অনুবাদ

সদ্যপ্রয়াত কবি জন অ্যাশবেরির সাক্ষাৎকার: সমালোচনা লেখা একটা সম্পূর্ণ ভিন্ন প্রক্রিয়া

ফাতেমা খান | ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ৩:২৩ অপরাহ্ন

Ashberyজন অ্যাশবেরি গত পঞ্চাশ বছর যাবত “মহত্তম জীবিত কবি” – এই অভিধার যথার্থ প্রতিদ্বন্দী হিসেবে ছিলেন। এরই মধ্যে তিনি লিখেছেন প্রথমে Art news এবং পরে New York Herald Tribune ও Newsweek এর প্যারিস সংস্করণের জন্য। স্তেফান মালার্মে, আর্তুর র‌্যাঁবো, রেমোঁ রাসেল এবং জর্জিও চিরিকোর রচনাসহ ফরাসী আভাগার্দ লেখকদের গীতল ও নির্ভরযোগ্য অনুবাদের মাধ্যমে মার্কিন ও ফরাসী ভাবনার নান্দনিকতার মাঝে এক কেন্দ্রীয় সংযোগ হিসেবে ছিলেন। জ্যারেট আর্নেস্টের সঙ্গে সদ্যপ্রয়াত কবি জন অ্যাশবেরি কথা বলেছিলেন তাঁর জীবন ও লেখার বিভিন্ন দিক নিয়ে এই সাক্ষাতকারে। এটি প্রকাশিত হয়েছিল The Booklyn Rail পত্রিকায় ২০১৬ সালের ৩ মে। এই সাক্ষাৎকারের থাকছে অ্যাশবেরির আঁকা চিত্রকর্মও। সাক্ষাৎকারটি অনুবাদ করেছেন ফাতেমা খান।

জ্যারেট আর্নেস্ট রেইল: আপনার কবিতা সম্পর্কে আমি অন্য সবার মত গতানুগতিক কবিসুলভ প্রশ্ন করার পরিবর্তে আপনার জীবন ও কাজ নিয়ে মানবোচিত প্রশ্ন করব, যদি তাতে আপনার সম্মতি থাকে।
জন অ্যাশবেরি: ঠিক আছে।
জ্যারেট আর্নেস্ট রেইল: Ashbery: Collected Poems 1956–1987 বইটির জীবনপঞ্জীতে আশ্চর্য হয়েছিলাম আপনার সম্পর্কে এই কথাগুালো দেখে: “Life ম্যাগাজিনে নিউ ইয়র্কের মডার্ন আর্ট মিউজিয়ামে অনুষ্ঠিত সুররিয়ালিজমের শীর্ষস্থানীয় প্রদর্শনী সম্পর্কে পড়ে সুররিয়ালিস্ট চিত্রশিল্পী হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। ” আপনার বয়স তখন নয় বছর। এটা লক্ষ্য করা বেশ মজার ব্যাপার যে আপনি কবিতা নয়, বরং চিত্রকলার মা্ধ্যমে সুররিয়ালিজমের সাথে পরিচিত হয়েছেন।
জন অ্যাশবেরি: হ্যাঁ – আসলে ওই নিবন্ধের মাধ্যমে। মূলতঃ সেই সময় প্রতি সপ্তাহে আমার Life পত্রিকাটি পড়া হত, যেমন এদেশের আর সবাই পড়ত। মনে হয় না আমি এই পত্রিকাটি পড়ে সুরিয়ালিস্ট পেইন্টার হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। আমি রচেস্টার মিউজিয়ামে আর্ট ক্লাসে আর্ট শিখিয়েছিলাম, আমার বড় হয়ে ওঠা সেখানেই। আর্ট ক্লাসে আমি আমার শিক্ষককে সুররিয়ালিজম সম্পর্কে জিজ্ঞেস করেছিলাম। উনি আমাকে বলেছিলেন “ সুররিয়ালিস্ট ধরনের কিছু চেষ্টা করছ না কেন?” তো আমি আমার আঁকায় সাধারণ পেইন্টিঙের পরিবর্তে সুরিয়ালিজম প্রয়োগের চেষ্টা করতাম। আমার কাছে এটা মহৎ ধারণা বলে মনে হয়েছিল। প্রতিদিন আমি এই কাজটি করতাম– বিশেষতঃ মহিলাদের পোষাকের ছবি। আমি ভাবতাম আমি বড় হয়ে একজন ড্রেস ডিজাইনার হব যেটায় আমি আসলেই ভাল ছিলাম। সময়টা ছিল ’৩০-এর দশকের শেষের দিকে। কিছু শিশুতোষ পদক্ষেপের কথা বাদ দিলে আমি সত্যিকার কবিতা লেখা শুরু করিনি ’৪০-এর দশকের আগ পর্যন্ত। এরপর যখন থেকে কবিতা লেখা শুরু করলাম তখন থেকে এটা আমার জীবনে আমৃত্যু সঙ্গী হয়ে রইল। (সম্পূর্ণ…)

