কবিতা

জেবুননাহার জনির কবিতা: ভয়

জেবুননাহার জনি | ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১০:০৯ পূর্বাহ্ন

Shelyসাপটি যখন লম্বা এক ফণা তোলে
ভয় না পেয়ে আমি বরং জাপটে ধরি
বিছুটি যখন কাঁধের পরে আঁকড়ে ধরে
ভয় না পেয়ে আমি বরং আঙুল নাড়ি
কুকুর যখন লেজ উঁচিয়ে দৌড়ে আসে (সম্পূর্ণ…)

অরুণাভ রাহারায়ের তিনটি কবিতা

অরুণাভ রাহারায় | ২৯ জানুয়ারি ২০১৭ ৯:০৮ পূর্বাহ্ন

বয়স

আমার বয়স থাকে দূরে
গাছেদের ডালপালা ঝোলে…

Afsan
কথা

কথাদের দূরে যেতে বলি
তারা যত উড়ে যায়
দূরে যায় পাহাড়ের পাখি।
পথ তবে বেঁকে গেছে, বেঁকেচুরে ভেঙে গেছে, কবে?

এখন কথার পিঠে, ইচ্ছে করে, দুটো-একটা কথা লিখে রাখি। (সম্পূর্ণ…)

তারিক সুজাতের তিনটি কবিতা

তারিক সুজাত | ২৩ জানুয়ারি ২০১৭ ১২:২৯ অপরাহ্ন

ছিন্নডানার মানুষপাখি

১.
কয়েক শতাব্দী ধরে এখানে ছিলাম
ছিলাম মানুষ হয়ে মানুষের কাছাকাছি
ধর্ম এসে তোলেনি দেয়াল
ধূতি আর পায়জামা
সাদা পায়রার মতো
উড়তো আকাশে
এক তারে এক সুরে,
ভেজা কাপড়ের আলিঙ্গনে;
সাজানো উঠোন
ফেটে চৌচির হলো
ঘৃণার বারুদে।
১৯৪৭-
সেই কবে চালকবিহীন বাসে
উঠে পড়েছিলাম,
পেছনের সত্তর বছর কাঁদছে নীরবে
শেষ স্টপে
ক্রাচ হাতে দাঁড়িয়ে আছে
বোবা ইতিহাস! (সম্পূর্ণ…)

অলভী সরকারের একগুচ্ছ কবিতা

অলভী সরকার | ১৯ জানুয়ারি ২০১৭ ৬:৫০ অপরাহ্ন

আমি আর কোথাও থাকি না

মাঝে মাঝে কিছুক্ষণ,
কোথাও থাকি না আমি।

ফিরে এলে দেখি,
এক মিনিট,
এক ঘণ্টা,
সম্পূর্ণ একটি দিন
পার হয়ে গ্যাছে।

সিগনালে, সড়কবাতির নিচে
আটকা পড়ে শ্রমিকের গাড়ি।
রাতের শহর।

কয়েকটি পুরুষ মশা
গলে যাচ্ছে নখের খোঁচায়
রক্তহীন।

অতঃপর, সড়কবাতির নিচে
তালাবন্ধ খুচরো দোকান,
পোড়া সিগারেট, আধা-ভেজা
টি ব্যাগের স্তুপ।
অজস্র পিঁপড়ার লাশ। (সম্পূর্ণ…)

এই শীতে পাতাগুলি পাখি হয়ে যায়

মুহম্মদ নূরুল হুদা | ১৮ জানুয়ারি ২০১৭ ৮:৪৬ অপরাহ্ন

এই শীতে শব্দগুলি পাখি হয়ে যায়;
শূন্যের হৃদয় ছেড়ে খুঁড়ে খায়
অন্য এক শূন্যের হৃদয়:
এই শীতে পাতাগুলি পাখি হয়ে যায়;
উড়ে উড়ে এতোটা সদয় তুমি,
হায় তরু, এতোটা নির্দয়!

