবণতা—বৈচিত্র্য, বিক্ষোভ, অসহনীয় লঘুতা—তুলে ধরেছে। বোঝা যায়, প্রদর্শনীতে অংশ নেয়া প্রত্যেক শিল্পী কেবল শিল্পের সাধনায়ই নয়, ভাবনায়ও ঋদ্ধ। প্রদর্শনীতে একটু খেয়াল করলে যেকারোরই চোখে পড়ে উপস্থাপিত বিষয় ও মাধ্যমের বৈচিত্র্য।

আবির সোম নিয়ে এসেছেন ডিজিটাল কোলাজ, ড্রয়িং ও ছাপচিত্র; আলি আসগার’র মাধ্যম ছাপচিত্র ও পার্ফর্মেন্স; দেবাশিস চক্রবর্তী’র আলোকচিত্র; মো. আতা ইসলাম খান’র কোলাজ, মেহেরুন আখতার’র টেক্সাইল ইন্সটলেশন, পলাশ ভট্টাচার্য’র ভিডিও ডকুমেন্ট, রফিকুল শুভ’র ভিডিও ও ফটোগ্রাফি এবং রাজীব দত্ত’র ডিজিটাল কোলাজ।
ইতোমধ্যে প্রত্যেক শিল্পীরই যৌথ প্রদর্শনীর সংখ্যা দুইয়ের ঘর ছাড়িয়েছে। অর্ধশত, শতও পূরণ করেছে কেউ কেউ। গত ২২ নভেম্বর গ্যালারির দোতলার বারান্দায় বসেছিল শিল্পীদের সঙ্গে দর্শনার্থী, সংবাদকর্মী, লেখক, শিল্প সমালোকদের উন্মুক্ত আড্ডা। সেখানে তারা শিল্পকর্ম নিয়ে তাদের ভাবনা প্রকাশের পাশাপাশি উপস্থিতদের সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দেন। (সম্পূর্ণ…)

রণি আহমেদ: নাস্তিকতা হল সৃষ্টিকর্তাকে খোঁজার বিয়োগান্তক পথ

অলাত এহ্সান | ৩ অক্টোবর ২০১৫ ১২:৪৯ অপরাহ্ন

roni-1.jpgসুররিয়ালিজম, পুরাণ ও সুফিইজমের সমন্বয় শিল্পী রণি আহমেদের এবারের চিত্রপ্রদর্শনীর মূল বিষয়। ঢাকায় জর্মান কালচারাল সেন্টার ও আলিয় ফ্রঁসেস-এ যথাক্রমে ২০০২ সালে ‘আনটাইটেল’ ও ২০০৪ সালে ‘মিথোরণিয়া’ শীর্ষক একক প্রদর্শনীর মাধ্যমেই তিনি বাংলাদেশি চিত্রকলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় আবির্ভূত হন। ইতোমধ্যে দেশে ৬টি একক চিত্রপ্রদর্শনী হয়েছে তার। আবাসিক, উপস্থিত, সম্মিলিত, একক ও উন্মুক্ত চিত্রপ্রদর্শনে দেশ-বিদেশে অংশ নিয়েছেন তিনি। গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে গুলশান-১-এ বেঙ্গল আর্ট লাউঞ্জে শুরু হয়েছে তার ‘গডস এন্ড বীস্ট’ শীর্ষক মাসাধিক কালব্যাপী একক চিত্রপ্রদর্শনী। চলবে ১৭ আক্টোবর পর্যন্ত। প্রদর্শনী ঘুরে রণি আহমেদের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন তরুণ লেখক অলাত এহ্সান। তারা কথা বলেছেন চিত্রকলা, পুরাণ, জাগতিক বিশ্ব ও সুফি দর্শন নিয়ে। সাক্ষাৎকার চলাকালে গল্পকার দিলওয়ার হাসানও আলাপে অংশগ্রহণ করেন। বি.স (সম্পূর্ণ…)

সাম্প্রতিক তিনটি চিত্র প্রদর্শনী

| ১৯ মে ২০১৫ ৬:১৩ অপরাহ্ন

সম্প্রতি ঢাকায় ভিন্নধর্মী তিনটি চিত্র প্রদর্শনী শুরু হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ এই প্রদর্শনীগুলো নিয়ে লিখেছেন অঞ্জন আচার্য এবং আব্দুল হালিম চঞ্চল।