স্প্যানিশ আখরে নজরুল-পাঠ

মারিয়া এলেনা বাররেরা-আগারওয়াল | ২০ জুলাই ২০১৭ ৯:৫৭ পূর্বাহ্ন

স্প্যানিশ ভাষায় নজরুল-সাহিত্যের প্রথম অনুবাদক একুয়াদরের প্রাবন্ধিক ও অনুবাদক মারিয়া এলেনা বাররেরা আগারওয়াল নজরুল-অনুবাদের অভিজ্ঞতা নিয়ে সম্প্রতি ইংরেজি পত্রিকা ঢাকা ট্রিবিউনে একটি প্রবন্ধ লেখেন। এতে তিনি নজরুলের বিশ্বজনীন আবেদন ও অনুবাদের সমস্যা ও প্রয়োজনীয়তা নিয়ে যে গুরুত্বপূর্ণ পর্যবেক্ষণ ও অভিমত জানিয়েছেন তা বাংলাভাষার লেখক/পাঠকের কাছে তাৎপর্যময় বলে বিবেচিত হতে পারে ভেবে তর্জমা করা হলো। প্রবন্ধটি অনুবাদ করেছেন শাকিলা পারভীন বীথি। বি. স.
প্রাক -কথন
Nazrul-2 আমার বেড়ে ওঠার কালে রবীদ্র-সাহিত্যের স্প্যানিশ অনুবাদ গ্রন্থ ছিল অন্যতম অনুষঙ্গ । আমার ব্যাক্তিগত লাইব্রেরিতে সেনোবিয়া কাম্প্রুবি ও হুয়ান র‌ামন হিমেনেস-এর যুগ্ম অনুবাদ গ্রন্থ ছিল । গ্রন্থগুলো আর্জেন্টিনার লোসাদা প্রকাশনী কর্তৃক সম্পাদিত । রবি ঠাকুর ছিলেন আমাদের ঘরে এক সুপরিচিত নাম । আমার নানা , যিনি নিজেও কিনা কবি , তাকে ভীষণ পছন্দ করতেন । আমার মায়ের স্মৃতিকে আচ্ছন্ন করে রেখেছিল তার বহু কবিতা । মা প্রায়শই রবীন্দ্রনাথের কবিতা আবৃত্তি করতেন । ঘরের বাইরে উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ক্যারিকুলামের সৌজন্যে বেশ গুরুত্বের সাথেই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে পাঠের সুযোগ আমার হয়েছিল । কে না জানতো তিনি লাতিন আমেরিকার সেই ত্রয়ী নোবেল বিজয়ী পাবলো নেরুদা , গাব্রিয়েলা মিস্ত্রাল ও অক্তাভিও পাসকে কতখানি প্রভাবিত করেছিলেন !

ইউরোপ এবং আমেরিকায় গিয়ে আমার ঠিক ভিন্নধর্মী অভিজ্ঞতা হল । দেখলাম সেখানকার মানুষজন রবীন্দ্রনাথের সাহিত্য সম্পর্কে ওয়াকিবহাল না । তাঁর প্রসংগ তুললে ওরা এমন ভাবলেশহীন দৃষ্টিতে তাকাতো ! বিষয়টি আমাকে বিস্মিত করেছিল । আমার ধারণা ছিল লাতিন আমেরিকার মতো ইউরোপ – আমেরিকাতেও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হবেন পরিচিত এক নাম । তখন আমার মনে হল তাঁর সাহিত্যকর্মের স্প্যানিশ অনুবাদের পশ্চাতে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছে হয়তো নোবেল জয় । তবে এইরূপ বৈপরীত্য সত্যি আমাকে হতবিহ্বল করার জন্য যথেষ্ট ছিল । ঠিক কাছাকাছি সময়েই আমার সৌভাগ্য হয় ভারতীয় উপমহাদেশীয় কিছু মানুষের সংস্পর্শে আসার । তাদের মাধ্যমেই জানলাম নিজ উপমহাদেশীয় পরিমন্ডলে কতখানি সুউচ্চে তার আসন। (সম্পূর্ণ…)

লুসি কালানিথি: বৈধব্য আমার যুগল জীবনের সমাপ্তি টানেনি

রেশমী নন্দী | ১ মার্চ ২০১৭ ২:১৮ অপরাহ্ন

paulপল কালানিথি, মৃত্যুর আগ পর্যন্ত চিকিৎসক হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির নিউরোসার্জিকাল বিভাগে। ২০১৩ সালের মে মাসে তাঁর ফুসফুসে ক্যান্সার ধরা পড়ে। বেঁচে ছিলেন আরো বছর দুয়েক। ২০১৫ সালে মার্চ মাসে মারা যাবার আগ পর্যন্ত একজন রোগী হিসেবে এই চিকিৎসক মৃত্যুর দিকে তাঁর যাত্রা অভিজ্ঞতার কথা লিখে গেছেন যা তাঁর মৃত্যুর পর “When Breath Becomes Air” নামে প্রকাশিত হয়। তাঁর স্ত্রী লুসি কালানিথি, যিনি নিজেও একই বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লিনিকাল একসিলেন্স রিসার্চ সেন্টারে কর্মরত, বইটির পরিশেষ অংশে লেখেন তাঁর প্রিয় হারানোর বেদনা আর মৃত পলের হাত ধরে জীবনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার কথা। লেখাটি অনুবাদ করেছেন রেশমী নন্দী।