অনঙ্গ হৃদয় ছেড়ে ফিরে আসো,
শব্দ-নারী, অঙ্গের ভিতর;
যেহেতু পাথর নও, শব্দ-বধূ,
নও তুমি যেহেতু নিথর।

মানুষ শুশ্রুষা পেলে
উড়ে যায় পাখির ডানায়,
ভালোবাসা আলোভাষা,
শুধুমাত্র সদাচারী মানুষে মানায়। (সম্পূর্ণ…)

প্রদীপ করের পাঁচটি কবিতা

প্রদীপ কর | ১৮ জানুয়ারি ২০১৭ ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন


দরজা

আমার বাড়িতে অনেকগুলো ঘর।
যতগুলো দরজা আছে
জানলা আছে তারও চেয়ে বেশি।
আলোবাতাস আসে। এই ঘরে
যতগুলি দরজা আছে
ততগুলি
মানুষ তো নেই
ফলে
আমি একাই ভিতরে বাইরে আসা যাওয়া করি…
তাই, দরজাগুলি সকল সময় খোলা থাকে

আমি সমস্ত দরজাই সব সময় খুলে রাখতে চাই
তার জন্য
আজ না হোক, কাল বা পরশু বা তার পরদিন

সে, যদি অন্তরে প্রবেশ করতে চায়… (সম্পূর্ণ…)

মাহবুব আজীজের পাঁচটি কবিতা

মাহবুব আজীজ | ১৬ জানুয়ারি ২০১৭ ৬:২৭ অপরাহ্ন

আরও একটি ট্রেন

farzanaআরও একটি ট্রেন চলে গেল
ধীরে ধীরে প্লাটফর্ম ছেড়ে এগোল।
ঝমঝম শব্দ চারপাশ দুলিয়ে কাঁপিয়ে,
যেন বিশাল এক অজগর যাচ্ছে চলে হেলেদুলে;
আকষ্মিক গতি এলো তার শরীরে, প্রচন্ড, উড়ে যাবে মুহূর্তে!

তাকিয়ে তাকিয়ে দেখলুম একটানা
না। ট্রেনে উঠতে ইচ্ছে হলো না এবারও;
আমারই চোখের সমুখে ক্রমশ প্রাণবান হয়ে
দাঁড়িয়ে থাকা ট্রেন গতিময় হয়ে উঠল।
যাক না; যার ইচ্ছে, যখন-খুশি
আমি আরও একটু দাঁড়িয়ে থাকি। (সম্পূর্ণ…)

মাহী ফ্লোরার একগুচ্ছ কবিতা

মাহী ফ্লোরা | ৭ জানুয়ারি ২০১৭ ৩:২২ অপরাহ্ন

১.
কয়েক মাইল শূন্যতার ভেতর ঘুরপাক খাচ্ছে আমার মাঝবয়সী ভুল।
এই স্বপ্নের সাথে সেই স্বপ্নের মিল নেই! জীবনের কথা ভাবতে ভাবতে
আমিও সেই পাহাড়ি স্কুলে গিয়ে চাকরি চাইব। আর গোল একুরিয়ামে
চাষ হতে থাকবে কিছু ঔষধি মাছ!

ভাল লাগছেনা আমার, এভাবে কত আর পিছু টানবে হে বৈশাখ?

২.
পথ থেমে আছে, শূন্য আর শূন্যের মাঝে
হলুদ সংবাদ ধারন করেছে
গোঁজামিলের চিবুক।

হেঁটে হেঁটে আমার ক্লান্তি আসে, নতুন
বৃক্ষের নিচে কয়েকটি মুখ, আমিও নেব
প্রতিশোধ, হব ব্যস্ত কাঁচপোকা!