শিল্পকলায় পক্ষকালব্যাপী ছাপচিত্র প্রদর্শনী

অঞ্জন আচার্য

গুরুশিল্পীরা কাজ করেছেন আর তার ছায়াতলে দীক্ষিত হয়েছে নবীন শিল্পীরা। তাই গুরুর কাজের শেষ রশ্মিটুকু নিয়ে আবার নতুন দিনের আলো জ্বালিয়েছে নবীন প্রজন্মের শিল্পীরা। আসলে সূর্যহীন অন্ধকারের কোন ইতিহাস নেই; ইতিহাস আছে শুধু সূর্যোদয়ের আর সূর্যের আলোয় উজ্জ্বল প্রহরের। এভাবে শেষ থেকে শুরু হতে হতে এদেশের শিল্পের প্রজন্মের পর প্রজন্ম পেরিয়ে শাখা প্রশাখায় প্রসারিত হয়ে পড়েছে।
বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী ও শূণ্য আর্ট স্পেস যৌথভাবে একাডেমীর জাতীয় চিত্রশালায় ১৬ মে থেকে ৩০ মে “শেষ থেকে শুরু” শীর্ষক পক্ষকালব্যাপী ছাপচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে। এ উপলক্ষে গত শনিবার বেলা ১২টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর জাতীয় চিত্রশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পক্ষকালব্যাপী ছাপচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন বরেণ্য শিল্পী অধ্যাপক রফিকুন নবী। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্পেন-প্রবাসী বরেণ্য শিল্পী মনিরুল ইসলাম এবং শিল্পসমালোচক মইনুদ্দীন খালেদ। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন শূণ্য আর্ট স্পেস-এর প্রধান নির্বাহী জাফর ইকবাল। প্রদর্শনী প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৮টা এবং শুক্রবার বেলা ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দর্শকদের জন্য খোলা থাকবে। (সম্পূর্ণ…)

ইসাবেল : কালদগ্ধ ও রূপমুগ্ধ

মইনুদ্দীন খালেদ | ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ ৩:৩১ অপরাহ্ন

isabel-2.gifগত রোববার ( ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৫) ধানমন্ডির দৃক গ্যালারিতে ২২ থেকে ২৬ ফেব্রয়ারি পর্যন্ত মেক্মিকোর তরুণ চিত্রশিল্পী ইসাবেল জামানের এক চিত্রপদর্শনীর উদ্বোধন হয়। উদ্বোধন করেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন চিত্রশিল্পী মনিরুল ইসলাম। মেক্সিকান বংশোদ্ভূত শিল্পী ইসাবেলের এই একক প্রদর্শনীর বেশিরভাগ ছবির বিষয় বাংলাদেশ। বিভিন্ন মাধ্যমে আঁকা বিভিন্ন আয়তনের মোট ২১টি ছবি রয়েছে। চলমান এই প্রদর্শনী নিয়ে লিখেছেন চিত্রসমালোচক মইনু্দ্দীন খালেদ। বি.স. (সম্পূর্ণ…)

বরেণ্য শিল্পী সৈয়দ জাহাঙ্গীর

সৈয়দ ইকবাল | ৭ জুন ২০১৪ ২:৫৪ অপরাহ্ন

border=0প্রবীণ শিল্পীদের মধ্যে সৈয়দ জাহাঙ্গীর নিজে যেমন শৈলিপ্রবণ তেমনি ওনার কাজেও সেটা বিদ্যমান। ৩১শে মে শনিবার সন্ধ্যা ছয়টায় আরেক বরণ্যে ব্যক্তিত্ব বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর প্রধান অতিথি হিসেবে সৈয়দ জাহাঙ্গীরের ৪১ তম একক প্রদর্শনী Of man and earth উদ্বোধন করেন গুলশানে বেঙ্গল লাউনজে। বিশেষ অতিথি ও আলোচক ছিলেন স্থপতি শামসুল ওয়ারেশ। উপস্থাপনায় ছিলেন বেঙ্গল শিল্পালয়ের প্রধান কর্মকর্তা নাহিদ লুভা চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন গ্যালারী ডিরেক্টর নওশীন খায়ের এবং নতুন ব্যাবস্থাপক হেড্রিয়ান ভিয়াজ। অনান্য অতিথিদের মধ্যে ছিলেন মুনতাসীর মামুন, শিল্পী মাহমুদুল হক, শেখ আফজাল, বিপাশা হায়াতসহ অনেকে। শিল্পী জাহাঙ্গীর আশা ব্যক্ত করেন ৫০তম একক পর্যন্ত করে যাওয়ার। উদ্বোধনকালে বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর বলেন, দীর্ঘ ৫০ বছর বন্ধু সৈয়দ জাহাঙ্গীরের কাজ দেখে আসছি। যতই দিন যাচ্ছে তিনি দেশের, গ্রামের মানুষ আর প্রকৃতির সঙ্গে নিজেকে মিশিয়ে দিচ্ছেন । (সম্পূর্ণ…)

দুই প্রজন্মের দুই বাঙালের চিত্রপ্রদর্শনী

চিন্তামন তুষার | ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ ৩:২৫ অপরাহ্ন

hasem-khan-3.jpgএকদিক থেকে শিল্পকলাচর্চার দুই প্রজন্মের দুই শিল্পী, আরেকদিক থেকে একই বিদ্যায়তনের শিক্ষার্থী ও পরবর্তীতে দুজনেই শিক্ষক। শিল্পী হাশেম খান ও মোহাম্মদ ইকবালের কথা বলা হচ্ছিল এতক্ষণ। দুজনের ৬০ টি চিত্রকর্ম নিয়ে ‘দুই বাঙাল চিত্রীর প্রদর্শনী’ শীর্ষক এক যৌথ প্রদর্শনীর প্রথম পর্ব শুরু হয়েছে ধানমণ্ডির গ্যলারি টোয়েন্টি ওয়ানে। প্রদর্শনী চলবে ১ মার্চ পর্যন্ত।শুক্রবার এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন লেখক ও শিল্প সমালোচক অধ্যাপক বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর। সম্মানিত অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, কবি ও স্থপতি রবিউল হুসাইন। (সম্পূর্ণ…)


Disclaimer & Privacy Policy  |  About us  |  Contact us

© bdnews24.com