গত মার্চে (মার্চ, ২০১৫) মাত্র ৩৭ বছর বয়সে আমার বর মারা যাওয়ার পর আমি শোকে এতটাই মূহ্যমান পড়েছিলাম যে দিনের পর দিন ঘুমাতে পারতাম না। সান্তাক্রুজ পাহাড়ের উঁচু মাঠে ওর যেখান সমাধি, একদিন বিকেলে সেখানে গেলাম। প্রশান্ত মহাসাগরের দিকে ঘুরেও না তাকিয়ে শুয়ে পড়লাম ওর সমাধির উপর। অনেকদিন পর গভীর ঘুমে ঢলে পড়লাম। চারপাশের প্রকৃতি নয়, অশান্ত আমাকে শান্ত করেছিল পল যে ওখানেই ছিল, মাটির নীচে। ওর শরীরকে কত সহজে মনে করতে পারছি- রাতের বেলা ওকে ছুঁয়ে শুয়ে থাকা, আমার মেয়ের জন্মের সময় ওর যে নরম হাতগুলো জোরে চেপে ধরেছিলাম সেগুলো, ক্যান্সারে শুকিয়ে যাওয়ার পরও মুখের উপর ওর তীক্ষ্ন চোখ — তবুও কি কঠিন ওকে ছোঁয়া। তার বদলে মাটিতে গাল লাগিয়ে আমি ঘাসের উপর শুয়েছিলাম।
ওর সাথে পরিচয়ের পর থেকেই আমি ওকে ভালবাসতাম। ২০০৩ সালে আমরা তখন মেডিকেলের শিক্ষার্থী। ও ছিল এমন একজন যে সত্যিকার অর্থেই মানুষকে হাসাতে পারতো ( স্নাতক পড়াকালীন গরিলার পোষাক গায়ে দিয়ে ও লন্ডনে ঘুরে বেড়িয়েছিল, বাকিংহাম প্যালেসে গিয়ে ছবি তুলেছিল, টিউবে চড়েছিল)। কিন্তু একই সাথে ও ছিল গভীর প্রজ্ঞার অধিকারী। ওর পরিকল্পনা ছিল ইংরেজী সাহিত্যে স্নাতোকত্তর শেষ করে পিএইচডি করবে, কিন্তু তার বদলে ও মেডিকেল স্কুলে যোগ দিল গভীর এক আকাঙ্খা নিয়ে। পরে ও লিখেছিল- “ এমন কিছু প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে যা বইয়ে লেখা নেই … এমন প্রশ্নের পিছনে ধাওয়া করতে যার জবাবে মিলবে মৃত্যু ও নিঃশেষের মুখোমুখি দাঁড়িয়েও মানুষের জীবনের অর্থময়তার উৎস।” (সম্পূর্ণ…)

চিকিৎসক হিসেবে আমার শেষদিন

রেশমী নন্দী | ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১১:৩১ পূর্বাহ্ন

kalanithi-1২০১৩ সালের মে মাসে, স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির নিউরোসার্জিকাল রেসিডেন্ট পল কালানিথির ফুসফুসে ক্যান্সার ধরা পড়ে। ৩৬ বছর বয়সী এ চিকিৎসকের মেটাস্টিক লাংস ক্যান্সার তখন চতুর্থ ধাপে। ২০১৫ সালে মার্চ মাসে মারা যাবার আগ পর্যন্ত এ দুবছরে তিনি তাঁর চিকিৎসা সংক্রান্ত লেখাপড়া চালিয়ে গেছেন, এক সন্তানের জনক হয়েছেন এবং একজন চিকিৎসক একই সাথে একজন রোগী হিসেবে অবশ্যম্ভাবি এ যাত্রার অভিজ্ঞতার কথা লিখে গেছেন অসাধারণ বর্ণনায়। তাঁর মৃত্যুর পর “Random House” প্রকাশনী সংস্থা থেকে প্রকাশিত হয় এ লেখা। When Breath Becomes Air শিরোনামে বইটি প্রকাশিত হয় ১২ জানুয়ারী ২০১৬ তারিখে। বইটিতে চিকিৎসক হিসেবে তাঁর জীবনের শেষ দিনের বর্ণনা প্রকাশিত হয় ‘দি নিউইয়র্কার’ পত্রিকায়। পল কালানিথির এই লেখাটি অনুবাদ করেছেন রেশমী নন্দী। ……

অপারেশনের সাত মাস পর একদিন, সিটি স্ক্যান শেষ হতেই লাফ দিয়ে নেমেছি। রেসিডেন্সি শেষের আগে, একজন বাবা হিসেবে নবজন্মের আগে, ভবিষ্যতের সত্য বর্তমান হওয়ার আগে এটাই আমার শেষ স্ক্যান।
টেকনিশিয়ান বললেন, “রিপোর্টে চোখ বুলাবেন?”
আমি বলেছিলাম, “এখন না, আজ অনেক কাজ আছে।”
তখনই ৬টা বেজে গিয়েছিল। রোগী দেখতে যেতে হবে, পরের দিনের অপারেশনের সময় ঠিক করতে হবে, আনুষাঙ্গিক কাগজপত্রে চোখ বুলাতে হবে, ক্লিনিক নোটস লিখতে হবে, পোষ্ট অপারেশনের রোগীও দেখতে যেতে হবে এবং এরকম আরো শত কাজ। রাত ৮টার দিকে, নিউরোসার্জারির অফিসরুমে বসে পরের দিনের জন্য রোগীদের স্ক্যান রিপোর্ট দেখছিলাম এক এক করে, এরপর একসময় নিজের নাম টাইপ করলাম। বাচ্চাদের বইয়ের ছবি দেখার মতো করে এবার আর গতবারের রিপোর্টের ইমেজগুলো মিলাচ্ছিলাম-সব একই রকম আছে, পুরোনো টিউমারটাও আগের মতোই আছে, কেবল…. (সম্পূর্ণ…)

গার্সিয়া মার্কেসের প্রবন্ধ: এন্থনি কুইনের বোকামি

রাজু আলাউদ্দিন | ৩০ december ২০১৬ ১:১৯ পূর্বাহ্ন

Comboঅগ্রন্থিত অবস্থায় গাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেসের প্রচুর লেখা এখনও ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে বিভিন্ন পত্রিকায়। এটি সেগুলোরই একটি। লেখাটির এখনও কোনও ইংরেজি অনুবাদ হয়নি। বাংলা ভাষাতেও সম্ভবত এই প্রথম অনূদিত হল। অনুবাদক রাজু আলাউদ্দিন লেখাটি উদ্ধার করেছেন মেক্সিকো থেকে প্রকাশিত বিখ্যাত সাপ্তাহিক পত্রিকা ‘এল প্রোসেসো’র ১৯৮২ সালের ১৯ এপ্রিল সংখ্যাটি থেকে। স্প্যানিশ থেকে লেখাটির পূর্ণাঙ্গ অনুবাদ এখানে হাজির করা হল। প্রবাদপ্রতিম উপন্যাস শতবর্ষের নিঃসঙ্গতার চলচ্চিত্রায়নের সম্ভাবনাকে কেন্দ্র করে যে ঘটনাগুলো ঘটেছিল, মার্কেস এই লেখায় তারই বর্ণনা দিয়েছেন।