এই নামজন্মের শেষে দেখি আমার পা
উল্টে গেছে, আমি এখন কোন মুখে
জুতো পরব! (সম্পূর্ণ…)

সন্দীপন চক্রবর্তীর গুঁড়ো গুঁড়ো কবিতা

সন্দীপন চক্রবর্তী | ৬ জানুয়ারি ২০১৭ ২:১৭ অপরাহ্ন

১.
অনন্ত কোথায় থাকে? ওপাড়ার ফ্ল্যাটে?
আমাকে তো একদিন চোখ মেরেছিলো
#
ইশারা বুঝিনি, তাকে অসতী ভেবেছি —
এ লেখায় সেই পাপ তোমাতে অর্শালো

২.
বাজে কথার ভিড়ে আমার জীবন শুধু খরচ হয়ে যায়
যেসব কথা লিখবো ভাবি, সেসব কিছু লেখা হয় না আর
#
কে কার আগে মাংসখণ্ড দখল করে নেবে
তা নিয়ে শুধু ঈর্ষা চলে, কামড়াকামড়ি চলে
#
না-লেখা সব শব্দগুলোর দিকে রোজ ঝুঁকে পড়ে
আমাদের এই ঢাউস নিষ্ফলতা (সম্পূর্ণ…)

এলিজি: সব্যসাচীর জন্য

ফারুক আলমগীর | ২৭ december ২০১৬ ১২:২৮ অপরাহ্ন

samsul-haque_90797.jpg

মধ্য পৌষের সন্ধ্যায় খোলা আকাশের নিচে
হয়েছিলো উৎসব তোমার জন্মদিনের
কবিতা পরিষদের কবিরা ছাড়াও ছিলো
অনেক শুভার্থী যারা শুনবে তোমার কথা
কোমল কঠিন প্রিয় বাংলাদেশের কালপঞ্জী
অশতি-বর্ষের যেন এক পদযাত্রার শুমারি। (সম্পূর্ণ…)

বচনগুলো ফের বৃষ্টি ফের শস্য

ঝর্না রহমান | ২৭ december ২০১৬ ১১:২২ পূর্বাহ্ন

Syed+Shamsul+Haq_26092016_0001জলের ঈশ্বরীগণ মুঠো ভরে এনেছিল বৃষ্টিবীজদানা
তোমার শিথান থেকে পইঠানে ব্যপ্ত হয় জাগর জমিন
ধূসর নেকাব খুলে ভুরু তুলে ঘাই মারে হাসিন জেনানা
তর্জনীতে এঁকে দাও দুই ঠোঁট ফাঁক করে চন্দনের চিন
প্রবীণ রাজত্ব থেকে বিনা শর্তে রাজকন্যা তুমি কর জয়
তোমার মহলগুলো যুবতী দেহের মতো, খিলান গম্বুজ
তোমাকে দারুণ বাঁধে, আষ্টেপৃষ্ঠে, কেড়ে নেয় তোমার হৃদয়
তশ্তরি সাজিয়ে আনে তীব্র লাল রক্তরসে হৃৎ-তরমুজ। (সম্পূর্ণ…)

ফারহানা রহমানের তিনটি কবিতা

ফারহানা রহমান | ২১ december ২০১৬ ১০:২০ পূর্বাহ্ন

mainor
হ্যালুসিনেশন

সম্মোহিত হয়ে আছি
পড়ে আছে একলা আকাশ
এখন হ্যালুসিনেশনে-
লাল লিটমাস
নীল লিটমাস
ছেঁড়া ছেঁড়া অবয়ব গোধূলির ঝাউবনে;
বাদল সন্ধ্যার দুরন্তপনা গিয়ে মিশে গেছে ফেনায়িত তরঙ্গে
যেমন রৌদ্রের নৈঃশব্দ্য জলরং এঁকে দেয় গুল্মবনের গায়ে
তৃষ্ণা জেগে আছে চোখে, নগ্ন সাদা মনে…

ঝড়ো রাত
টর্চের লাইট নিভে গেলে আলোতে আঁধার জমে যায়
খোসা ছাড়ায় সন্ধ্যেবাতি
নকশায় মিশে থাকে তারকাঘচিত রাত মরুভূমি অরণ্যের মতো লাগে
শূন্যপথে দীর্ণ হাহাকার থাকে
মেঘের ডানায় শঙ্খচিল শুয়ে থাকে
দুর্গচূড়ায় একা আসে ঝড়ো রাত ছলনায় ভুলে
ভালবাসা পেলে। (সম্পূর্ণ…)

« আগের পাতা | পরের পাতা »

Disclaimer & Privacy Policy  |  About us  |  Contact us

© bdnews24.com