অভিনেতা এন্থনি কুইন স্পেনের এক পত্রিকায় জানালেন, “টেলিভিশনে ৫০ ঘন্টার এক সিরিয়ালের জন্য শতবর্ষের নিঃসঙ্গতা হতে পারে একটি চমৎকার জিনিস। কিন্তু গাসিয়া মার্কেস তা বিক্রি করতে চান না।” আরও বললেন, “আমি এক মিলিয়ন ডলারের প্রস্তাব দিয়েছিলাম, রাজি হননি, কারণ গার্সিয়া মার্কেস কমিউনিস্ট এবং তিনি এক মিলিয়ন ডলার নিয়েছেন–এটা কাউকে জানতে দিতে চান না। কারণ নৈশভোজের শেষে তিনি এসে আমাকে আলাদাভাবে ডেকে নিয়ে বললেন, “আচ্ছা বলুন তো, প্রকাশ্যে এই টাকা-পয়সা প্রস্তাব করার ব্যাপারটা আপনার মাথায় এল কী করে? পরেরবার আমাকে আপনি কোনও রকম সাক্ষী-সাবুদ ছাড়া টাকার প্রস্তাব করুন।” (সম্পূর্ণ…)

হেমিংওয়ের মৃত্যুতে গার্সিয়া মার্কেসের প্রবন্ধ: একজন মানুষের স্বাভাবিক মৃত্যু

যুবায়ের মাহবুব | ৪ december ২০১৬ ৭:৪৯ অপরাহ্ন

১৯৬১ সালের ২ জুলাই নতুন জীবন গড়ার উদ্দেশ্যে সপরিবারে মেহিকো সিটিতে এসে পৌঁছান তরুণ কলম্বিয় লেখক গাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেস। ঘটনাক্রমে সেই একই দিনে মহাদেশের আরেক কোণে আত্মহত্যা করেন নোবেল বিজয়ী মার্কিন সাহিত্যিক আর্নেস্ট হেমিংওয়ে। সংবাদটি পেয়ে তার ব্যক্তিগত আইডল হেমিংওয়ের প্রতি একটি শ্রদ্ধার্ঘ লিখেছিলেন গার্সিয়া মার্কেস, যেটি সপ্তাহখানেক পর স্থানীয় একটি সাংস্কৃতিক পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। যতদূর জানা যায়, মেহিকোয় প্রকাশিত সেটিই ছিল গার্সিয়া মার্কেসের প্রথম গদ্য রচনা। প্রথমবারের মত এটি বাংলায় অনুবাদ করেছেন অনুবাদক যুবায়ের মাহবুব।
Hemingway-1

এবার বোধ হয় গুঞ্জনটি সত্যি – আর্নেস্ট হেমিংওয়ে আর নেই। দূর-দূরান্তে, পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে এই সংবাদ সবাইকে নাড়িয়ে দিয়েছে, খবরটি পৌঁছে গেছে ক্যাফের বয়-বেয়ারাদের কাছে, শিকারী গাইড আর শিক্ষার্থী ম্যাটাডোরের কাছে, জেনে গেছেন ট্যাক্সি চালক, ভগ্নস্বাস্থ্য মুষ্টিযোদ্ধা, অবসরপ্রাপ্ত জনৈক বেনামী বন্দুকবাজ।

অথচ যুক্তরাষ্ট্রের আইডাহো অঙ্গরাজ্যের কেচাম নামের ছোট্ট শহরে এই সুনাগরিকের মৃত্যু স্রেফ একটি দুঃখজনক স্থানীয় ঘটনা হিসেবে দেখা হচ্ছে, ওর বেশি কিছু নয়। গ্রীষ্মের গরমে তপ্ত এক ঘরে গত ছয় দিন ধরে লাশ রেখে দেয়া হয়েছে, সামরিক সম্মাননা প্রাপ্তির কোন দুরাশায় নয়, বরং আফ্রিকায় সিংহ শিকারে গেছেন এমন একজনের ফিরে আসার অপেক্ষায়। পর্বতশৃঙ্গে মৃত চিতাবাঘের বরফজমাট দেহের পাশে এই লাশ খোলামেলা পড়ে থাকবে না শেয়াল-শকুনের আহার হয়ে, বরং মার্কিন মুল্লুকের অতিশয় শুচিশুদ্ধ কোন এক গোরস্থানে তিনি শোবেন শান্তিতে, তাকে ঘিরে থাকবে আরো কিছু চেনাশোনা মরদেহ। (সম্পূর্ণ…)

শব্দের জাদু– অনুবাদে ঠিক কতটা হারাই?

রেশমী নন্দী | ১৯ নভেম্বর ২০১৬ ১:১৩ অপরাহ্ন

TranslationDictionary of Untranslatables: A Philosophical Lexicon বইটি মূলত ফরাসী ভাষায় লিখিত। পরে প্রিন্সটন ইউনিভার্সিটি প্রেস থেকে তিন গুণী ভাষাবিদের সম্পাদনায় ইংরেজীতে প্রকাশিত হয় বইটি। প্রায় ডজনখানেক ভাষার দর্শন, সাহিত্য এবং রাজনৈতিক ৪০০ শব্দের উপর নানা দিক থেকে আলোকপাত করে মূলের কাছাকাছি যাওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে বইটিতে। এই বই নিয়ে আলোচনার সূত্র ধরেই “দি নিউইয়র্কার” -এ এ্যাডাম গুপনিক এই লেখাটি লেখেন। অনুবাদ করেছেন রেশমী নন্দী। বি. স.

ইতালীতে একবার একটা রেষ্টুরেন্টে পরিবার নিয়ে খেতে গিয়েছিলাম। ঊনিশ শতকের লেখকের ভঙ্গীতে বললে বলতে হয়, সামান্য একটা ভুলেই আমি পারিবারিকভাবে বোকা উপাধি পেয়েছিলাম। ইতালীয় দুটি শব্দের সূক্ষ্ণ পার্থক্য না বুঝে এর ব্যবহারই এ দূর্ঘটনার কারণ। ডেজার্টে স্ট্রবেরী অর্ডার দিতে খুব কায়দা করে উচ্চারণ করতে চেয়েছিলাম “fragoline”। পরে দেখলাম, আসলে যা বলেছি তা হলো “fagiolini” যার অর্থ হলো মটরশুটি। ফলে বাচ্চাদের জন্য পেস্ট্রি আর আইসক্রিমের সাথে বেশ সাড়ম্বরে আমার ডেজার্ট হিসেবে এসেছিল কফি আর মটরশুটি। কয়েক মুহূর্তের মধ্যে আমার বাচ্চাদের যে হাসি শুরু হয়েছিল, সেটা এখনো মাঝে মাঝে নানা কারণে উসকে উঠে। একটা অক্ষর “r” সেদিন যে কারণে ইতালীয় ঐ রেষ্টুরেন্টে একটা পরিবারে একজনকে বোকা বলে চিনিয়ে দিল, তা হলো ভাষার নিজস্ব খামখেয়ালীপনা। যদিও কথা বলা এখন নিঃশ্বাস নেয়ার মতোই স্বাভাবিক ঘটনা, কিন্তু সত্য হলো এই যে শব্দগুলো আসলে খুব অদ্ভুত, বিমূর্ত একধরনের প্রতীক- মিশরীয় চিত্রলিপির মতোই দুর্বোধ্য, মিশরীয় সমাধির মতোই যে কাউকে ঘোল খাইয়ে দিতে পারে। (সম্পূর্ণ…)

বব ডিলানের সাক্ষাৎকার: আবেগ তারুণ্যে মানায়, প্রজ্ঞা প্রবীণে

আবদুস সেলিম | ১৮ অক্টোবর ২০১৬ ১০:৫২ অপরাহ্ন

bob-4বব ডিলান এই সাক্ষাৎকার দেন তার ‘শ্যাডো ইন দ্য নাইট’ প্রকাশনা কালে যেখানে তিনি শিল্পের প্রকাশশৈলী এবং ঐতিহ্য নিয়ে কথা বলেন এবং তার জীবন ও দর্শনের উপর প্রভাব বিস্তারকারী দুর্লভ অন্তর্দৃষ্টির ব্যাখ্যা ও বিশ্লেষণ তুলে ধরেন। রবার্ট লাভ-এর নেয়া এই সাক্ষাৎকারটি প্রকাশিত হয়েছিল Independent পত্রিকায় ২০১৫ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি। এটি বাংলায় তর্জমা করেছেন অধ্যাপক অনুবাদক আবদুস সেলিম। বি. স.
প্রশ্ন: সমালোচক-প্রশংসিত একাধিক মৌলিক গানের পর আপনি এই রেকর্ডটি কেনো প্রকাশ করলেন?
উত্তর: এটাই তো সঠিক সময়। সত্তর দশকের শেষা-শেষি উইলি (নেলসনের) ‘স্টারডাস্ট’ রেকর্ড শোনবার পর থেকেই বিষয়টা নিয়ে আমি ভাবছিলাম। ভাবছিলাম আমিও তো এমন একটা কাজ করতে পারি। তাই দেখা করতে গেলাম কলাম্বিয়া রেকর্ডস-এর প্রেসিডেন্ট ওয়াল্টার ইয়েটনিকফের সাথে। খুলে বল্লাম তাকে যে আমি উইলির মতো একটা মানসম্পন্ন রেকর্ড বের করতে চাই। সে বল্লো: করুন, তাতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই, কিন্তু আপনাকে আমরা কোনো পারিশ্রমিকও দিতে পারবো না এবং তা বাজারজাত করতেও সাহায্য করতে পারবো না। তবুও যদি চান করতে পারেন। ফলে ওটা বাদ দিয়ে আমি স্ট্রিট লিগাল করলাম। এখন বুঝি ঈয়েটনিকফ সম্ভবত সঠিকই ছিলো। মানসম্পন্ন রেকর্ড করার সময় তখনও আমার হয় নি।
বছরের পর বছর আমি অন্যের গাওয়া ঐসব গান শুনেছি আর অমন গান করার জন্যে অনুপ্রাণিত হয়েছি। অন্যরাও আমার মতো ভাবতো কিনা জানি না। রড [স্টুয়ার্টের] মানসম্পন্ন গান শুনতে আমি বেশ উৎসাহী ছিলাম কারণ আমি বিশ্বাস করতাম ঐসব গানের ভেতর যদি কেউ কোনো পরিবর্তন আনতে পারে সে কেবল রডই পারবে। কিন্তু রড আমাকে হতাশ করেছে। রড এক মহান গায়ক কিন্তু ৩০টা অর্কেস্ট্রা পেছনে বসিয়ে রডকে গান করানো সম্পূর্ণ ভুল। আমি কারও উপার্জনের অধিকার খর্ব করতে চাই না। কিন্তু কোনো গায়ক তার হৃদয় দিয়ে গান গাইছে কিনা সেটা সহজেই বোঝা যায়। আর রড যে তার মনপ্রাণ সংযোগ করে গানগুলো গায়নি সেটা আমার স্পষ্ট মনে হয়েছে। গানগুলো শুনলে মনে হয় কণ্ঠস্বরকে রেকর্ডে উচ্চারিত করে সংজোযন করা হয়েছে। আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করলে ঐজাতীয় গান কখনও ভাল হয় না।
আমরা যেসব গানের সাথে বেড়ে উঠেছি এবং বিষয়টা নিয়ে তেমন ভাবতি হইনি, বেশ জানি রক এন রোল ঐ জাতীয় গানকেই বিনাশ করতে এসেছিল–যেমন, মিউজিক হল, ট্যাংগো, চল্লিশের দশকের পপ গান, ফক্সট্রটস, রাম্বাস, আরভিং বার্লিন, হ্যারল্ড আরলেন, হ্যাম্যারস্টেইন। এরা সবাই খ্যাতিমান সঙ্গীতজ্ঞ ছিলেন। আজকের গায়করা এসব গীতবাদ্য ও গানের কথা ভাবতেও পারে না। (সম্পূর্ণ…)

রবার্ট ব্রাউনিং সম্পর্কে হোর্হে লুইস বোর্হেসের বক্তৃতা

আবদুস সেলিম | ২৫ আগস্ট ২০১৬ ৩:৪৯ অপরাহ্ন

Jorge Luis Borgesহোর্হে লুইস বোর্হেস ১৯৬৬ সালে বুয়েনোস আইরেস বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি সাহিত্যের উপর পঁচিশটি বক্তৃতা দেন। এগুলো বহু বছর পর স্প্যানিশে মার্তিন আরিয়াস এবং মার্তিন হাদিস-এর সম্পাদনায় প্রকাশিত হয় ২০০০ সালে। আর ২০১৩ সালে এই বক্তৃতাগুলো ক্যাথেরিন সিলভার অনুবাদে ইংরেজিতে প্রকাশিত হয় প্রফেসর বোর্হেস নামক গ্রন্থে। এই গ্রন্থে অন্তর্ভুক্ত উনিশ নাম্বার বক্তৃতাটির বাংলায় তর্জমা করা হলো। তর্জমা করেছেন অধ্যাপক ও অনুবাদক আবদুস সেলিম।

ক্লাশ ১৯
রবার্ট ব্রাউনিং-এর কবিতা।
আলফন্সো রেইয়েস-এর সাথে আড্ডা।
দ্য রিং অ্যান্ড দ্য বুক।
বুধবার, নভেম্বর ৩০, ১৯৬৬

রবার্ট ব্রাউনিং-এর সাহিত্যকর্ম নিয়ে আমরা আজ আলোচনা করবো। মনে পড়ে একবার ব্রাউনিংকে তাঁর একটি কবিতার ব্যাখ্যা দেবার অনুরোধ করা হয়েছিলো। তিনি উত্তরে বলেছিলেন, কবিতাটা আমি অনেক আগে লিখেছি। যখন লিখেছিলাম তখন আমি এবং আমার ঈশ্বর জানতেন এর সঠিক ব্যাখ্যা। বর্তমানে শুধুমাত্র ঈশ্বরই জানেন এর মূল অর্থ। স্পষ্টতই তিনি প্রশ্নটির উত্তর এড়িয়ে গেছেন।
ব্রাউনিং এর কম গুরুত্বপূর্ণ কিছু কবিতা নিয়ে আমি আলোচনা করেছি। প্রসঙ্গত একটি কবিতা আমি আপনাদের কাছে সুপারিশ করবো যদিও তার সঠিক ব্যাখ্যা আমি দিতে পারবো না, এমনকি ভাসাভাসা ব্যাখ্যা দেওয়াও আমার পক্ষে সম্ভব নয়। তার লেখা সম্ভবত সবচাইতে বিস্ময়কর কবিতা এটি। কবিতাটির শিরোনাম ‘চাইল্ড রোলান্ড টু দ্য ডার্ক টাউয়ার কেইম’। চাইল্ড শব্দটির অর্থ সাদামাটা শিশু নয়, এ শিশু প্রাচীনকালের অভিজাত শিশু অর্থে ব্যবহৃত আর তাই এর ইংরেজি বানানটি হয়েছে Childe অর্থাৎ চাইল্ড শব্দটির সাথে একটি e জুড়ে দেওয়া আছে শিশুটিকে অভিজাত বংশীয় বোঝাবার জন্য। এই পংক্তিটি শেক্সপিয়র থেকে নেয়া (কিং লিয়র, তৃতীয় অঙ্ক, চতুর্থ দৃশ্যে গ্লসটারের জেষ্ঠ্যপুত্র এডগার-এর উক্তি: Childe Roland to the dark tower came,/ His world was still ‘Fie, foh and fum,/ I smell the blood of a British man.)। এটি মূলত একটি হারিয়ে যাওয়া প্রাচীন গাথার অংশ। ব্রাউনিং-এর সবচাইতে বিস্ময়কর কবিতা বোধ করি এটিই। মহান মার্কিন কবি কার্ল স্যান্ডবার্গ ‘মানিটোবা চাইল্ড রোলান্ড’ শিরোনামে একটি কবিতা রচনা করেছিলেন। কবিতার বিষয়বস্তু হলো: তিনি এক সময় একটি কবিতা মিনেসোটার এক খামারের একটি ছেলেকে পড়ে শুনিয়েছিলেন কিন্তু ছেলেটি এর বিষয়বস্ত কিছুই বুঝতে পারেনি– সম্ভবত যিনি কবিতাটি পড়ে শুনিয়েছিলেন তিনিও কিছু বোঝেননি– কিন্তু কবিতার অন্তর্গত অব্যাখ্যাত অস্পষ্ট রহস্যময়তা কিভাবে তাদের উভয়কেই আচ্ছন্ন করেছিলো সেটিই ছিল মূল। পুরো কাব্যশরীর আকীর্ন ছিল এক জাদুময় অনুপুঙ্খে। ঘটনাকাল মধ্যযুগ বলে প্রতীয়মান হয়। উল্লেখ্য ঐতিহাসিকভাবে মধ্যযুগ নয়। গ্রন্থে বর্ণিত মধ্যযুগীয় বিপথগামী নাইটদের গল্পগাথা মাত্র– যেমন দন কিহোতের বর্ণনায় মেলে। (সম্পূর্ণ…)

হোর্হে লুইস বোর্হেসের প্যারাবোল: রাজ প্রাসাদের রূপকথা

খালিকুজ্জামান ইলিয়াস | ২৩ আগস্ট ২০১৬ ৯:৫৩ অপরাহ্ন

মূলত গল্পকার হিসেবে বিশ্বব্যাপী পরিচিত হলেও, হোর্হে লুইস বোর্হেস(১৮৯৯-১৯৮৬) ছিলেন একাধারে কবি, প্রাবন্ধিক, প্যারাবোল-রচয়িতা ও গল্পকার। ২৪ আগস্ট তার ১১৭তম জন্মদিন। বাংলাভাষার শীর্ষস্থানীয় অনুবাদক ও প্রাবন্ধিক খালিকুজ্জামান ইলিয়াসের অনুবাদে বোর্হেসের অসামান্য একটি প্যারাবোল অনুবাদের মাধ্যমে আর্হেন্তিনার এই অসামান্য লেখককে বিডিনিউজটোয়েটিফোর ডটকম-এর আর্টস বিভাগের পক্ষ থেকে জানাই জন্মদিনের শ্রদ্ধাঞ্জলী। বি. স.

al-hamraসেদিন পীতাঙ্গ সম্রাট কবিকে তাঁর প্রাসাদ দেখালেন। তাঁরা প্রাসাদের পশ্চিম প্রান্তের সারবদ্ধ প্রথম অলিন্দগুলি পার হয়ে এগিয়ে গেলেন; গিয়ে দাঁড়ালেন সেখানে যেখানে মুক্তমঞ্চের অসংখ্য সিঁড়ির মতো নেমে গেছে সেইসব অলিন্দচত্তর। গিয়ে মিশেছে স্বর্গপুরীতে বা নন্দনকাননে। সেখানে ধাতব মুকুর আর পেঁচানো জটাজালে বিস্তৃত জুনিপার ঝোপঝাড় এক গোলকধাঁধারই ইঙ্গিত দেয়। প্রথমে ওরা বেশ হাস্যলাস্যেই ওই ধাঁধায় হারিয়ে গেলেন যেন বা লুকোচুরি খেলা খেলতে খেলতে; কিন্তু পরে তাঁদের চিত্তে জমে শঙ্কা কারণ সোজাসিধে পথগুলো চলিষ্ণু অবস্থাতেই ক্রমে বেঁকে যাচ্ছিল (আসলে ওই পথগুলো ছিল এক একটা গোপন বৃত্ত)। রাত ঘনিয়ে এলে তাঁরা আকাশের গ্রহরাজি দেখেন, এবং লগ্ন হলে একটা কচ্ছপ বলি দেন। এরপর সেই আপাতঃ ঘোরলাগা অঞ্চল থেকে ছিটকে বেরিয়ে আসেন, কিন্তু হারিয়ে যাওয়ার শঙ্কাবোধ থেকে বেরোতে পারেন না। এবং শেষ পর্যন্তও এই বোধ তাঁদের সঙ্গে সেঁটেই থাকে। প্রশস্ত অলিন্দ-চত্ত্বর আর পাঠাগার তাঁরা পার হয়ে আসেন, পার হন জলঘড়িরাখা ষড়ভুজ কক্ষটিও। একদিন সকালবেলা এক উচ্চমিনার থেকে তাঁরা দেখেন এক প্রস্তর মানবকে, কিন্তু লোকটা মুহূর্তে কোথায় হাওয়া হয়ে যায় যে আর কখনো তাকে দেখাই গেল না। চন্দনকাঠের নৌকায় চড়ে তারা কত ঝিলিমিলি জলের নদী পেরিয়ে গেলেন–নাকি একটি নদীই তারা বার বার পার হলেন? রাজ শোভাযাত্রা পেরিয়ে যায় কত জনপদ আর লোকে করে সাষ্ঠাঙ্গে প্রণিপাত। কিন্তু একদিন তাঁরা এক দ্বীপে এসে তাঁবু গাড়ে, সেখানে একটি লোক রাজাকে প্রণিপাত করে না কারণ সে তো কখনো দেবদূত দেখেই নি। তখন আর কি, রাজজল্লাদকে তার কল্লা নিতে হলো। কালো চুলের মাথা আর কৃষ্ণাঙ্গ যুবানৃত্য আর জটিল আঁকিবুকির সোনালী মুখোশ নির্লিপ্ত চোখে তাকিয়ে থাকে; বাস্তব আর স্বপ্নের ভেদরেখা যায় ঘুঁচে–নাকি বাস্তবই হয়ে দাঁড়ায় স্বপ্নের স্বরূপ? তখন মনেই হয় না যে পৃথিবীটা এক বাগিচা কি জলাধার কি স্থাপত্যশিল্প কি জমকালো সব সাকার বস্তুর সমাহার ছাড়া অন্য কিছু। প্রতি শতপদ ফারাকে এক একটি মিনার উঠে ফুঁড়ে গেছে নীল আকাশ; চর্মচক্ষে তাদের রঙ এক ও অভিন্ন, তবু প্রথম মিনার দেখতে হলুদ আর সারির শেষটি লাল। এই রঙের ক্রমবিস্তার খুবই নাজুক, ফিনফিনে আর মিনার সারিও খুব দীর্ঘ ও প্রলম্বিত। (সম্পূর্ণ…)

গাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেস: নিঃসঙ্গতার একশ বছর

আনিসুজ্জামান | ৯ আগস্ট ২০১৬ ১২:০১ পূর্বাহ্ন

combo.jpgবিশ্বসাহিত্যের ইতিহাসে নিঃসঙ্গতার একশ বছর-এর মতো আর কোনো উপন্যাস প্রকাশের পরপরই এতটা পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছে কিনা সন্দেহ। জনপ্রিয়তার বিচারে যেমন, তেমনি শিল্পকুশলতা আর শিল্পমুক্তির ক্ষেত্রেও এটি হয়ে উঠেছে এক অনন্য দৃষ্টান্ত। কেবল স্প্যানিশ সাহিত্যেই নয়, গোটা বিশ্বসাহিত্যের ইতিহাসেই একটি মাত্র উপন্যাসে ইতিহাস, আখ্যান, সংস্কার, কুসংস্কার, জনশ্রুতি, বাস্তব, অবাস্তব, কল্পনা, ফ্যান্টাসি, যৌন-অযাচার ও স্বপ্ন– সবকিছুর এমন স্বাভাবিক ও অবিশ্বাস্য সহাবস্থান আগে কখনও দেখা যায়নি।
ঠিক এই কারণে মারিও বার্গাস যোসা এটিকে বলেছিলেন এক সামগ্রিক উপন্যাস (Novela Total), আর পাবলো নেরুদা একে বলেছিলেন, “সের্বান্তেসের ডন কিহোতের পর স্প্যানিশ ভাষায় সম্ভবত মহত্তম উন্মোচন (“perhaps the greatest revelation in the Spanish language since Don Quixote of Cervantes.”)
বাংলাদেশে এখনও পর্যন্ত কিংবদন্তিতুল্য এই উপন্যাসটি মূলভাষা থেকে অনূদিত হয়নি। এই প্রথম এটি আনিসুজ্জামানের অনুবাদে মূল থেকে ধারাবাহিক অনূদিত হচ্ছে। বি. স.
(সম্পূর্ণ…)

উপেক্ষিত কাভাফির অর্জুন ও আমরা

রাজু আলাউদ্দিন | ২১ জুন ২০১৬ ১:৩৯ পূর্বাহ্ন

cavafy2.jpgসি. পি. কাভাফির কবিতার সঙ্গে আমার লিপ্ততা দিয়েই লেখাটা শুরু করছি বলে মার্জনা করবেন, তবে এই উল্লেখ অপ্রাসঙ্গিক হবে না বলেই ব্যক্তিগত অবতারণা। সি. পি কাভাফির কবিতা শীর্ষক একটা অনুবাদ গ্রন্থ বেরিয়েছিল ১৯৯২ সালে, তার মানে গ্রন্থভুক্ত কবিতাগুলো অনূদিত হয়েছিলো আরও অন্তত দুএক বছর আগে। তখনও পর্যন্ত কাভাফির কোন কবিতার তর্জমা-গ্রন্থ বাংলাভাষায় প্রকাশিত হয়নি। গ্রীক চিরায়ত সাহিত্যের প্রতি আমাদের প্রধান লেখক-অনুবাদকরা মনোযোগী হলেও, আধুনিক গ্রীক সাহিত্যের প্রতি তারা খুব বেশি উৎসাহী ছিলেন বলে কোনো নজির পাওয়া যায় না। অথচ আধুনিক যুগের দুজন গ্রীক কবি, জর্জ সেফেরিস ও ওডেসিয়ুস এলিটিস নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হওয়া সত্ত্বেও এই ভাষার কবিতা সম্পর্কে আমাদের কৌতূহল খুব একটা দানা বাঁধেনি। সত্য বটে জর্জ সেফেরিসের নির্বাচিত কবিতা শিরোনামে প্রয়াত শিশির কুমার দাশের একটি অনুবাদ গ্রন্থ বেরিয়েছিল নব্বুইয়ের দশকের প্রথম দিকে বোধহয়। কিন্তু এলিটিসের বাংলা তর্জমা বোধ হয় এখনও পর্যন্ত প্রকাশিত হয়নি। হয়েছে কি? সেফেরিস এবং এলিটিসেরও পূর্বসূরী কাভাফি, যিনি মৌলিকতায় ও কাব্যিক গুরুত্বে আরও বেশি শীর্ষ পর্যায়ের, তার কবিতার ব্যাপারে আমাদের দীর্ঘ নিরবতাকে আমার কাছে খানিকটা অস্বাভাবিক মনে হয়েছিল তখন। ঐ নিরবতার পুকুরে আমার বইটি ছিল একটি বুদবুদ মাত্র। আমি ধরে নিয়েছিলাম পরে কেউ যোগ্য হাতে কাভাফির কবিতা অনুবাদ করবেন, করেছেনও দেখলাম। ১৯৯৭ সালে পুস্কর দাশগুপ্ত মূল থেকে অনুবাদ করেছেন। কিন্তু তিনি অনুবাদ করার পরেও কেন আমি আবার কাভাফির ‘চিরন্তন’ (নিচে দেখুন) কবিতাটি অনুবাদ করছি? প্রথম কথা হলো, এই কবিতাটি তিনি অনুবাদ করেননি। কেন করেননি জানি না। এর কোনো হদিস কি আগে জানা ছিল না? মনে হয় জানা ছিল না কারোরই। এই কবিতাটি, কাভাফির ইংরেজিতে যেসব অনুবাদ গ্রন্থ সহজলভ্য–জন মাভরোগর্দাতো, এডমান্ড কিলি, ফিলিপ শেরার্ড বা রায়ে ডালভেনের অনুবাদে এটি অন্তর্ভুক্ত হয়নি। কবিতাটির হদিস পাওয়া গেল ২০১২ সালে প্রকাশিত ড্যানিয়েল ম্যান্ডেলসন-এর Complete poems by C. P. Cavafy নামক গ্রন্থে। (সম্পূর্ণ…)

পরের পাতা »

Disclaimer & Privacy Policy  |  About us  |  Contact us

© bdnews24.com